13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

যশোরে ব্যাংক কর্মকতার বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

admin
August 15, 2015 7:47 pm
Link Copied!

যশোর প্রতিনিধি: সোনালী ব্যাংক মণিরামপুর শাখার সদ্য বিদায়ী ম্যানেজার মহসিনের বিরুদ্ধে সই জালিয়াতির মাধ্যমে গ্রাহকের অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে। ম্যানেজার প্রবাসী এক গ্রাহকের স্বাক্ষর জাল করে দুই লাখ ৯০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। বুধবার ব্যাংকটির মণিরামপুর শাখায় সরেজমিনে গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রোহিতা ইউনিয়নের পলাশী গ্রামের মৃত আমিনুল্লাহ মুন্সির ছেলে মিজানুর রহমান ২০১১ সালের ১৪ আগস্ট সোনালী ব্যাংকের মণিরামপুর শাখায় একটি সঞ্চয়ী হিসাব খোলেন। হিসাব নম্বর ১৫৮১৯। হিসাবে নমিনি করেন তার স্ত্রী নবিনা বেগমকে। ব্যাংকের এই হিসাবের (অ্যাকাউন্ট) মিজানুর রহমান ওই বছরের ২৩ জুলাই এক লাখ ৪০ হাজার এবং ২১ সেপ্টেম্বরে চার লাখ টাকাসহ মোট পাঁচ লাখ ৪২ হাজার টাকা রেখে সৌদি আরব চলে যান। চলতি বছরের ১০ জুন মিজানুর রহমান দেশে ফিরে আসেন। ২১ জুলাই মিজানুরের ভাইপো আলমগীর দুবাই থেকে ওই অ্যাকাউন্টে আরও ৫০ হাজার টাকা পাঠান। এর ছয় দিন পর ২৭ জুলাই মিজানুর ব্যাংকে এসে অ্যাকাউন্টে টাকার পরিমাণ জানতে চাইলে ব্যাংক থেকে তাকে ছয় লাখ ৮৮ হাজার ৭২৬ টাকার হিসাব দেওয়া হয়।

গত মঙ্গলবার অ্যাকাউন্টে আরও দশ হাজার টাকা জমা দিয়ে তিনি মোট টাকার পরিমাণ আবারো জানতে চাইলে দুই লাখ ৯০ হাজার টাকা কম দেখিয়ে হিসাব দেওয়া হয় চার লাখ আট হাজার ৭২৬ টকার। অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা গায়েবের কারণ জানতে চাইলে ম্যানেজার মহসীন আলী কোনো জবাব দিতে পারেননি। ম্যানেজার মিজানুরকে পরের দিন (বুধবার) বিকালে ব্যাংকে আসতে বলেন। বুধবার ব্যাংকে এসে মিজানুর জানতে পারেন, ম্যানেজার হঠাৎ বদলি হয়ে অভয়নগর শাখায় যোগ দিয়েছেন। বিষয়টি তখন সাংবাদিকদের জানান ভুক্তভোগী মিজানুর রহমান।

বিষয়টি নিয়ে সাংবাদিকরা সোনালী ব্যাংক মণিরামপুর শাখার ভারপ্রাপ্ত ম্যানেজার আবুল কাশেমের কাছে প্রশ্ন করলে তিনি জানান, মিজানুরের স্বাক্ষর সম্বলিত দুটি চেকের মাধ্যমে তার অ্যাকাউন্ট থেকে ওই দুই লাখ ৯০ হাজার টাকা উত্তোলন করা হয়েছে। একটি চেক মিজানুরের স্ত্রী এবং অন্যটি আসাদ নামে এক বাহকের মাধ্যমে তোলা হয়েছে।

এ বিষয়ে মিজানুর রহমান বলেন, ‘আমি শুধু টাকা জমা রেখেছি। চেকের পাতায় সই করাতো দূরে থাক, আমি ব্যাংক থেকে এখনও কোনো চেক বইও নিইনি।’জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত ম্যানেজার আবুল কাশেম গ্রাহক মিজানুরের নামে অ্যাকাউন্ট খোলার প্রায় ছয় মাস আগে তার নামে চেক বই ইস্যু বের করে দেখান। অ্যাকাউন্ট খোলার ছয় মাস আগে কীভাবে গ্রাহকের নামে চেক বই ইস্যু হয় তা জানতে চাইলে ভারপ্রাপ্ত ম্যানেজার জবাব দিতে পারেননি।

এ বিষয় জানতে সদ্য বিদায়ী ম্যানেজার মহসীন আলীকে ফোন করলে তিনি মিটিংয়ের কথা বলে এড়িয়ে যান। সোনালী ব্যাংক যশোর অঞ্চলের উপ-মহাব্যবস্থাপক (ডিজিএম) মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা ছিল না। এখন জানলাম। খোঁজ-খবর নিয়ে বলতে পারব কী ঘটেছে।

http://www.anandalokfoundation.com/