শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ০৩:১২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ভোলায় অকস্মিক ঝড়ে আড়াই শতাধিক ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত করোনা প্রতিরোধক সরঞ্জাম প্রদান, খাদ্যসামগ্রী বিতরণ ও সনাতনী সৎকার টিম গঠন প্রকৃতি ও পুরুষের মিলনেই সকল সৃষ্টির মূল নিহিত কালীগঞ্জের প্রয়াত বিএনপি নেতা এস এম ওহিদুর রহমানের মৃত্যুবার্ষিকী পালিত দেশের ইতিহাসে বৃহত্তম ত্রাণ প্রধানমন্ত্রীর – তথ্যমন্ত্রী ধনী বৃদ্ধির হারে শীর্ষে বাংলাদেশ করোনায় আক্রান্ত হয়ে আজ এক পুলিশের মৃত্যু নিয়ে ১৫ জনের সম্মুখ যোদ্ধার শাহাদাত বরণ কালীগঞ্জ মালিয়াট ইউনিয়ন পরিষদের বাজেট ঘোষণা বোয়ালমারীতে পৃথক সংঘর্ষে আহত অর্ধশত। বাড়িঘর ভাংচুর-লুটপাট পঞ্চগড়ে আম গাছ থেকে পরে কিশোরের মর্মান্তিক মৃত্যু

হানিফ সংকেতের ”ডাক্তার ভাই”

আমরা জানি, ‘স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল’। সুস্থ থাকা যেমন প্রয়োজন তেমনি অসুস্থ হলে যে চিকিৎসা কেন্দ্রে আমরা যাই তার পরিবেশ বা চিকিৎসা সেবা এমন হওয়া উচিত যেখানে গেলেই আমাদের মন ভালো হয়ে যাবে। তবে অপ্রিয় হলেও সত্যি আমাদের দেশে এমন হাসপাতাল বেশ কমই আছে যেখানে গেলে দ্রুত মন ভালো হয়ে যাবে বা সব চিকিৎসকের ব্যবহারে আমরা মুগ্ধ হব কিংবা চিকিৎসা শেষে হাসপাতালের বিল দেখে ভালো অভিজ্ঞতা নিয়ে ফিরব। কারণ কিছু কিছু হাসপাতালের অভিজ্ঞতা অত্যন্ত ভয়ঙ্কর। টিভিতে দেখেছি ২/১টি হাসপাতালে অস্ত্রোপচারও করে ওয়ার্ড বয়। ডাক্তারেরও সার্টিফিকেট নেই। আইসিইউতে লাইফ সাপোর্ট অনেক ক্ষেত্রে অর্থনৈতিক সাপোর্টের কারণে ব্যবহৃত হয়। আমাদের দেশেও অনেক ভালো ভালো চিকিৎসক রয়েছেন এবং অনেক জটিল রোগের চিকিৎসা দেশেই সম্ভব। চিকিৎসা সম্ভব হলেও সময়মতো চিকিৎসককে পাওয়া কখনো কখনো অসম্ভব।

তবে আমি এমন একজন চিকিৎসকের কথা আপনাদের বলব যাকে তার হাসপাতালে সব সময়ই পাওয়া যেত। দেখা পাওয়ার জন্য কোনো সিরিয়াল দিতে হতো না। আর তিনি হচ্ছেন মধুপুর কাইলাকুড়ী গ্রামের কাইলাকুড়ী হেলথ কেয়ার সেন্টারের ডাক্তার এড্রিক বেকার। যার কথা হয়তো ইতিমধ্যে অনেকবারই শুনেছেন। আমরা ২০১৬ সালে ইত্যাদিতে তার ওপর প্রথম প্রতিবেদন প্রচার করি। ডাক্তার বেকার যেমন ব্যতিক্রমধর্মী তেমনি তার হাসপাতালটিও ব্যতিক্রমধর্মী। গ্রামের ছায়া-সুনিবিড় পরিবেশে স্থাপিত তার হাসপাতালটির সঙ্গে আমাদের চেনা-জানা হাসপাতালের কোনো মিল খুঁজে পাওয়া যাবে না। কারণ এটি ঢাকা শহরের চোখ ধাঁধানো পাঁচতারকা হোটেলসম কোনো হাসপাতাল নয়। সবার মঙ্গল কামনা করে নিজের গড়া হাসপাতাল কর্মীদের নিয়ে প্রতিদিন সকালে প্রার্থনা করতেন ডা. এড্রিক বেকার। আর্তমানবতার সেবায় যারা জীবনের অর্থ খুঁজে পান এড্রিক বেকার ছিলেন তেমনই একজন। গ্রামের সবার কাছে ডাক্তার ভাই হিসেবে যিনি বেশি পরিচিত। টানা ৩২ বছর ধরে ভিনদেশি এই মানুষটি বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা দিয়েছেন টাঙ্গাইলের মধুপুরগড়ে। আর এ জন্য সেখানে চার একর জায়গাজুড়ে তিনি গড়ে তুলেছিলেন এই স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র, যার নাম ‘কাইলাকুড়ী হেলথ কেয়ার সেন্টার’।

হাসপাতালজুড়েই মাটির ঘ্রাণ। বেকার প্রায়ই বলতেন, ‘এমন সুন্দর দেশ আর কোথাও ই, এটা হলো গ্রামবাংলা’। আসলেই সত্যিকারের গ্রামবাংলা যেন খুঁজে পাওয়া যায় এই হাসপাতালে। যেখান থেকে প্রতিদিন গড়ে দেড় শতাধিক রোগী চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন নামমাত্র মূল্যে। এই কেন্দ্রে ছোট ছোট মাটির ঘরে ডায়াবেটিস বিভাগ, মা ও শিশু বিভাগ, মাতৃসদনসহ নানা বিভাগ রয়েছে। সব বিভাগ মিলিয়ে চল্লিশজন রোগী ভর্তি করানোর ব্যবস্থা রয়েছে এখানে। এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে তিনিই প্রধান চিকিৎসক হিসেবে রোগী দেখতেন। আর তাকে সহযোগিতা করতেন স্থানীয় প্রায় একশ তরুণ-তরুণী। যাদের তিনি নিজে প্রশিক্ষণ দিয়ে গড়ে নিয়েছেন।

বেকারের জন্ম ১৯৪১ সালে নিউজিল্যান্ডের ওয়েলিংটনে। ১৯৬৫ সালে তিনি সরকারের শল্য চিকিৎসক দলের সদস্য হয়ে যান যুদ্ধবিধ্বস্ত ভিয়েতনামে। সেখানে কাজ করার সময়ই তিনি পত্রপত্রিকার মাধ্যমে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানতে পারেন। যুদ্ধকালীন এখানকার মানুষের দুর্ভোগের চিত্র দেখে তিনি ঠিক করেন সম্ভব হলে বাংলাদেশে আসবেন। অবশেষে ১৯৭৯ সালে তিনি বাংলাদেশে আসেন। ভালোবেসে ফেলেন এদেশ- থেকে যান এদেশের মাটির টানে। আস্তে আস্তে শিখে ফেলেন বাংলা ভাষাও। এরপর কেটে গেছে ৩২ বছর। বাংলাদেশে এসে বেকার প্রথমে কয়েক বছর মফস্বল শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে কাজ করলেও গ্রামের দরিদ্র মানুষকে চিকিৎসা সেবা দিতেই মধুপুরের কাইলাকুড়ী গ্রামে গড়ে তুলেছেন এই চিকিৎসা কেন্দ্র। এই চিকিৎসা কেন্দ্রের খরচও জোগাড় করতেন বেকার। জানা গেছে, বেকার দু-এক বছর পরপর নিজ দেশে গিয়ে স্বজন, শুভাকাক্সক্ষী ও ধনাঢ্য ব্যক্তিদের কাছ থেকে এই চিকিৎসা কেন্দ্র চালানোর টাকা জোগাড় করতেন। অত্যন্ত সাদাসিধে জীবনযাপন করতেন ডাক্তার এড্রিক বেকার। এখানকার রোগীদের মতোই তিনি নিজেও ঘুমাতেন মাটির বিছানায়। জানতে চেয়েছিলাম এড্রিক বেকারের কাছে, পৃথিবীর এত দেশ থাকতে এই কাইলাকুড়ী গ্রামে কেন এসেছেন? জবাবে তিনি বলেছিলেন, ‘এখানে নানান সম্প্রদায়ের গরিব-অসহায় মানুষ বাস করেন। তাদের সেবা করার সুযোগ পান বলেই এসেছেন।’ সবার মুখে ডাক্তার ভাই শুনতে কেমন লাগে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি আমরা সবাই ভাইবোনের মতো। সবাই যদি সবাইকে আত্মীয় মনে করি তবে অন্তরে বিশ্বাস আসে, ভালো লাগে। আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করা যায়।’

ডা. এড্রিক বেকার ছিলেন এই এলাকার মানুষের কাছে আশার আলো। তাই গ্রামবাসীর দাবির সঙ্গে একাত্ম হয়ে আমরাও ইত্যাদির মাধ্যমে তাকে নাগরিকত্ব প্রদান করার অনুরোধ জানিয়েছিলাম এবং ২০১৪ সালের ৫ আগস্ট তিনি নাগরিকত্ব লাভ করেছিলেন। নাগরিকত্ব লাভের পর ২০১৪ সালের ৫ ডিসেম্বর প্রচারিত ইত্যাদিতে তার অনুভূতি জানতে চাইলে তিনি ইত্যাদির দর্শকদের উদ্দেশে বলেছিলেন, ‘ইত্যাদির দর্শকদের মধ্যে অনেক মেডিকেলের ছাত্র আছে। তাদের উদ্দেশে আমি বলতে চাই, আপনারা গ্রামাঞ্চল ভুলে যাবেন না। গরিব মানুষদের ভুলে যাবেন না।’ এই অনুষ্ঠানটি ধারণ করার সময় এড্রিক বেকার অত্যন্ত অসুস্থ ছিলেন। পরবর্তীতে জানতে পারি তিনি দুরারোগ্য ব্যাধি ক্যান্সারে আক্রান্ত। তিনি চেয়েছিলেন জীবনের বাকি সময়টাও এই মানব সেবা করেই কাটাবেন। তার আশা ছিল ভবিষ্যতে এদেশেরই কোনো না কোনো ডাক্তার তার এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রের হাল ধরবেন। অবশেষে ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর এই ক্যান্সারেই মৃত্যুবরণ করেন সবার প্রিয় ডাক্তার এড্রিক বেকার। সহকর্মীরা উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় আনতে চাইলেও ডাক্তার ভাই আসেননি। তিনি জানিয়েছিলেন, তার ইচ্ছে তিনি এখানেই চিকিৎসা নেবেন এবং এখানেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করবেন। তার মৃত্যুর পর ২০১৫ সালের ২ সেপ্টেম্বর তাকে এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে তার শোবার ঘরের বারান্দায় সমাহিত করা হয়। যেখানে বসে সহকর্মীদের নিয়ে তিনি এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতেন। তার মৃত্যুর পর কীভাবে চলছে এই স্বাস্থ্যকেন্দ্র? জানার জন্য দীর্ঘদিন পর আমরা গত ২ নভেম্বর আবারও গিয়েছিলাম মধুপুরের এই স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রে। অবাক বিস্ময়ে লক্ষ্য করলাম ডাক্তার ভাই না থাকলেও পুরো হাসপাতাল চলছে তারই নির্দেশিত পথে। তবে ডাক্তার ভাইয়ের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রতিষ্ঠানটির নাম বদলে এখন রাখা হয়েছে ‘Doctor Baker’s organisation for well-being’ বিষষ-নবরহম’. নাম বদলালেও বদলায়নি নিয়ম।

কিন্তু দুঃখের বিষয় হলো, মৃত্যুর আগে ইত্যাদিতে তিনি এই প্রতিষ্ঠানটির দায়িত্ব নেওয়ার জন্য বাংলাদেশি চিকিৎসকদের আহ্বান জানালেও কেউ সেভাবে সাড়া দেননি। তবে স্বদেশের কেউ সাড়া না দিলেও সাড়া দিয়েছেন আমেরিকার এক হৃদয়বান দম্পতি জেসন-মেরিন্ডি দম্পতি। দুজনই লেখাপড়া করেছেন ইউনিভার্সিটি অব ওকলাহোমায়। ক্যালিফোর্নিয়ার নেটিভিডেড মেডিকেল সেন্টারে একসঙ্গে কাজ করতে গিয়ে দুজনের পরিচয় এবং ২০০৫ সালে পরিণয়। জেসনের এক চাচা ডাকলেস সে সময় ময়মনসিংহের একটি এনজিওতে কাজ করতেন। সেই সূত্রে জেসন বাংলাদেশে আসেন এবং চাচার সঙ্গে কাইলাকুড়ী হাসপাতালও পরিদর্শন করেন। সে সময় জেসন ও তার স্ত্রী মেরিন্ডির ভীষণ ভালো লেগে যায় হাসপাতালটি। দেশে থেকেও নিয়মিত হাসপাতালটির খোঁজখবর নিতেন। পরবর্তীতে ২০১৫ সালে ডাক্তার ভাইয়ের মৃত্যুর সংবাদ শুনে জেসন অস্থির হয়ে উঠেন। হাসপাতালের রোগীদের জন্য তার মন ছটফট করতে থাকে কিন্তু তখন নিজের প্রশিক্ষণ ও ছেলেমেয়েরা ছোট থাকার কারণে তাৎক্ষণিকভাবে বাংলাদেশে আসতে পারেননি। শেষে সবকিছু গুছিয়ে সম্পদ আর সুখের মোহ ত্যাগ করে ২০১৮ সালে পুরো পরিবার নিয়ে আমেরিকা ছেড়ে স্থায়ীভাবে চলে আসেন এই মধুপুরে। জেসন হয়ে উঠেন নুতন ডাক্তার ভাই, আর তার স্ত্রী মেরিন্ডি ডাক্তার দিদি। জেসন-মেরিন্ডি দম্পতি বিদেশের পরিবেশ থেকে এই পরিবেশে এসে যেমন খাপ খাইয়ে নিয়েছেন। তেমনি তাদের শিশু সন্তানরাও এই পরিবেশে নিজেদের মানিয়ে নিয়েছে। এমনকি ইতিমধ্যে তাদের স্থানীয় স্কুলে ভর্তি করিয়ে দিয়েছেন জেসন দম্পতি। খেলাধুলা করছে গ্রামের ছেলেমেয়েদের সঙ্গে। খাদ্য তালিকায়ও রয়েছে দেশীয় ফল, বাংলাদেশি খাবার। প্রতিদিন ঘুম থেকে উঠে ছেলেমেয়েদের স্কুলের জন্য তৈরি করেন মেরিন্ডি। তারপর স্বামী-স্ত্রী দুজন নাস্তা করে বেরিয়ে পড়েন হাসপাতালের উদ্দেশে। দুপুরের খাবার খান সবার সঙ্গে। রাতে বাড়িতে গিয়ে   সন্তানদের পড়ান অনলাইন স্কুলে।

জিজ্ঞেস করেছিলাম মেরিন্ডিকে এই পরিবেশে থাকতে তাদের কেমন লাগছে কিংবা সন্তানদের লালন-পালনে কোনো অসুবিধে হচ্ছে কিনা? মেরিন্ডি হেসে উত্তর দিয়েছিলেন, এখানে আমরা খুবই আনন্দে আছি। একটি মাটির ঘর দেখিয়ে বললেন, এখানে থাকার জন্য আমাদের এই চমৎকার বাড়িটি রয়েছে। ছেলেমেয়েরা তাদের স্থানীয় বন্ধুদের সঙ্গে খেলাধুলা করে। ভাত, মাছ, ডাল ওদের খুব পছন্দ। তবে ঝাল খেতে পারে না। আর ফলের মধ্যে আম, কাঁঠাল, কলা, পেঁপে ওদের প্রিয় ফল। জংলি আলু সিদ্ধ ওদের খুবই প্রিয়। গিয়ে দেখি বাচ্চারা ঘরের চালার একটি কাঠের সঙ্গে বেঁধে দেওয়া দোলনায় দোল খাচ্ছে। কেউবা গ্রামের সমবয়সী সাথীদের সঙ্গে ছড়া কেটে খেলছে, কেউবা ফুটবল খেলছে। কারও হাতেই নেই কোনো ট্যাব বা ইলেকট্রনিক ডিভাইস। শুধু বাচ্চারাই নয়, দীর্ঘ সময় এই হাসপাতালে অবস্থান করার সময় এই দম্পতির কারও হাতেই কোনো মোবাই ফোন দেখিনি। জেসনের প্রিয় পোশাক লুঙ্গি ও ফতুয়া। যা আমরা অনেকেই ফ্যাশন করার জন্য ১ বৈশাখে পরি। কেউ আবার এগুলো পরে একদিনের জন্য বাঙালি হতে চাই। জেসনের লুঙ্গি পরা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একজন মন্তব্য করেছেন, ‘লুঙ্গি পরা তো আমাদের রুচির সঙ্গে বেমানান। লুঙ্গি পরতে পারি না বলতে পারলে আমাদের আভিজাত্যের পারদ শুধু একটুকু না অনেকখানিই বাড়ে। অথচ তাদের প্লেটের খাবার এই লুঙ্গি-গামছা পরা কৃষকরাই তুলে দেয়। সুদূর আমেরিকা থেকে বাংলাদেশে এসে দরিদ্র মানুষের সেবা করে তারা যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন তা নজিরবিহীন।’ আমাদের দেশের অনেক অভিভাবকই তার সন্তানকে ইউরোপ-আমেরিকায় পড়াতে পারলে গর্ব অনুভব করেন। অথচ জেসন তার বাসভূমি আমেরিকা ছেড়ে তার সন্তানদের অজপাড়াগাঁয়ের স্কুলে ভর্তি করিয়েছেন। বিভিন্ন অঙ্গনের অনেক সেলিব্রেটি তার সন্তানকে আমেরিকার নাগরিক বানানোর জন্য অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে নিয়ে আমেরিকা যান এবং সন্তান প্রসব করার কিছুদিন পরে নিয়ে আসেন। উদ্দেশ্য সন্তানকে নিজের দেশ ছেড়ে বিদেশের নাগরিক করা। কারণ এর ফলে সন্তানের সঙ্গে সঙ্গে তারাও একসময় আমেরিকার সিটিজেন হয়ে যাবেন। এরাই আবার দেশপ্রেমের কথা বলেন। তখন না হেসে উপায় কী। তবে সে হাসি বড় কষ্টের হাসি।

এই ডাক্তার জেসন-মেরিন্ডি দম্পতির ওপর আমরা ইত্যাদির বান্দরবান পর্বে একটি প্রতিবেদন প্রচার করেছিলাম। ইউটিউবে আসার পর কিছুক্ষণের মধ্যেই এই প্রতিবেদনটি ভার্চুয়াল মিডিয়ায় আলোড়ন সৃষ্টি করে। হয়ে যায় ভাইরাল। প্রশংসায় ভাসতে থাকেন জেসন-মেরিন্ডি দম্পতি। সম্পদ ও বিলাসবহুল জীবন ত্যাগ করে, ছোট ছোট সন্তানকে নিয়ে অজোপাড়াগাঁয়ে মাটির ঘরে বসবাস করে বাংলাদেশের এক নিভৃতপল্লীতে চিকিৎসা সেবা দেওয়ার মতো মহৎ কাজ করায় সবাই তাদের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন। একজন লিখেছেন ‘ডা. জেসন-মেরিন্ডি দম্পতির জন্য অজস্র ভালোবাসা। এই মানবিক আত্মা বিরাজ করুক প্রতিটি আত্মায়। মানবতা ও ভালোবাসায় গড়ে উঠুক সুন্দর মানবিক পৃথিবী।’ ২/১ জন অবশ্য ভিন্নমতও দিয়েছেন। কিন্তু অন্যদের বিরূপ মন্তব্যের কারণে তুলেও নিয়েছেন। আমরা এদেশেরও অনেক ডাক্তারের ব্যতিক্রমী উদ্যোগের চিত্র তুলে ধরেছি। তখনো ২/১ জন সমালোচনার তীর ছুড়েছেন। যেমন ভোলার লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের তৎকালীন আরএমও ডা. মাহমুদুর রশিদ-চিকিৎসক হয়েও যিনি নিজে পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের সঙ্গে হাসপাতালের টয়লেট থেকে শুরু করে পুরো হাসপাতাল পরিষ্কার করতেন। ২/১ জন সমালোচনা করে বলেছেন, একজন ডাক্তার কেন হাসপাতাল পরিষ্কার করবে? ভুরুঙ্গামারীর তৎকালীন একজন উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল হাই মাস্টারের ওপর একটি প্রতিবেদন প্রচার করেছিলাম, যিনি পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের নিয়ে শহরের ড্রেন এবং পাবলিক টয়লেট পরিষ্কার করতেন। এ জন্য এলাকায় তাকে অনেক পাগল বলত। অথচ এই কাজের জন্য তিনি দেশব্যাপী প্রশংসিত হয়েছেন। স্বেচ্ছাপ্রণোদিত হয়ে কেউ যদি এসব কাজ করতে চায়, তাকে বরং উৎসাহিত করা উচিত, সমালোচনা নয়।

একটি বিষয় লক্ষণীয়, জেসন-মেরিন্ডি দম্পতি কিন্তু এ দেশে কোনো বিদেশি সংস্থা, দূতাবাস, এনজিও, বায়িং হাউসে চাকরি নিয়ে আসেননি কিংবা তারা কোনো বিদেশি বিনিয়োগকারী বা উন্নয়ন প্রকল্পের বিশেষজ্ঞও নন। তারা এসেছেন নিভৃতপল্লীতে অসহায়, গরিব ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের সেবা করতে। জেসন এবং মেরিন্ডি দুজনই একই মানসিকতার মানুষ। অন্যথায় ছোট্ট ছোট্ট শিশু সন্তানদের নিয়ে তাদের পক্ষে এই দেশে আসা সম্ভব হতো না। আর একটি বিষয় উল্লেখ করা প্রয়োজন, যেটি আমি টেলিভিশন অনুষ্ঠানে সময়াভাবে জানাতে পারিনি, জেসন-মেরিন্ডি দম্পতি কিন্তু তাদের কাজের জন্য এই স্বাস্থ্যকেন্দ্র থেকে কোনো অর্থ নেন না। বরং এড্রিক বেকারের মতো বিদেশে অবস্থানরত তাদের আত্মীয়স্বজনের কাছ থেকে অর্থ সাহায্য নিয়ে হাসপাতালে দান করেন। হাসপাতাল থেকে শুধু তাদের থাকার জন্য একটি ঘর এবং তিন বেলা খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে। আর এই ঘর দেওয়ার কারণ এই দম্পতি সার্বক্ষণিকভাবেই রোগীদের কাছাকাছি থাকতে চান। যাতে যে কোনো জরুরি প্রয়োজনে রোগীরা তাদের কাছে পান।

আমরা ডা. জেসনকে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম ইত্যাদির মঞ্চে। জানতে চেয়েছিলাম পৃথিবীর এত দেশ থাকতে এই কাইলাকুড়ী কেন এলেন? জেসনের উত্তর ছিল, ‘গরিব মানুষের সেবা করতে। এখানকার মানুষগুলো খুব ভালো সহজ-সরল।’ সবশেষে জানতে চেয়েছিলাম, আপনাদের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কী? উত্তরে বলেছিলেন, ‘আমরা চিকিৎসার মাধ্যমে মানুষের সেবা করতে চাই। চিকিৎসা শুধু ব্যবসা নয়Ñসেবাও। ডাক্তার ভাইয়ের মতো আমরাও চাই গরিব মানুষের উপকারের জন্য কিছু করতে। তাহলেই ডাক্তার ভাইয়ের আত্মা শান্তি পাবে।’ আসলে ডাক্তার যখন ভাই হয়, তখন তিনি হয়ে যান আত্মার আত্মীয়। তাই তো বেকারের মতো ডা. জেসনের সঙ্গেও রোগীদের সম্পর্ক এবং আচরণ ভাইবোনের মতো। সেবাতেই যেন এই দম্পতির আনন্দ।

মানবতার সেবায় যার অন্তর কাঁদে তিনিই তো প্রকৃত মানুষ। আত্মসুখে নয়-অসুস্থকে সুস্থ করেই যাদের মুখে হাসি ফুটে সেই জেসন-মেরিন্ডি দম্পতির আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে সেবার ব্রত নিয়ে এগিয়ে আসবে আরও অনেকেই- এই কামনা।

পুনশ্চ : ইত্যাদি প্রচারের পর দিন ডাক্তার দম্পতির সঙ্গে কথা হয়। জানতে চেয়েছিলাম অনুষ্ঠান কেমন লেগেছে? উত্তরে ডা. জেসন বলেছেন, অনুষ্ঠানটি তারা দেখতে পারেননি। কারণ তাদের ঘরে কোনো টেলিভিশন সেট নেই। পুনঃপ্রচারের দিন কোনো সহকর্মীর বাড়িতে গিয়ে দেখবেন।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
      1
3031     
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!