ঢাকা

পুলিশ কর্মকর্তার মহানুভবতায় ভ্যান চালক শিশু ফিরে পেল স্কুলের সহপাটিদের

Link Copied!

মাত্র ১১ বছর বয়সে শিশু সাব্বির আহম্মেদকে কাঁধে তুলে নিতে হয়েছে সংসার। আর এই সংসার চালাতে হাতে নিয়েছেন ভ্যানগাড়ি। বাবা পক্ষাঘাতগ্রস্থ হয়ে পড়ার পর থেকে ভ্যান চালিয়ে আয় করে সাব্বির। স্কুল ছেড়ে ভ্যানের হ্যান্ডেল ধরে রাস্তায় রাস্তায় ঘুরতে বাধ্য হয়। এভাবে যা আয় করে তা দিয়েই তাদের তিনজনের সংসার চলছিল।

রবিবার বিকালে ভ্যান নিয়ে বের হয় শিশু সাব্বির। ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার দত্তনগর পুলিশ ফাঁড়ির সামনে দিয়ে যাবার সময় এই অমানবিক দৃশ্যটি চোখে পড়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ সাগর সিকদারের। তিনি বাচ্চাটির সঙ্গে কথা বলে বিস্তারিত শোনেন। ওই দিনই অসুস্থ বাবার কাছে গিয়ে বিকল্প আয়ের ব্যবস্থা করতে করনীয় ঠিক করেন।

সিদ্ধান্ত নেন তার বাড়িতে একটি দোকান করে দেবেন। সোমবার সকালে শিশুটির বাড়ি থেকে সঙ্গে নিয়ে স্কুলে ভর্তি করে দেন। শিশু সাব্বির আহম্মেদ ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার পুড়াপাড়া গ্রামের আব্দুল জব্বারের একমাত্র পুত্র। যুথি খাতুন নামে ১৪ বছরের তার একটি বোন রয়েছে, যে অষ্টম শ্রেণীতে পড়ছে। আব্দুল জব্বার জানান, নিজের কোনো চাষযোগ্য জমি নেই। মাত্র এক কাঠা জমির উপর এক কক্ষের মাটির ঘরে বসবাস করেন। নিজে ভ্যান চালিয়ে যা আয় করতেন তা দিয়ে কষ্ট হলেও চলে যাচ্ছিল।

মেয়েটি অষ্টম শ্রেণীতে আর ছেলে সাব্বির তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ছিল। কিন্তু হঠাৎ এক দূর্ঘটনায় তার সবকিছু এলোমেলো হয়ে যায়। প্রায় ২ বছর পূর্বে একদিন তিনি গ্রামের মাঠে ছাগলের জন্য ঘাষ আনতে যান। হঠাৎ করে জমির আইলে পড়ে যান। গ্রামবাসি তাকে হাসপাতালে নিয়ে যান। অনেক চিকিৎসা শেষে বাড়ি ফিরেছেন, কিন্তু তার ডান হাতটি চিরদিনের জন্য অকেজো হয়ে পড়ে। জব্বার জানান, এই অবস্থায় কিছুদিন জমানো টাকা, আর মানুষের সাহায্যে চলেছেন।

এরপর যখন আর পেরে উঠছিলেন না তখন ছেলের হাতে ভ্যানের হ্যান্ডেল তুলে দেন। ছেলে সাব্বির শিশু হওয়ায় বেশি দুরে যেতেন না, তাদের গ্রাম থেকে দত্তনগর পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার ভ্যান চালিয়ে অর্থ উপার্যন করতেন। এভাবে শিশু সাব্বির কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন সংসার। আব্দুল নজব্বার আরো জানান, শনিবার বিকালে হঠাৎ করে তার বাড়িতে দত্তনগর ফাঁড়ির কর্মকর্তা সাগর সিকদার তার ছেলেকে নিয়ে আসেন। প্রথমে তিনি ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন, ছোট মানুষ কোনো অন্যায় করেছে এই ভেবে। পরে পুলিশ কর্মকর্তা তার কাছে এসে জানতে চান কি করলে

তিনি সংসার চলার মতো আয় করতে পারবেন। তার বাড়িতে পুলিশ দেখে প্রতিবেশিরাও এগিয়ে আসেন। সবাই মিলে ঠিক করেন বাড়িতে একটি টোং দোকান হলে স্বামী-স্ত্রী দু’জন মিলে চালাতে পারবেন। তাৎক্ষনিক ভাবে ওই পুলিশ সদস্য দোকান করতে ১০ হাজার টাকা দিয়ে যান।

আরো বলে যান রবিবার এসে ছেলেকে নিয়ে স্কুলে দিয়ে আসবেন। তার সেই কথা অনুযায়ী রবিবার সকালে এসে ছেলেকে নিয়ে গ্রামের প্রাইমারি স্কুলে নিয়ে যান, সেখানে ভর্তি করে দিয়েছেন। তিনি বলেন, ছেলে ভ্যানের হ্যান্ডেল ছেড়ে আবার কলম ধরলো এটা ভেবে তার খুব ভালো লাগছে। সাব্বির আহম্মেদের সহপাঠী রাকিব হোসেন জানায়, তারা একসঙ্গে পড়তো। মাঝে সাব্বির স্কুলে যেতো না। এটা তাদের কাছে খারাপ লাগতো। আবার যাবে শুনে ভালো লাগছে। প্রতিবেশি রফিকুল ইসলাম জানান, দরিদ্র হলেও একটা সাজানো সংসার এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল।

পুলিশ কর্মকর্তার এই উদ্যোগে সংসারটা আবার সচল হবে। সাব্বির আহম্মেদের স্কুল পোড়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মইনুল ইসলাম জানান, বাচ্চাটি স্কুল ছেড়ে গেলে তারা একাধিকবার খোজ নিয়েছেন। তাকে স্কুলে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করেছেন। কিন্তু সংসারের বোঝা কাঁধে থাকায় ফিরতে পারেনি। পুলিশ কর্মকর্তার সহযোগিতায় বাচ্চাটি স্কুলে ফেরত এসেছে।

তারা বাচ্চাটির সার্বিক খোজখবর রাখবেন বলে জানান। এবিষয়ে পুলিশ কর্মকর্তা সাগর সিকদার জানান, ৫ থেকে ৬ জন যাত্রী নিয়ে শিশুটির ভ্যান চালাতে দেখে তার খারাপ লেগেছিল। তাই দাড় করিয়ে পরিবারের খোজ নেন। সবকিছু জেনে বাবাকে একটি দোকান আর ছেলেটির স্কুলে ভর্তির ব্যবস্থা করেছেন। এটা করতে পেরে তার ভালো লাগছে বলে জানান।

http://www.anandalokfoundation.com/