বুধবার, ১২ অগাস্ট ২০২০, ০৬:৫৮ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
সিদ্ধেশ্বরী পূজামন্ডপে জন্মাষ্টমীর পূজায় তথ্যমন্ত্রী  সকল ধর্মের রক্তস্রোতে বাংলাদেশের অভ্যুদয় -বৌদ্ধদের সঙ্গে তথ্যমন্ত্রী  নবীগঞ্জে স্বাস্থবিধি না মানায় ভ্রাম্যমান আদালতের জরিমানা অর্থনীতির গতিধারা অক্ষুন্ন রাখার জন্য নিবিড়ভাবে কাজ করতে হবে -অর্থমন্ত্রী নোয়াখালীতে পিতৃহীন মেয়ের বিয়ে দিয়ে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন পুলিশ সুপার নবীগঞ্জের ইনাতগঞ্জে ভুয়া সিআইডি পরিচয়ে যুবক আটক সালথায় জন্মাষ্টমীতে আ‌লোচনা ও প্রার্থনা সভা আইসিটি প্রতিমন্ত্রীর উপস্থিতিতে হাই-টেকপার্কের ত্রিপক্ষীয় চুক্তি জন্মাষ্টামী উপলক্ষ্যে বেনাপোল বন্দরে আমদানি রফতানি বন্ধ বেনাপোলে খালে বাঁধ অপসারণ পাটা ও জাল আগুনে বিনষ্ট

সামাজিক ধর্মীয় চিরাচরিত রীতি পাল্টে দিলো করোনাভাইরাস

রীতি পাল্টে দিলো করোনা, ধর্মীয়রীতি পাল্টে দিলো করোনা, চিরাচরিত রীতি পাল্টে দিলো করোনা, সামাজিক রীতি পাল্টে দিলো করোনা, খাদ্যাভ্যাস পাল্টে দিলো করোনা, মন্দিরে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা, করোনায় মন্দিরে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা, মন্দিরে ভগবান, কোথায় ভগবান, ভগবান কোথায় থাকেন, ভগবানের বাস, জীবেই ভগবান

কোভিড-১৯ খালি চোখে দেখা যায় না একটি সংক্রামক করোনাভাইরাস আজ বিশ্বজুড়ে মানুষের ধর্মীয় বিশ্বাস, সৌজন্য বিনিময়, খাদ্যাভাস, স্বাভাবিক চলাফেরায় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ধর্মীয় উপাসনালয় মন্দির, মসজিদ, গির্জায়ও করোনা আতঙ্কে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। মানুষের এতদিনের ধর্মীয় আচার-অভ্যেস যেন হঠাৎ বদলে গিয়েছে শুধুমাত্র একটি ভাইরাসের আতঙ্কে।

সনাতন ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠানের অভ্যেস বদলে দিয়েছে যেভাবে

হিন্দু ধর্মের ভগবান কোথায় থাকেন? এক কথায় বেশিরভাগ লোকে বলবে মন্দিরে থাকেন। মন্দিরে গেলে ভগবানের দর্শন হয়। ভগবানকে স্বর্ণালংকার হীরা জহরত দিয়ে সাজিয়ে রাশি রাশি উপাচার দিয়ে সেবা পূজা করা হয়। ভোগ নিবেদন করা হয়। সেই ভোগের প্রসাদ মন্দিরের ভক্ত-সেবাইয়েতবৃন্দরা মহা আনন্দে পেয়ে থাকেন।  যাদের অর্থে এই উপাচার দিয়ে নিবেদন করে প্রসাদ তৈরি হয় তারা আতিথিয়তায় গ্রহণ করে। আর যারা অর্থ দিতে না পারে তাদের ভাগ্যে এই প্রসাদ জোটা ভার। অর্থের মাধ্যমেই বিচার হয় কে প্রসাদ পাওয়ার বেশি উপযোগী। ভক্তির কথা মুখে বলা হলেও পরিমাপ করা হয় অর্থে।

বেশিরভাগ মন্দিরে দেখা যায় সম্পত্তি নিয়ে কোন্দল, কমিটি নিয়ে কোন্দল, যাদের মাধ্যমে মন্দির প্রতিষ্ঠা তাদের বিতারণ, ক্ষমতার জোরে সম্পত্তি দখল করে মন্দির নির্মান করে ভগবানকে বসিয়ে সেবা পূজা করা হয়। সেবার নামে বানিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হয় মন্দির তথা তীর্থ পীঠ।

বেদ, পুরাণ, মহাভারত, গীতাসহ অনেক শাস্ত্রের উপর প্রতিষ্ঠিত সনাতন ধর্মীয় চিরাচরিত প্রথা। আজকাল বেশিরভাগ হিন্দু ধর্মালম্বী শ্রীমদ্ভগবদগীতাকে সার গ্রন্থ বলে বিবেচিত করেন। শ্রীমদ্ভগবদগীতায় অর্জুন আর শ্রীকৃষ্ণের কথোপকথনে এ প্রসঙ্গে কি বলেছেন দেখে নেই।

অধ্যায় পনের পুরুষোত্তম যোগের ১৫তম শ্লোকে শ্রীকৃষ্ণ বলেছেন,

সর্বস্য চাহং হৃদি সন্নিবিষ্টো মত্তঃ স্মৃতির্জ্ঞানমপোহনঞ্চ।

বেদৈশ্চ সর্বেরহমেব বেদ্যো বেদান্তকৃদ্‌ বেদবিদেব চাহম্‌।।১৫

(অনুবাদঃ আমি অন্তর্যামিরূপে সকলের হৃদয়ে অধিষ্ঠিত আছি, আমা হইতেই সকলের স্মৃতি ও জ্ঞান উৎপন্ন হইয়া থাকে এবং আমা হইতেই স্মৃতি ও জ্ঞানের বিলোপও সাধিত হয়; আমিই বেদসমূহের একমাত্র জ্ঞাতব্য, আমিই আচার্য্যরূপে বেদান্তের অর্থ-প্রকাশক এবং আমিই বুদ্ধিতে অধিষ্ঠিত থাকিয়া বেদার্থ পরিজ্ঞাত হই।)

এর আগের শ্লোকে বলেছেন, অহং বৈশ্বানরো ভূত্বা প্রাণিনাং দেহমাশ্রিতঃ।

                                        প্রাণাপানসমাযুক্তঃ পচাম্যন্নং চতুর্ব্বিধম্‌।

(অনুবাদঃ আমি বৈশ্বানর(জঠরাগ্নি) রূপে  প্রাণীগণের দেহে অবস্থান করি এবং প্রাণ ও অপান বায়ুর সহিত মিলিত হইয়া চর্ব্য, চুষ্য, লেহ্য, পেয় এই চতুর্বিধ খাদ্য পরিপাক করি।)

এই শ্লোকে আরও পরিষ্কার ভাবে বলেছেন, সমস্ত প্রাণীগনের দেহে জঠরাগ্নিতে বৈশ্বানররূপে অবস্থান করি। জীবের জীবণীশক্তি অগ্নিরূপ তেজতত্ত্ব প্রাণই জঠরাগ্নিরূপে জীবদেহে থাকিয়া প্রাণ ও অপানের নিম্নে গমনরূপ শ্বাস-প্রশ্বাসের কার্য্য ঠিকভাবে চালিত হয়। ঐ স্থানের অগ্নি দ্বারাই চতুর্ব্বিধ খাদ্য যেমনঃ যাহা চিবিয়ে খাওয়া হয় চর্ব্য, যাহা চুষিয়া খাওয়া হয় চুষ্য, যাহা চাটিয়া বা চাকিয়া খাওয়া হয় লেহ্য এবং যাহা চুমুক দিয়ে পান করা হয় পেয় এই চতুর্বিধ আহার প্রাণের তেজরূপ জঠরাগ্নি কর্ত্তৃক পরিপাক হইতেছে।

অর্থাৎ সমস্ত প্রাণীদের শরীর পরিপুষ্ট করা এবং তাদের রক্ষা করার জন্য ভগবানই বৈশ্বানর(জঠরাগ্নি) রূপে তাদের শরীরে বাস করেন। মানুষের ন্যায় লতা-বৃক্ষ ইত্যাদি স্থাবর এবং পশু-পক্ষী ইত্যাদি জঙ্গম প্রাণীদের মধ্যেও বৈশ্বানরের পাচন-শক্তি কাজ করে। লতা-বৃক্ষ যে খাদ্য-জল গ্রহণ করে, পাচন-শক্তির দ্বারা তার পাচন হওয়ার ফলস্বরূপেই ঐসব লতা-বৃক্ষাদি বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়। প্রত্যেকের শরীরেই ভগবান বাস করে খাদ্যাদি পাচন করেন।

সমস্ত প্রাণীর দেহে ভগবান অবস্থান করেন একথাটি সকলেই অকপটে স্বীকার করেন তথাপি ভগবানকে দর্শনের জন্য মন্দিরের বিগ্রহ দেখতে বলেন। সমস্ত জীবজন্তুর ভিতরেই ভগবানের অবস্থান কিন্তু সেই জীবজন্তুর কাউকে পূজা না করে মন্দিরে বিগ্রহকেই ভুরিভুরি উপাচার দিয়ে সেবা পূজা দেওয়া হয়। পাশেই কোন মানুষ অভুক্ত, জরাগ্রস্তসহ বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে ঘুরে বেড়ায় তাদের সেবা করার কোন ব্যবস্থা নেই। বিগ্রহ ব্যতিরেকে বাকী অসংখ্য প্রাণীসকলের মাঝেই ভগবান বিরাজ করেন তারাতো সেবা পায় না। তাহলে দেখুন ভগবানকি আদৌ খুশি হন।

পৃথিবীতে যত মন্দির আছে, সেখানে কোন অর্থের অভাব নেই, অর্থ ব্যয়ের সুযোগও পায় না। অগণিত অর্থ সঞ্চিত থাকে, যে যেভাবে ক্ষমতানুযায়ী ব্যবহার করেন। বাস্তবে কি সাধারণ মানুষের কি কোন কল্যাণ হয়। গুটি কয়েক মন্দিরে বিদ্যালয় কিংবা দাতব্য চিকিৎসালয় প্রতিষ্ঠা রয়েছে। বাকিসব ভোগের স্থানে পরিণত হয়েছে মন্দিরসহ পীঠ স্থান।

বাস্তবে প্রতিষ্ঠিত বিগ্রহ ব্যাতীরেকে ভগবানকে কেউ পুরোপুরি মেনে নিতে পারে না। যে গীতাকে সবাই এত মান্যকরেন পূজা করেন অথচ সেই গীতার বাণীর প্রতি বিশ্বাসে কেন এত অমিল।

পবিত্র গীতায় কোথাও শুধুমাত্র বিগ্রহকে ভুরি ভুরি সেবাপূজা দিতে বলেনি। তিনি বলেছেন,

 পত্রং পুষ্পং ফলং তোয়ং যো মে ভক্ত্যা প্রযচ্ছতি।

 তদহং ভক্ত্যুপহৃতমশ্নামি প্রযতাত্মনঃ।।

(অনুবাদঃ যিনি আমাকে পত্র, পুষ্প, ফল, জল যাহা কিছু ভক্তিপূর্বক দান করেন, আমি সেই শুদ্ধচিত্ত ভক্তের ভক্তিপূর্বক প্রদত্ত উপহার গ্রহণ করিয়া থাকি।)

গীতার নির্দেশিত বাণীতে ভগবান সেবা দিতে শুধুমাত্র বিগ্রহ মুর্তিকে ফল-পুষ্পদ্বারা করিতে বলেননি। তিনি সর্বত্র সকল প্রাণীসহ সর্বত্র বিরাজ করেন, যেখানে ভক্তিপূর্বক দিবে সেখানেই তিনি গ্রহণ করবেন। তবে কেন শুধুমাত্র বিগ্রহকে পত্র, পুষ্প, ফল, জলসহ ভুরি ভুরি উপাচার দিয়ে সেবাপূজা করা হয়?

মহামারী করোনাভাইরাস নামক এক জীবাণুর সংক্রমণের ভয়ে সমস্ত মন্দিরগুলোতে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করে বন্ধ করে দিয়েছে। মন্দিরমুখো মানুষকে ফিরিয়ে নিয়েছে নিজ গৃহে। মন্দিরের সামনে নোটিশ টানিয়ে অশৌচ ঘরে পরিণত হয়েছে। সমস্ত জীব ও জড়বস্তুর ভিতরে ভগবানের নিবাস তাই সাধারণ মানুষ সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে দুঃস্থ অসহায় মানুষের দিকে। হয়তো করোনার মাধ্যমে ভগবান শিক্ষা দিয়েছেন।

চলবে-

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit