ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শ্রীশ্রী হরিভক্তিবিলাস থেকে জেনে নেই জপ বিধি

Link Copied!

জেনে নেই জপ বিধি . সনাতন ধর্মের একটি শাখা সম্প্রদায় বৈষ্ণবধর্ম । এই সম্প্রদায়ে বিষ্ণু বা তাঁর অবতারগণ (মুখ্যত কৃষ্ণ) আদি তথা সর্বোচ্চঈশ্বর রূপে পূজিত হন। বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ ও ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপটের পরিপ্রেক্ষিতে এই পূজায় ঈশ্বর নারায়ণ, কৃষ্ণ, বাসুদেব, বা সাধারণভাবে “বিষ্ণু” বা তাঁর অবতারগণের নামে অভিহিত হন। হিন্দুধর্মের বহুদেববাদী ছত্রতলে থেকেও বৈষ্ণবধর্মে ভক্তির প্রসঙ্গে একেশ্বরবাদের ধ্বনি শোনা যায়। এটি চৈতন্য বৈষ্ণববাদ নামেও পরিচিত। খ্রিষ্টীয় ষোড়শ শতাব্দীতে পূর্ব ভারতের চৈতন্য মহাপ্রভু (১৪৮৬-১৫৩৪) দ্বারা অনুপ্রাণিত একটি বৈষ্ণব হিন্দু ধর্মীয় আন্দোলন। এই কারণে এই মত চৈতন্য বৈষ্ণববাদ নামেও পরিচিত। “গৌড়ীয়” শব্দটির উৎস বঙ্গের প্রাচীন নাম “গৌড়” শব্দটি থেকে। গৌড়ীয় বৈষ্ণব ধর্মোপাসনার কেন্দ্রীয় বিষয় হল রাধা ও কৃষ্ণ এবং তাদের বিভিন্ন দৈব অবতারকে স্বয়ং ভগবান বা সর্বোচ্চ ঈশ্বর রূপে পূজা করা। বৈষ্ণব সম্প্রদায়ের ভক্তিবাদের প্রধান কর্ম জপ। আর সাধনভজন, জীবন যাপনের নির্দেশনা নিয়ে রচিত শ্রীশ্রী হরিভক্তিবিলাস থেকে জেনে নেই জপ বিধি ।  জেনে নেই জপ বিধি

জপ বিধি(পৃষ্ঠাঃ ৯৫৩ থেকে শুরু, ১৭শ বিলাশ; শ্রীশ্রী হরিভক্তিবিলাসঃ) অক্ষমালা ও মুদ্রা এই দুইটি গুরুসমীপেও দেখাইতে নাই; কেননা প্রকাশ্যভাবে জপ ভূত, রাক্ষস, বেতাল, সিদ্ধ ও গন্ধর্ব্ব কর্তৃক অপহৃত হয়; সুতরাং মালা গুপ্তভাবে জপ করাই বুদ্ধিমানের কর্ত্তব্য।৫৮

অতঃপর জপবিষয়ক দোষ-সমূহ ব্যক্ত হইতেছে –নারদপঞ্চরাত্রে লিখিত আছে, অপবিত্র হস্তে(কুশরহিত হস্তে), নগ্নাবস্থায়, প্রাবৃত-মস্তকে এবং বাক্‌প্রয়োগ করিতে করিতে জপ করিলে তাহা বিফল হইয়া যায়।৫৯

আরও লিখিত আছে, কথা কহিতে, গমন করিতে করিতে, শয়নাবস্থায়, অপর কোন বিষয় চিন্তা করিতে করিতে অথবা ক্ষুৎ(হাঁচি), জৃস্তণ(হাই) ও হিক্কাদি দ্বারা ব্যাকুলমনা হইয়া জপ করিলে মন্ত্রসিদ্ধির সম্ভাবনা নাই; সুতরাং জপকালে এতৎ সমস্ত ত্যাগ করিতে যত্নবান হইবে। আরও লিখিত আছে, জপকালে নারী-জাতি বা শূদ্রের সহিত কথোপথন করিতে নাই এবং নিশাভাগেও জপ করিবে না। ব্যাস স্মৃতিতে লিখিত আছে, অঙ্গুলাগ্রে জপ করিলে, মেরুলঙ্ঘন পূর্ব্বক জপ করিলে অথবা বিনা সংখ্যায় জপ করিলে তাহা বিফল হইয়া থাকে। বৈশম্পায়নসংহিতায় লিখিত আছে, এক বসনধারী হইয়া জপ করা পুরশ্চরণকারীর অকর্ত্তব্য, বহু বস্ত্রেও আকুল হইতে নাই; পরিধেয় উত্তরী ব্যতীত আর সমস্ত বহির্বসন ত্যাগ করিবে।৬০।

মন্ত্রার্ণবে লিখিত আছে, উষ্ণীষধারী হইয়া, নগ্ন হইয়া, মুক্ত কেশ হইয়া এবং গলদেশে বস্ত্রাদি বেষ্টন পূর্ব্বক জপ করিতে নাই; কুশহীন হস্তে, শৌচদিবিহীন হইয়া ও বাক্‌প্রয়োগ করিতে করিতেও জপ করা নিষিদ্ধ।৬১

কর আবরণ না করিয়া, শিরোদেশ আচ্ছাদিত করিয়া, চিন্তিতমনা হইয়া, রুষ্ট, ভ্রান্ত বা ক্ষুধার্ত হইয়া, আসনোপরি উপবিষ্ট না হইয়া, শয়ন করিয়া অথবা গমন করিতে করিতে, দণ্ডায়মান হইয়া, উচ্চপথে স্থিত হইয়া এবং শ্মশানাদি অশুভ স্থলে বা অন্ধকারপ্রদেশে জপ করা অকর্ত্তব্য। পাদুকাধারণ পূর্ব্বক, যানারূঢ় বাঁ শয়ান অবস্থায়, চরণ প্রসারণ করিয়া এবং উৎকটাসনে বসিয়াও জপ করিবে না।৬২

যাজ্ঞবল্ক্যসংহিতায় লিখিত আছে, সমন্তাৎ ভ্রমণ করিতে করিতে, হাস্য করিতে করিতে, পার্শ্বভাগে দৃষ্টি নিক্ষেপ করিতে করিতে, অনাশ্রম স্থলে, বাক্‌ প্রয়োগ করিতে করিতে অথবা শির প্রদেশ আবরণ পূর্ব্বক জপ করা নিষিদ্ধ।৬৩

হস্ত দ্বারা হস্ত বাঁ পদ দ্বারা পদ আক্রমণ পূর্ব্বক জপ করিবে না এবং চপলচিত্তে বাঁ সন্দিগ্ধমনেও জপ করিতে নাই।৬৪

জপসময়ে মনে মনে চিন্তন করিবে, জিহ্বা বা ওষ্ঠ চালনা করিতে নাই, শিরোদেশ ও গ্রীবাদেশ কম্পিত করিবে না, এবং দশন বিকাশ ও নিষিদ্ধ। ৬৫

প্রকাশ্যভাবে জপ করা অনুচিত, কেননা, তদ্রূপ করিলে সেই জপ যক্ষ, রক্ষঃ, ভূত, সিদ্ধ, বিদ্যাধর ও দেবগণ কর্ত্তৃক সবলে অপহৃত হয়। জপ সময়ে নারী, শুদ্র, পতিত ব্যক্তি, রাসভ ও রজস্বলা ইহাদিগকে দর্শন বা তাহাদের সহিত কথোপকথন করিবে না। ব্রত হোমাদিকর্ম্ম কালেও উহাদিগের সহিত সম্ভাষণ নিষিদ্ধ। ত্রৈলোক্যসম্মোহনতন্ত্রে লিখিত আছে, জপকালে বিতীতক(বহেড়া) ও করঞ্জ(করম্‌চা) বৃক্ষের ছায়া আক্রমণ করা সুধী ব্যক্তির অকর্ত্তব্য। যতক্ষণ জপ করিবে, তন্মধ্যে কোন ব্যক্তিকে কিছুই দান বা কোন ব্যক্তির নিকট থেকে কিছু গ্রহণ করিতে নেই। ৬৬

অনন্তর জপকালে দোষের প্রায়শ্চিত বিবৃত হইতেছে।– জপকালে মৌনভাবে উপবেশন করিতে হয়, তৎকালে চণ্ডাল বা পতিত ব্যক্তিকে হঠাৎ দর্শন করিলে আচমন করিবে, তাহাদিগের সহিত কথোপকথন করিলে স্নানান্তে পুনরায় জপে প্রবৃত্ত হইতে হয়। যদি জপকালে মলমূত্রাদি দৃষ্টিপথে নিপতিত হয়, তাহা হইলে আচমন করিয়া পুনর্জপে সযত্ন হইবে।৬৭

আরও লিখিত আছে, জপ করিতে করিতে কোন রূপে বিহিত নিয়মের ভঙ্গ হইলে বিষ্ণু নামাত্মক মন্ত্র বা অব্যয় হরি স্মরণ করিবে।৬৮

মন্ত্রার্ণবে লিখিত আছে, জপকালে পতিত ও অন্ত্যজগণকে দেখিলে বা তাহাদিগের সহিত কথোপকথন করিলে অথবা তাহাদিগের বাক্য শ্রুতিপ্রবিষ্ট হইলে এবং ক্ষুৎ, অধোবায়ুত্যাগ ও জৃস্তণ হইলে জপ ত্যাগ করিতে হয়।৬৯

পতিত ও অন্ত্যজগণকে দেখিলে আচমনান্তে প্রাণায়াম ও ষড়ঙ্গন্যাস করিবে কিংবা আদিত্য দর্শন পূর্ব্বক জপ সমাপন করিবে।৭০

জপকালে জার্জ্জার, কুক্কুট, বক, কুক্কুর, শূদ্র, রাসভ ও বানর দৃষ্টিপথে পতিত হইলে আচমন করিতে হয় এবং ইহাদিগকে স্পর্শ করিলে স্নানান্তে পুরায় জপে প্রবৃত্ত হইবে।৭১

নারদপঞ্চরাত্রে লিখিত আছে, জপকালে যদি একবারমাত্র শব্দ উচ্চারিত হয়, তাহা হইলে প্রণব উচ্চারণ করিবে, কথা কহিলে বারৈক প্রাণায়য়াম কর্ত্তব্য। বহুবাক্য প্রয়োগ হইলে আচমনান্তে অঙ্গন্যাস পূর্ব্বক জপে প্রবৃত্ত হইবে এবং ক্ষুৎ বা দেহের কোন অস্পৃশ্যস্থল স্পৃষ্ট হইলে ঐরূপ করিয়া জপে প্রবৃত্ত হইতে হয়। অন্যত্রও লিখিত আছে যে, যদি মালার সূত্র জীর্ণ হয়, তাহা হইলে পুনরায় সূত্র গ্রন্থন শতধা জপ কর্ত্তব্য। অনবধানতা নিবন্ধন মালা করভ্রষ্ট হইলে এক শত অষ্টধা জপ করিবে এবং পূর্ব্ববৎ নিষিদ্ধ স্পৃষ্ট হইলে পূর্ব্বোক্ত মন্ত্র পাঠ ও পঞ্চগব্যাদি দ্বারা ধৌত করত এক শত অষ্টবার জপ করিতে হয়। ৭২

অনন্তর জপভেদ ও তল্পক্ষণাদি বিবৃত হইতেছে। ৭২

নৃসিংহপুরাণে লিখিত আছে, জপযজ্ঞ ত্রিবিধ, তাহা অবধান কর, -বাচিক, উপাংশু ও মানস। এই ত্রিবিধ জপযজ্ঞ পরস্পর উত্তরোত্তর শ্রেষ্ঠ। উচ্চ, নীচ ও স্বরিত (উদাত্ত, অনুদাত্ত ও স্বরিত) নামক স্বরযোগে সুপরিস্কৃত বর্ণ দ্বারা স্পষ্টভাবে মন্ত্র উচ্চারিত হইলে তাহাকে বাচিক জপ বলা হয়।৭৩

যে জপে মন্ত্র ধীরে ধীরে উচ্চারিত হয়, ওষ্ঠযুগল কিঞ্চিম্মাত্র চালিত হইতে থাকে এবং কেবল নিজের শ্রুতিগোচর হয় এইভাবে ঈষম্মাত্র শব্দ উচ্চারিত হয়, তাহাকে উপাংশু জপ কহে।৭৪

নিজ বুদ্ধি যোগে এক বর্ণ হইতে অন্য বর্ণ এবং এক পদ হইতে অন্য পদের এবং অর্থের যে চিন্তন, তাহার পুনঃপুনঃ আবৃত্তির নাম মানস জপ।৭৫

এই বিষয়ে যাজ্ঞবল্ক্যের উক্তি আছে যে, উপাংশু জপ হইতে বাচিক জপ শতগুণ এবং মানস জপ সহস্ত্রগুণে প্রধান; কেননা, মানস জপ ধ্যানের সদৃশ।৭৬

মন্ত্রার্ণবে লিখিত আছে, কেবলমাত্র বর্ণরূপী মন্ত্র পশুভাবে সংস্থিত। যদি উহা সুষুমা নাড়ীর রন্ধ্রপথে সমুচ্চারিত হয়, তাহা হইলে শক্তি প্রাপ্ত হইয়া থাকে।৭৭

হে দ্বিজসত্তমগণ! সর্ব্বত্র এবং সর্ব্বদাই মানস জপ করিতে পারে, তাহাতে দোষ নাই, সুতরাং জপনিষ্ঠ ব্যক্তি সর্ব্বযজ্ঞ ফল প্রাপ্ত হইয়া থাকে।৭৮

অপবিত্র বা পবিত্র অবস্থাতে হউক, কিংবা গমণ করিতে করিতে, দণ্ডায়মান হইয়া বা শয়ান অবস্থাতেই হউক, এক মাত্র মন্ত্রের আশ্রয় গ্রহণ পূর্ব্বক নিরন্ত্রর মনে মন্ত্র আবৃত্তি করা বিধান্‌ ব্যক্তির কর্ত্তব্য। স্থানান্তরে লিখিত আছে যে, সিদ্ধিকামী ব্যক্তির পক্ষে মানস ও পুষ্টিকামীর পক্ষে উপাংশু জপই কর্ত্তব্য। মারণোচ্চাটনাদি কর্ম্মে বাচিক জপের অনুষ্ঠান করিবে। ৭৯ (পৃঃ ৯৫৭)

http://www.anandalokfoundation.com/