যোগের প্রয়োজনীয়তা

    admin
    December 3, 2015 8:30 pm
    Link Copied!

    যোগের প্রয়োজনীয়তা

         মানব অস্তিত্ব ত্রিস্তরে বিন্যস্ত- শরীর, মন ও আত্মা। তাই জীবনের যথার্থ উন্নতির জন্যে তথা জীবনকে যথার্থ আনন্দময় করে গড়ে তুলতে হলে দৈহিক, মানসিক ও আত্মিক- তিনেরই উন্নতি একান্ত প্রয়োজন।  জীবনের এই ত্রিস্তরীয় উন্নতি সম্পর্কে আমাদের যথার্থভাবে সচেতন হতে হবে। সেজন্যেই বিংশ শতাব্দীর মহান দার্শনিক ও  যোগেশ্বর শ্রীশ্রী আনন্দমূর্ত্তিজী বলেছেন, We should be physically fit, mentally strong and spiritually elevated”।  যোগ মানুষের এই ত্রিস্তরীয় উন্নতি ঘটায়।  প্রকৃতপক্ষে এটাই যোগের বৈশিষ্ট্য।

       দৈহিক সুস্থতাঃ  দৈহিক সুস্থতা মানে বিভিন্ন রোগ থেকে দেহকে মুক্ত রাখা। বলা হয়- “Prevention is  better than cure” অর্থাৎ রোগ হওয়ার পর চিকিৎসা করার চেয়ে রোগের প্রতিরোধের ব্যবস্থা গ্রহণই শ্রেয়। বিভিন্ন রোগ শরীরে বাসা বাঁধলে আমরা চিকিৎসকের কাছে যাই- দামী দামী ঔষধ খাই। চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা বলেন, এই সব ঔষধের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াতেও আবার নোতুন নোতুন রোগের সৃষ্টি হয়। কিন্তু নিয়মিত যোগাসন করলে অধিকাংশ ক্ষেত্রে  আমরা বিভিন্ন রোগ থেকে দূরে থাকতে পারি।

    মানব মন মস্তিষ্ক, সুষুম্নাকাণ্ড, বিভিন্ন গ্রন্থি, স্নায়ুকোষ, স্নায়ুতন্ত্র, ইন্দ্রিয়সমূহ  তথা শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গের মাধ্যমে সমস্ত কাজ করে।  বিভিন্ন আসন ও মুদ্রার অভ্যাসের দ্বারা এই সব অন্তঃক্ষরা গ্রন্থি সহ অন্যান্য গ্রন্থি, স্নায়ুকোষ, স্নায়ুতন্তু, পেশী, মেরুদণ্ড, সন্ধি-বন্ধনী ও শরীরের বিভিন্ন অঙ্গপ্রত্যঙ্গকে সুস্থ ও সবল করা যায়।

         গ্রন্থিঃ আমাদের শরীরে বিভিন্ন অন্তঃক্ষরা গ্রন্থি আছে যেমন, পিনিয়াল, পিটুইটারী, থাইরয়েড, প্যারা-থাইরয়েড, থাইমাস, এড্রিনাল, গোনাড্‌স প্রভৃতি। এগুলি থেকে হর্মোন রসক্ষরণের ওপর শরীরের সুস্থতা ও অসুস্থতা অনেকটা নির্ভর করে। যোগাসনের দ্বারা এই রসক্ষরণকে স্বাভাবিক করা যায়- যা শরীরকে সুস্থ রাখে বা সুস্থ করে তোলে।

         শারীরবৃত্তীয় প্রভাবঃ মানব শরীরের প্রতিটি অঙ্গের ওপর আসনের প্রভাব আছে। এতে যে কেবল গ্রন্থিপ্রসূত রস-নিঃসরণের সমতা রক্ষিত হয় তাই নয়, আসন অভ্যাস করলে পেশীসমূহ বিশ্রাম পায় ও সতেজ থাকে, স্নায়ুপ্রণালীতে রক্ত চলাচল বাড়ে; তার সঙ্গে অনমনীয় সন্ধি-বন্ধনী (লিগামেন্ট), শিরাগুচ্ছ প্রসারিত হয়, মেরুদণ্ড ও দেহ সন্ধিগুলি নমনীয় হয়, অভ্যন্তরীণ অঙ্গগুলি সংবাহিত হয় ও মন শান্তি ও একাগ্রতা লাভ করে।  সুষম অঙ্গ সঞ্চালনের জন্যে শরীর এক সহজ কার্যকরী অবস্থানে থাকে। গভীর শ্বাস-প্রশ্বাসের ফলে রক্ত অনেকটাই অক্সিজেন শুষে নিতে পারে।

         রোগ নিরাময়ঃ, নিয়মিত আসন অভ্যাসের  দ্বারা  স্থূলতা, অজীর্ণ, অম্লরোগ, আমাশয়, কোষ্ঠকাঠিন্য, রক্তচাপ, বহুমুত্র, বাতরোগ, অর্শ, শ্বাসরোগ, সুপ্তিস্খলন, স্ত্রীব্যাধি প্রভৃতি বিভিন্ন রোগ – যা সচরাচর আমাদের হয়ে থাকে – তাদের থেকে আমরা সহজে নিরাময় লাভ করতে পারি।

    মানসিক উন্নতিঃ  যোগের দ্বারা শুধু শারীরিক সুস্থতা নয়, মানসিক দুর্বলতা দূর করা, মনঃশক্তি অর্জন  করাও সম্ভব। আমরা ভাল-মন্দ যা কিছু করি, প্রকৃতপক্ষে মনই এই সমস্ত কাজ করে। মন যদি ভাল হয়- শুভবুদ্ধিসম্পন্ন হয়, তাহলে সমস্ত কাজও ভাল হবে। আর মন যদি মন্দ হয়, অর্থাৎ অশুভবুদ্ধিসম্পন্ন হয় তাহলে কাজও মন্দ হবে।

    বিক্ষিপ্ত সূর্য রশ্মিকে আতশী কাঁচের সাহায্যে কেন্দ্রীভূত করলে যেমন আগুন জ্বলে ওঠে, তেমনি যোগের সাহায্যে মনকে একাগ্র করলে মনের মধ্যে অপরিসীম শক্তির জাগরণ ঘটে। এই শক্তিকে শুভপথে লাগালে আমরা জীবনে অনেক বড় কাজ করতে পারি ও সহজেই অভীষ্ট সিদ্ধ করতে পারি।

    যারা পড়াশুণা করে তারা নিয়মিত যোগ অভ্যাস করলে বুদ্ধি তীক্ষ্ণ হবে ও স্মৃতিশক্তিও বৃদ্ধি পাবে।

    মনের বৃত্তিঃ  আমাদের মন কতগুলি বৃত্তির সমাহার।  এগুলির সংখ্যা প্রধানতঃ ৫০টি। এগুলি মস্তিষ্কে ও সুষুম্নাকাণ্ডের মধ্যে বিভিন্ন চক্রে অবস্থিত বিভিন্ন গ্রন্থিগুলির দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। যেমন, লজ্জা, ঘৃণা, ভয়, লোভ, ক্রোধ, আশা, চিন্তা, চেষ্টা, বুদ্ধি, বিবেক প্রভৃতি। সাধারণতঃ মানুষের মধ্যে হীন বৃত্তিগুলি প্রবল ও উন্নত বৃত্তিগুলি অস্ফুট থাকে। যোগের যম-নিয়ম, আসন, প্রাণায়াম, ধ্যান প্রভৃতি প্রক্রিয়ার অনুশীলনের সাহায্যে বৃত্তিগুলিকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়। বৃত্তিগুলি যতই আমরা নিয়ন্ত্রণ করবো ততই মনের একাগ্রতা বৃদ্ধি পাবে, ততই মনের শক্তিও বৃদ্ধি পাবে।

         ষ্ট্রেসঃ আমাদের জীবনধারার প্রতি মুহুর্ত্তে আমরা মানসিক চাপের  (stress) শিকার হই। মানসিক চাপ বৃদ্ধি  পেলে সব সময় অশান্তি, খিটখিটে মেজাজ, মাথাধরা প্রভৃতি দেখা দেয়। ক্রমাগত এই মানসিক চাপ থেকে হৃদরোগ, আলসারহাঁপানী প্রভৃতি রোগেরও সৃষ্টি হয়। শুধু এই রোগগুলিই নয়, আধুনিক চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের মতে অধিকাংশ রোগেরই উৎস এই মানসিক চাপ। এই মানসিক চাপ থেকে সাময়িক ভাবে রেহাই পেতে মানুষ সাধারণতঃ ধুমপান, মদ, হিরোইন, ইয়াবা প্রভৃতি  মারাত্মক নেশার দিকে ঝোঁকে। আর এর ফলে মানুষ ক্যানসার প্রভৃতি জটিল ও দুরারোগ্য ব্যাধির কবলে পড়ে।

    এই মানসিক চাপ থেকে মুক্তিরও একমাত্র উপায় হ’ল নিয়মিত যোগ অভ্যাস করা। বিশ্বের খ্যাতনামা চিকিৎসাবিদরাও এই  মত পোষণ করেন।

        যোগাকোনমিক্‌সঃ  নিয়মিত যোগসাধনা অভ্যাস করলে মন ও স্নায়ুকোষের সক্রিয় অংশ যথেষ্ট বিশ্রাম পায়। তাই শান্ত ও সুসংহত মনে কাজ করা বা যথাযথ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা সম্ভব হয়। এছাড়া মনের একাগ্রতার ফলে সহজে ক্লান্তিবোধ আসে না, ফলে কাজে উৎসাহ উদ্দীপনা বাড়ে। চাকুরীজীবিদের কর্মক্ষেত্রে নানা রকম অশান্তি ও দুশ্চিন্তা থেকে রক্ষা করে। নীতি পরায়নতা, বিশ্বস্ততা বাড়ায়। ফলে চাকুরীজীবি, ব্যবসায়ী ইত্যাদি পেশাজীবিদের কর্মক্ষেত্রে দক্ষতা ও উৎপাদন ক্ষমতা বাড়ায়। একেই বর্তমান কালের বহু আলোচিত ভাষায় বলেযোগাকোনমিক্‌স

         শারীরিক উপকারঃ    নিয়মিত যোগসাধনা (মেডিটেশন) অভ্যাস করলে- গভীর নিদ্রার মত শরীরকে দু’বার বিশ্রাম দেয়। ফলে শক্তি বৃদ্ধি পায়।  উচ্চরক্তচাপ কমে যায়। মানসিক চাপ জনিত (stress) রোগ সমূহ প্রতিরোধ করে ও সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে।

         মানসিক উপকারঃ মানসিক অসন্তোষ, হতাশা, খিটখিটে ভাব, শত্রুতা ভাব ইত্যাদি কমে যায়। মানসিক চাপ ও দুশ্চিন্তা কমে যাবার ফলে মানসিক শান্তি লাভ করা যায়। মনের একাগ্রতা, দৃঢ়তা ও আত্মবিশ্বাস বেড়ে যায়। ছাত্র-যুবাদের জীবনের অশুভ প্রবণতা থেকে রক্ষা করে। মনের বিস্তার হয় অর্থাৎ মন থেকে বিভিন্ন ধরণের সংকীর্ণতা, হীনন্মন্যতা বোধ ইত্যাদি চলে যায়। ফলে আধ্যাত্মিক চিন্তা, উচ্চতর গবেষণা, সৃজনশীলতা, সুস্থ্য সংস্কৃতির চর্চা ইত্যাদি সহজতর হয়। জীবনে যে কোন বাধা বিপত্তি বা কঠিন পরিস্থিতির সন্মুখীন হতে ভয় পায় না বা বিচলিত হয় না। সব পরিস্থিতিতেই নিজেকে সংযত ও সুসংহত রাখতে পারে। সুখী ও আদর্শ জীবন শৈলী অনুসরন করা সম্ভবপর হয়, তৎসহ জীবনে সমতা ও সুষমতা আসে। আত্মনিয়ন্ত্রণ তথা আত্ম সন্তুষ্টি লাভ করা যায়। পারিবারিক জীবনে হাসি-খুশী মেজাজে থাকা যায় ও শান্তিপূর্ণ ভাবে সকলকে মানিয়ে নিয়ে চলা সম্ভবপর হয়।

    আত্মোপলব্ধিঃ জাগতিক বস্তুতে দেহের ক্ষুধা বা প্রয়োজন মেটে, ক্ষণিকের সুখ পাওয়া যায়। কিন্তু মনের ক্ষুধা অনন্ত বিধায় সীমিত  সুখে  মানুষের মন ভরে না। সে চায় অনন্ত সুখ। অনন্ত সুখই আনন্দ, আর আনন্দই ব্রহ্ম। মন যখন বিশেষ প্রচেষ্টার দ্বারা  আত্মাভিমুখী হয়ে বিস্তার লাভ করে, সে আত্মিক অনুভূতি লাভ করে, তার আত্মোপলব্ধি ঘটে। আর তখনই কেবল তার অতৃপ্ত মন তৃপ্ত হতে পারে। সে পায় আনন্দ।

    তাই প্রতিটি মানুষ জ্ঞাতসারে হোক বা অজ্ঞাতসারেই হোক সেই আনন্দঘনসত্তা  ব্রহ্মকে পেতে চায়। যোগসাধনা হ’ল সেই বিশেষ প্রচেষ্টা, সেই আনন্দঘন সত্তাকে লাভ করার জন্য  নিয়মিত শারীরিক-মানসিক-আধ্যাত্মিক প্রয়াস।

    কিন্তু সুস্থ শরীর ও শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মন ব্যতীত আত্মোপলদ্ধি হয় না। আর মনকে শুভবুদ্ধিসম্পন্ন করতে হলে নীতিবাদে প্রতিষ্ঠিত হতে হবে, নৈতিক আচরণ বিধি যম-নিয়ম পালন করতেই  হবে। তাই যম-নিয়ম, আসন, প্রাণায়াম, ধ্যান- এ সবই যোগের অঙ্গ।

         সমাজের শুদ্ধিঃ বর্তমান মানুষের মনের চরম অস্থিরতা ও নীতিবোধের অভাবের প্রতিফলন সমগ্র সমাজে দেখে দিয়েছে। তাই সমাজে আজ প্রায় সর্বত্রই  দুর্নীতি, অশান্তি ও নানান ধরণের ঘৃণ্য অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। প্রায় গোটা সমাজটাই আজ দুষিত হয়ে উঠেছে। আজকে এই সমাজের শুদ্ধি কেবল আইন ও প্রশাসনিক কঠোরতার দ্বারা সম্ভব নয়, তার সঙ্গে দরকার ব্যাপক নৈতিক ও সকল প্রকার সঙ্কীর্ণতা মুক্ত আধ্যাত্মিক শিক্ষা। তাই চাই যোগের ব্যাপক চর্চা।

    এখানে বলা বাহুল্য, যোগের সঙ্গে প্রচলিত ধর্ম-জাত-পাত-সম্প্রদায়-নারী-পুরুষের কোন সম্পর্ক নেই। যোগের আদর্শ বলে, ‘মানব সমাজ এক ও অবিভাজ্য’, ‘মানুষ মানুষ ভাই ভাই, উঁচু কিংবা নীচু নাই। তাই সমস্ত সঙ্কীর্ণতার ঊর্ধ্বে উঠে সর্বত্র ব্যাপক যোগচর্চার দ্বারা এক সর্বাঙ্গসুন্দর মানব সমাজ গড়ে তোলা সম্ভব। আসুন, আমরা সবাই মিলে নিয়মিত যোগচর্চার মাধ্যমে সুস্থ্য থাকি, শান্তিতে থাকি, আনন্দ লাভ করি আর এক সর্বাঙ্গসুন্দর মানব সমাজ গড়ে তুলি ।                                  -আচার্য ব্রজেশ্বরানন্দ অবধূত