13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্রী সহ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত চার নারী আবারও যুক্তরাজ্যের নির্বাচনে বিজয়ী

Link Copied!

লেবার পার্টি থেকে বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্রী টিউলিপ সিদ্দিকসহ বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত চার নারী আবারও যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন। এ ছাড়া টাওয়ার হ্যামলেটসের বেথনাল গ্রিন ও স্টেপনি আসন থেকে রুশনারা আলী টানা পঞ্চমবার, পপলার অ্যান্ড লাইম হাউস আসন থেকে আফসানা বেগম দ্বিতীয়বা‌র এবং লন্ড‌নের ইলিং সেন্ট্রাল ও একটন আসনে টানা চতুর্থবা‌র জয়ী হয়েছেন ড. রূপা হক। তারা সবাই লেবার পার্টি থেকে নির্বাচনে লড়েছেন।

বাংলাদেশি প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভোটের ব্যবধানে দ্বিতীয়বা‌র বিজয়ী হয়েছেন লেবার পা‌র্টির আফসানা বেগম। ১৮ হাজার ৫৩৫ ভোট পেয়েছেন তিনি। প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী গ্রিন পার্টির নাথালি বেইনফিট পান ৫ হাজার ৯৭৫ ভোট। টাওয়ার হ্যামলেটসের শ‌্যাডওয়েলে আফসানার জন্ম ও বেড়ে ওঠা। বাংলাদেশে তার বাবার বাড়ি সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে। তার এ জয়ে জগন্নাথপুর উপজেলাবাসীর মধ্যে আনন্দ বিরাজ করছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাকে অভিনন্দন জানিয়ে পোস্ট দেওয়া হচ্ছে।

রুশনারা আলী তার আসনে ভোট পান ১৫ হাজার ৮৯৬টি। প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী বাংলা‌দেশি বং‌শোদ্ভূত আজমল মাশরুর পেয়েছেন ১৪ হাজার ২০৭টি ভোট। ৪ হাজার ৭৭৭ ভোটে তৃতীয় হয়েছেন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী রাবিনা খান। এ আ‌সনের অপর দুই স্বতন্ত্র বাংলা‌দেশি বংশোদ্ভূত প্রার্থী স‌্যাম উদ্দীন ৩২৫ ও সুমন আহমদ ৩১৫ ভোট পে‌য়ে‌ছেন।

ড. রূপা হক ২২ হাজার ৩৪০ ভোট পেয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী কনজার‌ভে‌টিভ পা‌র্টির জেমস উইন্ডসর ক্লাইভ পেয়েছেন ৮ হাজার ৩৪৫ ভোট। ৫২ বছর বয়সী এই নারী লন্ড‌নের কিংসটন বিশ্ব‌বিদ্যালয়ে সমাজ‌বিজ্ঞানে শিক্ষকতা করতেন। সর্ব‌শেষ সি‌নিয়র লেকচারার ‌হিসেবে কর্মরত ছি‌লেন। তাঁর বাবার বাড়ি পাবনা শহরের কুঠিপাড়ায়।

টানা চতুর্থবার এমপি হলেন টিউলিপ। তিনি লন্ড‌নের হ্যাম্পস্টেড-কিলবার্ন আসন থে‌কে নির্বাচন করেন। তার জয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন তার মা শেখ রেহানা। গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, ‘আমার মেয়ে আবার এমপি নির্বাচিত হলো। মানুষের সেবায় সে নিষ্ঠার সঙ্গে তার দায়িত্ব পালন করবে। শুধু নির্বাচনের সময় নয়, সারা বছরই সে এলাকায় কাজ করে। সবার কাছে দোয়া চাই, সে যেন তার কাজ নিষ্ঠার সঙ্গে করতে পারে।’ টিউলিপ মোট ২৩ হাজার ৪৩২টি ভোট পেয়েছেন। প্রতিদ্ব‌ন্দ্বী কনজার‌ভে‌টিভ পা‌র্টির প্রার্থী ডন উইলিয়ামস ভোট পান মাত্র ৮ হাজার ৪৬২টি।

১৯৮২ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর যুক্তরাজ্যের লন্ডনে জন্মগ্রহণ করেন টিউলিপ। ১৫ বছর বয়স থেকে তিনি হ্যাম্পস্টেড ও কিলবার্নে বসবাস করছেন। ওই এলাকায় স্কুলে পড়েছেন ও কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। লন্ডনের কিংস কলেজ থেকে পলিটিক্স, পলিসি ও গভর্নমেন্ট বিষয়ে তিনি স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। ভোটে জয়লাভের পর টিউলিপ সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘আপনাদের দোয়ায় চতুর্থবারের মতো আমি নির্বাচিত হলাম। বাংলাদেশি কমিউনিটি সব সময় আমাকে সমর্থন করে। এবারও তারা আমাকে সমর্থন দিয়েছে, এজন্য আমি কৃতজ্ঞ।’

যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে প্রভাবশালী ১ হাজার রাজনীতিবিদের তালিকায় নাম উঠেছিল টিউলিপের। এর পর থেকে মূলত লেবার পার্টিতে তার গুরুত্ব বাড়তে থাকে। বর্তমানে তিনি দলটির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির শিশু, নারী এবং অর্থবিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। ২০১৫ সা‌লের নির্বাচনে লেবার পা‌র্টির নিরাপদ বা ‘সেফ সিট’ নয় এমন আসনে মনোনয়ন পেয়ে প্রথমবারই বাজিমাত করেন টিউলিপ। দু’বার পা‌র্টির ছায়া মন্ত্রিসভায় স্থান পান তিনি। লেবার পা‌র্টি ক্ষমতায় আসায় এবার তিনি মন্ত্রিসভায়ও জায়গা পেতে পারেন। ২০১৭ এবং ২০১৯ সালের নির্বাচনেও এই আসন থেকে জয় পান তিনি।

http://www.anandalokfoundation.com/