ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

কর্মমুখর হতে শুরু করেছে রাজধানী

admin
September 28, 2015 9:03 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ নাড়ির টানে আর শেকড়ের সন্ধানে যারা রাজধানী  ছেড়েছিল জীবিকার তাগিদে তারা ফিরতে শুরু করেছে। আপনজনদের সঙ্গে ঈদের উৎসব  শেষে মানুষ শনিবার  থেকেই রাজধানীমুখি হতে শরু করেছে।ঢাকামূখী মানুষের ভিড় ক্রমেই বাড়ছে। আস্তে আস্তে কর্মমুখর হচ্ছে ইট-পাথরের নগরী ঢাকা। তবে এখনও রাজধানীর রেল  স্টেশন, বাস টার্মিনাল ও লঞ্চঘাটে উপচেপড়া ভিড়  দেখা যাচ্ছে না।

সোমবার কমলাপুর  রেলস্টেশনে গিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে ছেড়ে আসা টেনে করে মানুষকে নামতে  দেখা যায়। রাজধানীর টার্মিনালগুলোতেও ঢাকার বাইরে থেকে ছেড়ে আসা বাসগুলোতে মানুষজনকে ফিরতে  দেখা যায়। রাজধানীর সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে গিয়েও ফিরে আসা মানুষ চোখে পড়ে।এখনো মানুষ তেমনভাবে ঢাকায় না আসায় রাজধানীর অভ্যন্তরীণ সব রুটে বাস চলাচল করছে কম। রাস্তা প্রায় ফাঁকা। সরকারি- বেসরকারি কার্যালয় খুললেও পুরোদমে কাজ শুরু হয়নি। অতিরিক্ত ছুটি নিয়ে মানুষ এখনো ঢাকার বাইরে অবস্থান করছে।কমলাপুর স্টেশনে দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের মতে, দু’একদিন পরই ট্রেনে ভিড় বাড়বে। সাধারণত ঈদের পর তৃতীয়-চতুর্থ কর্মদিবস থেকে রাজধানী ফেরত মানুষের স্রোত দেখা যায়। যারা সোমবার ফিরেছেন তারা বলেন, ফিরতে ইচ্ছে না করলেও, জীবিকার জন্য আসতেই হচ্ছে এই শহরে।

সোমবার কমলাপুর  রেল  স্টেশনে গাদাগাদি ভিড় দেখা যায়নি। সকাল থেকেই চট্টগ্রাম, রাজশাহী, রংপুর ও জামালপুরসহ  দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে ট্রেন কমলাপুরে এসে পৌঁছেছে।  ফেরার পথে নির্দিষ্ট  স্টেশন থেকে সময়মত ট্রেন ছেড়েছে বলেও জানান যাত্রীরা। এছাড়া কমলাপুর  স্টেশন  থেকেও প্রায় সময়মত ট্রেন ছেড়ে যাচ্ছে। ফেনী থেকে আসা আরেফিন বলেন, আসন  পেতে একটু কষ্ট হয়েছে। এছাড়া আর কোনো ঝামেলা হয়নি। নির্ধারিত সময়ের কয়েক মিনিট পরে ট্রেন আসলেও শিডিউলে বিপর্যয় হয়নি। রাজশাহী  থেকে আসা মিরাজ আহমেদও একই ধরনের কথা জানালেন।

বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা নাঈমা সুলতানা বলেন, বাড়ি যাওয়াটা আনন্দের হলেও ফেরাটা অনেক কষ্টের।গত ২৫  সেপ্টেম্বর ঈদুল আজহার কয়েক দিন আগে  থেকেই ফাঁকা হতে থাকে ঢাকা। নানা দুর্ভোগ সত্ত্বেও মানুষ বাড়ি ফিরে প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করতে।

ছুটির সঙ্গে বাড়তি ছুটি নিয়েছেন তারাও পরিবার পরিজনের সঙ্গে ঈদ কাটিয়ে ইট-পাথরের নগরীতে আসতে শুরু করেছেন। সকাল  থেকেই রাজধানীর কমলাপুর  রেলস্টেশন, সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এবং বাস টার্মিনালগুলোতে ঢাকায় ফেরা মানুষের চাপ দেখা গেছে। সামনের কয়েকদিন এ চাপ আরো বাড়বে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছে।ঈদের আগে দেশের প্রধান মহাসড়কগুলো ছিল যানজটের দখলে। সবচেয়ে  বেশি দুর্ভোগ  পোহাতে হয়েছে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের যাত্রীদের। ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-খুলনা ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে যানজটের কারণে যাত্রী ভোগান্তি চরমে ওঠে। তবে  ফেরার পথে এখনো দুর্ভোগ চোখে পড়েনি।সদরঘাটে কর্মরত বিআইডব্লিউটিএ’র এক কর্মকর্তা জানান, সদরঘাট থেকে প্রতিদিন প্রায় ৫০টি রুটে  দেড় শতাধিক লঞ্চ চলাচল করে। শনিবার রাত  থেকেই মানুষ ঢাকায় ফিরতে শুরু করেছে। কর্মজীবি মানুষের এ চাপ আরো বাড়বে।

কমলাপুর রেলওয়ের  স্টেশন ম্যানেজার সিতাংশু চক্রবর্তী বলেন, ঈদের আগের ৫ দিন এবং ঈদ পরবর্তী সাতদিন পর্যন্ত অতিরিক্ত চাপ সামলাতে বাড়তি ট্রেনের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।শনিবার থেকেই ঢাকায় আসা যাত্রীদের চাপ শুরু হয়েছে। রোববার তিন দিনের সরকারি ছুটি  শেষ হলেও ঈদের তৃতীয় দিন  যানজটের রাজধানী ঢাকা এখনও ফাঁকা । ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে লাখো মানুষ ঢাকা ছেড়ে চলে যাওয়ায় রাজধানীর যানজট একেবারেই হাওয়া। গুরুত্বপূর্ণ রাজপথ ফাঁকা। আর ফাঁকা রাস্তায় গাড়ি চালিয়ে আনন্দে রাজধানীতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন মানুষ। কিছুটা হলেও ঈদের সময় ঘরের বন্দি জীবন থেকে বেরিয়ে স্বস্তির নি:শ্বাস নিচ্ছেন লাখ লাখ নারী পুরুষ।জনবহুল শহর ঢাকার ব্যস্ততম মতিঝিল অফিসপাড়া, গুলশান, মগবাজার,  মৌচাক, মালিবাগ মোড়, পল্টন, ফার্মগেট এলাকায় গাড়ির ভিড় ছিল না।ফুটপাত ছিলো একেবারেই খালি। সবগুলো  মোড় ছিল ফাঁকা ফাঁকা। অফিসপাড়া খ্যাত মতিঝিল ছিল নিরব সুনশান। রিক্সা বা প্রাইভেট কারের ভিড় ছিল না রাস্তায়। যারা ঈদ করতে রাজধানী ছেড়ে বাড়িতে  গেছেন তারা কর্মস্থলে না  ফেরায় রাজধানীতে ছুটির আমেজ পুরোদমে বিরাজ করছে।এই সুযোগে পরিবার-পরিজন নিয়ে ছুটেছেন বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে। রোববার অফিস খুললেও রাস্তায় গাড়ির সংখ্যা ছিল কম। শরতের মিষ্টি রোদের আবহে ঢাকার বাতাস ছিল নির্মল। গাড়ির হর্ন ছিল না।ঈদের তিন দিনের ছুটির সঙ্গে যারা বাড়তি ছুটি নেননি তারা  রোববারই কর্মস্থলে যোগ দিয়েছেন। শনিবার বিকেল  থেকেই তারা রাজধানীতে ফিরতে শুরু করেন।

অনেকে  রোববার সকালে ঢাকায় ফিরেই হয়েছেন অফিসমুখি। তবে ঈদের পর প্রথম কর্মদিবসে অফিস আদালতে উপস্থিতি ছিল অন্য সময়ের চেয়ে অনেক কম। রবিবার যারা অফিস করেছেন তাদেরকে কোলাকুলি আর কুশল বিনিময় করতে দেখা  গেছে। সোমবার  উত্তরবঙ্গের মানুষজনের যাতায়াতের বড় বাস টার্মিনাল গাবতলীতে গিয়ে এমন চিত্র দেখা গেছে। তবে ঢাকায় ফেরার এ চিত্র স্বাভাবিক। এখানো চাপ শুরু হয়নি।  মঙ্গলবার  থেকে ঢাকামুখী মানুষের চাপ থাকবে বলে জানিয়েছেন বিভিন্ন বাস কাউন্টারের ব্যবস্থাপকরা।

সরেজমিন  দেখা গেছে, ঈদ  শেষে কর্মস্থলের উদ্দেশ্যে রওনা দিয়েছেন  লোকজন। সকাল  থেকে বাসপ্রতি ঢাকামুখী যাত্রী ছিল ৮/১০ জন। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে এ সংখ্যা। দুপুর  থেকে বাসপ্রতি যাত্রী ছিল ২৫-৩০ জন। তবে যাত্রীদের ভিড়ে বিকেল নাগাদ সব গাড়িই পূর্ণ থাকবে বলে বাস সংশ্লিষ্টদের ধারণা।ঘড়ির কাটায় দুপুর সাড়ে ১২টা। রয়েল এক্সপ্রেসসর একটি গাড়ি গাবতলী এসে  পৌঁছেছে। এ গাড়ি থেকে দু’তিনজন যাত্রী নেমেছেন। এদের একজন আলমগীর (২৫)।তার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বাড়ি চুয়াডাঙ্গায়।  সেনাবাহিনীর সৈনিক পদে চাকরি করেন। থাকেন বানানী  সেনানিবাসে। ২১ সেপ্টেম্বর বাড়ি  গেছেন। আজই চাকরিতে জয়েন করতে হবে, তাই চলে এসেছেন।

http://www.anandalokfoundation.com/