বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:১৬ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
শিক্ষার্থীদের জন্য বিদ্যালয়ে পৃথক ও স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নিশ্চিত করা হবে -স্থানীয় সরকার মন্ত্রী   Foreign Minister inaugurates Smart NID Card in Abu Dhabi কালীগঞ্জে লবণ নিয়ে তুলকালাম ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ॥ গুজবের বিরুদ্ধে প্রচার মাইক কালীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের নবনির্বাচিত সভাপতি সম্পাদকের সাথে নেতাকর্মীদের মতবিনিময় পল্লী চেতনা আপেল প্রকল্পের জেন্ডার সমতা ও সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক প্রশিক্ষণ লম্বা লাইনে উচ্চ মূল্যে লবণ ক্রয় করায় বাজারের লবণ ফুরাতে বসেছে ময়না দেবনাথের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন ও জড়িতদের শাস্তির দাবিতে মানব বন্ধন জবে লবনের দাম বৃদ্ধি উলিপুরে দলবেঁধে লবন কিনতে বাজারে ক্রেতার ভীড় ফুলবাড়ীতে ইউ পি চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রতিবন্ধী নারী নির্যাতিত বাশাইলে হেমন্তকালীন কবিতা সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত

হিন্দু শাস্ত্রে মুখাগ্নি কি, কেন করা হয়?

মুখাগ্নি

পৌরাণিক হিন্দুধর্মে শ্রাদ্ধ বিধি ও তার যৌক্তিকতাঃ মৃতদেহের সৎকারের সময় মুখাগ্নির বিধান আছে। আবার এই মুখাগ্নির অধিকারী কে কে হবেন তার একটা বিরাট তালিকাও ‘পুরোহিত দর্পনে’ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এই মুখাগ্নি কেন? যে পিতা মাতা সন্তানকে ভূমিষ্ট হবার পর থেকে কত স্নেহ-যত্ন করে বড় করে তুলেছেন, আদর করে যে মুখের দ্বারা সন্তানকে বার বার চুম্বন করেছেন, যে মুখের দ্বারা সন্তানকে প্রথম কথা বলতে শিখিয়েছেন, তাকে সৎপথের নির্দেশনা দিয়েছেন সেই একান্ত প্রিয়জনের মুখ চরম শত্রুর মত বীভৎস ভাবে আগুন দিয়ে প্রথমে পোড়াতে হবে। এটা শুধু বীভৎসতাই নয় পৈচাশিকতা, বর্বরতা। হ্যা, শ্রাদ্ধের অধিকারী হিসেবে পুত্র বা কন্যা চিতায় মুখ্য অগ্নি বা প্রথম অগ্নি সংযোগ করতে পারেন কিন্তু কোন অবস্থায় তা মৃতের মুখে করা উচিত নয়।

আবার শব দাহ ব্যাপারে বিশিষ্ট ধর্মতত্ত্ববিদ ও শিক্ষাবিদ অধ্যাপক শ্রী অর্ধেন্দু বিকাশ রূদ্র লিখেছেন,-

“যে দিন শবদাহ হয় সে দিন শবের বাড়ীতে ঘরে ঘরে ঝাঁটা, ঝাড়ু ইত্যাদি দিয়ে ‘বের হ’  ‘বের হ’ ইত্যাদি কটু বাক্য প্রয়োগ করে ঝাড়ু দেয়া হয়। তার কারণ এই যে, প্রয়াত ব্যক্তি মায়া মোহের আকর্ষণে বাড়ীতেই থাকে এবং ঘরে ঢুকতে চায়। তার প্রতি সেদিন এমন ভাব দেখানো হয় যেন তাকে সবাই অপমান করছে। ফলে প্রয়াত ব্যক্তির মায়া মোহ ত্যাগ সহজ হয়”। ( অন্তেষ্টি তত্ত্ব, পৃ-৩৩ )

পূর্বের আলোচনায় আমরা দেখেছি, বিদেহী মনে সুখ বা দুঃখের কোন অনুভূতি নেই, কেননা তার স্নায়ুকোষ-স্নায়ুতন্তু  না থাকায় সে কোন বৃত্তিকেই ব্যক্ত করতে পারে না।তাই ‘প্রয়াত ব্যক্তি মায়া মোহের আকর্ষণে বাড়ীতেই থাকে এবং ঘরে ঢুকতে চায়’ এই কথার পেছনে কোন যুক্তি নেই। এটা একটা অন্ধবিশ্বাস, কুসংস্কার মাত্র। আর এই অন্ধবিশ্বাস ও কুসংস্কারের বশেই মানুষ মৃতের মুখে আগুন দেয়, তাকে ঝাঁটা মেরে বাড়ী থেকে বের করতে চায়। আবার এই সকল শ্রাদ্ধতত্ত্বের স্ববিরোধী নয় কি? একদিকে মৃতের মুখে আগুন দিয়ে, ঝাঁটা মেরে তাকে বাড়ী থেকে বের করা হচ্ছে  অন্যদিকে শ্রাদ্ধের নামে বিদেহীকে অন্ন, জল, পিণ্ড, নিত্যব্যবহার্য জিনিসপত্র দেওয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 News Time Media Ltd.
IT & Technical Support: BiswaJit