শনিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২০, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
সরকার অর্থনৈতিক ও কূটনীতির ওপর বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে -পররাষ্ট্রমন্ত্রী কাতারের সাথে যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক এমওইউ স্বাক্ষরিত হবে -ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী চীন আমাদের আর্থিক সাহায্য করে তাই উইঘুর নিয়ে আমরা মন্তব্য করিনা -ইমরান ঝিনাইদহে নিখোঁজ নান্টু দাসকে ফেরত দিতে ৫০ হাজার টাকা মুক্তিপন দাবী অসহায় ও দরিদ্রদের জন্য চালু হল পাথওয়ে’র “ফ্রি ফ্রাইডে ক্লিনিক” কুড়িগ্রামে দুঃস্থদের মাঝে স্টার লিংকের কম্বল বিতরণ পুলিশ পরিচয়ে বাড়ী থেকে তুলে নেবার ৭ দিন পর ঢাকাতে আটক দেখিয়ে মামলা জমির আইল উঠিয়ে সমবায়ভিত্তিক চাষাবাদ দারিদ্র্য বিমোচনে ভূমিকা রাখবে -স্থানীয় সরকার মন্ত্রী দক্ষ মানবসম্পদ গড়ে তুলতে সরকার নানামুখী পদক্ষেপ নিচ্ছে -শিক্ষামন্ত্রী আত্রাই রাণীনগরের উন্নয়নের সোপান ইসরাফিল আলম

শিশু নিপীড়ন ও নির্যাতন বরদাস্ত করবে না সরকার

প্রত্যেক পথ শিশুর খাদ্য, আশ্রয় এবং শিক্ষা নিশ্চিত করার জন্য মহিলা ও শিশু বিষয়ক এবং সমাজ কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ।  তিনি বলেন, কোন শিশু রাস্তায় জীবনযাপন করবে না। আমরা ১৬ কোটি লোকের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছি। তাই, প্রায় ৩৪ লাখ পথ শিশুকে খাওয়ানোর সক্ষমতা সরকারের রয়েছে।

রোববার বাংলাদেশ শিশু একাডেমী মিলনায়তনে বিশ্ব শিশু দিবস ও শিশু অধিকার সপ্তাহ-২০১৫, উদ্বোধনকালে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন। মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকি অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ইউনিসেফ’র আবাসিক প্রতিনিধি এডোয়ার্ড বেইগবিডার।বাংলাদেশ শিশু একাডেমীর চেয়ারম্যান ও বিশিষ্ট সাহিত্যিক সেলিনা হোসেন, এমওডব্লিউসিএ সচিব ড. নাসিমা বেগম, বর্তমানে শিশু কল্যাণ প্রকল্পে আশ্রয় প্রাপ্ত সুবিধা বঞ্চিত দুই শিশু এম হাশেম ও সানজিদা আফরোজ স্মৃতি অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।‘শিশু গড়বে দেশ, যদি পায় পরিবেশ’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় বাংলাদেশে আজ এ দিবস পালিত হচ্ছে।

প্রতিটি শিশুকে তাদের এলাকার স্কুলে ভর্তি নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিশুরা যে এলাকায় বসবাস করে সেখানকার স্কুলগুলোতে ভর্তির সুযোগ পাওয়া তাদের অধিকার। এ ব্যাপারে মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে তদারকি ও সমন্বয়ের জন্য প্রধানমন্ত্রী তাঁর অফিসের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেন। প্রধানমন্ত্রী তাঁর আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করে বলেন, শিক্ষা যেন শিশুর জন্য বোঝা না হয় বরং স্কুলগুলোতে ও পরিবারে এমন পরিবেশ তৈরি করতে হবে যেখানে তারা নিজেরা শিক্ষা গ্রহণে আগ্রহী হবে এবং পড়াশোনায় উৎসাহ বোধ করবে। শেখ হাসিনা দ্ব্যর্থহীনভাবে বলেন, গৃহকর্মী নির্যাতন এবং কোন ঝুঁকিপূর্ণ কাজে শিশু নিয়োগ সরকার কোনভাবেই  মেনে নিবে না। তিনি বলেন, সরকার কোন ধরনের শিশু নিপীড়ন বরদাস্ত করবে না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, শিশুদের যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলা সরকারের দায়িত্ব। কারণ, তারা আগামীতে বিভিন্ন ক্ষেত্রে দেশকে নেতৃত্ব দেবে। পাশাপাশি প্রত্যেক শিশুকে দেশের ইতিহাস, সংস্কৃতি ও ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে হবে।তিনি বলেন, দেশের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস না জানলে, আগামী প্রজন্ম জীবন সংগ্রামে জয়ী হতে অনুপ্রাণিত হবে না।শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার শিশুদের কল্যাণ নিশ্চিত করতে অব্যাহত প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। এ বিষয়টি দেশের সংবিধান, জাতিসংঘ শিশু অধিকার সনদ ও শিশু আইন-১৯৭৪-এ সন্নিবেশিত রয়েছে।প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতিসংঘে ১৯৮৯ সালে শিশু অধিকার সনদ গৃহীত হয়েছে। কিন্তু বাংলাদেশের জাতির পিতা ১৯৭৪ সালে শিশু অধিকার আইন প্রণয়ন করেছেন। ১৯৭৪ সালের শিশু নীতির আলোকে শিশু নীতি-২০১১ প্রণীত হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার প্রত্যেক শিশুর খাদ্য নিরাপত্তা ও পুষ্টি এবং মায়েদের পুষ্টির উপর বিশেষ নজর দিয়েছে। এর ফলশ্রুতিতে শিশু ও মাতৃ মৃত্যু হার কমছে।প্রধানমন্ত্রী বলেন, নবজাত শিশুরা যাতে বেশি দিন মায়ের যতœ পেতে পারে এলক্ষ্যে কর্মজীবী নারীদের মাতৃত্বকালীন ছুটি ৬ মাস করা হয়েছে। তিনি সরকারি ও বেসরকারি উভয় সেক্টরের প্রত্যেক অফিসে ডে-কেয়ার সেন্টারের ব্যবস্থা করতে সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আহ্বান জানান।

শিশুদের যথাযথ শারীরিক ও মানসিক বিকাশের ওপর গুরুত্বারোপ করে শেখ হাসিনা বলেন, সকল শিশুর খেলাধূলা ও বিনোদনমূলক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণের প্রয়োজন রয়েছে। এ লক্ষ্যে তিনি প্রত্যেক ফ্লাট ও আবাসিক এলাকায় খেলাধূলার জন্য পর্যাপ্ত খোলা জায়গা রাখার আহ্বান জানান।

প্রতিবন্ধী শিশুদের প্রতি সহানুভূতিশীল হতে সবার প্রতি আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, অসুস্থ শিশুদের চিকিৎসা ও কাউন্সিলিংয়ের ব্যবস্থা করার পরিকল্পনা তাঁর সরকারের রয়েছে।শেখ হাসিনা চলতি বছরের (২০১৫) জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত রাজনীতির নামে দেশের মানুষ এবং নির্দিষ্টভাবে শিশুদের উপর কিছু রাজনৈতিক দলের সন্ত্রাসের পুনরাবৃত্তি রোধে সজাগ থাকতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান। সম্প্রতি  দেশে শিশু গৃহকর্মী নির্যাতনের কয়েকটি ঘটনা ঘটায়  ক্ষোভ প্রকাশ করেন সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, অনেকে শিশুদের বাড়িতে নিয়ে আসে কাজ করতে। তাদের  লেখাপড়ার অধিকার আছে। ওই শিশুটা ফ্রিজ  থেকে একটা মিষ্টি  খেলে এভাবে মারে.. এটা  মেনে নেওয়া যায় না।শিশু গৃহকর্মী নির্যাতনের ঘটনায় সম্প্রতি বাংলাদেশ জাতীয় দলের ক্রিকেটার শাহাদাত  হোসেন ও তার স্ত্রীকে কারাগারে যেতে হয়েছে।প্রতিবন্ধী ও অটিস্টিক শিশুদের প্রতি অভিভাবক ও সহপাঠীদের সংবেদশীল হওয়ার অনুরোধও জানিয়ে  শেখ হাসিনা বলেন, জন্ম  থেকে কেউ কানা হয়,  খোঁড়া হয়, চিন্তা শক্তির সমস্যা থাকে। এটা তাদের অপরাধ না।মিলনায়তনে উপস্থিত শিশুদের উদ্দেশে তিনি বলেন, তাদের টিজ করবে না- এটা অপরাধ। তাদের প্রতি সহানুভূতিশীল হবে।প্রতিবন্ধী ও অটিস্টিক শিশুদের বিশেষ কাউন্সিলিং করানোর পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে  শেখ হাসিনা বলেন, তাতে করে একসময় তারা অন্য শিশুদের সঙ্গে মিলে যেতে পারবে।স্কুলে ভর্তির পদ্ধতির সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শিশুদের নিজ নিজ এলাকার স্কুলে ভর্তি নিশ্চিত করতে বলেন।তারা যদি  লেখাপড়া শিখে ছাপানো প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা দিয়ে স্কুলে ভর্তি হতে পারে তাহলে আর স্কুল কি শিখাবে? প্রাক প্রাইমারি বা প্রাইমারি তাদের কি শিখাবে?, বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, শিশুরা যে এলাকায় বসবাস করে, সে এলাকার স্কুলে ভর্তি হওয়া তাদের অধিকার। সরাসরি তাদের আগে ভর্তি করিয়ে নিতে হবে।শিক্ষা মন্ত্রণালয়, মহিলা ও শিশু, সমাজকল্যাণ এবং প্রাথমিক শিক্ষা মন্ত্রণালয় অবশ্যই এ ব্যাপারে যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। আর প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়  থেকে এটা যেন সমন্বয় করা হয়, তারা যেন লক্ষ্য রাখে কাজগুলো ঠিক মতো হচ্ছে কিনা।শিশুদের ওপর বইয়ের  বোঝা না চাপানোর তাগিদ দেওয়ার পাশাপাশি সব স্কুলে  খেলাধুলা ও বিনোদনের ব্যবস্থা রাখতে সংশ্লিষ্টদের বিশেষ দৃষ্টি দেওয়ার নির্দেশও  দেন  শেখ হাসিনা।মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস জানার ওপর গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের ও বিজয়ের ইতিহাস প্রতিটি শিশুকে এখন  থেকেই জানতে হবে। না হলে তারা জীবনযুদ্ধে জয়ের অনুপ্রেরণা পাবে না।এছাড়া সারা  দেশে স্কুলে নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং স্কুল ছুটির পর শিশুদের রাস্তা পারাপারে জন্য ট্রাফিক পুলিশকে বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ  দেন প্রধানমন্ত্রী।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit