বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের কিছু প্রশ্ন

    নিউজ ডেস্ক
    October 21, 2021 10:58 pm
    Link Copied!

    বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে সংখ্যালঘুদের কিছু প্রশ্ন
    প্রশ্ন নং ১ > ২০০১ সালে ২৭ হাজারের মতো খুন-ধর্ষণ-অত্যাচার-নির্যাতনের ঘটনা ঘটেছিলো বাংলাদেশের হিন্দুদের উপর। ঘটনার ২০ বছর পেরিয়ে গেলেও আপনি একটা ঘটনারও বিচার করেন নি কেনো ? অথচ নিজের উপর হওয়া হামলার ঘটনার বিচার কিন্তু আপনি ঠিকই করেছেন। আপনি কি নিজের পিতার হত্যার সাথে জড়িত রাজাকার আলবদর এবং নিজের উপর হওয়া ঘটনার বিচার ছাড়া, হিন্দুদের সাথে হওয়া অত্যাচারের বিচারে বিশ্বাস করেন না ?
    প্রশ্ন নং ২ > আপনার শাসনামলেই বাংলাদেশের বহু জায়গায় বহু বার ইসলাম অবমাননার মিথ্যা অভিযোগে হিন্দুদেরকে অভিযুক্ত করে হিন্দুদের বাড়ি ঘর এবং মন্দিরে হামলা করা হয়েছে, সেগুলো ভাংচুর করা হয়েছে, তাতে অগ্নি সংযোগ করা হয়েছে এবং লুটপাট করা হয়েছে, আপনি কি এগুলোর কোনো একটার বিচার করে মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে হিন্দুদের বাড়ি ঘরে হামলা করতে উসকানি দাতা বা হামলাকারীদেরকে শাস্তি দিয়েছেন ? কঠোর বা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি, যা দেখে অন্যরা এই কাজে আর উৎসাহ দেখাবে না, সেটা তো দূরের কথা, সাধারণ বিচারও কি কখনো করেছেন ?
    প্রশ্ন নং ৩ > হিন্দুরা যখন উগ্র মুসলিমদের দ্বারা আক্রান্ত হয়, তখন আপনার পুলিশকে তা জানানো সত্ত্বেও দ্রুত তারা ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি সামলায় না কেনো ? নোয়াখালির ইস্কন মন্দিরে হামলা শুরু হওয়ার পর প্রায় তিন ঘণ্টা পর পুলিশ সেখানে গিয়েছিলো, যার আগেই সেখানে ২/৩ জন লোক মারা যায়, সেটা আপনি জানেন ?
    প্রশ্ন নং ৪ >হিন্দুদের উপর যত হামলা হয়, প্রায় সব হয় মসজিদের মাইকে ঘোষণা দিয়ে, আপনি কি কখনো মসজিদের মাইকের এমন ব্যবহারের বিরুদ্ধে কোনো কথা বলেছেন বা মসজিদের মাইকে ঘোষণা দেওয়ায় কোনো উস্কানিদাতাকে বিচারের আওতায় এনেছেন ?
    প্রশ্ন নং ৫ > বর্তমানে বাংলাদেশের জনসংখ্যার অর্ধেকের বেশি মানুষ আওয়ামী লীগের অনুসারী, তারা যদি চায় হিন্দুদের রক্ষা করতে, সেটা কিন্তু তারা সহজেই পারে। তারপরও বিভিন্ন স্থানে হিন্দুদের উপর নির্বিচারে হামলা হয় কিভাবে, যদি তার সাথে আওয়ামীলীগের লোকজন জড়িত না থাকে ?
    প্রশ্ন নং ৬ > ২০১৩ থেকে ২০২১ এর মধ্যে হিন্দুদের সাথে ঘটা অত্যাচার নির্যাতনের সংখ্যা প্রায় ৪ হাজার, কখনো কি অনুভব করেছেন বাংলাদেশের হিন্দুরা কী পরিমাণ যন্ত্রণা নিয়ে বাংলাদেশে বাস করছে ?
    প্রশ্ন নং ৭ > সাম্প্রদায়িক হামলার শিকার পরিবারগুলোকে প্রাথমিকভাবে কিছু অর্থ সাহায্য দিয়ে বা ঘর বাড়ি তৈরি করে দিয়ে আপনি তাদরে যন্ত্রণায় মলম হয়তো মাঝে মাঝে লাগান; কিন্তু কোনটা জরুরী, হামলাকারীদেরকে শাস্তি দেওয়া, না আক্রান্তদের কিছু ভিক্ষা দেওয়া ?
    প্রশ্ন নং ৮ > নিজেকে আপনি বড় মুসলিম ভাবেন, কিন্তু কিভাবে আপনার নবীর হাদিস- যে জাতি তার নেতৃত্ব কোনো নারীর হাতে দেয়, সে জাতি ধ্বংস হয়ে যায়- এটাকে লঙ্ঘন করে আপনি বাংলাদেশী জাতির নেতৃত্ব দেন ?
    প্রশ্ন নং ৯ > জনগনের ট্যাক্সের টাকা দিয়ে আপনি মুসলমানদের জন্য সারাদেশে ৫০ টি মডেল মসজিদ বানিয়ে দেন, কিন্তু ১০% সংখ্যালঘুদের পূজা প্রার্থনার জন্য আপনি কি কোনো মডেল মন্দির, মডেল গীর্জা বা মডেল প্যাগোডা নির্মান করে দিয়েছেন ? সরকারী ট্যাক্স তো বাংলাদেশের সংখ্যালঘুরাও দেয়।
    প্রশ্ন নং ১০ > প্রতি বছর বাজেটে ৩০ থেকে ৩৫ হাজার কোটি টাকা রাখেন ইসলাম প্রচারের জন্য। কিন্তু অন্য ধর্ম প্রচারের জন্য কত টাকা বাজেটে রাখেন ? ৩০/৩৫ হাজার কোটির মধ্যে ১০% অর্থাৎ ৩/৪ হাজার কোটি টাকা কিন্তু বাংলাদেশের সংখ্যালঘুদের ট্যাক্সের টাকা।
    প্রশ্ন নং ১১ > আপনার পিতা অভিযোগ করতেন- পশ্চিম পাকিস্তান, পূর্ব পাকিস্তানের টাকা দিয়ে অস্ত্র কিনে পূর্ব পাকিস্তানের লোকদেরকেই মারার জন্য তাক করে আছে। আর বর্তমানে আপনি হিন্দুদের ট্যাক্সের টাকা দিয়ে মসজদি বানিয়ে, মাদ্রাসা চালিয়ে জঙ্গী তৈরি করে, সেই জঙ্গী দিয়েই হিন্দুদেরকে মারছেন, আপনার আর তৎকালীন পশ্চিম পাকিস্তানের শাসকদের মনোভাবের মধ্যে পার্থক্য কী ?
    প্রশ্ন নং ১২ > হেফাজত ইসলামের ইচ্ছা অনিচ্ছা অনুসারে আপনি পাঠ্যপুস্তকে সংযোজন বিয়োজন করেন, যাতে প্রতিবারই হিন্দু লেখকদের লেখাই শুধু বাদ যায়। তো সেই হেফাজত যখন বললো যে- দেশে কোনো মূর্তি রাখা যাবে না, এমনকি বঙ্গবন্ধুর মূর্তিও নয়, এটাই ইসলামের অনুশাসন, তখন একজন মুসলিম হয়ে তাদের উপর এমন খড়গহস্ত হলেন কেনো ?
    প্রশ্ন নং ১৩ > মাদ্রাসা পড়ুয়া যে জঙ্গীদেরকে আপনি চটাতে চান না, না চাইতেই যাদেরকে আপনি অনেক কিছু দিয়ে দেন, সেই জঙ্গীরা যখন আপনার আসকারাতেই একদিন শক্তিশালী হয়ে রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করবে, তখন তারা কি একজন নারী হয়ে রাষ্ট্র চালানোর অপরাধে, আপনাকে জীবিত রাখবে, না আপনাকে পালাতে দেবে ?
    প্রশ্ন নং ১৪ > মাদ্রাসা পড়ুয়া জঙ্গীরা একবার ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ওস্তাদ আলাউদ্দীন খাঁ সঙ্গীত কলেজ আগুনে পুড়িয়ে দিয়েছিলো, আপনি তাদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নিয়েছিলেন ? শাস্তিমূলক কোনো ব্যবস্থাই নেন নি, আর এটা করে আপনি কি জঙ্গীদেরকে এই বার্তা দেন নি যে- তোরা যা করেছিস, সেটা একদম ঠিক, চালিয়ে যা, আমি আছি তোদের পাশে ?
    প্রশ্ন নং ১৫ > আলাউদ্দীন খাঁ সঙ্গীত কলেজ পোড়ানোর অভিজ্ঞতা নিয়েই পরবর্তীতে সেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সেই জঙ্গীরা একটি লাইব্রেরী পুড়িয়েছিলো মোদীর বাংলাদেশ সফর উপলক্ষ্যে, কোনো দেশে যখন কেউ লাইব্রেরী পুড়িয়ে দেয়, তখন সেই দেশকে কি সভ্য দেশ বলে ? আপনার কি মনে হয় লাইব্রেরী পোড়ানোর পরেও বাংলাদেশকে সভ্য দেশ হিসেবে গণ্য করা যায় ?
    প্রশ্ন নং ১৬ > আপনার শাসনামলেই বিমানবন্দরের সামনে একটি বাউল ভাস্কর্য বসানো হচ্ছিলো, অর্ধেক নির্মানের পরে পাশের মাদ্রাসা পড়ুয়া জঙ্গীরা এসে সেটাকে ভেঙ্গে ফেলে, যেখানে পরবর্তীতে একটি বলাকার ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে। লালনের ভাস্কর্য ভেঙ্গে ফেলা কি আপনার নীরব সম্মতি ছাড়া সম্ভব হয়েছিলো ?
    প্রশ্ন নং ১৭ > উপরে যে প্রশ্নগুলো করেছি, তার দ্বারা এটা প্রমাণিত যে- আপনি চান না হিন্দুরা এদেশে নিরাপদে বাস করুক বা বাংলাদেশে বাঙ্গালি সংস্কৃতি টিকে থাকুক, তারপরও আপনি কিভাবে হিন্দুদের ভোট বা যারা বাঙ্গালি সংস্কৃতিকে রক্ষা করতে চায়, তাদের ভোট প্রত্যাশা করেন ?
    প্রশ্ন নং ১৮ > আপনি বলেছেন ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়। কিন্তু কওমী মাদ্রাসার দাওরা হাদিসকে মাস্টার্সের সমমান দিয়ে, কওমী মাদ্রাসার সমকামীদের দাবিকে মেনে নিয়ে তাদের ইচ্ছামতো পাঠ্যপুস্তক প্রণয়ন করে, ইসলামের প্রসারের জন্য প্রতি বছর বাজেটে ৩০/৩৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়ে, জনগনের ট্যাক্সের টাকায় সারাদেশে ৫০ টি মডেল মাদ্রাসা বানিয়ে দিয়ে, আপনিই কি ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করেন নি ? আর এসব কারণে কি আপনার মনে হয় না যে আপনি শুধু বাংলাদেশের মুসলমানদের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন, সকল বাংলাদেশীর নয় ?