বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ০৯:০৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
বেনাপোল রজনী ক্লিনিকে দায়িত্ব অবহেলার নবজাতকের মৃত্যু চীনের পণ্য খারাপ ও নিম্নমানের, মুখ ফিরিয়ে নিতে চায় পুরো বিশ্ব শাকিব একাই দু’জন ক্রিকেটারের সমান ফুলবাড়ীতে যুবলীগ কর্মী শহীদ নূর হোসেনকে কূটুক্তিকারীর শাস্তির দাবিতে  বিক্ষোভ বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসে প্রধানমন্ত্রীর বাণী বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসে রাষ্ট্রপতির বাণী অবহেলিত মানুষের কাছে স্বাস্থ্য সেবা পৌছে দিতে প্রতিটি ইউনিয়নে দুটি করে কমিউনিটি ক্লিনিক স্থাপন করা হয়েছে -ডা: মুশফিক নবীগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের নামে অতিরিক্ত ফি আদায় ঝিনাইদহ কালীগঞ্জে সাড়ে ৭’শ কৃষক পেলেন প্রনোদনা বগুড়ায় বায়োমেট্টিক হাজিরা মেশিন না কিনেই ভাউচার

পুনর্জন্ম কিংবা জন্মান্তরবাদ সম্পর্কে জেনে নেই

পুনর্জন্ম কিংবা জন্মান্তরবাদ

আমাদের মানব জীবন একটা খণ্ডজীবন। অনেকগুলি খণ্ডজীবনের সমাহার হলো একটা অখণ্ড বা পূর্ণ জীবন। যেমন- এককোষী জীব প্রোটোজোয়া ক্রমবিবর্তনের পথে অসংখ্য জীবনের মধ্য দিয়ে মানুষের দেহ লাভ করে। আর তারপরেও সে এগিয়ে চলে পরমপুরুষের দিকে। এই একমুখী যাত্রা বিভিন্ন খণ্ড জীবনের মধ্য দিয়ে চলতে থাকে। আর যখন জৈবিক সংরচনা ক্রমবিবর্তনের পথে প্রথম মানব দেহ লাভ করে তখন থেকেই মানুষের পূর্ণ জীবনের যাত্রা শুরু হয়। আর যখন সে পরমপুরুষের সঙ্গে সম্পূর্ণভাবে একাত্মতা লাভ করে তখন তার পূর্ণজীবনের পরিসমাপ্তি ঘটে। অর্থাৎ মানস-আধ্যাত্মিক জগতে মানব জীবনের শুরু হয় তখন থেকে যখন ক্রমবিবর্তনের পথ ধরে এককোষী জীব মানব দেহ ধারণ করে। আর যখন অসংখ্য উত্থান-পতনের মধ্য দিয়ে অসংখ্য বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে পরমপুরুষের সঙ্গে একীভুত হয়ে যায় তখনই মানব জীবনের পরিসমাপ্তি ঘটে। এটাই মানব জীবনের গন্তব্যস্থল। এখানেই মানব জীবন পূর্ণতা লাভ করে। তাই জাগতিক জগতে পার্থিব জীবন অর্থাৎ শিশুর জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত মানস-আধ্যাত্মিক জগতে পূর্ণজীবনের একটা অংশ মাত্র। এই খণ্ডজীবনে তার পূর্বকৃত কর্মফল তথা সংস্কার ভোগের মধ্য দিয়ে সে জন্ম-মৃত্যুর আবর্তে ঘুরপাক খেতে খেতে এগিয়ে চলে তার পরম লক্ষ্যের পানে। গীতায় ভগবান শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন,-

                  “বাসাংসি জীর্ণানি যথা বিহায় নবানি গৃহ্নাতি নরোহপরানি।

                    তথা শরীরানি বিহায় জীর্ণান্যন্যানি সংযাতি নবানি দেহী”।।

আমরা কাপড় পরি। সেই কাপড় পুরানো হয়ে ছিঁড়ে যায়। তখন ছেঁড়া কাপড়টি ত্যাগ করি, নূতন কাপড় পরি। কাপড়ের মত আমাদের শরীরও নষ্ট হয়ে যায়।শরীর নষ্ট হলে মন ও আত্মা সেই শরীর ত্যাগ করে নতুন শরীর গ্রহণ করে। এমনি ভাবে মন ও আত্মা বার বার এক শরীর ত্যাগ করে আবার অন্য শরীর ধারণ করে।যতক্ষণ না তার অভূক্ত কর্মফল ভোগ শেষ হচ্ছে ততক্ষণ তাকে এমনি করে বার বার জন্ম নিতেই হবে।

মৃত্যুর পরে বিদেহী মানসে থাকে শুধু তার অভূক্ত কর্মফল বা সংস্কার আর অতি স্নায়ুকৌষিক স্মৃতি(Non-cerebral memory)। এই সংস্কার ভোগ শেষ শেষ না হওয়া পর্যন্ত তার মুক্তি বা মোক্ষ হতে পারে না।তাই তাকে এই সংস্কার ভোগের জন্যে তদনুকূল নূতন দেহ ধারণ করতে হবে যাতে সে স্নায়ুকোষ ও স্নায়ুতন্তুর সাহায্য নিয়ে তার অভুক্ত কর্মফল ভোগ করতে পারে। এখন তার সংস্কারের অনুকূল দেহ যতক্ষণ না পাচ্ছে ততক্ষণ তাকে মহাশূন্যে কালগর্ভে অপেক্ষা করতেই হবে। পিতা মাতার সংস্কার অনুযায়ী মাতৃজঠরে যখন শুক্রানু ও ডিম্বানুর মিলনে নূতন দেহ তৈরী হয় তারও একটা স্পন্দন আছে। সেই স্পন্দন যদি বিদেহী মানসের স্পন্দনের অনুকূলে হয়, তবে প্রকৃতির রজোগুণ উভয়ের মিলন ঘটিয়ে দেয়। শুরু হয় নূতন জীবন। একেই পুনর্জন্ম বলে।

প্রমান স্বরূপ বলা যায়, এই জগতে আমরা দেখি কিছু লোক জন্ম থেকেই দারুণ বুদ্ধিমান। আবার কারো মধ্যে কোন বিশেষ গুণ দেখা যায় যা অন্য হাজারো মানুষের মধ্যেও দেখা যায় না। যেমন, জন্মগত ভাবে ছোটবেলা থেকেই কেউ সঙ্গীতে জিনিয়াস, কেউ কবিতা লেখায়, কেউ ছবি আঁকায়, কেউ বা তীক্ষ্ণ স্মৃতিশক্তির অধিকারী। এমন কেন হয়? পরমপুরুষতো কারো ওপর পক্ষপাতিত্ব করে তাকে বিশেষ গুণের অধিকারী করতে পারেন না। তাঁর কাছে তো সবাই সমান। তাঁর কৃপা তো সবার ওপর সমান ভাবে বর্ষিত হয়ে চলেছে। আসলে যে কোন মানুষ তার নিজের কর্ম প্রচেষ্টা দ্বারা বিশেষ গুণ অর্জন করতে পারে।আর এটা নির্ভর করে এই খণ্ডজীবনে কী তার লক্ষ্য ছিল, কি ভাবে সে তার সেই লক্ষ্য আপূর্ত্তির জন্য কর্ম প্রচেষ্টা চালিয়েছে, কী ভাবে তার এই খণ্ড জীবনের উপযোগ করেছে বা তার আচার-আচরণ কেমন ছিল তার উপর।তার এই খণ্ডজীবনের কর্ম প্রচেষ্টার দ্বারা অর্জিত এই বিশেষ গুণ তার সংস্কারে পরিণত হয় আর তার মনে বীজরূপে থেকে যায়। মৃত্যুর পরে যখন সে পুণরায় জন্মগ্রহণ করে অর্থাৎ তার পরবর্তী খণ্ডজীবনে বাল্যকাল থেকেই তার মধ্যে এই পূর্বজীবনের সংস্কারের স্ফুরণ ঘটতে থাকে। তাই বাল্যকাল থেকেই তার মধ্যে বিশেষ বিশেষ গুণের অভিব্যক্তি দেখা যায়।

এখন মানুষ যখন তার কর্ম প্রচেষ্টার দ্বারা বিশেষ গুণ অর্জন করে তার এই গুণকে বলে ‘Technique’ বা দক্ষতা আর যে ব্যষ্টি এই ‘Technique’ অর্জন করে তাকে বলে Technician বা দক্ষ। দক্ষতা এক জীবনে কর্ম প্রচেষ্টার দ্বারা অর্জিত হয় আর  বীজরূপে, সংস্কাররূপে তার মনে থেকে যায়।আর এই সংস্কার বা বীজ যখন পরবর্তী খণ্ডজীবনে প্রকাশ পায় তখন তাকে বলে ‘প্রতিভাধর’ বা Genius। তাই ‘প্রতিভাধর’ হলো একটা জন্মগত গুণ আর ‘দক্ষ’ হলো সেই ব্যষ্টিত্ব যিনি তার সাধারণ গুণকে কর্ম প্রচেষ্টার দ্বারা অসাধারণ গুণে পরিণত করেছেন।সুতরাং দক্ষতা কর্ম প্রচেষ্টার দ্বারা অর্জিত হয়, আর পরবর্তী খণ্ডজীবনে এই ‘দক্ষতা’ ‘প্রতিভা’য় পরিণত হয়। তাই মানুষ ভিন্নধর্মী কর্ম প্রচেষ্টার দ্বারা ভিন্ন ভিন্ন সংস্কার অর্জন করে আর জন্মসূত্রে সংস্কার অনুযায়ী বিশেষ গুণের অধিকার্রী হয়। তাই তো জগৎ এতো বৈচিত্রময়।পুনর্জন্ম না থাকলে সব মানুষের একই ধরণের সংস্কার হতো, সবার একই প্রকার বিচার ধারা হতো, সবাই একই ধরণের রূপ লাভ করতো। মানুষে মানুষে কোন পার্থক্য থাকতো না।

‘তবে মানুষের যেমন সংস্কার পরজন্মে সে সেই ধরণের শরীর পেয়ে থাকে। কোন মানুষ যদি ধর্মের পথ ছেড়ে পশুর মত জীবন অতিবাহিত করে তবে তার আরদ্ধ সংস্কারের জন্যে পরবর্তী জন্মে তাকে পশুযোনিতে জন্মগ্রহণ করতে হবে।প্রকৃতির রজোগুণী শক্তি বিদেহী মনের জন্যে তার সংস্কার অনুযায়ী সেই ধরণের উপযুক্ত শরীরের ব্যবস্থা করে দেয়।ধরা যাক কোন মানুষ তীব্র আকুতি নিয়ে আধ্যাত্মিক সাধনা করে চলেছে। কিন্তু তার মুক্তি হয় নি। সেই অবস্থায় সে আবার মানুষের শরীর নিয়ে জন্মাবে ও আধ্যাত্মিক সাধনা করার উপযুক্ত পরিবেশও পেয়ে যাবে।পূর্বজন্মে যতদূর পর্যন্ত সে সাধনা মার্গে পৌঁছেছিল, এ জন্মে তাঁর সাধনা সেখান থেকেই শুরু হবে। একমাত্র আধ্যাত্মিক পথের অনুগামীদের জন্যে প্রকৃতি এই ব্যবস্থা করে দেন।এদের ক্ষেত্রে পরবর্তী জন্মে প্রথম থেকে সাধনা শুরু করতে হয় না। ভৌতিক ও মানসিক শক্তি সম্পন্ন মানুষের ক্ষেত্রে এমনটা হয় না। ধরা যাক এ জন্মের কোন মানুষ খুবই বুদ্ধিমান ও বিখ্যাত বৈজ্ঞানিক। পরজন্মে কিন্তু সেই বুদ্ধিমান বা বৈজ্ঞানিক যে সেই জ্ঞান নিয়ে জীবন শুরু করবেন তা নয়। কর্ম অনুযায়ী তাদের শরীরের পরিবর্তন তো হবেই এমনকি মানসিক দিকে তারা যে সেই অগাধ জ্ঞানের ধারা নিয়েই জন্মাবেন এমনও কোন কথা নেই।তাঁদের চিন্তার বিষয় পরিবর্তিত হয়ে যেতে পারে। তবে কোন কোন  ক্ষেত্রে কী হয় যদি কোন মানুষ তার শিল্প কর্ম বা আরদ্ধ জ্ঞানের প্রতি তীব্র মনোনিবেশ করে থাকে ও জীবনের শেষ ক্ষণ পর্যন্ত তা বজায় থাকে তবে পরবর্তী জীবনে সে বিষয়ে তার বিশেষ অনুরাগ জন্মে থাকে।এসব ক্ষেত্রে জন্ম থেকেই তারা বিশেষ প্রতিভার অধিকারী হন। তবে এমন যে সব ক্ষেত্রেই হবে তেমন কোন কথা নেই। উন্নতমানের শিল্পী ও ললিতকলার উপাসক হয়েও যদি মনুষ্যোচিত জীবনযাপন না করে তবে তাদের অনুন্নত জীবনে নেমে আসতে হবে’।

আবার কখনও কখনও দেখা যায় কোন কোন ছেলে বা মেয়ে তার পূর্ব জীবনের কথা বলে দিতে পারে।এই ধরণের ছেলে মেয়েদের বলা হয় জাতিষ্মর। অর্থাৎ যারা এই খণ্ডজীবনে পূর্ব জীবনের কথা স্মরণ করতে পারে। এই জাতিষ্মরের পূর্বজীবনের স্মৃতি রোমন্থনের ক্ষমতা সাধারণতঃ বার বৎসর পর্যন্ত থাকে।তারপরও যদি কেউ পূর্বজীবনের কথা ভুলে না যায় তবে তার পক্ষে বেঁচে থাকা কঠিন হয়ে পড়ে। এই জাতিষ্মরদের দ্বারাও পুনর্জন্মের সত্যতা প্রমানিত হয়। তাই জন্মান্তরবাদ স্বীকার না করে উপায় নেই।

মানুষের কর্ম অনুযায়ী তার সংস্কার তৈরী হয় আর সেই সংস্কার ভোগের জন্যে তাকে বার বার জন্ম নিতে হয়।আর যেহেতু কর্মফল ভোগ করার জন্যে পুনর্জন্ম নিতে হচ্ছে, তাই মৃত্যুর পরে স্বর্গ-নরকে যাবার প্রশ্নও ওঠে না। তাছাড়া এই জন্মান্তরবাদকে  মানলে স্বর্গ-নরকের কাহিনীকে মানা যায় না।

এখন যুক্তি তর্কে দেখতে পাচ্ছি প্রতিটি জীবকেই তার কর্মফল ভোগ করার জন্যে পুনরায় জন্ম নিতে হয়, আর স্বর্গ-নরক বলেও কিছু নেই। তাই শ্রাদ্ধের দ্বারা মৃত ব্যষ্টির বিদেহী মন ও আত্মার মুক্তি বা স্বর্গ প্রাপ্তি বা গরুর ন্যাজ ধরে বৈতরণী   নদী পার হবার কাহিনী  ‘অলীক কল্পকাহিনী’  ছাড়া কিছুই নয়। একদল সুবিধাবাদী স্বার্থপর মানুষ সাধারণ মানুষের অজ্ঞতার সুযোগ নিয়ে এইসব মিথ্যা, অলীক কাহিনী প্রচার করে তাদের মানস-অর্থনৈতিক ভাবে শোষণ করে এসেছে, এখনও করে চলেছে। আজকের একবিংশ শতাব্দীর শিক্ষিত সমাজকে ধর্মের নামে শোষকদের এই শোষণের মুখোশ খুলে দিতে হবে। সাধারণ মানুষকে এই অন্ধবিশ্বাস, কুসংস্কার থেকে মুক্ত করতে হবে।

“শ্রাদ্ধে বিদেহী আত্মার কোন লাভ নেই। তা করা হয় শ্রাদ্ধকারীর মানসিক শান্তির জন্য”। মানুষ শুধু পরমপুরুষের কাছে প্রার্থনা করতে পারে যে, “হে পরমেশ্বর, আমাদের পরমাত্মীয় আজ মর জগতের উর্ধ্বে, জাগতিক সুখ-দুঃখের বাইরে। তিনি আজ সর্বপ্রকার জাগতিক কর্তব্য বন্ধন থেকে মুক্ত। তার প্রতি আমাদের যে সামাজিক দায়িত্ব ছিল, তুমি আজ আমাদের সেই সকল দায়িত্ব থেকে মুক্ত করেছ। আজ আমরা আমাদের অন্তরের সমস্ত পবিত্রতাসহ তোমার পুত্র/কন্যাকে তোমার স্নেহময় ক্রোড়ে প্রত্যার্পণ করলাম। তোমার জিনিস তুমি গ্রহণ করে আমাদের কৃতার্থ করো”।এর বেশী আর মানুষের কিছুই করার নেই।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 News Time Media Ltd.
IT & Technical Support: BiswaJit