ঢাকা

গরুর দাম শহরের চেয়ে গ্রামে কম

admin
September 20, 2015 5:42 pm
Link Copied!

ইব্রাহিম খলিল, বিশেষ প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম : গত বছরের চেয়ে এবার গরুর দাম প্রায় দ্বিগুণ বেশি। ফলে এখনো পর্যন্ত জমে উঠেনি গরু বেচাকেনা। এ নিয়ে কাপালে ভাঁজ পড়েছে গরু বেপারিদের। তবে চট্টগ্রাম জেলায় শহরের তুলনায় গ্রামের হাটবাজারে গরুর দাম কিছুটা কম। এই খবরে গ্রাম-গঞ্জের হাটবাজারে ছুটছে ক্রেতারা।

আবার শহরের গরুর দাম বেশি শুনে গ্রাম-গঞ্জের হাটবাজার থেকে অনেক গরুর বেপারি ট্রাক ও জিপে করে গরু নিয়ে ছুটছে শহরের বাজারগুলোতে। গরু কেনা নিয়ে ছুটাছুটির এ চিত্র কখনো তৈরী হয়নি আগে। এই পরিণতির জন্য ক্রেতা-বিক্রেতাদের অনেকে সংবাদ মাধ্যমের অপপ্রচার আবার সরকারের ওপর ক্ষোভ ঝারছে।

আজ রবিবার সকাল ১১ টায় চট্টগ্রাম শহরের বিবিরহাট থেকে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার গরুর বাজারের দিকে বাসে চড়ে ছুটছে ৮-৯ জনের এক দল কোরবানির গরু ক্রেতা। গরু কেনা নিয়ে ‘রচনা’ বলা যেন তাদের থামছেই না। বরং তাদের সাথে যোগ দিয়েছেন আরও কয়েকজন যাত্রীও।

পাঠ্যপুস্তকে গরুর রচনায় আগে যা ছিল, যেমন: গরুর রং কি রকম, আকারভেদে দাম কত-এই দুই একটা পয়েন্ট ছাড়া বাকী সব ছিল নতুন বিষয়। তম্মধ্যে, ভারত কেন গরু আনতে দিচ্ছে না- এ পয়েন্টে এক ক্রেতা বলেন, বর্তমান সরকার ভারতের প্রতি নতজানু হলে কি হবে। দেশের অধিকাংশ মানুষ তো মুসলমান। ভারতের প্রতি নতজানুর কারনে এই সরকারের প্রতি মুসলমানদের সমর্থনও কম। তাই ভারত গরু আনতে দিচ্ছে না।

আরেক ক্রেতা বলেন, বাংলাদেশের মুসলমানরা না খেলে ভারতের গরুর ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাবে। তাদের আয়ের অন্যতম মাধ্যম এই গরুর ব্যবসা। তাইতো শেষ পর্যন্ত গরু আসছে। আরেক ক্রেতা বলেন, শুরুতে গরু না দেওয়ার খবরে বিক্রেতারা বেশি দামে চোরাই পথে গরু আনছে। ফলে দাম দ্বিগুণ বেড়েছে।

আরেক ক্রেতা বলেন, ভারত গরু না দিলে সমস্যা কোথায়, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিলে, ঝিলে, পাহাড়ে কম গরু লালন-পালন হয় না। কিন্তু সংবাদ মাধ্যমগুলো গরু সংকটের খবর প্রচার করায় দাম দ্বিগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে। অথচ দেশে কোন গরু সংকট নেই।

ক্রেতারা বলেন, চট্টগ্রামের ১৫ উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকায় হাট-বাজারে প্রচুর পাহাড়ি গরু আনা হয়েছে। এসব গরুর দামও কিন্তু বেশি। তবে শহরের বাজারগুলোর চেয়ে কিছুটা কম। অনেকে সেখান থেকে কোরবানির গরু কিনে আনছে।

গরু ক্রেতার দল গরুর আদ্যোপান্ত বলতে বলতে ঠিক ১২টায় রাঙ্গুনিয়া উপজেলার গোডাউন বাজারে গিয়ে বাস থেকে নেমে পড়ে। কৌতুহল বশত তাদের সাথে নেমে পড়েন এই প্রতিবেদকও। শুরু হয় গরু দেখা। একপর্যায়ে চার জন ক্রেতা পটাপট ৪০-৫৫ হাজার টাকার মধ্যে ৪টি গরু কিনেন। তারা স্বীকার করেন শহরের চেয়ে প্রতিটি গরুর দাম ৫ থেকে ৭ হাজার টাকা কমে কেনা হয়েছে।

এ সময় হারুন নামে গোডাউন বাজারের এক গরু বেপারি জানান, শহর থেকে অনেক লোক বাজারে আসছে। তাদের বেশিরভাগই পাহাড়ি গরু কিনেছে। শহরের গরুর দাম বেশি জেনে গতকাল শনিবার বিবিরহাটে তারা চারটি গরু নিয়েছে। সেখানে চড়া দামে দুটি বিক্রী করলেও আরও দুটি নিয়ে বসে আছে তার লোক।

তিনি বলেন, শহরের বাজারগুলোতে গরুর দাম বেশি হওয়ায় গরু তেমন বেচাকেনা হচ্ছে না। ক্রেতারা ছুটছে গ্রাম-গঞ্জের হাট-বাজারে।

সরেজমিনে দেখা যায়, গোডাউন বাজারে প্রায় ১৭-১৮ হাজারের মত গরু আনা হয়েছে। এরমধ্যে ভারতীয় গরুর সংখ্যা ৪০০ থেকে ৫০০ মাত্র। কৃষকের ঘরে লালিত গরুর সংখ্যা এক থেকে দেড় হাজার। বাকী সব গরু তিন পার্বত্য জেলা থেকে আনা। এসব গরুও খুবই হৃষ্টপুষ্ট।

বেপারিরা জানান, পাহাড়ি গরু গুলো লতাপাতা খেয়ে বড় হয়। কোন রকম ওষুধ খাওয়ানো হয় না। এমনকি গাছের লতাপাতা ছাড়া ভুষি, খৈল পর্যন্ত খাই না। একেবারে প্রাকৃতিকভাবে বেড়ে উঠেছে এসব গরু।

এদিকে চট্টগ্রামের সবচেয়ে বড় গরুর বাজার সাগরিকা বাজারের ইজারাদার সাইফুল হুদা জাহাঙ্গীর বলেন, কোরাবানির বাকি আর মাত্র ৫ দিন। দাম বেশি হওয়ায় গরু বেচাকেনা কম। ক্রেতারা হাটে আসলেও গরু না কিনে ফিরে যাচ্ছে। অনেকে গ্রাম-গঞ্জের হাটবাজারগুলোতে গরু কেনার ছুটছে।

তিনি বলেন, বিগত যে কোন বছর এই সময়ে প্রতিদিন দুই-তিন হাজার গরু বেচকেনা হয়েছে। কিন্তু এখন প্রতিদিন গড়ে ২০০ থেকে আড়াইশ গরু বিক্রী হচ্ছে।

বিবিরহাটের গরু বেপারি হাজী শাহ আলম বলেন, ভারত থেকে গরু আসা বন্ধ করে দেওয়ায় বেশি দামে গরু কিনতে হয়েছে বেপারিদের। ফলে বেশি দাম বলায় ক্রেতারা গরু তেমন কিনছে না।

http://www.anandalokfoundation.com/