দেশি ক্রিকেটারদের আউট বা পাকিস্তানের ছক্কায় বাংলাদেশী দর্শকদের উল্লাস

    Editor
    November 20, 2021 10:23 pm
    Link Copied!

    মিরপুরের গ্যালারিতে সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে পাকিস্তানি দর্শকদের পাশাপাশি বাংলাদেশি দর্শকদের হাতেও পাকিস্তানের পতাকা দেখা গেছে। শুধু তাই নয়, বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের আউট করলে বা পাকিস্তানের কোন ক্রিকেটার ছক্কা মারলে দর্শকদের উল্লাস দেখে বুঝার উপায় নেই এটা বাংলাদেশের মাঠ নাকি অন্য কোন দেশের মাঠ।

    মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) তার ফেসবুক আইডিতে লেখেন- খেলার সঙ্গে কোনো কিছু মেলানো যায় না এটা ঠিক, কিন্তু খেলাটা যখন আমাদের দেশে আর খেলছে আমাদের দেশ, সেখানে অন্য যে দেশই খেলুক না কেন, তাদের পতাকা তাদের দেশের মানুষ ছাড়া আমাদের দেশের মানুষ উড়াবে, এটা দেখে সত্যি কষ্ট লাগে। যে যাই বলুক, ভাই দেশটা কিন্তু আপনার।

    তিনি আরও লিখেন, আজ হয়নি তো কাল হবে, না হলে পরশু হবে। আপনারা পাশে না থাকলে আর হবেই না। হারি বা জিতি স্টেডিয়ামে আমাদের দেশের পতাকা উড়ুক চিৎকার হোক বাংলাদেশ।’

    এর আগে সোমবার (১৫ নভেম্বর) মিরপুরের একাডেমি মাঠে পতাকা উড়িয়ে অনুশীলন করে পাকিস্তান। এরপরই তৈরি হয় ক্ষোভ, পাকিস্তানও পরের অনুশীলনগুলোতে পতাকা টানিয়ে রেখেছে পাশে। বিতর্কের মুখে শেষ পর্যন্ত বিসিবির কাছে অনুমতি চায় পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)।

    পাকিস্তানের পতাকা উত্তোলন ইস্যুতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ক্ষোভ জানান অনেকে। দেশটি যখন পাকিস্তান এবং সামনে যেহেতু লাল-সবুজের বিজয়ের মাস, আর তাই আলোচনার মাত্রা ছাড়াল বহুগুণে। তবে কেউ কেউ আবার এর সপক্ষেও যুক্তি দেখাচ্ছেন। এমন পরিস্থিতিতেই মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) গণমাধ্যমকে আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দেয় পাকিস্তান ক্রিকেট দল।

    তাদের পক্ষ থেকে দেওয়া বিবৃতিতে বলা হয়, পাকিস্তানের হেড কোচ হিসেবে সাকলায়েন মুশতাক দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে জাতীয় দলে পতাকা লাগানোর প্রচলন শুরু হয়েছে। সর্বপ্রথম নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ঘরের মাঠে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে এটি চালু হয়েছিল। এরপর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও তা অনুসরণ করা হয়েছে।

    তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান এমপি মঙ্গলবার রাতে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবে বাতিঘর পরিদর্শনে গিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন,‘আমরা যখন বাঙলার মাটিতে মুজিব শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছি, তখন পাকিস্তান ক্রিকেট টিমের তাদের চাঁনতারা পতাকা দিয়ে প্র্যাকটিস করার ঘটনা কোনোভাবেই মেনে নেওয়া যায় না। এটা আমি কোনোভাবেই সমর্থন করি না। আমি মনে করি পতাকাসহ তাদের পাকিস্তানে ফেরত পাঠিয়ে দেওয়া উচিত। আমাদের চেতনায়, আমাদের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ হয়। পাকিস্তানের পতাকা লাগিয়ে কীসের অনুশীলন। নাটক; সিনেমা; ভণ্ডামি। এগুলো করতে দেওয়া উচিত না। শেখ হাসিনা বাংলাদেশের ক্রিকেটকে আজ বিশ্বমানে উন্নীত করেছেন। বিশ্বে যারা পরিচিত এবং ভালো ক্রিকেট খেলে তারা বাংলাদেশে আসবে এতে অসুবিধার কিছু নেই।’

    উল্লেখ্য, ছয় বছর পর বাংলাদেশ সফরে এসেছেই বিতর্ক সৃষ্টি করেছে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। গত ১৫ নভেম্বর মিরপুর একাডেমি মাঠে নিজ দেশের পতাকা উড়িয়ে প্রথম দিনের মতো অনুশীলন করে সফরকারীরা।

    এর আগেও ২০১৬ সালের ১৬ ডিসেম্বর সকাল  ৮টা ৪৫ মিনিটে তারা রাইড শুরু করে জমিয়াতুল ফালাহ মসজিদের সামনে থেকে। রাইডের এক পর্যায়ে এসে তারা ফৌজদারহাট এ নেমে ব্রেক নেয় এবং সেখানে পাকিস্তানের পতাকা উড়ায়। ঘটনাস্থলে থাকা প্রত্যক্ষদর্শীদের ভাষ্যমতে, দ্বি-চক্রযানের এক বাইকার এই পাকিস্তানের পতাকা আনে। তারা নাকি সেখানে বলাবলি করছিলো – বাংলাদেশ পাকিস্তান ভাই ভাই।