সোমবার, ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৪:২৩ অপরাহ্ন


১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশকেই হত্যা করেছিল খুনিরা

বঙ্গবন্ধু হত্যা

আশোক চক্রবর্তীঃ ১৯৭৫ সালে জাতির জনক ও তাঁর পরিবার বর্গদের নিষ্ঠুর ভাবে হত্যার মধ্য দিয়েই রাজনীতি কুলশিত হতে শুরু করে। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে প্রকৃতপক্ষে বাংলাদেশকেই হত্যা করেছিল খুনিরা।

অবিশ্বাস, কুটচাল, অন্যায় ভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকার প্রচেষ্টা, যে চার মূল নীতির উপর বাংলাদেশ স্বাধীন হয় সেই মূলনীতিকে অস্বীকার করে সংবিধান সংশোধন করা, যেরাষ্ট্রগুলি বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিতে চায়নি বিরোধিতা করেছে তাদের সহায়তা নিয়ে রাজনীতিতে টিকে থাকার অপচেষ্টা, রাতারাতি রাষ্ট্রীয় সম্পদ আহরণ করে আজীবন ধনী থাকার অপচেষ্টা সহ এই ধরণের নানান অপচেষ্টার ফলাফল হিসাবে রাজনীতি একেবারেই নষ্ট হয়ে গিয়েছিল। ১৯৭৫ থেকে ১৯৯০ সাল অর্থাৎ ১৫ বছরের মিলিটারি শাসনের পর গণ আন্দোলনের মাধ্যমে যে পরিবর্তন আসলো সেই পরিবর্তিত সময়েও রাজনীতি শুদ্ধ হতে পারেনি। জেনারেল জিয়া ও হোসেইন মোহাম্মদ এরশাদ এই নষ্ট সময়ের সুবিধাভোগীদের অন্যতম নায়ক ছিলেন।

কেন রাজনীতি শুদ্ধ হতে পারেনি?

জেনারেল জিয়া ও জেনারেল এরশাদের সময়ে রাষ্ট্র নীতি ও সংবিধানকে একেবারে ভিন্ন ভাবে সাজিয়ে নিয়েছিল যা স্বাধীনতার মূল মন্ত্রের বিপরীত ছিল। ৯০ সালের পর বিএনপি ভোটে নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করে। ঐ সময়টাই ঘুরে দাঁড়ানোর জন্যে উপযুক্ত সময় ছিল। কিন্তু তা হয়নি ঐ ১৫ বছরের অন্ধকার সময়ের প্রভাব মুক্ত হয়ে নতুন ধারা শুরু করতে পারেনি বিএনপি। ১৫ বছর ধরে যারা অপ-রাজনৈতিক ধারায় থেকে সুবিধা ভোগি ছিল তারা অবস্থা বুঝে ৮৯ সাল থেকে দল বদলের মাধ্যমে স্বৈরাচার থেকে নিজেদের গণতন্ত্র ধারায় নিয়ে আসে। ৯০ সালের পর রাজাকার, স্বৈরাচার, গনতন্ত্রিক ধারা মিলে একাকার হয়ে যায়। ৯০ সালের পরে জাতি দুইটা প্রধান রাজনৈতিক দলের মধ্যে চরম সংঘাত দেখে আসছে। যেহেতু পরিবর্তিত সময়ে প্রথম সরকার বিএনপি গঠন করেছিল সেহেতু বিএনপির দায় ছিল বেশি। ৯১ সাল থেকেই বাংলাদেশ সুস্থ ধারায় ফিরতে পারতো।

এই সংঘাতের উৎস কোথায়?

১৯৭৫ সালে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে অন্যায়ভাবে হত্যার পর খুনিদের পুরস্কৃত করা হয়েছে। খুনের বিচার করা যাবেনা এই মর্মে সংসদে আইন পাশ করানো হয়। শুধু কী জাতির জনকের হত্যা? বাংলাদেশের স্বাধীনতার চার স্তম্ভ বলে খ্যাত জাতীয় চার নেতাকে বিচার বহির্ভূত ভাবে জেল হাজতের মধ্যে নির্মম ভাবে হত্যাকরা হয়। এই কাজ গুলি হয়েছে খন্দকার মোস্তাক ও জিয়ার সরকার থাকা সময়ে। ১৯৭৫ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত এই সীমাহীন অন্যায়ের কোন বিচার হয়নি। বিচার করার বিষয়ে কোন প্রচেষ্টাও ছিলনা। স্বাধিনতা বিরোধিদের রাজনীতিতে প্রতিষ্ঠিত করে দেওয়া হয়েছিল ঐ ১৫ বছরের সময়ে। ফলে প্রধান রাজনৈতিক দল আওয়ামীলীগ ১৯৯১ সালে রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসা বিএনপিকে শুরু থেকেই মেনে নিতে পারেনি।

পূর্বের ভুল গুলিকে স্বীকার করার কোন প্রবণতা বিএনপির মধ্যে ছিলনা। সুতরাং সহযোগিতার বদলে সব বিষয়ে বিরোধিতার দিকে ধাবিত হয়েছিল আওয়ামীলীগ। এখন কথা হলো ১৯৯১ সালে আওয়ামীলীগ বিএনপি সকারকে শতভাগ সহযোগিতা করলেও কী জাতির জনক ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের হত্যা, চার জাতীয় নেতা হত্যা, যুদ্ধাপরাধির বিচার, সংবিধানের চার নীতি বদলে দেওয়ার দোষের বিচার করতো বিএপি? সেই ধরণের সুচিন্তা ছিলনা বলেই বিরোধিতা চরম পর্যায়ে পৌঁছেছিল।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
15161718192021
22232425262728
29      
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ ||
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit