রবিবার, ১২ জুলাই ২০২০, ১০:২৮ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
অশ্বিনী কুমার দত্তের বাড়ীতে বরিশাল সরকারি কলেজের নাম নিয়ে দাবী মাত্র ৬৭ বছর বয়সে করোনা কেড়ে নিল তপন ঘোষের প্রাণ পাইকগাছায় কাগজি লেবুর চাহিদা বেড়েছে আশাশুনিতে ঠিকাদারের গাফিলতিতে ৫২দিনেও সম্ভব হয়নি বিকল্প বেড়ীবাঁধ নির্মান ৬ দিনেও খোঁজ মেলেনি স্কুলছাত্রী মীমের  ঝিনাইদহে মরমী কবি পাগলা কানাইয়ের মৃত্যুবার্ষিকী পালন ঝিনাইদহে করোনা উপসর্গে আরও ২ জনের মৃত্যু ডিজিটাল পেমেন্টের পাশাপাশি পরিবর্তিত নতুন সময়ে ভার্চুয়াল মুদ্রায় ও মনযোগী -পলক শার্শায় বিদ্যুতের স্পর্শ হয়ে শিশুর মৃত্যু দেশের প্রথম ১০০০ শয্যাবিশিষ্ট সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল নির্মাণ, কার্যক্রম পরিদর্শন উপাচার্যের

ঋতুস্রাবের সময় মন্দিরে যাওয়া বা পুজা দেওয়া উচিত কি না বিস্তারিত জেনে নেই

ঋতুস্রাবে মন্দিরে যাওয়া

নারীদের মাসিক বা (ঋতুস্রাবকালীনে পিরিয়ডের) বিষয় নিয়ে পূজা, উপসনা, ও মন্দিরে উঠতে পারবে না এটা সনাতন হিন্দুধর্মে ধর্মীয় শাস্ত্রীয় নিষেধাজ্ঞা নয় এটা একটি সামাজিক নিষেধাজ্ঞা। ওভালুয়েশন পিরিয়ড/মিন্সের বিষয়টা একেবারেই স্বাভাবিক এবং আমাদের সবার জন্মের জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয়/অত্যাবশ্যক একটি শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া যা অধিকাংশ ছেলেরা সমাজ অপবিত্রতার কারণ মনে করে। এমনকি সমাজের এমন কপাল ঘোচানো-ভ্রু কুঁচকানো আচরণ দেখে নারীরাও একসময় এটাকে অপবিত্রতার লক্ষ্মণ মনে করতে শুরু করে। নতুন একটি প্রাণ পৃথিবীতে আনার পূর্ব প্রক্রিয়াস্বরূপ একটি নারী যখন প্রতি মাসের নির্দিষ্ট দিন গুলোতে ব্যাথায় কুকড়িঁয়ে যায়, দুমড়ে মুচড়ে যায় শরীরের ভেতরের নাড়ী নক্ষত্র পুরুষ বা সমাজ তার কিছুই টের পায় না। কখনো কোন নারীর পাজামায় ভুলবশত ও ঋতুস্রাবকালীন পিরিয়ডের রক্তের বিন্দুমাত্র দাগ দেখা যায়-সমাজ দাত বের করে হাসে আর লজ্জা দেয় নারীকে। অথচ ভাবে না আমাদের সবার মা বোনেই এই দুঃসহ যন্ত্রণা এবং সমাজের অপবিত্র দৃষ্টি উপেক্ষা করেই আমাদের কে এনেছিল পৃথিবীতে। আমাদের সবার মা বোনই মাসের একটা সময় এমন অস্বস্তিকর ভাবে দিন কাটায়। পাশে দাঁড়ানো তো দূরের কথা ভ্রুঁ কুচকে আমরা তার ব্যাথা আর অস্বস্তিকে করে তুলি দ্বিগুন।

ঋতু এর বাংলা অর্থ

১). প্রাকৃতিক অবস্হা অনুযায়ী বছরের বিভাগ, যথা গ্রীষ্ম বর্ষা শীত ইত্যাদি।
২). মেয়েদের মাসিক রজস্রাব, স্ত্রীরজ। [সং. √ ঋ + তু]।
(কাল)— মাসের যে কয়দিন মেয়েদের ঋতুস্রাব চলে।
৩). পতি, (রাজ)— ঋতুশ্রেষ্ঠ বসন্ত।
৪). (পরিবর্তন)— এক ঋতুর পরে আর এক ঋতুর আগমন, ঋতু বদলে যাওয়া। মতী বিণ. রজস্বলা, যার ঋতুস্রাব হয় এমন।
৫). (স্নান)— ঋতুমতী হওয়ার পর চতুর্থ দিন স্নান করার সংস্কার।

মাসিক মানে ঋতুস্রাব ওপর ধর্মীয় নিষেধাজ্ঞা একটি সামাজিক নিষেধাজ্ঞা যা নারীদের রজঃস্রাব জনিত বিষয়। ভারতিয় উপমহাদেশে রজস্রাবকে নারীদেরকে কলঙ্ক ও সামাজিক বাধা হিসেবে গণ্য করা হয় কিন্তু এটা সম্পুর্ণ কুসংস্কার। এবং অধিকাংশ সমাজ ও ধর্মে, সাধারণত একটি ঋতুমতী নারীকে অশুচি বলে মানা হয়ে থাকে। কিন্তু ভারতের আশ্চর্য্য ধর্মীয় ঐতিহ্য বিভিন্ন ধর্ম ও সংস্কৃতির বিভিন্ন মত এই ঋতুস্রাবকে ঘিরে এখনও এটি সনাতন হিন্দু সমাজের অন্যতম কুসংস্কার। এখানে, আমি সনাতন হিন্দু সমাজের নারীর ঋতুস্রাবকে নিষেধাজ্ঞা সম্বন্ধে উল্লেখ করছি—

ব্রাহ্মণ্যবাদে, একটি ঋতুমতী নারীকে অপবিত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয় এবং কিছু নিয়ম দেওয়া হয় অনুসরণ করার জন্য। একজন হিন্দু ঋতুমতী নারীকে রান্নাঘর, পুজোর ঘর এবং মন্দিরে প্রবেশ করার অনুমতি দেওয়া হয় না।  জোরে জোরে কথা বলা, ফুল দিয়ে সেজে ওঠা ও কোনো ব্যক্তিকে স্পর্শ করা নিষেধ। হ্যাঁ, এই ধর্মীয় আচার এখনো অনুসরণ করা হয়! একটি ঋতুমতী নারী সমাজে নিষিদ্ধ বলে মনে করা হয়, এমনকি তার মাসিক শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে পরিবারে ফিরে আসতে অনুমতি দেওয়া হয় না।

কাশ্মীরের নিজস্ব কিছু নিষেধাজ্ঞা ও বিশ্বাস আছে এই রজঃস্রাব নিয়ে। রাজ্যের আইন অনুযায়ী, একটি ঋতুমতী নারী অস্পৃশ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয় না। বরং তাকে তার পরিবার ওই সময়ে যত্নে রাখে। কাশ্মীরিদের মতে, একজন ঋতুমতী নারীর সেবা করলে তারা ভগবানের আশীর্বাদ পেতে পারেন।

আমাদের হিন্দু শাস্ত্রে পৃথিবীকে মাতৃস্থানীয় বলা হয়। বেদে এই রকমই বলা হয়েছে তিনি আমাদের মাতা। পৌরাণিক যুগেও পৃথিবীকে ধরিত্রী মাতা বলা হত।

তাহলে দেখা যাচ্ছে পৃথিবী মহাজাগতিক ধারায় পৃথিবী যখন সূর্যের মিথুন রাশিস্থ আদ্রা নক্ষত্রে অবস্থান করে সেদিন থেকে বর্ষাকাল শুরু ধরা হয়। তাই আমরা জানি মেয়েদের ঋতুকাল বা রজঃস্বলা হয় এবং একজন নারী তারপরই সন্তান ধারণে সক্ষম হন।

ঋতুস্রাবকালীন মেয়েদের অত্যন্ত ঘৃণার দৃষ্টিতে দেখা হয়েছে এই বিষয় নিয়ে সনাতনধর্মের শুদ্ধতা ও পবিত্রতার এই বিষয়টি দেখা যাকঃ—

शुद्धाः पुता योषितो यज्ञिया इमा आपश्चरुमब सर्पन्तु शुभ्राः । अदुः प्रजां बहुलान्पशुन्नः पक्तौदनस्य सुकृतामेतु लोकम् ।।

अथर्ववेद
कन्द–११॑सुक्त–१॑१७

শুদ্ধাঃ পুতা যোষিতো যজ্ঞিযা ইমা আপশ্চরুমব সর্পন্তু শুভ্রাঃ । অদুঃ প্রজাং বহুলান্পশুন্নঃ পক্তৌদনস্য সুকৃতামেতু লোকম্ ।। (অথর্ববেদ ১১/১/১৭)

অনুবাদঃ— এই বিশুদ্ধ, পবিত্র, অতিথিবান যুবতী নারীরা এবং তাদের পবিত্র কাজগুলি যেন পবিত্র নৌযানের মত পবিত্র জাহাজের দিকে চলে যায় এবং পবিত্রতার জন্য পবিত্র খাদ্যের জন্য যজ্ঞের প্রস্তুতি নিচ্ছে। তারা আমাদের উন্নতচরিত্র বংশধর এবং প্রচুর সম্পদ দিতে পারে, এবং যারা ডিভাইনের জন্য খাদ্য প্রস্তুত এবং নিখুঁত করতে পারে তারা জীবনের সর্বোচ্চ অর্জনের ক্ষেত্রগুলিতে পৌঁছাতে পারে।

হিন্দুদের সনাতন ধর্মে সর্বোৎকৃষ্ট মানবতাবাদী ধর্ম বলা হয়েছে। আর হিন্দুদের সনাতন ধর্মশাস্ত্র কে বিশেষ করে বেদে নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠা ও মর্যাদা দান করা হয়েছে। এবং বেদে নারীদের সর্বদা পবিত্র ও শুদ্ধতা প্রতীক হিসেবে দেখা হয়েছে।

নারীদের পূজা করেই সর্বত্র জাত বড় হয়েছে, যে দেশে যে জাতে নারীদের পূজা নেই, সে দেশে সে জাত কখনো বড় হতে পারেনি, কস্মিন কালেও পারবে না। তোদের জাতের যে এত অধঃপতন ঘটেছে। তার প্রধান কারন- এইসব শক্তিমূর্তির অবমাননা করা।
(চিরজাগ্রত স্বামী বিবেকানন্দ)

যে জাতির নারী যত পবিত্র, সেই জাতি তত উন্নত। যে জাতির পুরুষ যত সংযত, সেই জাতি তত উন্নত। তোমরা প্রকৃত উন্নতি লাভ কর।
(শ্রী স্বামী স্বরূপানন্দ পরমহংসদেব)।

একমাত্র সনাতন হিন্দু সমাজেই নারীকে সর্ব্বোচ্চ মর্য্যাদা দান হয়ে ছিল, তাই হিন্দু সমাজেই নারীর আদর্শ ও কীর্ত্তি-গরিমা পরিপূর্ণরূপে অতুলনীয় গৌরবে বিকশিত হয়েছিল। হিন্দুসমাজে নারীর মর্য্যাদা শুধু দাম্পত্য, পারিবারিক, সামাজিক ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধ নয় ; হিন্দু-সমাজে নারী দেবী, ভগবতী, বিশ্বজননী। হিন্দুর চোখে নারী শুধু স্নেহ-প্রীতি-শ্রদ্ধা-সন্মানের পাত্রী নয়; নারী দেবীরূপে পূজিতা।
(ঋষির অনুশাসন)

যত্র নার্য্যস্ত পূজ্যস্তে রমস্তে তত্র দপবতা” নারী যে সমাজে পূজা পান দেবতাগণ সেথায় বিরাজ করেন। বৈদিক ধর্মে নারী অর্থাত্ ‘মা’ কে দেবীজ্ঞানে শ্রদ্ধা করা হয়। (তৈত্তরীয় উপনিষদ : শিক্ষাবল্লী, ১১ অনুবাক)। মৈত্রেয়ী গার্গী প্রভৃতি প্রাতঃস্মরণীয়া নারীরা ব্রম্মবিচারে ঋষিস্থানীয়া হয়ে রয়েছেন। হাজার বেদজ্ঞ ব্রাহ্মণের সভায় গার্গী সগর্বে যাজ্ঞবল্ককে ব্রম্মবিচারে আহবান করেছিলেন।

সরাসরি ঋতুস্রাবকালীন বিধিবিধান নিয়ে বিস্তারিত নেই। কেননা বেদ মন্ত্রদ্রষ্টা ঋষিরা জানতেন এটা স্বাভাবিক বিষয়। ঋতুস্রাবকালীন বিধিনিষেধ এবং নারীদের পবিত্র ও শুদ্ধতা নিয়ে বিস্তারিত রয়েছে মনুসংহিতা, ধর্মসূত্রে, (বেদাঙ্গ কল্পের অন্তর্গত বিধানসমগ্র) ও স্মৃতিতে।

ঋতুকালীন নারীদের মন্দিরে প্রবেশাধিকার সরাসরি নিষিদ্ধ করা হয়নি কোথাও। যেহেতু বারবার এই বিষয়টি বর্ণিত যে ঋতুস্রাবকালীন সময়ে নারী তপস্বিনীর ন্যায় আচরণ করবে, তাই মন্দিরে প্রবেশাধিকার আছে বলেই প্রতীয়মান হয়। তবে পূজা করার অনুমতি (অঙ্গিরস স্মৃতি ৩৭) ও অগ্নির কাছে না যাবার কথা আছে। (বশিষ্ট ধর্মসূত্র ৫/৬)

নারীর তপস্বিনীর ন্যায় আচরণ ও ঋতুকালীন সময় যে তার শুদ্ধতার পবিত্র প্রতীক তা মনুসংহিতা ও বশিষ্ঠ ধর্মসূত্রে বর্ণিত রয়েছে।।

মৃত্তৌয়ঃ শুধ্যতে শোধ্যং নদী বেগম শুধ্যতে। রজসা স্ত্রী মনোদুষ্টা সন্ন্যাসেন দ্বিজোত্তমঃ।।
(মনু ৫/১০৮)

অনুবাদঃ— মালিন বস্তু মৃত্তিকা ও জলাদি দ্বারা শুদ্ধ হয়, নদী শ্লেষ্মাদি-দূষিত হইলে শ্রোতে শুদ্ধ হয়। স্ত্রীলোক মনে মনে পরপুরুষামুকী হইলে ঋতু হইলেই শুদ্ধ হয় ব্রাহ্মণ পাপাচরণ করিলে ব্রহ্ম চিন্তন দ্বারা শুদ্ধ হয়।

(বশিষ্ঠ ধর্মসূত্র ২৮/২-৩ তে বর্ণিত হয়েছে)।

অর্থাৎঃ— অগ্নিহোত্র যজ্ঞের অনুমতি নেই। নারীর তপস্বিনীর ন্যায় আচরণ ও ঋতুকালীন সময় যে তার শুদ্ধতার প্রতীক।
(মনুসংহিতা ও বশিষ্ট ধর্মসূত্রে বর্ণিত)

রজস্বলা নারীতে যে পুরুষ সঙ্গত হয় তার বুদ্ধি, তেজ, বল, আয়ু ও চক্ষু ক্ষয় পায়।
(মনুসংহিতা, ৪/৪১)

ঋতুকালীন মলিন-বসন পরিত্যাগ করেছে সে নারীদের মধ্যে শ্রীযুক্তা বা লক্ষ্মীস্বরূপা।
(বৃহদারণ্যক, ৬/৪/৬)

নারী হলো মঙ্গলময়ী লক্ষ্মীস্বরূপ।
(অথর্ববেদ, ৭/১/৬৪)

মনের নিয়ন্ত্রণঃ— মন দি–রকমের। শুদ্ধ–অশুদ্ধ; পবিত্র–অপবিত্র। কামনা–বাসনা, ভোগ–লালসার যাবতীয় সঙ্কল্প বা ইচ্ছা হলো অশুদ্ধ মনের। আর শুদ্ধ বা পবিত্র মনের কোনো লৌকিক কামনা–বাসনা নেই।
(অমৃতবিন্দু উপনিষদ, ১)

আত্মা নারীও নন, পুরুষও নন এবং নপুংসকও নন। (কর্মের ফলে) আত্মা বিভিন্ন শরীর ধারণ করেন এব্য সেই সেই রূপেই তিনি পরিচিত হন।
(শ্বেতাশ্বতরোপনিষদ, ৫/২০)

(ব্রহ্ম) তুমি নারী, তুমিই পুরুষ; তুমি বালক, বালিকাও তুমি; তুমিই বৃদ্ধ, তুমিই নানা রূপে জন্ম নাও।
(শ্বেতাশ্বতরোপনিষদ, ৪/৩)

আত্মাতে নর–নারী ভেদ নেই। দেহে সম্বন্ধেই নর–নারী ভেদ। অতএব আত্মাতে নারী–পুরুষ ভেদ আরোপ করা ভ্রমমাত্র—শরীর সম্বন্ধেভ তা সত্য। অজ্ঞানই বন্ধনের কারণ।

—[‘স্মরণং কীর্ত্তনং কেলিঃ….মুমুক্ষুভিঃ– স্ত্রীণং নিরীক্ষণ-স্পর্শ-সংলাপ-ক্ষেলনাদিকম্….ত্যজেৎ’ ; (মনু সংহিতা ২।১৭৯)— ‘….স্ত্রীণাঞ্চ প্রেক্ষণালম্ভম্….]।

হিন্দুধর্মের প্রতিটি শাস্ত্রে নারী যেমন মাতাকে যতদূর সম্ভব মহীয়সী করিয়া প্রত্যেকটি জননীকে জগজ্জননীর প্রতিমূর্ত্তি বলিয়া করা হয়।
(শ্রীশ্রী চণ্ডী, ৫/৭২-৩)

যে নারী হিন্দুশাস্ত্রে উপদেশ দেয় তিনি ‘রমণী‘। ঋষিগণ নারীদেহের আকর্ষণীয় বস্তুগুলির অসারত্ব বিশ্লেষণ করিয়া দেখাইয়াছেন।

(নারদ-পরিব্রাজক উপনিষদ, ৪/২৯-৩০)

সত্যমেব জয়তে নানৃতং সত্যেন পন্থা বিততো দেবযানঃ।
(মুণ্ডকোপনিষদ, ৩/১/৬)

অনুবাদঃ— একমাত্র সত্যেরই জয় হয়, মিথ্যার নয়। কারণ, সেই দেবযান নামক পথ সত্যের দ্বারা লাভ করা যায়।

সনাতন ধর্মে একসময় নারীদের বেদ শাস্ত্রপাঠ ছিল। পরমপুরুষ মনুর মতে নারী পবিত্র। নারীরা কখনোই অপবিত্র নন। মাসের নির্দিষ্ট সময়ে সাময়িক অসুবিধা তাদের সমস্ত মনের পাপ ধুয়েমুছে সাফ করে পবিত্রতা আরো বৃদ্ধি করে।
(বশিষ্ট ধর্মসূত্র, ২৮/৯)

পূজা দেওয়া যাবেনা, কিছু ছোঁয়া যাবেনা, কিছু করা যাবে না। আবার সত্য এটাও যে- এই অপবিত্রতা না থাকলে কোন নারীকে জীবনসঙ্গিনী ও করা যাবেনা! সকল অপবিত্রতা আর ঘেন্নার কারণ যেন আমাদের প্রত্যেকের জন্মের পূর্বশর্ত এই ঋতুস্রাবকালীন বা পিরিয়ডে চিরন্তন বৈশিষ্ট্যাবলী। আর নারীদের ঋতুস্রাবকালীন নতুন প্রাণের আগমনী বার্তাবাহক এক সনাতন/চিরন্তন সত্য।

পূজায় অংশগ্রহণ করবে কি না তা সম্পূর্ণরূপে ঐ নারীদের উপরই সিদ্ধান্ত নিতে দেওয়া উচিত যিনি এমন কষ্টদায়ক পরিস্থিতি ভোগ করছেন। কষ্ট উপেক্ষা করে যদি তিনি মনকে ঈশ্বরের কাজে সমর্পণ করতে পারেন তবে আপনি আমি তাকে বাধা দেবার কেউ না। নারীদের অপমান করা মানে নিজের মা বোনকে অপমান করা। আর সনাতন হিন্দু সমাজে নারীর মর্য্যাদা অতুলনীয়।

তুচ্ছানাং যদ কুলশ্চ ,নারীনাং এব ভবেৎ।
বিনাশং স কুলধর্ম অধোগতিম প্রাপ্সসি এতৎ।।

অনুবাদঃ— এই জগতে যে কুল বা সমাজে নারীদের তুচ্ছজ্ঞান করে, সে কুল বা সমাজ ধর্মভ্রষ্ট হয়ে নরকগামী হয়।।

দেশ ও নারী দুটোকেই মাতৃরুপে দেখা উচিত।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
11121314151617
18192021222324
25262728293031
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!