শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ১০:৩৯ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
মেহেরপুরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছিয়ে দিচ্ছেন পৌর মেয়র রিটন ঝিনাইদহ হরিণাকুন্ডুতে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নারীসহ ১৫ জন আহত প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহায়তা ২৫’শ টাকার নামের তালিকা ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে টাঙ্গালেন চেয়ারম্যান রনি লস্কর উলিপুরে আরো ৩ জন নিয়ে মোট করোনা রোগী শনাক্ত ৮ ও সুস্থ ১ জন ঠাকুরগাঁওয়ের দুই শিক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার ঠাকুরগাঁওয়ে প্রথম করোনা উপসর্গ নিয়ে একজনের মৃত্যু মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ খাতের উন্নয়নে বাংলাদেশকে সহায়তা দিতে আগ্রহী মিশর করোনার ভয় আর আতঙ্ক নিয়েই ১ জুন খুলছে উপাসনালয় এবং ৮ জুন থেকে পশ্চিমবঙ্গের সব অফিস চীন ভারত যুদ্ধে, ভারতের পক্ষে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত রাশিয়ার করোনাভাইরাসে শত বছর আগের মহামন্দার পরিস্থিতি ফিরিয়ে আনতে পারে -জাতিসংঘ মহাসচিব

বাংলা নববর্ষের প্রবর্তক শশাঙ্ক নাকি আকবর, জেনে নেই ইতিহাস

বাংলা নববর্ষের প্রবর্তক
বাংলা নববর্ষের প্রবর্তক

বাঙালির আর্থ-সামাজিক-সাংস্কৃতিক জীবনে বাংলা নববর্ষের গুরুত্ব ও তাৎপর্য অপরিসীম। নববর্ষ আমাদের জীবনে আসে নতুন স্বপ্ন ও বেঁচে থাকার নবীন আশ্বাস নিয়ে। কিন্তু এই বাংলা নববর্ষের প্রবর্তক সম্পর্কে রয়েছে অনেক জটিলতা।

বাংলাদেশের মুক্তমনা মানুষেরা বাংলা নববর্ষকে সাদরে গ্রহণ করলেও ইসলামের হিজরী ক্যালেন্ডার থাকতে বাঙ্গলা ক্যালেন্ডারের নববর্ষ নিয়ে মাতামাতিতে ইসলামী কট্টরপন্থীরা বড়ই ক্রুদ্ধ। লক্ষ করলে দেখা যায় ওটা ‘পয়লা বৈশাখ’ নয় ‘পহেলা বৈশাখ’ ! ‘পহেলা’ কি বাঙ্গলা শব্দ ? আরো লক্ষ্য করলে দেখা যায় ওটা হয় প্রতি বছর ১৪ এপ্রিল, অথচ বাঙ্গালী হিন্দুর পঞ্জিকায় সাধারণতঃ পয়লা বৈশাখ ১৫ এপ্রিল । (এ বছর ২০২০ ইংরাজী সালে লিপ ইয়ার বলে ১লা বৈশাখ পড়েছে ১৪ এপ্রিল)। বাঙ্গালীর প্রায় দেড় হাজার বছরের ক্যালেন্ডারের অধিকার দাবী করে বাংলাদেশ অবলীলাক্রমে বাঙ্গলা ক্যালেন্ডারকেই পাল্টে দিয়েছে।

কিভাবে ১৪ই এপ্রিল পাকাপাকি ১লা বৈশাখ হলো?

১৯৬৬ সালে মহম্মদ শহীদুল্লাহ-র নেতৃত্বে একটি কমিটি বাংলা ক্যালেন্ডারকে আধুনিক করে গ্রেগরিয়ান (ইংরেজী) ক্যালেন্ডারের সঙ্গে সামঞ্জস্য আনতে বাংলা ক্যালেন্ডার পালটে দিলেন। ১৪ই এপ্রিল পাকাপাকি পয়লা বৈশাখ হল। পাকিস্তানী আমলে এটি চালু আর হয় নি। বাংলাদেশ হবার পর ১৯৮৭ সালে সামরিক অভ্যুত্থানের পর ক্ষমতায় এসে রাষ্ট্রপতি এরশাদ বাংলাদেশের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম করলেন আর এই নতুন বাংলা ক্যালেন্ডার চালু করলেন। বাংলা ক্যালেন্ডারের সঙ্গে বাংলাদেশের মুসলমানের কোন ধর্মীয় যোগাযোগ নেই, আজকাল সরকারী কাজেও চলে ইংরেজী ক্যালেন্ডার, শুধু চাষবাসের ঋতু বোঝার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বাংলা ক্যালেন্ডার। কিন্তু বাঙ্গালী হিন্দুর ধর্মীয় কাজকর্ম ও সাংস্কৃতিক জীবন চলে বাংলা ক্যালেন্ডার মেনে।

শুধু তাই নয় কোন ঐতিহাসিক তথ্যসূত্র ছাড়াই বঙ্গাব্দ-র সঙ্গে জুড়ে দেওয়া হয়েছে মোগল রাজ আকবরকে। তিনি নাকি বাঙ্গলায় ফসল আদায়ের সুবিধার জন্য এই বঙ্গাব্দ চালু করেন । আকবরপন্থীদের যুক্তি, খাজনা আদায়ের সুবিধার জন্য ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দে আকবর তারিখ-ই-ইলাহী নামে একটি সৌর বর্ষপঞ্জী চালু করেন। কিন্তু তার ভিত্তিবর্ষ ছিল ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দ, আকবরের শাসনকালের প্রথম বছর। ওদিকে ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দ ছিল ৯৬৩ হিজরী।
আকবরপন্থীদের মতে ১৫৫৬ খৃষ্টাব্দকে ৯৬৩ বঙ্গাব্দ ধরে, ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দে তারিখ-ই-ইলাহীর সাথে সাথে বঙ্গাব্দও চালু করেন আকবর। অর্থাৎ বঙ্গাব্দ শুরু হয় তার ৯৬৩ + ২৯ = ৯৯১তম বর্ষ থেকে। আকবর হিজরী সাল পছন্দ করতেন না ফলে চালু করেন তারিখ-ই-ইলাহী, তবে তিনি কেন বঙ্গাব্দে হিজরীকে ঢোকাতে যাবেন? ‘আইন-ই-আকবরী’-তে ৩০ পাতা জুড়ে বিশ্বের ও ভারতের বিভিন্ন বর্ষপঞ্জীর কালানুক্রমিক বিবরণ রয়েছে। সব শেষে রয়েছে তারিখ-ই-ইলাহী।
কিন্তু ‘বঙ্গাব্দ’ বা ‘বাংলা সন’-এর কোনো উল্লেখ নেই। আকবর যদি সত্যিই ‘বঙ্গাব্দ’ বা ‘বাংলা সন’ প্রবর্তন করতেন, তাহলে আইন-ই-আকবরীতে তার উল্লেখ থাকবে না, একি সম্ভব? আকবরের অধীনে পশ্চিমে কাবুল থেকে পূর্বে বাঙ্গলা পর্যন্ত ১২ টি সুবা ছিল কিন্তু কোথাও তিনি নতুন ক্যলেন্ডার না করে হঠাৎ বাঙ্গলায় কেন করতে যাবেন? তাছাড়া সেই সময় বাঙ্গলায় বারভুঁইয়াদের দাপট, তাঁদের সঙ্গে যুদ্ধবিগ্রহ চলছে তখন আকবরের, ফলে বাঙ্গলার শস্য আদায়ের ক্যালেন্ডার তৈরী করছেন এটা একেবারেই মনগড়া গল্প।
মনে রাখতে হবে ক্যালেন্ডার তৈরীর সঙ্গে যুক্ত জ্যোতির্বিদ্যার ভারতীয় জ্ঞান ২০০০ বছরের পুরানো। ভারতীয় ক্যালেন্ডার তৈরী হয় সূর্য সিদ্ধান্ত অনুসারে যা এখনও সমান মান্য। ভারতে ৫৭ খ্রীষ্টপূর্বকে বিক্রমাদিত্যর শাসনকালের শুরু ধরে বিক্রমাব্দ চালু ছিল, পরে চালু হয় শকাব্দ যা এখনো ভারতের সরকারী ভারতীয় ক্যালেন্ডার

তাহলে বঙ্গাব্দের শুরু কিভাবে হল? গত বেশ কয়েক দশক ধরে মার্ক্সবাদী ঐতিহাসিকরা ভারতের প্রকৃত ইতিহাসটাই সরস্বতী নদীর মতন প্রায় গায়েব করে দিচ্ছিল। সেজন্য বাঙ্গালী ছাত্রছাত্রীরা জানেই না বাঙলার গৌরব গৌড় সম্রাট শশাঙ্কের নাম। জানে না সেই সাম্রাজ্যের রাজধানী কর্ণসুবর্ণ রয়েছে মুর্শিদাবাদের কাছেই। কোন টুরিস্ট গাইডে এ নাম পাওয়া যাবে না।

সম্রাট শশাঙ্ক বঙ্গাব্দ শুরু করেন তাঁর রাজত্বকালের শুরু ৫৯৪ খ্রীষ্টাব্দকে ভিত্তি বর্ষ ধরে। ২০২০ সালে সেজন্য ১৪২৬ বঙ্গাব্দ। তার পাথুরে প্রমাণও রয়েছে। নিতীশ সেনগুপ্তর বই ‘দ্য ল্যান্ড অফ টু রিভার্স’-এ উল্লেখ রয়েছে পশ্চিমবঙ্গের বাঁকুড়া জেলার ডিহারগ্রাম ও সোনাতপন গ্রামের হাজার বছরেরও প্রাচীন টেরাকোটার শিব মন্দিরের। ওই মন্দির দু’টির গায়ে বঙ্গাব্দের কথা খোদিত রয়েছে, যা আকবরের থেকেও প্রাচীন। এছাড়া অন্যান্য গবেষকরাও (মেঘনা গুহ ঠাকুরতা, কুনাল চক্রবর্তী ইত্যাদি) একই কথা জানিয়েছেন।

মানবসভ্যতার ঊষাকালে এই ভারত ভূমিতে যে জ্ঞানবিজ্ঞানের বিকাশ ঘটেছিল, তার তুলনা পৃথিবীর অন্য কোথাও দেখতে পাওয়া যায়না। যে সভ্যতা পেশিশক্তির প্রভাবে নয় জ্ঞানশক্তির প্রভাবে বিকশিত হয়েছিল, যার সঠিক কাল নির্ধারণ করা এখন সম্ভবপর হয়ে ওঠেনি, সমবেত মানুষের উন্মুক্ত জ্ঞানের উপলব্ধি থেকে এই সভ্যতার বিকাশ, তাই এই সভ্যতা অপৌরুষ সভ্যতা। কিছু প্রাচীন ঐতিহাসিক সৌরপঞ্জিকা বর্তমানে ভারতীয় প্রচলিত বর্ষের সঙ্গে টিকে আছে। যেমন শকাব্দ

পূর্ব ভারতে প্রচলিত বঙ্গাব্দে এবং ভাস্করাব্দে বর্ষগণনার ক্ষেত্রে এখনও এই প্রাচীন পদ্ধতিটিই অনুসৃত হয়ে থাকে। শকাব্দে অঞ্চলভেদে বিভিন্ন সময়ে বর্ষারম্ভ হত। যেমন উত্তর ভারতে বছর শুরু হত চৈত্র মাসে কিন্তু পূর্ব ভারতে নববর্ষ অনুষ্ঠিত হত বৈশাখ মাসে। ভারত একটি কৃষি প্রধান দেশ, নববর্ষের সঙ্গে ধর্মাচরণ এবং কৃষিকাজ সম্পর্ক যুক্ত।

অনেক প্রাচীন গ্রন্থ ও মধ্যযুগীয় গ্রন্থে শকাব্দের উল্লেখ আছে। আবার কনিষ্কের সঙ্গেও শকাব্দ সম্পর্ক আছে। অনেকেই মনে করেন, আমাদের বঙ্গাব্দ থেকে শকাব্দ ৫১৫ বছর প্রাচীন।

বাংলা নববর্ষের প্রবর্তক কে?

ভারতের বঙ্গাব্দ(পশ্চিমবঙ্গ) এবং ভাস্করাব্দ(অসম) শকাব্দের অনুকরণে প্রবর্তিত। গৌড়াধিপতি শশাঙ্ক ছিলেন সেই সময়ে অধুনা বঙ্গেশ্বর সুতরাং তিনিই ছিলেন বঙ্গাব্দের প্রবর্তক বাঙ্গালি রাজা। আকবর বীরবল প্রসঙ্গ এখানে অবান্তর এবং ইতিহাস বিকৃতির নামান্তর মাত্র।

ও আগমনের আগে প্রতিষ্ঠিত। আকবর যদি বঙ্গাব্দের প্রতিষ্ঠাতাই হন, তাহলে আকবরের বহু শতাব্দী আগের মন্দির গাত্রে এবং তাম্রলিপিতে বঙ্গাব্দের উল্লেখ কোথা থেকে এলো? এ ছাড়াও বাঁকুড়ার একটি মন্দিরে ১০২ বঙ্গাব্দের উল্লেখ আছে, বাঁকুড়ারই ডিহারগ্রাম ও সনাতপন গ্রামে প্রাচীন টেরাকোটার মন্দিরে ৯৬৩ খৃষ্টাব্দের আগের বঙ্গাব্দের উল্লেখ রয়েছে, বৃন্দাবনচন্দ্র পুততুণ্ড রচিত “চন্দ্রদ্বীপের ইতিহাস” গ্রন্থে ৬০৬ বঙ্গাব্দের উল্লেখ আছে। তা ছাড়াও, এমন অসংখ্য দৃষ্টান্ত যে দেওয়া যায়, শুধুমাত্র তাইই নয়, যারা পাণ্ডুলিপি বা পুরাতত্ত্ব নিয়ে গবেষণা করছেন, তারা দেখেছেন বা দেখবেন যে, সম্রাট আকবরের সময়ের বা ১৬ শতাব্দীপূর্ব পাণ্ডুলিপিগুলিতে অনেক স্থানেই বঙ্গাব্দের নিদর্শন পাওয়া যায়।

বাংলা অঞ্চলে পাওয়া পাণ্ডুলিপিতে অধিকাংশ স্থানেই শকাব্দ এবং কিছুকিছু স্থানে শুধুমাত্রই তারিখ দেওয়া আছে, সেই তারিখগুলি সুস্পষ্টরূপে বঙ্গাব্দের। যারা আকবরকে বঙ্গাব্দের প্রবর্তক বলেন এবং বলেন যে ৯৬৩ হিজরী সালকে বঙ্গাব্দে প্রতিস্থাপন করেই বঙ্গাব্দ যাত্রা শুরু করেছে, সেটা যে কতটা হাস্যকর এবং বালখিল্য কথা, তা একটা দুধের শিশুও বুঝবে।

● (২) বাংলা নববর্ষের প্রবর্তক/আকবর বঙ্গাব্দের প্রতিষ্ঠাতা” -এই মতের প্রধান প্রবক্তাগণ হলেন বাংলাদেশের শামসুজ্জামান খান, সৈয়দ আশরাফ আলী, সিরাজুল ইসলাম, আহমেদ জামাল ইত্যাদিরা। এনাদের মধ্যে কেউ কেউ আবার আকবরকে বাদ দিয়ে আলাউদ্দিন হুসেন শা-কে বঙ্গাব্দের প্রবর্তক বলে মত দিয়েছেন। এখানে মনে রাখা দরকার, হুসেন শাহের রাজত্বকাল ১৪৯৪ খ্রীষ্টাব্দ থেকে ১৫১৯ খ্রীষ্টাব্দ অবধি। ইনি বঙ্গাব্দের প্রবর্তক হলে বঙ্গাব্দের বয়স ৫০০ বছরের বেশী হতে পারে না।

আরও পড়ুন ঈদুষ্ণ লবণ পানি দিয়ে নাক পরিষ্কারেই করোনা প্রতিরোধ -যোগী পিকেবি প্রকাশ

আসলে একটু তলিয়ে দেখলেই বাংলাদেশের ঐতিহাসিকদের আকবর বা হুসেন শা-কে বঙ্গাব্দ প্রতিষ্ঠার সাথে জড়িয়ে দেবার মরিয়া চেষ্টার কারণটা বোঝা যায়। খুব বেশী দশক আগের কথা নয়, যখন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি জেনারেল এরশাদ বাঙ্গালীর চিরাচরিত বর্ষগণনা পদ্ধতিকে উল্টেপাল্টে একটি নতুন কৃত্রিম বর্ষগণনা পদ্ধতি আবিষ্কার করেন এবং সেটিরও নাম রাখেন বঙ্গাব্দ এবং এই কৃত্রিম বঙ্গাব্দকে “বাংলাদেশের জাতীয় বর্ষপঞ্জী” হিসেবে ঘোষণা করেন। এখানে স্বভাবতঃই প্রশ্ন জাগে, যে বাংলাদেশের জনসংখ্যার শতকরা ৯২ ভাগই মুসলমান, যাদের প্রধান উৎসব হল ঈদ, মহরম, ফতেহা দোয়াজ দহম ইত্যাদি, তাদের এইসব পরবগুলো কি এরশাদ রচিত কৃত্রিম বঙ্গাব্দ অনুসারে গণনা হয়? উত্তর হল – না।

বাংলাদেশে ঈদ, মহরম ইত্যাদি সবই হিজরী গণনা পদ্ধতি অনুসারে হয়। উরস, ইজতেমা কি বঙ্গাব্দ অনুসারে গণনা হয়? বাংলাদেশের ৯২% তাদের সন্তানের আকিকা বা সুন্নত, নিকা কিংবা কবর জিয়ারত কি বঙ্গাব্দ দেখে করেন? আজ্ঞে না, বাংলাদেশের ৯২%-এর কোন কাজেই লাগে না বঙ্গাব্দ। তাহলে কী কারণে এরশাদ বঙ্গাব্দ-র গণনাপদ্ধতি পাল্টে দিলেন? বঙ্গাব্দ অনুসারে পূজা-পার্বন গণনা করেন বাংলাদেশের সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়। শিশুর নামকরণ থেকে হাতেখড়ি, বিয়ে থেকে শ্রাদ্ধ, পুজো-পার্বন থেকে গৃহপ্রবেশ এবং তর্পণ, সবটাই হয় বঙ্গাব্দ মেনে।

তবে কি তাদের পূজা-পদ্ধতিতে ব্যাঘাত ঘটানোর উদ্দেশ্যেই “বঙ্গাব্দ সংস্কার”-এর নামে জেনারেল এরশাদের এই নববর্ষ দখলের কু’প্রচেষ্টা? আর সেই প্রচেষ্টাকে এগিয়ে নিয়ে যেতেই কি বাংলাদেশের সিরাজুল-আশরাফ আলী-শামসুজ্জামানরা যেন-তেন-প্রকারেন বঙ্গাব্দের ইতিহাস থেকে বাঙ্গালীর নামগন্ধটুকু মুছে দিতে চান? বঙ্গাব্দ নামটুকু থাকবে, কিন্তু তার চিরাচরিত গণনাপদ্ধতি পাল্টে দেওয়া হবে রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে। বঙ্গাব্দ থাকবে, কিন্তু তার প্রতিষ্ঠাতা হিসাবে থাকবে কোন মোগল-পাঠানের নাম। তবেই তো বাঙ্গালীর কাছ থেকে কেড়ে নেওয়া যাবে তার নববর্ষ! নববর্ষ দখল সম্পূর্ণ হলে বাঙ্গালীর কাছ থেকে বাংলাদেশের গ্রাসে যাবে বাঙ্গালীর এক অমূল্য ইতিহাস।

● (৩) তাহলে আসল সত্যিটা কী? কে করলেন বঙ্গাব্দের প্রতিষ্ঠা? এর উত্তর দিতে গিয়ে আমরা আবার অঙ্কের হিসেবে ফিরে যাবো।

এতক্ষণে এই ব্যাপারটুকু নিশ্চয়ই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে যে ইংরেজী বছর এবং বাঙ্গালা বছরের মধ্যে অনেক বছরের ফারাক আছে। সেটা কত বছর? ২০২০ থেকে ১৪২৭ বিয়োগ করলে আমরা পাই ৫৯৩ বছর, অর্থাৎ বাঙ্গালা বর্ষপঞ্জী চালু হয় ৫৯৩ সাল নাগাদ। এই সময়ে এমন কেউ বাঙ্গালার সিংহাসনে বসেন, যিনি এই বর্ষপঞ্জী চালু করেন।

ইতিহাস বলছে, ওই বছরই বাঙ্গালার বুকে যে অজস্র ছোটো-ছোটো রাজ্য ছিল, সেগুলোকে একত্রিত করে প্রথম স্বাধীন বাঙ্গালী সাম্রাজ্য স্থাপন করে সিংহাসনে বসেন মহারাজ নরেন্দ্রাদিত্য “শশাঙ্ক”। রাজধানী ছিল অধুনা মুর্শিদাবাদের কর্ণসুবর্ণ গ্রামে। শশাঙ্কের অধীনে ছিল বাঙ্গালা, বিহার, উড়িষ্যা, অসমের বিস্তীর্ণ অঞ্চল। প্রথম বাঙ্গালী সম্রাট শশাঙ্কের রাজ্যাভিষেক থেকেই বাঙ্গালীর নিজস্ব ক্যালেন্ডার “বঙ্গাব্দ”-এর সূচনা। বাংলা নববর্ষের প্রবর্তক আকবর নয় শশাঙ্ক।

সূত্রঃ পশ্চিমবঙ্গের জন্য

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit
error: Content is protected !!