শুক্রবার, ০৩ এপ্রিল ২০২০, ০১:৫০ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
চন্দ্রগঞ্জে শ্লীলতাহানীর দায়ে ৫ বখাটের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করোনা আতংকেও যুদ্ধবিরতি লংঘন করে ভারতের সেনা ঘাঁটিতে পাকিস্তানের হামলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধে মক্কা ও মদিনায় ২৪ ঘণ্টা কারফিউ জারি করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর ৩১ দফা নির্দেশনা করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ৫ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন জুম্মার নামাজে দেশের সব মসজিদে বাংলা বয়ান না দিয়ে খুতবা দেওয়ার আহ্বান দায়িত্ব পালনকালে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাস্ক ব্যবহারের নির্দেশ রুদ্রাক্ষে তুলসী মালার মত কৃষ্ণ মন্ত্র জপ করা যায়? কি এর গুনাগুন? করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সকলকে একত্রিত হয়ে কাজ করতে হবে -খন্দকার মোশাররফ নন্দীগ্রামে একেএম ফজলুল হকের ব্যক্তিগত উদ্যোগে মাস্ক ও সাবান বিতরন

বঙ্গবন্ধু স্বীকৃতি দিলেও ৪৮বছরে রাষ্ট্রীয় সম্মান পায়নি রমনা কালী মন্দির শহীদ পরিবার

রমনা কালী মন্দির

বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর অন্যান্য ক্ষেত্রের শহিদরা সরকারি আনুকূল্য পেলেও শ্রীশ্রী রমনা কালী মন্দিরের অভ্যন্তরে ও মন্দির প্রাঙ্গণে ১৯৭১ সালের ২৬ শে মার্চ কালো রাতে যারা আত্মহুতি দিয়েছিলেন, তাদের পরিবার-পরিজনও সুদীর্ঘ ৪৮ বছরেও পায়নি কোনো রাষ্ট্রীয় অনুকম্পা, রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তা বা রাষ্ট্রীয় আনুকুল্য। বাংলাদেশের স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শহীদ পরিবারের উত্তরাধিকারদের প্রত্যেককে একটি করে প্রশংসাপত্র এবং প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল থেকে তৎকালীন ২,০০০ টাকার একটি চেক দিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু যাদের আত্মদানকে স্বীকার করে নিয়েছিলেন তারই উত্তরসুরীরা এদের মানুষ বলেই মনে করেন না। প্রতিনিয়ত এমন দাবী জানিয়ে আসছেন শ্রীশ্রী রমনা কালী মন্দির শহীদ পরিবার কমিটি।

১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ সকাল ১১ টার দিকে পাকিস্তানি বাহিনী এসে এই আশ্রমের (মা আনন্দময়ী আশ্রম) বাসিন্দাদের মন্দির থেকে বের না হতে আদেশ দেয়। সে সময় এই পিশাচদের সাথে ছিলো পুরোনো ঢাকা থেকে ১৯৭০ এর নির্বাচনে পরাজিত মুসলীম লীগ প্রার্থী পাকিস্তানি সামরিক জান্তার অন্যতম দোসর খাজা খায়ের উদ্দিন। প্রধানত এই হিংস্র জানোয়ারের তৎপরতায়ই ২৬ মার্চের গভীর রাতে রমনা কালী মন্দির ও শ্রী শ্রী মা আনন্দময়ী আশ্রমের হত্যাকান্ড ও ধ্বংসযজ্ঞ শুরু হয়। পরবর্তীতে ২৬ মার্চ গভীর রাতে সান্ধ্য আইন চলাকালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মন্দির ও আশ্রম ঘেরাও করে। সেনাবাহিনীর সার্চ লাইটের আলোতে গোটা রমনা এলাকা আলোকিতো হয়ে যায়। তারপরই শুরু হয় গুলিবর্ষণ। রমনা কালীমন্দিরে প্রবেশ করে প্রতিমা গুঁড়িয়ে দেয় এই অসভ্য বর্বর সেনাবাহিনী। তারপর গোলাবর্ষণ করে- মন্দির ও আশ্রম পরিণত হয় এক ধ্বংসাবশেষে। সেখানেই তারা হত্যা করে রমনা কালী মন্দিরের অধ্যক্ষ স্বামী পরমানন্দ গিরিকে।

ইতিহাস পাঠে জানা যায়- এই সাধক মৃত্যুর আগে আশ্রমের অন্যান্যদের উদ্দেশে বলে গিয়েছিলেন- আমি তোমাদের বাঁচাতে পারলাম না, কিন্তু আশীর্বাদ করি- দেশ স্বাধীন হবেই। সব শেষে পাকিস্তানি বর্বররা বোমা দিয়ে ধ্বংস করে দেয় পুরো মন্দির।

অন্য সূত্রে জানা যায় পরমানন্দ গিরিকে কলেমা পাঠে বাধ্য করে পাক বাহিনী। এরপর তাঁকে গুলি করে হত্যা করে। পরমানন্দ গিরি তাঁর অনুসারীদের এই বলে আশ্বস্ত করেন যে এটা উপাসনালয়। এটি হামলা থেকে রক্ষা পাবে। তিনি জানতেন না, অসুরের থাবার সামনে সবকিছুই অসহায়। লাইনে অনেককেই কলেমা পড়তে বাধ্য করা হয়। তারপর গুলি করে হত্যা করা হয়। কুৎসিত আনন্দ উল্লাস করতে করতে পাক বাহিনীর সদস্যরা বলতে লাগল, এবার নৌকায় ভোট দেওয়ার মজা দেখ। এরপর বাকি পুরুষদের ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করে তারা। এখানে প্রায় ৮৫ ত্থেকে ১০০ জনকে হত্যা করে পাক বাহিনী। এরপর লাশগুলো এক সাথে করে আগুন ধরিয়ে দেয়। আহতদের অনেককেও পুড়িয়ে হত্যা করে। দুজন যুবককে জয় বাংলা ধ্বনি দিতে বাধ্য করে এবং মুখের ভিতর বন্দুক ঢুকিয়ে হত্যা করে। এই হত্যাযজ্ঞের সময় মন্দির এবং আশ্রম দাউ দাউ করে জ্বলছিল। আশ্রমের গোয়ালে ৫০ টি গরু ছিল। গরুগুলোকেও আগুনে পুড়িয়ে মারা হয়।

পাকিস্তানি বাহিনী রমনা অপারেশন শেষ করে লাইনে দাঁড় করিয়ে রাখা মহিলাদের থেকে কয়েকজন যুবতী মেয়েকে তুলে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে তাদের আর দেখা যায় নাই। পাকিস্তানিরা রমনা ত্যাগের আগে নির্দেশ দেয়, যাদের বাঁচিয়ে রাখা হল তারা যেন পরদিন সকালেই ভারতে চলে যায়। ২৮ তারিখ ভোরে পরমানন্দ গিরির স্ত্রী সচেতা গিরি, মা আনন্দময়ী আশ্রমের সন্ন্যাসিনী জটালী মা সহ বেঁচে যাওয়া সবাই রমনা এলাকা ত্যাগ করেন।

স্বাধীনতার পর ১৯৭২ সালের ৩১ জানুয়ারি দৈনিক পূর্বদেশ এ রমনা কালী মন্দির ও শ্রী মা আনন্দময়ী আশ্রম ধ্বংসের উপর এক রিপোর্টে বলা হয়েছিল একাত্তরের এপ্রিল মাসের শেষ ইকে অথবা মে মাসের প্রথম দিকে ধ্বংসপ্রাপ্ত স্থাপনায় পুনরায় পাকিস্তানি বর্বররা হামলা চালায়। স্বাধীনতার পর মন্দির এবং আশ্রমের ধ্বংসাবশেষ গণপূর্ত বিভাগ বুলডোজার চালিয়ে নিশ্চিহ্ন করে দেয়। তদানীন্তন রেস কোর্স ময়দান ঢাকা ক্লাবের নিয়ন্ত্রণে ছিল। এরপর গণপূর্ত বিভাগের হাতে হস্তান্তর করা হয়। মন্দির এবং আশ্রমবাসী যারা গণহত্যা থেকে বেঁচে গিয়েছিলেন তারা ফিরে আসেন আবার এবং উক্ত স্থানে অস্থায়ী ভিটা করে বসতি স্থাপন করেন। সেখানে পূজা অর্চনার জন্য অস্থায়ী মন্দির স্থাপন করেন।

রমনার অদূরে জাতীয় তিন নেতার মাজার সংলগ্ন শাহবাজ জামে মসজিদের খাদেম ও রমনা কালী মন্দিরের অধ্যক্ষ স্বামী পরমানন্দ গিরির বন্ধু আবদুল আলী ফকির স্বাধীনতার পর রমনা কালী মন্দির ও শ্রী মা আনন্দময়ী আশ্রমের ভক্তবৃন্দ ও অন্যান্য বাসিন্দাদের নিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সাথে দেখা করেন। তার সাথে ছিলেন প্রয়াত পরমানন্দ গিরির স্ত্রী সচেতা গিরি। ১৯৭৩ সালের ১৩মে সেখাণকার বাসিন্দাদের পোস্তাগলায় পাঠানো হয়। সেখানে শ্মশান সংলগ্ন বালুর মাঠে তারা বসতি স্থাপন করেন। তাদের জন্য রেশনের ব্যবস্থাও ছিল। ১৯৭৬ সালে তৎকালীন সরকারের সময় পুলিশ দিয়ে অস্ত্রের মুখে তাদের উৎখাত করা হয়। তাদের ভারতে চলে যেতে ‘উপদেশ’ দেওয়া হয়। আবার বাস্তুচ্যুত হন রমনা কালী মন্দিরের বাসিন্দারা। সুচেতা গিরি ভারত চলে যান। জটালি মা নব্বই এর দশকে মারা গেছেন। রমনায় প্রতি বছর দুর্গাপূজা করার উদ্ধোগ নেন স্থানীয়রা। কিন্তু প্রতিবারই তাদের বাঁধা দেওয়া হয়। শুধু ১৯৮২ সালে একবার কালী পূজার অনুমতি দেওয়া হয়। ১৯৮৪ সালে মন্দির এবং আশ্রমের ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানিয়ে রতন সরকার বাদি হয়ে ঢাকার দেওয়ানী আদালতে একটি মামলা দায়ের করা হয়।

২০০০ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর জাতীয় প্রেস কাল্বে অনুষ্ঠিত গনতদন্ত কমিশনের সাংবাদিক সম্মেলনে রমনা কালী মন্দির ও মা আনন্দময়ী আশ্রম ধ্বংস ও হত্যাযজ্ঞ গণতদন্ত কমিশনের প্রাথমিক রিপোট প্রকাশ করা হয়। মন্দিরে বসবাসরত সেবায়েতও সেবক সহ ১০০জনেরও বেশী মানুষ কে গণহত্য করে। সেই গণহত্যর শহীদ পরিবার গুলো বর্তমানে মানবতার জীবন যাপন করছে। এই পরিবার গুলো সমাজের কাছথেকে পাইনি কোন সহযোগিতা রাষ্ট্র তাদের দেয়নি কোন পরিচয়। মহান মুক্তিযুদ্ধকালে দেশের জন্য যারা জীবন দিলো তাদের পরিবার পরিজন এভাবে মানবতার জীবন যাপন করছে রাষ্ট্র ও সমাজ চেয়ে চেয়ে দেখছে। বর্তমানে রমনা কালী মন্দিরে পূজা অর্চনা চলছে ভারত সরকারের অর্থে রমনা কালী মন্দিরওমা আনন্দময়ী আশ্রম পুর্ন নির্মাণ হচ্ছে। আমরা আশা করি রাষ্ট্রের কাছে এই শহীদ পরিবার গুলোর রাষ্ট্রীয় ভাবে সন্মান দেয়া হোক এবং তাদের কে পুর্নবাসন করা হোক। সাধারণ সম্পাদক শ্রীশ্রী রমনা কালী মন্দির ও শ্রীমা আনন্দময়ী আশ্রম ১৯৭১ সালের গণহত্যয় শহীদ পরিবার কমিটি।

বর্তমান সাধারণ সম্পাদক বিপুল রায় বলেন- ঐতিহাসিক ও ঐতিহ্যবাহী শক্তিতীর্থ রমনা কালীমন্দির ও শ্রীমা আনন্দময়ী আশ্রম প্রায় পাঁচশতাধিক বছরের প্রাচীন এক সনাতনী ধর্মালয়। যুগ যুগ ধরে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা শক্তিসাধনা ও জগতের হিত ও কল্যাণ কামনার্থে শ্রীশ্রী কালী মায়ের পুজা অর্চনা করেছে।

তিনি আরও বলেন, ১৯৭১ সালের সংঘটিত বাংলাদেশ মহান মুক্তিযুদ্ধের প্রারম্ভক্ষণে ২৬ শে মার্চ রাতে তৎকালীন রেসকোর্স ময়দান, বর্তমান সোহরাওয়ার্দ্দী উদ্যানের অভ্যন্তরে প্রায় ৫০০ বছরের প্রাচীন সনাতন ধর্মীয় তীর্থকেন্দ্র রমনা কালীমন্দির ও শ্রীমা আনন্দময়ী আশ্রমে বসবাসকারী সেবায়েত ও সেবকসহ ১০০টিরও বেশি পরিবারের সদস্যকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী নির্মমভাবে হত্যা করে। আমি এসব বিদেহী আত্মার সুখময় পরলোক জীবনের জন্য সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করছি। পরবর্তীকালে এই হত্যাযজ্ঞ ও ধ্বংস বিষয়ে একটি গণতদন্ত কমিশন গঠন করা হয়, যার চেয়ারম্যান ও সদস্য সচিবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন বিচারপতি কে এম সোবহান ও শ্রী বাসুদেব ধর।

এই কমিশনের অন্য সদস্যদের মধ্যে ছিলেন ড. মুনতাসীর মামুন, জনাব শাহরিয়ার কবির, শ্রীদ্বীপেন চ্যাটার্জ্জি ও শ্রীচন্দ্রনাথ পোদ্দার।

মন্দিরের প্রবেশপথে হত্যাযজ্ঞ ও ধ্বংসের শিকার এসব শহীদদের নামে একটি স্মৃতিফলক নির্মাণ করা হয়েছে। বিষয়টি যে সরকারের গোচরীভূত ছিল এবং সরকার যে এ বিষয়ে সহমর্মী ছিলেন তার প্রকাশ হিসেবে ২০০১ সালের ২৭ শে মার্চ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা ডা. এস.এ মালেক এই স্মৃতিফলকটি উন্মোচন করেন।

জানা যায়, ঐতিহাসিক রমনা কালীমন্দির ধ্বংস করার সময় যারা শহিদ হয়েছিলেন, তাদের সহায়-সম্বলহীন ও আশাহত পরিবারবর্গের মাথা গোজার ঠাঁই নেই। মহান স্বাধীনতার জন্য চরম আত্মত্যাগকারী এসব শহিদ পরিবারের প্রত্যেকেই বর্তমানে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

অথচ গণতদন্ত কমিশনের রিপোর্ট এদের শহিদ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে, যা নিয়ে বিভিন্ন সময়ে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে নানা ধরনের তদবির করেও কোনো ইতিবাচক ফলাফল পাওয়া যায়নি। তবে বিগত প্রায় সব বছরেই বিভিন্ন পত্রপত্রিকা ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ায় বিষয়টি বেশ গুরুত্ব সহকারে প্রচার করে সরকারের অনুকম্পা প্রার্থনা করা হয়েছে।

সর্বশেষ গত ২৫ শে মার্চ ২০১৮ সালে দৈনিক প্রথম আলো তে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে মাননীয় মন্ত্রী, মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়, তার বক্তব্যে বলেছেন যে, “রমনা কালীমন্দির ও আশ্রমে যারা নিহত হয়েছেন, তার গণশহিদ। তাদের পরিবারের স্বীকৃতি ও আর্থিক সহায়তার জন্য প্রধানমন্ত্রী বরাবর আবেদন করলে আমরা বিষয়টি প্রক্রিয়ার মধ্যে নেবো। তারই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে ২০ শে মে ২০১৮ তারিখে আমরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে আর্থিক সহায়তা এবং রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি চেয়ে একটি আবেদন করি। কিন্তু তারও কোনো সারা পাওয়া যায়নি।

এরপর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে গিয়ে তার সাথে সাক্ষাত করার জন্য আবেদন করি, যা ২০শে নভেম্বর ২০১৯ তারিখে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় কর্তৃক গৃহীত হয়। কিন্তু এই আবেদনের পরেও এ বিষয়ে এখন পর্যন্তও কোনো প্রকার দৃশ্যমান অগ্রগতি নেই। এমনিক মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সরকার ও গণবান্ধব বর্তমান সরকারের নতুন মেয়াদেও এই ব্যাপারে কোনো ধরনের সন্তোষজনক অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে না।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সবিনয় নিবেদন বর্তমান সরকারের এই মেয়াদেই নিম্নলিখিত দাবীগুলো পূরণ করে আমাদের চিরকৃতজ্ঞতা পাশে আবদ্ধ করবেন।

আমাদের দাবীসমূহঃ ১। মহান মুক্তিযুদ্ধে রমনা কালীমন্দির ও শ্রীমা আনন্দময়ী আশ্রমের গণহত্যায় নিহত শহিদদের মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের গেজেটে অন্তর্ভূক্তকরণ; ২। মহান মুক্তিযুদ্ধে রমনা কালীমন্দির ও শ্রীমা আনন্দময়ী আশ্রমের গণহত্যায় নিহত শহিদ পরিবারদের আর্থিক সহযোগিতা প্রদান; ৩। মহান মুক্তিযুদ্ধে রমনা কালীমন্দির ও শ্রীমা আনন্দময়ী আশ্রমের গণহত্যায় নিহত শহিদ পরিবারের পুনর্বাসনকরণ।

বিপুল রায়, সাধারণ সম্পাদক রমনা কালী মন্দির ও শ্রীমা আনন্দময়ী আশ্রম এর ১৯৭১ সালের শহীদ পরিবার কমিটি।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
45678910
11121314151617
18192021222324
252627282930 
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit