ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ঢাকায় ফিরছেকর্মব্যস্ত মানুষ: স্টেশন টার্মিনালে মানুষের ভিড়

admin
September 28, 2015 10:01 am
Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টারঃ স্বজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি  শেষে কর্মব্যস্ত নগরী রাজধানীতে  ফিরতে শুরু করেছেন মানুষ। এবার সরকারি বন্ধের দিন ঈদ হওয়ায় মাত্র একদিন অতিরিক্ত ছুটি উপভোগ করতে  পেরেছেন সরকারি- বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। এরপরও স্বজনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ উপভোগ করে খুশি তারা। ঈদের তিন দিনের ছুটির সঙ্গে যারা বাড়তি ছুটি  নেননি তারা রোববারই কর্মস্থলে যোগ দিয়েছেন। শনিবার বিকেল  থেকেই তারা রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেন। অনেকে  রোববার সকালে ঢাকায় ফিরেই হয়েছেন অফিসমুখি। তবে ঈদের পর প্রথম কর্মদিবসে অফিস আদালতে উপস্থিতি ছিল অন্য সময়ের  চেয়ে অনেক কম। রবিবার যারা অফিস করেছেন তাদেরকে  কোলাকুলি আর কুশল বিনিময় করতে দেখা গেছে।

ঈদের ছটির সঙ্গে বাড়তি ছুটি নিয়েছেন তারাও পরিবার পরিজনের সঙ্গে ঈদ কাটিয়ে ইট-পাথরের নগরীতে আসতে শুরু করেছেন। সকাল  থেকেই রাজধানীর কমলাপুর  রেলস্টেশন, সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এবং বাস টার্মিনালগুলোতে ঢাকায় ফেরা মানুষের চাপ দেখা গেছে। সামনের কয়েকদিন এ চাপ আরো বাড়বে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে।ঈদের আগে দেশের প্রধান মহাসড়কগুলো ছিল যানজটের দখলে। সবচেয়ে  বেশি দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের যাত্রীদের। ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-খুলনা ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে যানজটের কারণে যাত্রী ভোগান্তি চরমে ওঠে। তবে  ফেরার পথে এখনো দুর্ভোগ চোখে পড়েনি।সদরঘাটে কর্মরত বিআইডব্লিউটিএ’র এক কর্মকর্তা জানান, সদরঘাট থেকে প্রতিদিন প্রায় ৫০টি রুটে দেড় শতাধিক লঞ্চ চলাচল করে। শনিবার রাত  থেকেই মানুষ ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে। কর্মজীবি মানুষের এ চাপ আরো বাড়বে।কমলাপুর রেলওয়ের  স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী বলেন, ঈদের আগের ৫ দিন এবং ঈদ পরবর্তী সাতদিন পর্যন্ত অতিরিক্ত চাপ সামলাতে বাড়তি ট্রেনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। শনিবার থেকেই ঢাকায় আসা যাত্রীদের চাপ শুরু হয়েছে। রোববার তিন দিনের সরকারি ছুটি  শেষ হলেও ঈদের তৃতীয় দিন  যানজটের রাজধানী ঢাকা এখনও ফাঁকা । ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে লাখো মানুষ ঢাকা ছেড়ে চলে যাওয়ায় রাজধানীর যানজট একেবারেই হাওয়া। গুরুত্বপূর্ণ রাজপথ ফাঁকা। আর ফাঁকা রাস্তায় গাড়ি চালিয়ে আনন্দে রাজধানীতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন মানুষ। কিছুটা হলেও ঈদের সময় ঘরের বন্দি জীবন থেকে বেরিয়ে স্বস্তির নি:শ্বাস নিচ্ছেন লাখ লাখ নারী পুরুষ।জনবহুল শহর ঢাকার ব্যস্ততম মতিঝিল অফিসপাড়া, গুলশান, মগবাজার,  মৌচাক, মালিবাগ মোড়, পল্টন, ফার্মগেট এলাকায় গাড়ির ভিড় ছিল না।ফুটপাত ছিলো একেবারেই খালি। সবগুলো  মোড় ছিল ফাঁকা ফাঁকা। অফিসপাড়া খ্যাত মতিঝিল ছিল নিরব সুনশান। রিক্সা বা প্রাইভেট কারের ভিড় ছিল না রাস্তায়। যারা ঈদ করতে রাজধানী ছেড়ে বাড়িতে  গেছেন তারা কর্মস্থলে না  ফেরায় রাজধানীতে ছুটির আমেজ পুরোদমে বিরাজ করছে।এই সুযোগে পরিবার-পরিজন নিয়ে ছুটেছেন বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে। রোববার অফিস খুললেও রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা ছিল কম। শরতের মিষ্টি রোদের আবহে ঢাকার বাতাস ছিল নির্মল। গাড়ির হর্ন ছিল না।

ঈদের তিন দিনের ছুটির সঙ্গে যারা বাড়তি ছুটি নেননি তারা রোববারই কর্মস্থলে যোগ দিয়েছেন। শনিবার বিকেল  থেকেই তারা রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেন। অনেকে  রোববার সকালে ঢাকায় ফিরেই হয়েছেন অফিসমুখি। তবে ঈদের পর প্রথম কর্মদিবসে অফিস আদালতে উপস্থিতি ছিল অন্য সময়ের চেয়ে অনেক কম। রবিবার যারা অফিস করেছেন তাদেরকে কোলাকুলি আর কুশল বিনিময় করতে দেখা গেছে। রোববার উত্তরবঙ্গের মানুষজনের যাতায়াতের বড় বাস টার্মিনাল গাবতলীতে গিয়ে এমন চিত্র দেখা গেছে। তবে ঢাকায় ফেরার এ চিত্র স্বাভাবিক। এখানো চাপ শুরু হয়নি। সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) থেকে ঢাকামুখী মানুষের চাপ থাকবে বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন বাস কাউন্টারের ব্যবস্থাপকরা। সরেজমিন  দেখা গেছে, ঈদ  শেষে কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন  লোকজন। সকাল থেকে বাসপ্রতি ঢাকামুখী যাত্রী ছিল ৮/১০ জন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে এ সংখ্যা। দুপুর থেকে বাসপ্রতি যাত্রী ছিল ২৫-৩০ জন। তবে যাত্রীদের ভিড়ে বিকেল নাগাদ সব গাড়িই পূর্ণ থাকবে বলে বাস সংশ্লিষ্টদের ধারণা।ঘড়ির কাটায় দুপুর সাড়ে ১২টা। রয়েল এক্সপ্রেসসর একটি গাড়ি গাবতলী এসে  পৌঁছেছে। এ গাড়ি থেকে দু’তিনজন যাত্রী নেমেছেন। এদের একজন আলমগীর (২৫)।তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাড়ি চুয়াডাঙ্গায়।  সেনাবাহিনীর সৈনিক পদে চাকরি করেন। থাকেন বানানী সেনানিবাসে। ২১ সেপ্টেম্বর বাড়ি  গেছেন। আজই চাকরিতে জয়েন করতে হবে, তাই চলে এসেছেন। তাকে বহনকারী রয়েল এক্সপ্রেসের একটি বাস ২৫-৩০ জন যাত্রী নিয়ে ঢাকায় এসেছে।শ্যামলী পরিবহনের একটি বাসে পাবনার ভেড়ামারা থেকে এসেছেন সামছুল ইসলাম (৩৫)। বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। সোমবার অফিস করতে হবে, তাই আজই চলে এসেছেন। সামছুলকে বহনকারী গাড়িও প্রায় ২৫-৩০ জন যাত্রী নিয়ে এসেছে।

এদের দু’জনই অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের  কোনো অভিযোগ করেননি। তারা বলছেন, ঈদ বোনাস হিসেবে অতিরিক্ত ১০০ টাকা নিচ্ছে। এটা নিতে পারে।শ্যামলী পরিবহনের টিকিট কাউন্টারের ম্যানেজার  রেজাউল করিম বাংলানিউজকে জানান, শনিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) পর্যন্ত সব গাড়ি খালি ফিরেছে। আজ সকাল থেকে কিছু কিছু যাত্রী আসছে। বিকেল নাগাদ সব গাড়িই যাত্রী ভরে ফিরবে। আর সোমবার থেকে মূলত ঢাকামুখী যাত্রীদের চাপ থাকবে।টিআর ট্রাভেলস’র টিকিট কাউন্টারের ম্যানেজার আব্দুস সাত্তার রোকন বাংলানিউজকে বলেন, টিআর ট্রাভেলস’র প্রতিটি বাস সকাল থেকে ৮/১০ জন করে ঢাকামুখী যাত্রী নিয়ে এসেছে। বিকেলে এটা বাড়বে। আগামীকাল থেকে চাপ থাকবে বলে তিনিও জানান। একই অবস্থা হানিফ পরিবহনের সবগুলো বাসের, জানিয়েছেন হানিফের গাবতলী টিকিট কাউন্টারের ম্যানেজার মোহাম্মদ আলী। দিনের প্রথম ভাবে সব অফিসেই উপস্থিতি ছিল স্বাভাবিকের তুলনায় অনেক কম। ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময়, কোলাকুলি আর খোশগল্পে সময় পার করতে দেখা গেছে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের।

এবার  কোরবানির ঈদের ছুটি শুরু হয় বৃহস্পতিবার থেকে। তিনদিন ছুটির দুই দিনই (শুক্র ও শনিবার) সাপ্তাহিক ছুটি পড়ে যাওয়ায় অনেকে বাড়তি ছুটি নিয়ে গ্রামে গেছেন ঈদ করতে।এ কারণে অফিস-আদালতে স্বাভাবিক প্রাণচাঞ্চল্য ফিরতে আরও কয়েকদিন লাগতে পারে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।ঈদের পর প্রথম কর্মদিবসে কর্মী উপস্থিতি ৬০ শতাংশেরও কম ছিল বলে সংশ্লিষ্টদের ধারণা।স্বাভাবিক সময়ে সচিবালয়ে দর্শনার্থীদের অভ্যর্থনা কক্ষটি কোলাহলপূর্ণ থাকলেও এদিন ছিল সুনসান নীরবতা।ঈদের আগে ঢাকা ছেড়ে বাড়ি যেতে যে দুর্ভোগ পোহাতে হয়েছে ঠিকই একই দুর্ভোগ  পোহাতে হচ্ছে ঈদ  শেষে ঢাকামুখি মানুষদের। বাস-লঞ্চ- ট্রেনে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে সুযোগসন্ধানী পরিবহন সিন্ডিকেট। অনেক জায়গায় নির্দিষ্ট সময়ের আগেই হাওয়া হয়ে  গেছে বাস-ট্রেন ও লঞ্চের টিকিট। ফলে দুর্ভোগ যেন পিছু ছাড়ছে না অভাগা মানুষের।

কেন অতিরিক্ত ভাড়া নেয়া হচ্ছে জানতে চাইলে বাস কন্ডাক্টরদের সাফ জবাব  পোষালে যান, না  পোষালে অন্য গাড়ি ধরেন। এ নিয়েও যাত্রীদের সঙ্গে বাস ডাইভার ও কণ্ডাক্টরদের বাকবিতণ্ডা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এমনটিই জানালেন ফরিদপুরের বোরহান চৌধুরী। বোরহান  পেশায় একজন ব্যাংক কর্মকর্তা। তিনি দৌলতদিয়া ফেরি পার হয়ে পাটুরিয়া ঘাটে এসেছেন। পদ্মা লাইন, নবীনবরণ এমনকি রাষ্ট্রায়াত্ব মালিকানাধীন বিআরটিসিসহ বিভিন্ন পরিবহনের সুপারভাউজার, কন্ডাক্টর ও হেলপাররা হাঁক-ডাক দিচ্ছে, ‘দুইশ’টাকা’ বলে বলে। অথচ পাটুরিয়া থেকে গাবতলীর ভাড়া ৮০ টাকা। শুধু পাটুরিয়া-গাবতলী লাইনেই নয় উত্তর বঙ্গের সব লাইনের যাত্রীরাও একই অভিযোগ জানিয়েছেন। ঈদের  দোহাই দিয়ে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে এখানকার অসাধু পরিবহন সিন্ডিকটে।রাজধানীমুখী মানুষের পদভারে সরব হয়ে উঠেছে রাজধানীর  রেলস্টেশন, লঞ্চ ও বাস টার্মিনালগুলো। এমনকি ঈদের আগের ভিড় ও টিকেট পাওয়ার ঝামেলা এড়াতে যারা তখন ঢাকা ছাড়েন নি তাদের অনেকেই ঈদ-পরবর্তী ছুটি কাটাতে বাইরে যাওয়ার জন্য স্টেশন-টার্মিনালে ভিড় করছেন। আর এ সুযোগকেই পুরোমাত্রায় কাজে লাগাচ্ছে ফড়িয়া ও সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ছুটি কাটিয়ে হাজারো মানুষ ঢাকায় ফিরছেন। বিশেষ করে দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে লঞ্চে করে রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেছেন তারা। আর এ কারণেই সদরঘাটে রাজধানীমুখী মানুষের ভিড় বাড়ছে। রোববার সকালে রাজধানীর সদরঘাটে গিয়ে  দেখা  গেছে, সকাল থেকে বিভিন্ন রুটের বেশ কয়েকটি লঞ্চ যাত্রী নিয়ে ঢাকায় এসেছে। কোনো ঝক্কিঝামেলা ছাড়া ঢাকায় ফিরতে পেরে খুশি যাত্রীরা। তবে কেবিনের ভাড়া বেশি রাখা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ঢাকামুখী এসব মানুষ।

বরিশাল  থেকে আসা যাত্রী রোকন  উদ্দিন বলেন, ঈদের ছুটির সঙ্গে এক দিন অতিরিক্ত ছুটি নিয়েছিলাম। কিন্তু আজই চলে এলাম ঢাকায়। কারণ, এক দিন আগে আসায় একটু বিশ্রাম নিতে পারব। কাল থেকে ভালোভাবে অফিস করতে পারব।তিনি আরো জানান, আজ  তেমন চাপ ছিল না লঞ্চে। সোমবারের পর থেকে লঞ্চে ভিড় বাড়বে। তখন আসতে কষ্ট হবে।এদিকে কমলাপুর রেল  স্টেশনেও যথেষ্ট ভিড়  দেখা  গেছে। কমলাপুর  রেল স্টেশন থেকে  যে সব ট্রেন ছেড়ে গেছে তার অধিকাংশ কোচেই যাত্রী ছিল খুব কম। অপরদিকে কমলাপুর স্টেশনে যেসব ট্রেন এসেছে তার অধিকাংশ কোচই ছিল যাত্রী বোঝাই।এদিকে মানুষ ঢাকায় আসতে শুরু করলেও রাজধানীর কর্মচাঞ্চল্য ফিরে আসতে আরো কয়েক দিন সময় লাগবে বলে মনে করছেন অনেকে। কারণ, ঢাকার প্রধান সড়কগুলোতে এখনো মানুষ ও যানবাহনের চলাচল সীমিত।  হোটেল, রেস্টুরেন্টসহ বিভিন্ন দোকানপাটও বন্ধ। মূলত জনবহুল রাজধানী এখনো অনেকটা ফাঁকেই বলা চলে। রাজধানীর পুরনো চেহারায় ফিরতে আরো সপ্তাহখানেক সময় লাগতে পারে বলে মনে করছে অনেকে।  কোথাও যানজট নেই, নেই আটকে থাকার বিড়ম্বনা। অল্প সময়ের মধ্যেই রাজধানীর যে কোনো গন্তব্যে পৌঁছানো যাচ্ছে। ফুটপাতগুলোতে নেই দোকানপাট, রাস্তার মোড়ে মোড়ে রিকশার জটলাও কম। এমন কী বিভিন্ন দোকানপাটও বন্ধ। চিরচেনা রাজধানী এখন অনেকটাই অচেনা। যদিও এ চিত্র বেশিদিন থাকবে না। নাড়ির টানে ঢাকা ছেড়ে যাওয়া, আবার রুজি- রোজগারের টানে ঢাকায় ফিরে আসা। নগরীর বাস, লঞ্চ টার্মিনাল ও রেলস্টেশনে তাই আজ কিকেলের দিকে মানুষের কিছুটা ভিড়। রাজধানীর গাবতলী, শ্যামলী ও কল্যাণপুর বাস টার্মিনালগুলো ঘুরে দেখা যায়, ঢাকায় ফিরে আসতে শুরু করেছে কিছু মানুষ। ঈদের আগে যে হারে বাস ছেড়ে গিয়েছিল, সেই হারে এখনো ঢাকায় ফিরছে না। আবার অনেক বাস অল্প যাত্রী নিয়েই ফিরছে ঢাকায়।

বাড়িতে যাওয়ার সময় টার্মিনালগুলোতে  যে দুর্ভোগ ছিল, ঢাকায় ফেরার পথে তেমন কোনো দুর্ভোগ পোহাতে হয়নি বলে জানিয়েছেন ঢাকায় ফেরা যাত্রীরা। তবে ভাড়া বেশি নেয়া হচ্ছে বলে তাদের অভিযোগ।গাবতলী বাস টার্মিনালে খুলনা থেকে আসা সুন্দরবন বাস সার্ভিসের সুপারভাইজার রবিউল জানান, এখনো পুরোদমে মানুষের আসা শুরু হয়নি। আগামীকাল রোববার থেকে যাত্রীদের চাপ শুরু হবে।ফরিদপুর থেকে আসা  বোরহান বিশ্বাস নামের এক যাত্রী বলেন, ‘ঢাকা থেকে যাওয়ার সময় পাটুরিয়া ফেরিঘাটে প্রতি বছর প্রায় পাঁচ থেকে ৬ ঘণ্টা অপেক্ষা করতে হয়েছিল। কিন্তু এবারের ঈদে কোনো অপেক্ষা করতে হয়নি। মনে করেছিলাম, ঢাকায় আসার পথে অন্তত কিছুটা সময় হলেও অপেক্ষা করতে হবে। কিন্তু সর্ম্পূণ উল্টো চিত্র। ঘাটে বসে আছে ফেরি। বাস না থাকায় ফেরি ছাড়তে পারছে না। ফরিদপুর থেকে ঢাকায় আসতে সময় লেগেছে মাত্র চার ঘণ্টা, যা অন্য সময়ের চেয়ে অনেক কম।
এর কারণ হিসেবে তিনি বলেন, প্রতি বছর দেশের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পাটুরিয়া- দৌলতদিয়া ফেরিঘাটে যানবাহন পারাপারের জন্য ১২টি ফেরি থাকে। এর মধ্যে ২টি থাকে অকেজো। ফেরি স্বল্পতার কারণে ঘাটের দুই পারে যানজট লেগে থাকতো। এ বছর ঈদে ১৮টি ফেরি মোতায়েন রাখা হয়। ফলে ফেরির কোনো স্বল্পতা ছিল না। এসব কারণে হয়তো কোনো যানজট  নেই।

পাটুরিয়া  ফেরিঘাটের ম্যানাজার (মেরিন)  মো. আব্দুস সোবহান জানান, ঈদের সময় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুটে ফেরির গতি বাড়াতে সরকার ফেরি বাড়ানোর উদ্যোগ গ্রহণ করে। গত বছর এই সময় এ ঘাটে ফেরি ছিল মাত্র ১২টি। আর বর্তমানে ফেরি রয়েছে ১৮টি। এর মধ্যে ৯টি রো রো, ৩টি কে-টাইপের ও ৬টি রয়েছে ইউটিলিটি  ফেরি। ১৮টি ফেরি সার্বক্ষণিক সচল থাকার কারণে কখনই ঘাটের দুই তীরে যানজট হয়নি। ঈদেও কোনো ধরনের যানবাহন চলাচলের সমস্যা হয়নি। যাত্রী দুর্ভোগও ছিল না।বাসযাত্রী শরিফুল ইসলাম জানান বলেন, আমার বাসা আমিনবাজার এবং অফিস কাওরানবাজার। আমার অফিসে যেতে কমপক্ষে দেড় থেকে দুই ঘণ্টা সময় লাগে। কিন্তু শনিবার লেগেছে মাত্র ২০ মিনিট। ঢাকার রাস্তার অবস্থা যদি সব সময় এমন হতো, তাহলে অফিসে যাওয়া নিয়ে কোনো দুশ্চিন্তাই ছিল না।

তবে মিরপুর  থেকে যাত্রাবাড়ী চলাচলকারী বিআরটিসি পরিবহনের চালক কালাম জানান, রাস্তায় মানুষ খুব কম, সিট খালি রেখেই গাড়ি চালাতে হচ্ছে। তবে আগামী দু’এক দিনের মধ্যে পরিস্থিতি আগের অবস্থায় ফিরে আসবে বলে তার প্রত্যাশা।

http://www.anandalokfoundation.com/