শনিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২১, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
ম্যান অভ দ্যা ম্যাচ মেহেদী হাসান গত দুই বছরে উন্নয়নের জন্য তালিকা করে বহু প্রকল্প নেয়া হয়েছে -পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী চট্টগ্রামে ক্ষতিগ্রস্ত ২৬টি পরিবারে সনাতন অনলাইন এক্টিভিস্টস ফোরামের ঢেউ টিন বিতরণ শেখ জামাল ক্লাবের দায়িত্ব নিলেন ড. যশোদা জীবন দেবনাথ ফরিদপুরে ১৪৮০ জন গৃহহীন পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর ২০৪১ সালের আগেই দেশ হবে ‘সোনার বাংলা’  -তথ্যমন্ত্রী রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমদের সাথে জাইসের প্রেসিডেন্টের সাক্ষাৎ আয়োডিনের দাম কমালো বিসিক যশোরে ১ লাখ ৯০ হাজার ইউএস ডলারসহ চার যুবককে আটক বিজিবির ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কুইজ’ প্রতিযোগিতা গতকালের বিজয়ীদের তালিকা

বীরশ্রেষ্ঠ থেকে বীরবিক্রম শহীদ জগৎজ্যোতি দাস

শহীদ জগৎজ্যোতি দাস

বাংলার ঘোষিত-অস্বীকৃত প্রথম বীরশ্রেষ্ঠ জগৎজ্যোতি দাস তথা বিংশ শতাব্দীর অভিমন্যু হবিগঞ্জের আজমিরিগঞ্জ উপজেলার জলসুখা গ্রামে জন্মগ্রহন করেন যিনি বাংলার কুরুক্ষেত্রের চক্রব্যূহে প্রাণ দিয়েছেন বাংলারই বুকে। জলসুখা গ্রামের জীতেন্দ্র চন্দ্র দাস ও হরিমতি দাসের কনিষ্ঠ পুত্র জগৎজ্যোতি দাস, জন্ম তাঁর ১৯৪৯ সালের ২৬ এপ্রিল। বাবা ও বড় ভাই রাজমিস্ত্রির কাজ করতেন। দরিদ্র পরিবারে জন্ম নিয়েও তিনি ১৯৬৮ সালে ২য় বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হোন। ১৯৬৮ সালে তিনি ভর্তি হোন সুনামগঞ্জ সরকারী কলেজে। ১৯৭১ সালে ছিলেন এইচএসসি শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী। ১৯৬৯ সালে আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনে অংশ নিয়ে বিশেষ দায়িত্ব পালনে ভারতের গৌহাটির নওপং কলেজে ভর্তি হন; বিভিন্ন অঞ্চলের ভাষা আয়ত্ত্বের পাশাপাশি ধারণা নিয়ে আসেন অস্ত্র ও বিস্ফোরকের উপর। ৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের সময় ভাটিবাংলার মাটিকে মুক্ত করার শপথ নিয়ে তিনি হোন দাস পার্টির (অনেকের মতে দাস কোম্পানি) কমান্ডার। প্রতিজ্ঞা করেন দেশ মাতৃকার মুক্তির।
পাকিস্তানী সেনাবাহিনী ও তাদের দোসর রাজাকার-আলবদরদের কাছে জগৎজ্যোতি ছিলেন এক মূর্তিমান আতঙ্ক। বিশাল ভাটিবাংলায় শত্রুসেনাকে পদদলিত করতে দাবড়ে বেড়িয়েছেন তিনি। মুক্তিযুদ্ধে টেকেরঘাট সাব-সেক্টরের অধীনে বিস্তৃর্ণ ভাটি অঞ্চল শত্রুমুক্ত রাখার দায়িত্ব পড়েছিল তাঁর উপর। দিরাই, শাল্লা, ছাতক, আজমিরিগঞ্জ, বানিয়াচং, জামালগঞ্জ, তাহিরপুর, কিশোরগঞ্জ ও নেত্রকোনার নৌপথ পাক দখলমুক্ত রাখার যুদ্ধে প্রাণের বাজি রেখে লড়ে যান দাস পার্টির যোদ্ধারা দাস পার্টির সাফল্যে ভীত ছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনী, আর তাই পাকিস্তান সরকার রেডিওতে ঘোষণা দিতে বাধ্য হয়, “এই রুট দিয়ে চলাচলকারী ব্যক্তিদের জানমালের দায়িত্ব সরকার নেবে না।” মাত্র ১৩ জন সহযোদ্ধা নিয়ে বানিয়াচঙে পাকবাহিনীর ২৫০ জন সেনা ও দোসরদের অগ্রগতি রোধ করে দেন, যুদ্ধে প্রাণ হারায় শত্রু সেনার ৩৫ জন। পাকিস্তানীদের গানবোট ধ্বংস করে দেওয়া হয়। ২৯ জুলাই বৃহস্পতিবার জামালগঞ্জ থানা ও নৌবন্দর সাচনাবাজার শত্রুমুক্ত করে লাইম লাইটে চলে আসেন তিনি। তাঁর নেতৃত্বে সিলেট সুনামগঞ্জ সড়কের বদলপুর ব্রীজ বিধ্বস্থ করা হয় আর তাঁরই কৃতিত্বের কারণে দাস পার্টি ভারতীয় কমান্ড বাহিনীর মেজর জি,এস,ভাট এর প্রশংসা লাভ করেন। ১৭ আগস্ট পাহাড়পুরে কমান্ডার জগৎজ্যোতির রণকৌশল আর বীরত্বে রক্ষা পায় অসংখ্যা নিরীহ নর-নারী। স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্র থেকে তাঁর বীরত্বগাঁথা প্রচার হয়। জগৎজ্যোতি একা হাতে একটি এলএমজি নিয়ে দখন করে নেন জামালপুর থানা যেখানে আস্তানা গেড়েছিল স্থানীয় পাকি-দোসর রাজাকাররা।
জামালপুর মুক্ত করার অভিযানে সম্মুখসমরে অবতীর্ণ হোন তাঁরা, হারাতে হয় তাঁর সহযোদ্ধা বীর সিরাজুল ইসলামকে। মাত্র ১০-১২ জন সহযোদ্ধা নিয়ে তিনি মুক্ত করেন শ্রীপুর। খালিয়াজুড়ি থানায় ধ্বংস করে দেন শত্রুদের বার্জ। আগস্ট মাসে গুলিব্যায় ছাড়াই দিরাই-শাল্লায় অভিযান চালিয়ে কৌশলে আটক করেন দশ সদস্যের রাজাকারের দলকে। যারা এলাকায় নির্যাতন চালাচ্ছিল, খুন, ধর্ষণ ও লুটপাট চালাচ্ছিলো। রানীগঞ্জ ও কাদিরীগঞ্জে অভিযান চালিয়েও জ্যোতি আটক করেন ঘরের শত্রু রাজাকারদের। ২৯ জুলাই বৃহস্পতিবার জামালগঞ্জ থানা ও নৌবন্দর সাচনাবাজার শত্রুমুক্ত করে আরো লাইম লাইটে চলে আসেন।
মুক্তিযোদ্ধাদের কাছে তিনি ছিলেন অদম্য যুদ্ধচেতনায় শত্রুকে দলিত-মথিত করে এগিয়ে যাবার অগ্রপথিক। পাকিস্তান সরকারের রেডিওতে ঘোষনা, স্বাধীন বাংলা বেতারে তাঁর বীরগাঁথা, পাকিস্তান সেনাবাহিনীর রণকৌশল আর কূট চালে তাঁকে মূল টার্গেট করা হয়ে যায়। সুযোগের সন্ধানে মেতে উঠে পাকি-দোসর রাজাকাররা।
১৬ নভেম্বর ১৯৭১; এই দিন ছিল বীরের ললাটে লেখা শেষ দিন। ভোরের সূর্য ওঠার সাথে সাথেই ৪২ জন সহযোদ্ধা নিয়ে অভিযানে যাত্রা করেন জগৎজ্যোতি। কে জানত- এই অভিযান তাঁর শেষ অভিযান, বীরত্বের অন্তিমগাঁথা এখানেই রচিত হবে। তাঁদের লক্ষ্যস্থল ছিল বানিয়াচঙ/বাহুবল। কিন্তু ল্ক্ষ্যস্থলে যাওয়ার পূর্বেই বদলপুর নামক স্থানে হানাদারদের কূট-কৌশলের ফাঁদে পা দেন জগৎজ্যোতি। বদলপুরে ৩/৪ জন রাজাকার ব্যবসায়ীদের নৌকা আটক করে চাঁদা আদায় করছিল। দেখতে পেয়ে ক্ষুব্ধ জ্যোতি রাজাকারদের ধরে আনার নির্দেশ দেন। কিন্তু মুক্তিযোদ্ধাদের দেখেই পিছু হঠতে থাকে কৌশলী রাজাকাররা। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন জগৎজ্যোতি- ভাবতেও পারেননি কী ফাঁদ তাঁর সামনে। সাথের ১০/১২ জন মুক্তিযোদ্ধা আর সামান্য গোলাবারুদ নিয়ে তাড়া করেন রাজাকারদের। অদূরেই কুচক্রী পাকসেনাদের বিশাল বহর আর প্রচুর সংখ্যক গোলাবারুদ নিয়ে অপেক্ষা করছিল তাঁর। অজান্তেই চক্রব্যূহে প্রবেশ করেন জগৎজ্যোতি। আগে থেকেই প্রস্তুত পাকিস্তানি বাহিনীর বিশাল বহর আর মজুদের কাছে বিপদে পড়ে যান জগৎজ্যোতি ও তাঁর সহযোদ্ধারা। তবুও যুদ্ধে করে যান মুক্তিযোদ্ধারা।সঙ্গীদের জীবন বাঁচাতে স্থান ত্যাগের নির্দেশ দেন জগৎজ্যোতি।
সহযোদ্ধাদের পালানোর সুযোগ করে দিয়ে কভার করতে থাকেন জগৎজ্যোতি ও তাঁর সহযোদ্ধা ইলিয়াস। কিন্তু দূর্ভাগ্য, হঠাৎ করে ইলিয়াসও গুলিবিদ্ধ হন। নিজের মাথার গামছা খুলে জগৎজ্যোতি বেঁধে দেন সহ-বীরযোদ্ধার ক্ষত। ইলিয়াস তাঁকে পালানোর প্রস্তাব দেন। কিন্তু পিছু ফিরে যাননি জগৎজ্যোতি। একাই যুদ্ধ করতে করতে পাক-বাহিনীর বারজনকে পরপারে পাঠিয়ে দেন। বিকেল পৌনে পাঁচটায়, শূন্য অস্ত্রভান্ডারে বিকেলের সূর্যের মতই ম্লান হয়ে আসে শত্রুবধের তেজ, গুলিবদ্ধ হোন জগৎজ্যোতি। নিভে যায় এক বীরের জীবনপ্রদীপ।
শুনা যায় গুলিবদ্ধ হওয়ার পরেও তিনি জীবিত ছিলেন। তাঁকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয় অত্যাচার করতে করতে।তাঁর গায়ে পেরেক বিদ্ধ করে সেই ছবি খবরে ছাপানো হয়। আজমিরিগঞ্জ বাজারে নিয়ে আসা হয় তাঁর লাশ। সেদিন ছিল ঈদের বাজার। শত শত লোকের সামনে খুঁটির সাথে বেঁধে ক্ষত-বিক্ষত করা হয় তাঁর লাশকে। রাজাকাররা থু থু ফেলতে থাকে তাঁর উপর। এমনকি জগৎজ্যোতির মা-বাবাকেও ধরে আনা হয় বিভৎস লাশ দেখাতে।
পরিবারে যখন স্বজন হারানোর কান্নার রোল তখন আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয় জগৎজ্যোতির বাড়িতে। ভাসিয়ে দেওয়া হয় তাঁর ক্ষত-বিক্ষত লাশ ভেড়ামোহনার জলে।
স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সংগঠক বেলাল মোহাম্মদ জানান, বীরগতিপ্রাপ্ত জগৎজ্যোতিকে বীরশ্রেষ্ট খেতাব দেওয়ার ঘোষনা দেওয়া হয়েছিল একাধিকবার এবং তার বীরত্বগাথা প্রচার হচ্ছিল সম্মানের সঙ্গে। অল ইন্ডিয়া রেডিওসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রচারিত ও প্রকাশিত হয় জগৎজ্যোতির বীরত্বগাঁথা। অস্থায়ী বাংলাদেশ সরকার তাঁকে সর্বোচ্চ মরণোত্তর পদক প্রদানের ঘোষণা দিয়েছিলেন। প্রথম ব্যক্তি হিসেবে জগৎজ্যোতিকে মুক্তিযুদ্ধে অবদানের জন্য সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পদক প্রদানের ঘোষণা সে সময় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত হয়েছিল।

জগৎজ্যোবীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদতি দাস ছিলেন বাংলার প্রথম ঘোষিত বীরশ্রেষ্ঠ। এমনকি স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রও তাঁকে বীরশ্রেষ্ঠ উপাধিতে ভূষিত করেছিল। কিন্তু আমাদের দূর্ভাগ্য, স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ সরকার রহস্যজনকভাবে বীরশ্রেষ্ঠ এর তালিকা থেকে শহীদ জগৎজ্যোতি দাসের নাম বাদ দিয়ে বাকি সাতজনের নাম চুড়ান্ত করে। বীরবিক্রম খেতাবে ভূষিত করা হয়। বিজয়ের মাস ডিসেম্বরে এই অকুতোভয় বীর সহ মুক্তিযুদ্ধে শহীদ সকলের প্রতি জানাই বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি।

SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
      1
23242526272829
3031     
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit