শনিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৭:৪৬ অপরাহ্ন


ত্রিকালদর্শী, জাতিস্মর এবং প্রকৃত ব্রহ্মজ্ঞানী মহাসাধক ছিলেন লোকনাথ ব্রহ্মচারী

লোকনাথ ব্রহ্মচারী

দেবাশীষ মুখার্জী (কূটনৈতিক প্রতিবেদক) :  শ্রীশ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারী একজন ত্রিকালদর্শী, জাতিস্মর এবং প্রকৃত ব্রহ্মজ্ঞানী মুক্তপুরুষ ছিলেন। লোকনাথ ব্রহ্মচারীর জীবনী লক্ষ্য করলে, সেখানে বৈদিক অদ্বৈত-দর্শন সুস্পষ্ট রূপে প্রতিভাত হতে দেখা যায়। তিনি জীবে-শিবে অভেদ জ্ঞান করতেন। ভক্তদের তিনি ঐশী শক্তির মাধ্যমে ঈশ্বর ও ধর্ম সম্পর্কে যে শিক্ষা দিয়ে গেছেন, তা অতুলনীয়। শ্রীশ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারী, পাহাড়-পর্বতে, বনে-জঙ্গলে বহু ক্লেশ সহ্য করে, যে আধ‍্যাত্মিক পরমার্থ উপার্জন করেছেন, তা লোকালয়ে এসে সাধারণ মানুষে মাঝে অকাতরে বিলিয়ে দিয়েছেন। তিনি ‘বাবা লোকনাথ ব্রহ্মচারী’ – নামে ভক্ত হৃদয়ে শ্রেষ্ঠস্থানে অধিষ্ঠিত হয়ে আছেন।

শ্রীশ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারী আনুমানিক ১১৩৮ বঙ্গাব্দের ১৮ই ভাদ্র চবিবশ পরগনা জেলার বারাসাত মহকুমার অন্তর্গত কচুয়ায় মতান্তরে উত্তর চবিবশ পরগণা জেলার চাকলা গ্রামে এক ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি পিতা রামকানাই ঘোষাল এবং মাতা কমলাদেবীর চতুর্থ সন্তান। ভগবান গঙ্গোপাধ্যায়, শ্রীশ্রী লোকনাথ ও তাঁর বাল্যবন্ধু বেণীমাধব বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীক্ষা ও উপনয়ন সংস্কার করে, তাঁদেরকে নিয়ে পরিব্রাজন করতে হিমালয়ে চলে যান। তাঁরা হিমালয় ছাড়াও ভারতের বিভিন্ন স্থানে পর্যটন ও সাধনা করতে থাকেন। শ্রীশ্রী লোকনাথ ও বেণীমাধবের বয়স যখন ৯০ বৎসর তখন গুরু ভগবান গাঙ্গুলী তাঁদেরকে, ত্রৈলঙ্গস্বামীর নিকট সমর্পণ করে দেহত্যাগ করেন। তারপর তাঁরা গুরু ত্রৈলঙ্গস্বামীর তত্ত্বাবধানে হিমালয় ও তিববতের নানা পার্বত্য স্থানে পর্যটন করেন।

শ্রীশ্রী লোকনাথ চীন, তীব্বত ছাড়াও আরব দেশের মক্কা ও মদীনা ভ্রমণ করেন। মক্কায় তাঁর সাথে আব্দুল গফুর নামক এক ফকিরের সাক্ষাৎ হয়।  শ্রীশ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারীর ভাষ্যমতে, যোগ-সিদ্ধ পুরুষ আব্দুল গফুরের বয়স তখন ছিল ৪০০ বছর। শ্রীশ্রী লোকনাথ ভক্তদের বলতেন যে, তিনি তিন জন প্রকৃত ব্রাহ্মণ দেখেছেন ― একজন গুরু ত্রৈলঙ্গস্বামী, একজন মক্কার আব্দুল গফুর এবং আরেকজন তিনি নিজে। এভাবে বহুকাল কেটে যাওয়ার পর গুরু তাঁদের লোকালয়ে ফিরে যাওয়ার নির্দেশ প্রদান করেন। তারপর তাঁরা হিমালয়ের পূর্বাঞ্চল হয়ে পূর্ব বঙ্গে আসেন। আসামে আসার পর দুই সতীর্থের চিরতরে বিচ্ছেদ ঘটে। বেণীমাধব কামাখ্যা অভিমুখে যাত্রা করেন আর শ্রীশ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারী পূর্ববঙ্গের মহাপিঠ চন্দ্রনাথের উদ্দেশ্যে রওনা হন।

শ্রীশ্রী লোকনাথ চন্দ্রনাথে বেশ কিছুকাল সাধনা করার পর,ভেঙ্গু কর্মকার নামক এক ভক্ত তাঁকে বারদীতে নিয়ে আসেন। সেখানেই স্থানীয় জমিদার ও ভক্তদের সহায়তায় তাঁর আশ্রম প্রতিষ্ঠিত হয়। বারদীতে বাবা লোকনাথ নানা অলৌকিক লীলা করতে থাকেন। তাঁর আশ্রমে লোকজন রোগমুক্তি ও বিভিন্ন বিঘ্ন লাঘব করার আশায় আসতে থাকে। বাবাও সদয় হয়ে তাদের মনোবাঞ্ছা পূর্ণ করেন। বাবার কৃপায় মৃতব্যক্তিও প্রাণ ফিরে পেয়েছেন। বেশ কিছুকাল পূর্বে বিজয়কৃষ্ণ গোস্বামী যখন চন্দ্রনাথ পাহাড়ে ধ্যানস্থ হয়েছিলেন তখন সেখানে দাবানল শুরু হয়েছিল। হঠাৎ সেখানে শ্রীশ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারী উপস্থিত হয়ে তাঁকে নিরাপদ স্থানে রেখে চলে গিয়েছিলেন। সেই বিজয়কৃষ্ণ বাবার সন্ধানে বারদীতে আসলে বাবা তাঁর সাথে স্নেহের আলিঙ্গন করেন। বাবার আশীষে বিজয়কৃষ্ণ আধ্যাত্মিকতার আরও উচ্চ স্তরে উপনীত হয়েছিলেন।

একবার দুই উশৃঙ্খল যুবক আশ্রমবাসীদের অনিষ্ট করার উদ্দেশ্যে আসলে একটি বাঘ গর্জন করতে করতে আশ্রমের দিকে ছুটে আসে। বাঘের ভয়ে তারা পালিয়ে যায় আর বাঘটি ছুটে এসে লোকনাথ বাবার পায়ে লুটিয়ে পড়ে, নিজের ভাষায় কী যেন বলতে থাকে। তখন বাবা বাঘটিকে পরম স্নেহভরে জঙ্গলে ফিরে যেতে বললে বাঘটি চলে যায়। আসলে মুক্ত-পুরুষগণ পশু ও মানুষে সমজ্ঞান করেন এমনকি তাঁরা পশুর ভাষাও বুঝতে পারেন। জীবনের শেষদিকে তিনি এক যক্ষ্মা-রোগীর প্রতি করুণা পরবশ হয়ে তার সমস্ত রোগ নিজ দেহে গ্রহণ করেন। ফলে ঐ রোগীটি সুস্থ হয়ে উঠেন এবং বাবার দেহে যক্ষ্মার লক্ষণ দেখা যায়।

যখন তাঁর বয়স ১৬০ বৎসরের কাছাকাছি তখন তাঁর মনে হল ইহলীলা সাঙ্গ করার সময় হয়ে গেছে। তাই তিনি মহাপ্রয়াণের দিনটি ধার্য করে ফেললেন। দেহত্যাগের কিছুদিন পূর্বে তিনি আশ্রমের ভক্তদের বলেন মৃত্যুর পর তাঁর মৃতদেহ অগ্নিতে দগ্ধ করতে। ১২৯৭ বঙ্গাব্দের ১৮ই জৈষ্ঠ্য আশ্রমবাসীদের দুপুরের ভোজনের পর ধ্যানযোগে ব্রহ্মরন্ধ্র ভেদ করে প্রাণ-বায়ু নিঃসরণ করেন। তিনি আজও ভক্তদের বিপদের ত্রাণকর্তা। তাঁর স্থুলদেহের মৃত্যু ঘটলেও তিনি সূক্ষ্মদেহে এসে শরণাগতদের উদ্ধার করছেন। কারণ করুণাময় শ্রীশ্রী লোকনাথ যে বলেছিলেন, ‘‘রণে বনে জলে জঙ্গলে যখনই বিপদে পড়িবে, আমাকে স্মরণ করিও আমিই রক্ষা করিব’’। এমন কথা কোন জীতেন্দ্রিয়, জাতিস্মর এবং প্রকৃত ব্রহ্মজ্ঞানী মুক্তপুরুষ ব্যতীত কেই বলতে পারে না।

পরম পুরুষ শ্রীশ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারী, তাঁর ভক্তদের জন্য যেসব অমৃত বাণী দিয়ে গেছেন সেগুলো অমূল্য রত্ন বিশেষ। তাঁর এ অমৃত বাণী সংসারক্লিষ্ট মানুষের মনে শান্তি ও স্বস্তি আনবে, এই আশা নিয়েই সকলের জন্য তাঁর অসংখ্য অমৃত বাণী থেকে কিছু বাণী এখানে সংকলিত হলো :―

প্রত্যক্ষে-ই হোক বা পরোক্ষে-ই হোক, বাক্য -মন-ইঙ্গিত দ্বারা কারও নিন্দা করা উচিত নয়।

নিজেকে বড় না করে তাঁকে বড় কর। নিজে কর্তা না সেজে, তাঁকে কর্তাজ্ঞান করার চেষ্টা করো ; তাহলেই ত্যাগ আসবে।

যে কারনে মোহ আসে, তা যদি জানা থাকে, আসতে না দিলেই হয়।

বাক্যবাণ ,বন্ধু -বিচ্ছেদবাণ এবং বিত্ত-বিচ্ছেদবাণ এই তিনটি বাণ সহ্য করতে পারলে মৃত্যুকে জয় করা যায়।

আমার দান ছড়ানো পড়ে আছে,কুড়িয়ে নিতে পারলেই হলো।

অন্ধ সমাজ চোখ থাকতে ও অন্ধের মতো চলছে।

যা মনে আসে তাই করবি, কিন্তুু বিচার করবি।
এবং ত্রোধ ভাল, কিন্তুু ত্রোধান্ধ হওয়া ভাল নয়।

আমার বিনাশ নেই, শ্রাদ্ধও নেই, আমি নিত্য পদার্থ। অর্থাৎ এই ‘আমি’ হলাম গীতায় বর্ণিত ‘পরমাত্মা’।

অর্থ উপার্জন করা , তা রক্ষা করা, আর তা ব্যয় করবার সময় – বিষয় দু:খ ভোগ করতে হয়। অর্থ সকল অবস্থাতেই মানুষকে কষ্ট দেয়। তাই অর্থ ব্যয় হলে বা চুরি হলে তার জন্যে চিন্তা করে,কোন লাভই হয় না

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
22232425262728
29      
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ ||
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit