সোমবার, ২৫ মে ২০২০, ১০:৩০ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
করোনা প্রতিরোধে নির্দেশনা মেনেই চট্টগ্রামে উদযাপিত হচ্ছে ঈদুল ফিতর নির্দেশনা মেনেই বায়তুল মোকাররমে ঈদুল ফিতরের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত অসুস্থ বাচ্চাকে মুখে করে হাসপাতালে হাজির মা এমপি-মেয়রের সংঘর্ষে প্রাণ গেল তাপস দাসের নারায়ণগঞ্জে চাঁদ রাতে বন্ধুর হাতে খুন হলেন গার্মেন্টসকর্মী সাবেক সংসদ সদস্য অলহাজ্ব মকবুল হোসেনের মৃত্যুতে পরিবেশ মন্ত্রী সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাড়ির ভিতরে ঈদ উদযাপন করার অনুরোধ ঠাকুরগাঁওয়ের জেলা প্রশাসকের রাজারহাটে উৎসবের আমেজঃ  রাত পোহালেই ঈদ মসজিদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ আদায় করুন -প্রধানমন্ত্রী পবিত্র শাওয়াল মাসের চাঁদ দেখা গেছে, আগামীকাল ঈদ

করোনার গবেষণায় সত্যিই কি লক্ষ লক্ষ মুসলিম হত্যা করে চীন?

লক্ষ লক্ষ মুসলিম হত্যা করে চীন

২০১৯ এর আগষ্ট থেকে দারুণ অশান্ত চীনের হংকং। হংকং বাসীরা চাইছেন স্বতন্ত্র রাষ্ট্র। ১৭ লক্ষ মানুষ তখন রাস্তায়। নড়ে গেল চীন। চীন শুরু করলো সেনা দিয়ে তাদের পিসিয়ে ফেলার কাজ। দিনদিন পরিস্থিতি ভয়াবহ হতে লাগলো। আরো সেনা পাঠাতে থাকে চীন। হেলিকাপ্টার, যুদ্ধ বিমান কিছুই বাকী ছিলো না।

উহানের সীফুড মার্কেটের কাছে এক কাচের শিশি ভেঙ্গে যায়। সীফুড মার্কেটে এ নিয়ে প্রচুর হইচই হলো কিন্তু সবই যে ছিলো ছকে বাধা খেলা। কোথা থেকে এলো সেই শিশি? কি ছিলো সেই শিশিতে? দেখা যাক ঘটনা পরপর সাজালে কেমন দাড়ায়-

অনেক রকম পন্থা অবলম্বন করেও যখন এতবড় বিরোধকে থামানো চীন সেনার পক্ষেও সম্ভব ছিলো না, তখন ভয়ানক(করোনা) সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। “করোনা” যা এখন বিশ্ববাসীর দরজার বাইরে দাঁড়িয়ে হুংকার ছাড়ছে। হংকং বিদ্রোহ সামলানোর সব পদক্ষেপ অকৃতকার্য হওয়ার পর চীন সেনার উচ্চ আধিকারিকরা বৈঠকে বসেন। সুপ্রীম কমাণ্ডার শিজিং পিং নির্দেশ দিয়েছিলেন, হংকং এর বিদ্রোহীদের পিসিয়ে ফেলতে দ্রুত কোন পদক্ষেপ নিতে হবে। সেই বৈঠকে ছিলেন বেশ কয়েকজন বৈজ্ঞানিক। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয় জৈব হাতিয়ার প্রয়োগ করেই একে দমন করা সম্ভব। সংগে সঙ্গে পাস করা হয়। হেলিকাপ্টার থেকে সেই জীবাণূ বোম ফেলার কথা ছিলো হংকং। কিন্তু চীনের ল্যাবে এই ভাইরাসের তখনো টেস্টিং হয়নি।

চীনের পলিটিক্যাল পার্টিতে থাকা এক বৈজ্ঞানিকের লেখা সামনে আসে। সেখান থেকে জানা যায়, চীন এই বায়োলজিক্যাল ওয়েপেনের উপর পরীক্ষা নিরীক্ষা করছিলো তারমধ্যে হংকং এর বিদ্রোহ আরও ভয়ংকর হয়ে উঠেছিল। এদিকে বায়োলজিক্যাল ওয়েপেন তখনও পুরোপুরি তৈরি নয়। সিদ্ধান্ত হয় টেস্ট করতে হবে।  কিন্তু কোথায় কিভাবে করোনা বায়ো ওয়েপেনের টেস্ট হবে। কসাইখানা খোলা হয় চীনে। মানুষের কসাই খানা।

চীনের বিগার মুসলিম ক্যাম্প। যেখানে হাত পা বেঁধে রাখা হয়। যাদের উপর এই টেস্ট হওয়ার কথাছিল তাদের হাত পা বেঁধে রাখা হয়। চীনের পশ্চিমাঞ্চল শিনজিয়া মুসলিম অধ্যুসিত অঞ্চল ছিলো এটি। তারা তুর্কি ভাষায় কথা বলে। চীন এদের বিদ্রোহী মনে করে। এদের উপরেই চলে গিনিপিগ টেস্ট। টর্চার ক্যাম্পে ভাইরাস টেস্টে যা ফল হলো তা লোম খাড়া করে দেওয়ার মতো। এদিকে আমেরিকা থেকে সিআইএ এজেন্ট ডিল করতে বেইজিং পৌছায়।

জানাযায়, শিনজিয়াং টরচার ক্যাম্পে যে ভাইরাসের টেস্ট করা হয় সে ভাইরাস নিয়ে নিতে চায় আমেরিকা। এ খবর আমেরিকায় কিভাবে পৌছালো তা জেনে অবাক হয়ে যায় চীন সেনা অফিসাররা।

টপ সিক্রেটের খবর সিআইএর হাতে কিভাবে পৌছালো? ডিলে শর্ত রাখা হয় এই খবর যেন কোনভাবেই বাইরে না পৌছায়। সিআইএর সঙ্গে ডিল ফাইনাল হবার মুখে তখন এমন সময় যে খবর পৌছায় তা ছিলো ভয়ংকর। ভাইরাস টেস্টের রিপোর্ট তখনো হাতে আসেনি। এরপর এলো সে রিপোর্ট। তাতে জানানো হয়, শিংজিয়ায় টেস্ট হওয়া এই ভাইরাস মানুষের হাড় পর্যন্ত গলিয়ে দিয়েছে। এরপরেই চীনের তরফ থেকে ডিল ক্লোজড করে দেওয়া হয়েছে।

জানা যায়, এতে আমেরিকা ভয় পেয়ে যায়। তারা মনে করে চীনের কাছে এমন কোন হাতিয়ার এসে গেছে যা দিয়ে তারা যা খুশি তাই করতে পারে। এরপর সিআইএ এজেন্ট চীনের বৈজ্ঞানিকদের সঙ্গে যোগাযোগ করতে শুরু করে। কারণ সেই বায়ো ওয়েপেন তাদের চাই।

বড় টাকার অংকের টোপ দেওয়া হয়। টাকার পরিমান দেখে চীনের রিচার্সাররা না করতে পারেনি। চীনের এক সেনা পদাধিকারী অফিসার নাম প্রকাশ না করেই এক লেখায় জানান সেই সত্য। এদিকে মৃত্যু ভয়ও ছিল। কারণ এর আগে এই ভাইরাসের আসল রহস্য নিয়ে যারা মুখ খুলেছে তাদের করুণ পরিণতি হয়েছে। রোগ ছড়ানোর পর থেকেই ডোনাল্ড ট্রম্পের প্রেস কনফারেন্সে বারবার বলতে শোনা গেছে। চীনা ভাইরাস! চীনা ভাইরাস!!” এভাবেই ইশারায় আমেরিকা ঘুরিয়ে সত্য বলতে শুরু করে।

এদিকে করোনা ভাইরাস আস্তে আস্তে ছড়াতে শুরু করে চীনেই।

জানা যাচ্ছে সেই সময়ে করোনা রোগীদের গুলি করে মেরে ফেলার ভিডিও সামনে আসে। সেনা অফিসার ও তার লেখায় সেই ভিডিওর সত্যতা স্বীকার করেছেন। কিন্তু তখন চীনের তরফ থেকে তা মিথ্যা প্রচার বলে নস্যাত করার চেষ্টা হয়।

ঠিক সে সময়েই ভেঙ্গে যায় ভাইরাসের সেই শিশি। ঘটনা ঘটে উহান শহরে। করোনার মূল কেন্দ্র হয়ে যায় উহান। ঘটনা ঘটে উহানের সীফুড মার্কেটের পাশেই।

এইসবের পরেও রহস্য ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করতে থাকে চীন। কখনো বলে, আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে জ্বর, আবারো কখনো বলতে থাকে বাদুর খেয়ে হয়েছে এই রোগ। করোনা ঝড়ের আগে চীনে মোবাইল নম্বরে গ্রাহক সংখ্যা ছিল ১৬০ কোটি। কিন্তু গত দুই মাসে দেশটিতে দুই কোটি ১৪ লাখ গ্রাহক কমে গেছে।

গত বছরের ডিসেম্বর মাসের শেষদিকে চীনের উহানে প্রাণঘাতী নভেল করোনার উৎপত্তি ঘটে। আর চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে গ্রাহক কমতে শুরু করে।

চীনের তিনটি মোবাইল ফোন অপারেটরের ওয়েবসাইটে দেওয়া তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণে এমন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ।

ব্লুমবার্গ জানিয়েছে, চলতি বছরের জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারি মাসে চায়না মোবাইল লিমিটেড নামক অপারেটর তাদের ৮০ লাখ গ্রাহক হারিয়েছে। ৭৮ লাখ সিম বন্ধ রয়েছে চীনা ইউনিকম হংকং লিমিটেডের। এবং চীনা টেলিকম করপোরেশন ৫৬ লাখ গ্রাহক হারিয়েছে। অর্থাৎ করোনা পরিস্থিতির মধ্যে এই দুই মাসে সব মিলিয়ে ২ কোটি ১৪ লাখ গ্রাহক হাওয়া হয়ে গেছে চীনে।

ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
      1
23242526272829
3031     
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!