শনিবার, ০৮ অগাস্ট ২০২০, ০২:৪৯ অপরাহ্ন


জেনে নেই ‘ঋষিকেশ’ সম্পর্কে অজানা তথ্য

ঋষিকেশ সম্পর্কে তথ্য

রাইকিশোরীঃ  প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে সমৃ্দ্ধ গন্তব্যস্থল ঋষিকেশ। মন ও শরীরে এক টু ইন ওয়ান রেসিপির উপলব্ধ করায়। ঋষিকেশ শহরের কেন্দ্রের আরোও উত্তরে, গঙ্গা নদীর তীরে, পর্যটকদের জন্য শান্ত ও নির্মল ঋষিকেশ আচ্ছাদিত রয়েছে। লক্ষণ ঝূলার দক্ষিণে রয়েছে স্বর্গ আশ্রম। একটি চিত্র অনুপম স্থানে আশ্রমটি নির্মিত রয়েছে, যেখানে ঋষি ও ভক্তরা তাদের সিদ্ধিলাভের জন্য যোগসাধনায় চারধারে লিপ্ত থাকেন। মন্দিরটি রোজ সকাল ও সন্ধ্যায় আরতির ঘন্টাধ্বনির অনুষ্ঠানের নিনাদের সঙ্গে প্রতিধ্বনিত হতে থাকে। বাজারগুলি সওদাকারি ঋষি ও সন্ন্যাসীদের ঘর বলে মনে হয় এবং সুবিখ্যাত গঙ্গা আরতি যা একই সঙ্গে নাটকীয় ও ধর্মীয় অনুভূতি বহন করে।

ঋষিকেশ কোথায় অবস্থিত?

হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত উত্তরাখন্ডের এক সুন্দর শহর হল ঋষিকেশ। হিমালয়ের পদভ্রমণ যাত্রীরা তাদের ভ্রমণযাত্রা এখান থেকে শুরু করে। প্রাকৃতিক দৃ্শ্যকল্পের সঙ্গে সংযুক্ত, রিভার র্যাতফটিং, কায়াকিং ও বাঞ্জি জাম্পিং – ঋষিকেশে বিদ্যমান এইসমস্ত উত্তেজনাপূর্ণ মঞ্চসজ্জার সঙ্গে, রোমাঞ্চকর উৎসাহীরা বছরের পর বছর ধরে প্রেমে জড়িয়ে পড়ে, যা এটিকে “ভারতের রোমাঞ্চকর রাজধানী” নামটি প্রদান করেছে।

ঋষিকেশ সম্পর্কে তথ্যাবলী

  • ঋষিকেশ, সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে 1360 ফুট উচ্চতায় অবস্থিত।
  • এটি হিমালয়ের গুরুত্বপূর্ণ ধর্মীয় শহরগুলি, যেমন – বদ্রীনাথ, কেদারনাথ, গঙ্গোত্রী ও যমুনোত্রীর প্রবেশদ্বার
  • ঋষিকেশে সাক্ষরতার হার হল 75 শতাংশ, যা দেশের গড় শতাংশের তুলনায় অনেক বেশি।
  • আপনি এখানে কোনও আমিষ খাবার খুঁজে পাবেন না। যদিও, এখানকার পরিবেশিত নিরামিষ খাবার খুবই মুখরোচক।

ঋষিকেশ পরিদর্শনের সেরা সময়

ঋষিকেশ পরিদর্শনের সেরা সময় হল অক্টোবর থেকে মার্চ শীতের মাসগুলিতে। রোমাঞ্চকর কার্যকলাপ যেমন র্যা ফটিং খোলা থাকে। এখানকার সংযুক্ত আকর্ষণ হিসাবে রয়েছে ফেব্রুয়ারি মাসে অনুষ্ঠেয় আন্তর্জাতিক যোগা উৎসব। মার্চ থেকে জুন মাসও মনোরম, তবে তাপমাত্রা ধীরে ধীরে ওপরের দিকে উঠতে শুরু করে। জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরের বর্ষার মাসগুলি এড়িয়ে যাওয়াই বাঞ্চনীয়। এইসময় র্যামফটিং বন্ধ থাকে।

ঋষিকেশে দর্শনীয় স্থান

  • ত্রিবেণী ঘাট : ত্রিবেণী হল তিনটি পবিত্র নদী গঙ্গা, যমুনা ও সরস্বতীর সঙ্গমস্থল। হাজার হাজার উপাসকেরা এখানে জলের মধ্যে একটি ডুব দিতে রোজ সকালে এবং বিকালে ত্রিবেণী ঘাটে ঝাঁকে ঝাঁকে ভিড় করে। তারা বিশ্বাস করেন যে এতে তাদের পাপ ধুয়ে যাবে। ত্রিবেণী ঘাটে অনুষ্ঠিত প্রতি সন্ধ্যায় গঙ্গা আরতির মহত্ত্ব এখানে দেখা যায়।
  • ভারত মন্দির : আদিগুরু শঙ্করাচার্য্যের দ্বারা নির্মিত এটি দ্বাদশ শতকের এক মন্দির। এই মন্দিরের মধ্যে রাখা বিষ্ণুর মূর্তিটি হল একটি একক কালো রঙের জীবাশ্ম পাথরের দ্বারা উৎকীর্ণ, যা শালগ্রাম নামে অভিহিত।
  • ঋষিকূন্ড : ‘ঋষিকূন্ড’ শব্দটির অনুবাদ হল ‘ঋষির পুষ্কর’। কথিত আছে যে, কুব্জ ঋষির অনুরোধে যমুনা নদীর জল এই পুকুরের মধ্যে প্রবাহিত হয়। এছাড়াও এখানে একটি বিখ্যাত শনি মন্দিরও রয়েছে (মন্দিরটি গ্রহরাজ শনির প্রতি উৎসর্গীকৃত)।
  • লক্ষণ ঝূলা ও রাম ঝূলা : গঙ্গা নদী জুড়ে ব্যাপ্ত 450 ফুট দীর্ঘ সেতু দুটি হল শহরের ল্যান্ডমার্ক। একদিকে একটি সেতু যেমন তেহরি ও পৌরি জেলাকে যুক্ত করেছে, অন্যদিকে অন্যটি শিবানন্দ আশ্রম ও স্বর্গ আশ্রমকে সংযুক্ত করেছে। যদিও লক্ষণ ঝূলার রামায়ণের এক পৌরাণিক উপাখ্যনের সঙ্গে সংযোগ রয়েছে, রাম ঝূলা দুটি বিখ্যাত আশ্রমের সংযোগের জন্য নির্মিত হয়েছিল।
  • গীতা ভবন : এক অন্যতম প্রাচীন মন্দির ভবন, গীতা মন্দির হল হিন্দু ধর্মগ্রন্থের পৌরাণিক সচেতনতায় নিবেদিত একটি মিউজিয়াম বা যাদুঘর। এটিতে 1000-টি কক্ষ আছে যেখানে ভক্তরা বিনামূল্যে থাকতে পারে।
  • নীলকন্ঠ মহাদেব : গঙ্গা জুড়ে পর্বতের চূড়ার উপরে অবস্থিত এটি এমন একটি প্রসিদ্ধ স্থান যেখানে প্রভু শিব বিষ পান করেছিলেন এবং নীলকন্ঠ (নীল কন্ঠ সমন্বিত ব্যাক্তিত্ব) হিসাবে পরিচিতি লাভ করেন।
  • তেরা মনজিল মন্দির : হরিদ্বার বদ্রিনাথ মহাসড়ক থেকে দৃশ্যমান, এই মন্দরটি ঋষিকেশের অবশ্য পরিদর্শনীয় স্থান।
  • কৌড়িওয়ালা : সাদা জলে ভারতের রিভার র‍্যাফটিং রাজধানী হিসাবে বিখ্যাত।
  • লক্ষণ মন্দির : এমন একটি স্থান যেখানে রাম ও লক্ষণ ঋষি কুন্ডে তাঁদের পাপ ধুয়ে ফেলার পর লক্ষণ এখানে ধ্যান করেছিলেন। ঋষি কুন্ড এখানেই অবস্থিত।
  • বশিষ্ঠ গুফা : একসময়ের বিখ্যাত ঋষি বশিষ্ঠের গুহা, ঋষিকেশ থেকে 16 কিলোমিটার দূরে এই স্থানটি, বর্তমানে একটি প্রিয় ক্যাম্পিং (শিবির) স্থল।
  • কূঞ্জপূরী দেবী মন্দির : একটি ছোট্ট পাহাড়ের উপর অবস্থিত এই মন্দিরটি হল বহু হিন্দু দেবদেবীর উৎসর্গীকৃত এক অন্যতম মন্দির, যা ভোরবেলা ও গোধূলি বেলায় এক উজ্জ্বল দীপ্তিশীল শোভা পরিদর্শনের প্রস্তাব দেয়।

ঋষিকেশের আশ্রমগুলি এক ধরনের খ্যাতি অর্জন করেছে। এখানকর বহু আশ্রমগুলি কোনও কষ্টসহিষ্ণু বা শালীনতার অর্থ জ্ঞাপন করে না, এগুলি নিজেরাই এক একটি পর্যটন চুম্বকাকর্ষণ হয়ে উঠেছে। ঋষিকেশের এই প্রকারের বেশ কয়েকটি প্রসিদ্ধ আশ্রমের তালিকা এখানে প্রদান করা হয়েছে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit