13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা গনহত্যা মামলার রায় ২৩ জানুয়ারি

Brinda Chowdhury
January 19, 2020 9:34 pm
Link Copied!

দেবাশীষ মুখার্জী (কূটনৈতিক প্রতিবেদক) : আন্তর্জাতিক আদালতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে উত্থাপিত রোহিঙ্গা গনহত্যা সংক্রান্ত মামলার রায় আসছে আগামী ২৩ জানুয়ারি। নবউত্থিত সুপার পাওয়ার চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং মিয়ানমার সফরে গিয়ে গতকাল অভয়বাণী উচ্চারণ করেছেন যে, ‘পৃথিবীর শেষ দিন পর্যন্ত চীন মিয়ানমারের পাশে থাকবে।’

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে চীনের রাষ্ট্রপতির ঐ বক্তব্যটি, যথেষ্ট বিচার-বিশ্লেষণের দাবি রাখে। যদিও বাংলাদেশ চীনকে পরীক্ষিত বন্ধু মনে করে ; কিন্তু মিয়ানমার চীনকে যা দিয়েছে, তেমন কিছু দেওয়ার মতো ভৌগোলিক অবস্থানে বাংলাদেশ অবস্থিত নয় এবং মিয়ানমারের মতো প্রাকৃতিক সম্পদও বাংলাদেশের নেই। সর্বোপরি মিয়ানমার চীনের হাতে তুলে দিয়েছে, মালাক্কা প্রনালীর বিকল্প। বাংলাদেশ যে চীনকে কিছু দিচ্ছে না, তা নয়। বাংলাদেশ প্রবাসী শ্রমিকদের কষ্টার্জিত অর্থে, চীনে উৎপাদিত অত্যন্ত নিম্নমানের নকল-ভেজাল পন্য কিনছে এবং বিভিন্ন প্রকল্পে উচ্চসুদে গৃহীত চীনের ঋণ – ভবিষ্যতে বাংলাদেশকে কড়ায়গণ্ডায় চুকাতে হবে। বাংলাদেশ থেকে চীনের অর্জিত লাভ আর্থিক – যা কোন বিচারেই মিয়ানমার থেকে অর্জিত চীনের বহুমাত্রিক ভূরাজনীতিক লাভের বিকল্প হতে পারে না।

ইতোপূর্বে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রোহিঙ্গা গণহত্যার অভিযোগে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে যতবার প্রস্তাব এনেছে, চীন উপর্যুপরি ভেটো দিয়ে মিয়ানমারকে রক্ষা করেছে। অতীতে পাশ্চাত্য যখন মিয়ানমারের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধ দিয়ে রেখেছিল, তখনও চীন অতন্দ্র প্রহরীর মতো মিয়ানমারের পাশে দাঁড়িয়ে ছিল। যদিও অভিযোগ আছে যে, মিয়ানমারের অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে, চীন অনেক অনৈতিক সুবিধা আদায় করে নিয়েছে ; বিশেষ করে মিয়ানমারের প্রাকৃতিক সম্পদ লুন্ঠন করছে চীন – এমন ধারণা মিয়ানমারের সংখ‍্যাগরিষ্ঠ মানুষের।

মিয়ানমারের সাথে বাংলাদেশের কোন সমস্যা ছিল না। বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ, ভারতের বিরুদ্ধে কল্পিত জোট গঠনে মিয়ানমারের সহায়তা কামনা করতো। ২০১৭ সালে বাংলাদেশে ব‍্যাপক রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ কালে, বাংলাদেশের একজন বিখ্যাত অবসরপ্রাপ্ত জেনারেল বলেছিলেন, মিয়ানমারের পক্ষে চীনের ভেটো প্রদানকে তিনি ইতিবাচক দৃষ্টিতে দেখেন। তার যুক্তি ছিল, ঐ ভেটোর ফলে ভারত রোহিঙ্গা ইস‍্যুতে নাক গলাতে পারবে না। ঐ জেনারেল এ কথাও বলেছিলেন যে, দুই লাখ রোহিঙ্গাকে সামরিক প্রশিক্ষণ দিয়ে, তিনি আরাকান স্বাধীন করবেন। পরে যখন ঐ স্বপ্ন বাস্তবায়িত হয়নি, তখন ঐ অবস‍রপ্রাপ্ত জেনারেল, ভারতের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন এই বলে যে, ভারত কেন ১৯৭১ সালের মতো রোহিঙ্গা ইস‍্যুতে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করছে না। উল্লেখ্য, ঐ সময় বাংলাদেশের সংখ‍্যাগরিষ্ঠ জনগণ এবং বুদ্ধিজীবীরা মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নির্যাতনের জন্য ভারতকে দায়ী করে। যদিও নিরপেক্ষ আন্তর্জাতিক বিশ্লেষকবৃন্দ, ভারতের বিরুদ্ধে উত্থাপিত বাংলাদেশের সংখ‍্যাগরিষ্ঠ মানুষের ঐ অভিযোগ, হাস‍্যকর বলে উড়িয়ে দেন। তাদের বক্তব্য হচ্ছে, চীনের বিকল্প হিসেবে, মিয়ানমার যে, ভারত-জাপান অক্ষজোটের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক গড়ে তুলতে চাইছে ; ভারত কেন সেই সুযোগ হেলায় হারাবে। বাংলাদেশ দীর্ঘদিন ধরে রোহিঙ্গার বোঝা স্বেচ্ছায় ঘাড়ে তুলে নিয়ে, মুশকিলে আছে। মালয়েশিয়া রোহিঙ্গাদের গ্রহণ করে নি, তেমনি বাংলাদেশ চাইলে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে দিতে পারতো। ভারত কেন এই অপরাধপ্রবন অশিক্ষিত রোহিঙ্গাদের জন্য জিহাদ করে, মিয়ানমারের বিরাগভাজন হবে! মিয়ানমার ভারতকে বিনাশুল্কে ট্রানজিট সুবিধা দিয়েছে। ভারত বিপুল অর্থ বিনিয়োগ করে গড়ে তুলছে,মিয়ানমারের সিত্তে বন্দর কেন্দ্রিক ‘কালাদান মাল্টিমডেল ট্রানজিট প্রোজেক্ট’। এই মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে, ভারত ট্রানজিটের জন্য বাংলাদেশের উপর নির্ভরশীল থাকবে না। তাছাড়া মিয়ানমারের উপর দিয়ে নির্মিত হচ্ছে, থাইল্যান্ড-মিয়ানমার-ভারত মৈত্রী মহাসড়ক।

যদিও ভারতের অভ‍্যন্তরে রোহিঙ্গা ইস‍্যুতে প্রবল মতপার্থক্য রয়েছে। রোহিঙ্গাদের ভারতের নাগরিকত্ব দেওয়ার জন্য তৃণমূল, বামফ্রন্ট, কংগ্রেস প্রভৃতি সেক‍্যুলার রাজনৈতিক দলগুলো, দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে চলেছে ; আদালতে আইনি লড়াই করেছে। কিন্তু ক্ষমতাসীন বিজেপি সরকার, বিরোধিদের দাবি আমলে নেয় নি। তারা রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব না দিয়ে, বাংলাদেশ, পাকিস্তান ও আফগানিস্তান থেকে আসা হিন্দু-বৌদ্ধ-শিখ প্রভৃতি সংখ্যালঘু শরনার্থীদের নাগরিকত্ব দিতে নাগরিক সংশোধনী আইন বা CAA পাশ করেছে। পশ্চিম বঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সহ সেক‍্যুলার নেতৃত্ববৃন্দ বলেছেন, তারা পুনরায় ক্ষমতায় গেলে, CAA বাতিল করে বাংলাদেশ থেকে যাওয়া হিন্দুদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেবেন এবং রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব দেবেন।

http://www.anandalokfoundation.com/