রবিবার, ০৯ অগাস্ট ২০২০, ০৪:৫৯ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
শেখ ফজিলাতুন্নেছার জন্মদিনে ঠাকুরগাঁওয়ে স্বেচ্ছাসেবক লীগের গাছের চারা বিতরণ বিশ্ব মাতৃদুগ্ধ সপ্তাহ-২০২০ উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর বাণী চরফ্যাশনে সড়ক দূর্ঘটনায় আহত পত্রিকা বিক্রেতা রাজীবকে নাজিম উদ্দিন আলমের পক্ষে অনুদান প্রদান ভোলায় যুবককে হাত-পা বেঁধে নির্যাতন, গোবর খাইয়ে দেওয়ার অভিযোগে আটক ১ ঝিনাইদহে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গাছ পাগল জহির রায়হানের বৃক্ষরোপন শুরু ঝিনাইদহে করোনা প্রতিরোধে সেনাবাহিনীর টহল অব্যাহত ঝিনাইদহে অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছার জম্মবার্ষিকী উপলক্ষে আগৈলঝাড়ায় আলোচনা সভা ও দুঃস্থদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ আগৈলঝাড়ায় বাঁধা উপেক্ষা করে খাল দখল করে দোকান ঘন নির্মানের হিড়িক শিক্ষকদের যুগোপযোগী শিক্ষার সাথে নিজেকে তৈরির পরামর্শ এসপি বিপ্লব কুমারের

জন্মই আমার আজন্ম পাপ, সংখ্যালঘু হয়ে জন্মেছি এ বঙ্গে

হিন্দু নির্যাতন বাংলাদেশ

আমি মুসলিম আমি মূর্তি গড়তে আসিনি মূর্তি ভাঙতে এসেছি। ইব্রাহিম(আঃ)মূর্তি ভেঙেছেন,আমাদের মুহাম্মদ(আঃ)কাবা ঘরে গিয়ে মূর্তি ভেঙ্গে খানখান করে দিয়েছেন। এই কথা বলে হুজুররা যখন ওয়াজ মাহফিলে বয়ান করেন তখন বাংলাদেশের হিন্দুরা অস্তিত্ব সংকটে পড়ে যান। কারন বাংলাদেশে হিন্দুরাই মূর্তি পূজারী। সংখ্যালঘুরা তখন ভুলে যান যে তারা জন্মগত ভাবে এদেশের অধিবাসী। এদেশে তারা জন্মেছে, এদেশের মাটি আবহাওয়া আলো বাতাস গায়ে মেখে বড় হয়েছে। এদেশটা যে তার নিজের দেশ তা অধিকাংশ সংখ্যাগুরু মানুষ ভুলে যায় মানতে চায় না। এদেশের প্রতি তাদের অধিকারও যে সমান তা কেউ মানতেই চায় না। আর এই মনোভাবটা সংখ্যালঘুদের মনে সংক্রামিত এবং বিকশিত হয়েছে সরকারী পৃষ্ঠপোষকতায়। সরকার চেয়েছে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা মানুষিক ভাবে দুর্বল হয়ে পরুক।সারা বছর মূর্তি ভাঙার মহোৎসব হয়।
আজ পর্যন্ত এর কোন বিচার হয়নি। তাহলে প্রমান হয় হুজুরদের বয়ানই সঠিক। বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিল,ইসলামি জলসা,বাসে লঞ্চে বিভিন্ন হোটেলে অনবরত হিন্দু বিদ্বেষী, জাতি ধর্ম সংস্কৃতি বিদ্বেষী বক্তৃতা হেদায়েতুল বয়ান বাজতে থাকে কোন প্রতিকার নেই। দেলোয়ার হোসেন সাইদি আইনত সে কয়েদি। কিন্তু তার সাম্প্রদায়িক বক্তৃতা বাজারে সমান সমাদৃত। এক দিকে সরকার বলছে আপনারা নিজেকে সংখ্যালঘু মনে করবেন কেন? অপর দিকে হিন্দু বিদ্বেষী প্রপাকান্ডার বিরুদ্ধে কোন ব্যাবস্থা নেই। সরকারের এই দ্বিচারিতা নিজেদের সম্মতির কথাই স্মরণ করিয়ে দেয়।
অধিকাংশ মানুষ সংখ্যালঘুর সম্পত্তি নিজেদের সম্পত্তি বলে মনে করে। তারা ভাল করে জানে সংখ্যালঘুদের সামাজিক অধিকার থেকে বঞ্চিত রাখতে পারলে, ভয়ভীতি, আত্মসম্মান নিয়ে টান দিলে সেই সম্পত্তি তাদের হয়ে যাবে। নইলে প্রিয়া সাহার বাড়িঘরে আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দেয়ার পরেও কোন বিচার হয়নি। পাকিস্তানিরা বুঝতে পেরেছিল হিন্দুদের সম্পত্তির অধিকার থেকে বঞ্চিত করতে পারলে তাদের অস্তিত্ব বিলোপ করা সহজ হবে। তাই তারা শত্রু সম্পত্তি আইন এনেছিল। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় সেই আইন ভিন্ন নামে আজো বহাল। বাংলাদেশ ঢাকঢোল পিটিয়ে বলে আমাদের দেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। তাহলে অর্পিত সম্পত্তি নামে একটি সাম্প্রদায়িক আইন এখনো বাংলাদেশে বলবৎ রয়েছে কিভাবে?
বাংলাদেশে ধর্মীয় স্বাধীনতা আছে? সংখ্যালঘু বিধর্মী মেয়ে বিয়ে করলে ইসলামি বিধানে অশেষ ছোয়াবের ভাগীদার হওয়া যায়। সে দেশে সংখ্যালঘুরা কেন নিরাপদ মনে করবে?
মালাউন একটি জাতি বিদ্বেষমূলক গালি যা বাংলাদেশের সাম্প্রদায়িক মুসলমান থেকে নেতা মন্ত্রিরাও ব্যাবহার করে থাকে।এই শব্দটি সংখ্যালঘুদের আহত করে।
মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম মূল লক্ষ ছিল অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করা। কিন্ত বর্তমানে বাংলাদেশ সাংবিধানিক ভাবেই একটি সাম্প্রদায়িক দেশ। যেমন ৫ম সংশোধনীর মাধ্যমে সংবিধানের শুরুতে বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম সংযোজন কোন সাম্প্রদায়িক নিদর্শন নয়। ১৯৮৮সনে এরশাদ সরকার ৮ম সংশোধনীর মাধ্যমে সংবিধানে ইসলামকে রাষ্ট্র ধর্ম হিসাবে অন্তর্ভুক্ত করেছে। ধর্মনিরপেক্ষতার সাথে সংখ্যালঘুদের স্বার্থ জড়িত। এসব সংশোধনী এসেছে বিএনপি এবং এরশাদ সরকারের আমলে। কিন্ত আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে ৭২এর সংবিধানের ফিরে যাওয়ার কথা বলা হলেও রাষ্ট্র ধর্ম ইসলাম বহাল। সেখানে সংখ্যালঘুদের স্থান কোথায়।
আসলে যে কারনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার পর শত্রু সম্পত্তি আইন বাতিল করেনি, যে কারনে স্বাধীনতার দুই বছরের মধ্যে শহীদের রক্তের উপর দিয়ে হেটে ওআইসি সম্মেলনে যোগদান করেছিলেন ঠিক একই কারনে বাংলাদেশের সংবিধানে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম।
বাংলাদেশ এখন একটি ধর্ম ভিত্তিক জাতীয়তাবাদী রাষ্ট্র। পূজা-অর্চনা ধর্মীয় অনুষ্ঠান শোভাযাত্রা পুলিশী পাহাড়ায় করতে হয় সংখ্যালঘুদের এইটুকুই স্বাধীনতা। আর প্রতি বছর জন্মাষ্টমীর পর গণভবনে সংখ্যালঘু মোসাহেবি নেতানেতৃদের ডেকে ভাল ভাল কথা বলা হয়। এই হল বাংলাদেশে সংখ্যালঘুদের প্রতি সংখ্যাগুরুদের সম্প্রীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit