শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ০৬:১৮ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
উজবেকিস্তানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের সাথে বাংলাদেশে নিযুক্ত উজবেকিস্তানের অনাবাসিক রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ বেনাপোল সীমান্তে মাদক, স্বর্ণসহ ১২০ কোটি টাকার চোরাচালানপণ্য আটক স্ত্রীর কথায় মাকে মাথা ফাটিয়ে দিল ছেলে পাইকগাছায় সপ্তদ্বীপা সাহিত্য পরিষদের কমিটি গঠন কালীগঞ্জে ”প্রাণের ঝিনাইদহের” পক্ষ থেকে এতিম ছিন্নমূলদের মাঝে গরম কাপড় বিতরন রাত পোহালেই শৈলকুপা পৌরসভায় ইভিএমে ভোট বিজিবি মোতায়েন আলেম-উলেমারা সমাজের শ্রেষ্ঠ শিক্ষক -গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী ত্যাগী নেতাকর্মীদের দলে মূল্যায়ন করতে হবে -তথ্যমন্ত্রী গৌরনদীতে তিন হাজার মিটার অবৈধ জাল জব্দ শনিবারে বোয়ালমারী পৌরসভা নির্বাচন: কেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে নির্বাচন সামগ্রী

তারাগঞ্জে এমএইচভি নিয়োগ ও প্রণোদনা ভাতা প্রদানে অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ

তারাগঞ্জে কমিউনিটি ক্লিনিক

দিপক রায়, রংপুর প্রতিনিধি : রংপুরের তারাগঞ্জে কমিউনিটি ক্লিনিকে (সিসি) এমএইচভি (মাল্টিপারপাস হেল্থ ভলান্টিয়ার) নিয়োগ ও প্রণোদনা ভাতা প্রদানে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ উঠে এসেছে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা. মোস্তফা জামান চৌধুরী ও সহকারি স্বাস্থ্য পরিদর্শক আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে।

এমএইচভি নিয়োগে ঘুষ বাণিজ্য ও প্রণোদনা প্রদানে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার বিষয়ে রংপুরের সিভিল সার্জন ও সাংবাদিকদের লিখিত অভিযোগ করেছেন একজন সিএইচসিপি (কমিউনিটি হেল্থ কেয়ার প্রোভাইডার) সদস্য।

উপজেলার উজিয়াল মধ্যপাড়া কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইচসিপি মোঃ মাহামুদুর রহমানের লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা, স্বাস্থ্য বিভাগের অধিদপ্তরাধীন ৪র্থ এইচপিএনএসপি অন্তর্ভূক্ত সিবিএইচসি অপারেশনাল প্লানের আওতায় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ও অর্থ মন্ত্রণালয় অনুমোদিত কাজের বিনিময়ে প্রণোদনা ভাতা প্রদান ভিত্তিতে তারাগঞ্জ উপজেলার পাঁচ ইউনিয়নের প্রতিটি কমিউনিটি ক্লিনিকে ২০১৮ সালের শেষের দিকে প্রয়োজন অনুযায়ী এমএইচভি নিয়োগ দেওয়া হয়।

নিয়োগ সংক্রান্ত নীতিমালা অনুযায়ী অনলাইন লিখিত পরীক্ষা ও উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ দেওয়ার কথা থাকলেও বিভিন্ন প্রার্থীদের কাছে অর্থ হাতিয়ে নিয়ে নামমাত্র পরীক্ষা নিয়ে ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মীসহ উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা এবং এএইচআই আব্দুস সালাম যোগসাজসে তাদের নিজেদের পছন্দমতো প্রার্থীদের নিয়োগ প্রদান করেন।

সিএইচসিপি সদস্য মাহামুদুর রহমান অভিযোগে উল্লেখ করেন, গত ২১ সেপটেম্বর ২০১৮ তারিখের এমএইচভি নিয়োগের অনলাইন পরীক্ষায় তার কর্মস্থল উজিয়াল মধ্যপাড়া কমিউনিটি ক্লিনিক থেকে মোট ০৬ জন এমএইচভি গ্রহণের বিপরীতে ২০ জন প্রার্থী অংশগ্রহণ করে। তাদের মধ্যে মাত্র ০৩ জন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। একই মাসের ২৫ তারিখ উত্তীর্ণ প্রার্থী পেয়ারী বেগম, খুরশিদা জাহান ও সাহাবুল ইসলামের মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে তাদের নিয়োগ দেওয়া হয়। কিন্তু সে সময় সাহাবুল ইসলাম ন্যাশনাল সার্ভিস কর্মসূচিতে উপজেলা প্রশাসনের আইসিটি বিভাগে কর্মরত ছিল।

বিষয়টি উপজেলা স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা এবং তৎকালীন এএইচআই আব্দুস সালামকে জানালে সিএইচসিপি মাহামুদুরকে চুপ থাকতে করা নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে মাহামুদুর খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন আব্দুস সালাম সাহাবুলের কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা ঘুষ নিয়ে বিষয়টি সমাধান করেছেন। ঘুষ গ্রহণের বিষয়টি জানালে আব্দুস সালাম মাহামুদুরকে ইউএইচ এন্ড এফপিও মহোদয়ের মাধ্যমে অন্যত্র বদলী করার ভয় দেখিয়ে চুপ থাকতে বাধ্য করেন।

উক্ত সিএইচসিপি সদস্য অভিযোগে আরো উল্লেখ করেন, ইকরচালী মাটিয়ালপাড়া কমিউনিটি ক্লিনিকের এমএইচভি মোঃ মোনাববুল হোসেন ন্যাশনাল সার্ভিসে থাকার কারণে তার কাছেও এএইচআই আব্দুস সালাম ২০ হাজার টাকা দাবী করেন। মোনাববুল টাকা দিতে অপারগতা জানালে তাকে এমএইচভি থেকে অব্যাহতি নিতে বাধ্য করেন।

এমতবস্থায় হঠাৎ করে একদিন স্বাস্থ্য ও প.প. কর্মকর্তা সকল সিএইচসিপিদের নিজ অফিসে ডেকে স্ব-স্ব সিসিতে যতজন এমএইচভি প্রয়োজন তার লিষ্ট চান। কিভাবে নতুন এমএইচভি নিয়োগ দেওয়া হবে বিষয়ে জানতে চাইলে পরীক্ষা ছাড়াই শুধুমাত্র মৌখিক পরীক্ষা নিয়ে তাদের নিয়োগ দেওয়া হবে বলে সিএইচসিপিদের জানান। যা নিয়োগ বিধির লঙ্ঘন। কর্মকর্তার আদেশে অভিযোগকারী মাহামুদুর তার সিসির জন্য ০৩ জনের নাম দিলে আব্দুস সালাম তাকে ০৪ জনের নাম দিতে বলেন। যা মাহামুদুরের সিসির আওতাধীন খানা ও রেজুলেশন অনুযায়ী প্রয়োজন ছিল না। আব্দুস সালামের কথায় বাধ্য হয়ে মাহামুদুর ০৫ জনের নামের তালিকা দিলে আব্দুস সালাম বিভিন্নভাবে যোগাযোগের মাধ্যমে ০৪ জনকে বাছাই করেন বলে অভিযোগে উল্লেখ করেন। প্রতিবাদ করলে মাহামুদুরকে সাময়িক বহিস্কারের হুমকি দিয়ে তাকে চুপ থাকতে বাধ্য করেন। কিন্তু পরবর্তীতে মাহামুদুরের সিসিতে নিয়োগপ্রাপ্ত এমএইচভি মোঃ আবু সাঈদ পাঁচ দিনের প্রশিক্ষণ শেষ করলে ২৪ হাজার টাকা দেওয়ার কথা থাকলেও তাকে মাত্র ১২ হাজার টাকা প্রদান করা হয়। অথচ ভাইচারে ২৪ হাজার টাকাই উল্লেখ করা হয়েছে বলে লিখিত অভিযোগে জানান সিএইচসিপি মাহামুদুর। প্রশিক্ষণ ভাতার অর্ধেক অংশ না দেওয়ায় আবু সাঈদ এমএইচভি পদ থেকে অব্যাহতি প্রদান করেন। কিন্তু অব্যাহতি প্রদান করলেও আবু সাঈদের নামে এমএইচভি প্রণোদনা ভাতা উত্তোলন করা হয়।

মাহামুদুর রহমান তার লিখিত অভিযোগে আরো উল্লেখ করেন, একই ভাবে ইকরচালী ইউনিয়নের কাচনা সিসির নিয়োগপ্রাপ্ত এমএইচভি প্রতিমা রানী ন্যাশনাল সার্ভিসে কর্মরত থাকার কারণে আব্দুস সালাম তার কাছ থেকেও ২০ হাজার টাকা দাবী করেন। প্রতিমা ওই টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে তাকেও এমএইচভি পদ থেকে অব্যাহতি নিতে বাধ্য করা হয়। তিনি আরো উল্লেখ করেন, এমএইচভি পদে যোগদানের জন্য তাপস রায়, আরশি আক্তারদের কাছ থেকে ২০ হাজার করে টাকা নেওয়া হয়। যা এমএইচভি বাছাই ও যোগদানে দূর্নীতি হিসেবে বিবেচিত।

তিনি অভিযোগে আরো উল্লেখ করেন, যোগদানকৃত এমএইচভিদেরকে ২০১৯ সালের মে মাসে সিবিএইচসিতে যোগদান দেখানো হয়েছে। যা অন্য উপজেলায় মে মাস হতে প্রণোদনা ভাতা পেয়েছে। কিন্তু তারাগঞ্জ উপজেলায় ২০১৯ সালের জুন মাস হতে প্রণোদনা ভাতা প্রদান করা হয়। ইচ্ছামতো কাউকে ২ হাজার ও কাউকে ৩ হাজার ২৪০ টাকা পর্যন্ত দিয়ে এবং ২০১৯ সালের মে মাসের সম্পূর্ণ প্রণোদনা ভাতা আত্মসাৎ করা হয়েছে। এমনকি এমএইচভি মোঃ জাহাঙ্গীর আলমের চেকে ১৯ হাজার ৪৪০ টাকায় স্বাক্ষর নিয়ে ১৬ হাজার ২০০ টাকা প্রদান করেছে। এমনি ভাবেই সৈয়দপুর সিসিতে কর্মরত সূবর্না আক্তার, জবেদুল হক, তারামনিসহ চারজন লিখিত পরীক্ষা ছাড়াই যেকোন মাধ্যমে শুধুমাত্র মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিয়েই এমএইচভিতে যোগদান করেন। তাদের বরাদ্দকৃত অর্থ সিবিএইচসিতে ফেরত পাঠানো হয়েছে কিনা তা তদন্ত স্বাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণের জন যথাযথ উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানানো হয়েছে অভিযোগ পত্রে।

সেই সাথে সিএইচসিপি মাহামুদুর রহমান আরো অভিযোগ করেন, প্রাক্তন বাছাই কমিটিকে সভায় আহ্বান না করেই স্বাস্থ্য ও প. প. কর্মকর্তা ডা. মোস্তফা জামান চৌধুরী এমএইচভি পরিচালনার লক্ষ্যে একটি নতুন কমিটি গঠন করেন। যা অপারেশন প্লানের নীতির বহির্ভূত। যারা লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেনি তাদেরকে ওয়েটিং লিস্টে দেখিয়ে নতুন এমএইচভি পরিচালনা কমিটি দিয়ে ২০২০ সালের ২০ ডিসেম্বর তারিখের সভায় যোগদান দেখানো হয়েছে। যা নিয়োগ বিধির পরিপন্থী ও ও নিয়োগ বিধিতে দূর্নীতি হিসেবে বিবেচিত।

এবিষয়ে অভিযোগকারী সিএইচসিপি মাহামুদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, এতদিন আমার উপরের চেয়ারে যেসকল অফিসারেরা বসে আছে তাদের প্রদর্শিত বিভিন্ন হুমকির কারণে চুপ ছিলাম। কিন্তু নিজের বিবেকের কাছে সব সময় নিজেকে হেয় মনে হচ্ছিল। তাই আর চুপ থাকতে না পেরে রংপুর সিভিল সার্জন মহোদয়ের কাছে লিখিত অভিযোগ করে সাংবাদিকদের লিখিত অভিযোগের কপি সরবরাহ করলাম। যাতে অভিযোগের কপি পেয়ে আপনারা (সাংবাদিকরা) সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে উপর মহলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ জানান।

রংপুর সিভিল সার্জন ডা. হিরম্ব কুমার মুঠোফোনে বলেন, এ সংক্রান্ত একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
      1
16171819202122
23242526272829
3031     
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit