মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২০, ১১:৪২ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
মায়ের সঙ্গে কারাগারে ৩৫১ শিশু অতি বড় ফ্যাশন সচেতন মানুষজনও হতবাক প্রিয়াঙ্কার পোশাকে প্রশ্নফাঁসের সাথে জড়িত থাকায় ঢাবি’র ৬৭ শিক্ষার্থী আজীবন বহিষ্কার শৈলকুপায় নারী নির্যাতন মামলায় ৪ শিক্ষক-কর্মচারী কারাগারে উন্নত জাতি গঠনে কাজ করবে গণমাধ্যম -তথ্যমন্ত্রী মুজিববর্ষ উপলক্ষে ঝিনাইদহের শৈলকুপায় থানায় ওপেন হাউজ ডে ঝিনাইদহে জেন্ডারভিত্তিক সহিংসতা প্রতিরোধে যুব সমাবেশ পাইকগাছায় ফলের বাগান সাথী ফসল হিসাবে সবজির চাষ ভোলায় ৯ বছরের শিশু ছাত্রী ৬ মাসের অন্তঃস্বত্তা, ধর্ষকের পাশাপাশি বাবা-মাকে সমান দোষী করছেন এলাকাবাসী সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালন করতে ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর আহ্বান

অসমাপ্ত ব্রীজের ১৮টি পিলারে কপোতাক্ষ নদ হুমকির মুখে, পিলার অপসারনের দাবি

কপোতাক্ষ নদ

ইমদাদুল হক, পাইকগাছা, খুলনা: খুলনার পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি বাজারের পাশে কপোতাক্ষ নদে নির্মিত অসমাপ্ত সেতুর ১৮টি পরিত্যক্ত পিলার ১৫ বছরেও অপসরাণ করা হয়নি। পিলার অপসারণ না হওয়ায় ওই স্থানে পলি জমে ভরাট হচ্ছে নদটি। ফলে প্রায় ৩শ কোটি টাকা ব্যয়ে নদ খননের সুফল মিলছে না। এলাকাবাসী জানান, পাইকগাছা উপজেলার কপিলমুনি থেকে সাতক্ষীরা সদর হয়ে সরাসরি কোলকাতা যাওয়ার সড়ক নির্মাণের স্বপ্ন দেখেন প্রায় শত বছর আগে আধুনিক বিনোদগঞ্জ বাজারের প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত রায় সাহেব বিনোদ বিহারী সাধু।

সে মোতাবেক টাকাও সংগ্রহ করেন তিনি। কিন্তু তৎকালীন বিভিন্ন প্রতিবন্ধকতায় সে সময় বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি সেতু নির্মাণ। স্বাধীনতার পরবর্তী সময় এলাকাবাসীর দীর্ঘ দিনের আন্দোলন-সংগ্রামের ফলে কপোতাক্ষ নদের ওপর সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা করে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি)। পরিকল্পনা অনুযায়ী ২০০০ সালে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করে সেতু নির্মাণকাজ শুরু করা হয়। কিছুদিন চলার পর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অনিয়ম-দুর্নীতির ফলে কাজ বন্ধ হয়ে যায়।

সে সময়ের মধ্যে সেতুর আংশিক কাজ শেষ হয়। পরবর্তী সময়ে পলি জমে কপোতাক্ষ মৃত নদে পরিণত হয়। আর তখন এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের আন্দোলন-সংগ্রাম ও স্বপ্নের মৃত্যু হয়। অন্যদিকে নদ খননের জন্য ২০১১ সালের নভেম্বরে ২৬১ কোটি ৫৪ লাখ ৮৩ হাজার টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। খনন করা হয় কপোতাক্ষ নদ। কিন্তু পিলারগুলোতে পলি জমে ভরাট হওয়ায় খনন কাজে আসছে না। খুলনা এলজিইডির একটি সূত্র জানায়, কপিলমুনি-সাতক্ষীরার জেঠুয়া ব্রিজ নির্মাণ কাজে ব্যয় ধরা হয় হয় ১ কোটি ৯৩ লাখ ৪২ হাজার ৯১৯ টাকা ৫৫ পয়সা। কাজের মান প্রশ্নে পরবর্তী সময়ে তা বেড়ে দাঁড়ায় ২ কোটি ৩৬ লাখ টাকায়।

নির্মাণের দায়িত্ব পায় এন হক এসোসিয়েট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানটি খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) সাবেক সংসদ সদস্য নূরুল হকের। কার্যক্রম শুরু হয় ২০০০ সালের ১২ এপ্রিল। এরপর ২০০৩ সালের ১২ নভেম্বর পর্যন্ত আংশিক কাজ শেষ করে আইএফআইসি ব্যাংক খুলনা শাখা থেকে ১ কোটি ৬৭ লাখ ৭২২ টাকা উত্তোলন করে নির্মাণকাজ বন্ধ করে দেয়। পরবর্তী পর্যায়ে বিষয়টি আদালত পর্যন্ত গড়ায়। খুলনা মহানগর হাকিম আদালতে খুলনা এলজিইডি মামলা করে। যার ফলে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের নামে মামলাসহ নানা জটিলতা ও দীর্ঘসূত্রতার কারণে সেতু নির্মাণ অনিশ্চিত হয়ে পড়ে।

সেতুর বাকি কাজ সমাপ্ত করতে ইসলাম গ্রুপ নামের অপর একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দায়িত্ব পায়। তারা নির্মাণকাজ শুরু করে ২০০৪ সালে। তখন পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সাতক্ষীরা কপোতাক্ষ নদের স্রোত বাধা পাবে মর্মে একটি চিঠি সংশিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করলে সেতু নির্মাণের কাজ সম্পূর্ণ বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু নদের বক্ষে ১৮টি পিলার থেকে যায়। পিলারগুলোর একদিকে জোয়ার-ভাটায় পলি জমছে, ভরাট হচ্ছে। অন্যদিকে নৌযান চলাচলে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। কপিলমুনি এলাকার এ কে আজাদ বলেন, এখনই যদি ঐসব পিলার অপসারণ না করা হয়, তবে ৩শ কোটি টাকা ভেস্তে যাবে আবারও পলি জমে। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলজিইডি) খুলনা নির্বাহী প্রকৌশলী এ এস এম কবির জানান, এটা নদের জন্য বেশ বড় সমস্যা। এ প্রকল্প কাজ শেষ হয়েছে অনেক আগে। এখন নতুনভাবে এটির কাজ করতে হবে। তবে সব থেকে ভালো হতো নদ খননের সময় এগুলো অপসরণ করলে। কিন্তু কেন যে করা হলো না তা বুঝতে পারলাম না।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
25262728293031
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit