সোমবার, ১০ মে ২০২১, ০৫:৩৫ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
রাজশাহীতে প্রধানমন্ত্রীর উপহার পেলেন ১০০ জন অসহায় নারী দুই সচিবের বদলি ও দুইজন নতুন সচিবের পদোন্নতি খালেদা জিয়াকে বিদেশে নেয়ার আবেদন রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত -ড. হাছান খুলনা বিভাগে অসহায় মানুষের মাঝে সরকারি ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত বরিশাল বিভাগে করোনাকালীন সরকারি মানবিক সহায়তা কার্যক্রম অব্যাহত বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল বোরো সংগ্রহে ধান-চাল ক্রয়ে ধানকে অগ্রাধিকার দিতে হবে -খাদ্যমন্ত্রী শার্শায় ঈদের দিনে ধনী গরিব সকলে একই রকম খাবার খাবে -শেখ আফিল উদ্দিন এমপি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘কোভিড-১৯ আপডেট’ বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত পরমাণু বিজ্ঞানী ড. ওয়াজেদ মিয়া ছিলেন নির্লোভ, নিরহংকার ও প্রচার বিমুখ মানুষ -আইসিটি প্রতিমন্ত্রী

পশ্চিমবঙ্গে ২৯২টি আসনে ভোট পুনর্গননার দাবি

https://thenewse.com/wp-content/uploads/Indian-elections-21.jpg

মমতা ব্যানার্জীকে অভিনন্দন। তাঁর দল টিএমসি বিজয়ী। আরো আনন্দের যে, নির্বাচনে জয়ী হবার সাথে সাথে তাঁর ভাঙ্গা পা ভালো হয়ে গেছে। মুখ্যমন্ত্রীর ‘ভাঙ্গা-পা’ নাটক ভোটার পছন্দ করেছেন, তাঁকে ভোট দিয়েছেন এবং নিজেদের কোমড় ভেঙ্গেছেন। ভারত প্রজাতন্ত্রে পশ্চিমবঙ্গ অন্যতম দরিদ্র রাজ্য। শিল্প নাই, চাকুরী নাই। আপাতত: আরো পাঁচ বছর এ অবস্থা চলবে। বিজেপি-কে অভিনন্দন, ৩ থেকে একলাফে ৮২টি আসন মন্দ নয়! তৃণমূল ২৫০ থেকে কমে ২০৫? মমতা হেরেছেন। শুভেন্দু অধিকারী কথা রেখেছেন। মমতা ব্যানার্জীর পরাজয় ইঙ্গিত দেয় টিএমসি-কে হারানো সম্ভব। বিধানসভায় ভূমিকা রেখে ভবিষ্যতে হয়তো বিজেপি জনগণের কাছে পৌঁছতে পারবেন।

মুখ্যমন্ত্রী নন্দীগ্রামে ভোট পুন্:গণনার দাবি জানিয়েছেন। ৫টি আসনে পুন্:গণনায় বিজেপি’র আসন বেড়েছে। বিজেপি কর্মীরা #আমরাপুনর্গননাচাই দাবি তুলছেন। ২৯২টি আসনে পুনর্গননা হলে ক্ষতি কি? বিজেপি প্রার্থীরা প্রায় ৯২টি আসনে খুব কম সংখ্যক ভোটে হেরেছেন। আমেরিকায় নিয়ম আছে, ভোটের ব্যবধান সামান্য হলে অটোমেটিক পুন্:গণনা হয়। বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রে এমন কোন নিয়ম নেই? দিদি নন্দীগ্রামের ফলাফল মানতে চাইছেন না, বিজেপি যদি পুরো নির্বাচনের ফলাফল না মানে? স্বাধীনতার পর এই প্রথম পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় কংগ্রেস ও বাম-দের কেউ থাকবেন না! তবে তাদের জোটের ‘সেক্যুলার!’ পীরজাদা আব্বাসের ভাই থাকবেন।

পশ্চিমবাংলার জনগণ এবার একটি ঐতিহাসিক ভুল করেছেন, এর খেসারত দিতে হবে। ডিজে খান নামে একজন লিখেছেন, “আমরা মুসলমানরা দেখিয়ে দিলাম আমাদের শক্তি কত, পশ্চিমবাংলায় ইসলামী শাসন আসছে, ইনশাল্লাহ”। ৩০% ঐক্যবদ্ধ মুসলিম ভোট ৭০% বহুধা বিভক্ত হিন্দু ভোটকে সর্বদা পরাজিত করতে সক্ষম। এই নির্বাচন প্রমান করেছে, ‘মাইনরিটি ভোট ম্যাটারস’। ১৯৪৭ সালে মুসলমানরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিভক্ত হিন্দুদের থেকে পাকিস্তান ছিনিয়ে নিয়েছিলো, এতদিন পরে তাঁরা আবার বুঝিয়ে দিলো প্রয়োজনে দল-মতের ঊর্ধে উঠে তাঁরা ঐক্যবদ্ধভাবে ৭০%-কে ঠেকিয়ে দিতে সক্ষম। এই সংখ্যাটি ৪০-৫০% হলে ‘মজাটা’ টের পাবেন। আত্মঘাতী বাঙ্গালী নিজের ভালোটা পর্যন্ত বুঝে না?

মিডিয়ায় এসেছে, মমতার বিজয়ে স্বস্তি ও উল্লাস বাংলাদেশে। শুধু বাংলাদেশ কেন, মমতার বিজয়ে বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তানের ইসলামী মৌলবাদী শক্তি উল্লসিত। চীন খুশি। মোদী হারেননি, হেরেছে ‘বাঙ্গালী হিন্দু’। ৫ রুপিতে ডাল-ভাত, কন্যাশ্রী, সাইকেলশ্রী’র ভিক্ষার কাছে বাঙ্গালী মাথা নিচু করে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বিপদের মুখে ঠেলে দিয়েছেন। মিডিয়া জানাচ্ছে, মমতার ‘দুধেল গাই’রা’ বাংলাদেশ ষ্টাইলে হিন্দুদের ওপর আক্রমণ চালাচ্ছে। আপনি ভাবছেন, ওঁরা বিজেপি কর্মীদের মারছে তাতে আপনার কি? সময় এলে ওঁরা আপনি বা মমতা ব্যানার্জিকে ছুড়ে ফেলতে একটুও দ্বিধা করবে না? সেই পর্যন্ত ভালো থাকুন!!

বাঁদরের হাতে লোডেড রিভলভার ধরিয়ে দিলে কী হয়? উত্তরের জন্য কোনও পুরস্কার নেই। কিন্তু যে ব্যক্তি এই মহান কর্মটি করে, তার মানসিক সুস্থতা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে বাধ্য। নিশ্চিতভাবে তার মাথার ব্যামো আছে। আমাদের আর্থ-সামাজিক কাঠামোটাও কতকটা তেমন। যার নিত্যদিন, দু’বেলা নুন আনতে পান্তা ফুরোয়, তার হাতে আচমকা ব্যাগভর্তি টাকা ধরিয়ে দিলে তার হাল ওই বাঁদরের হাতে ধরা রিভলভারের মতো হয়। সে ভেবে কূল পায় না… কোথায়, কীভাবে টাকাটা খরচ করবে।
পাশের বাড়ি থেকে যারা নিত্যদিন খাবার চেয়ে আনত, তাদের ঘরেই মোচ্ছব লেগে যায়। দামি জামাকাপড়, সানগ্লাস, মদের ফোয়ারা… তারা ভাবে না, এই টাকাটা সে পেয়েছে ‘পরিস্থিতির সৌজন্যে’। কী হবে, যদি আজ বাদে কাল টাকার উৎসটাই বন্ধ হয়ে যায়? বাংলায় এমনই একটা সংস্কৃতি গত কয়েক মাসে আমদানি করেছে গেরুয়া শিবির। ‘পরিবর্তন’ এনেছে। সমাজের নিচুতলার একটা অংশের হাতে আচমকাই ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে এককাঁড়ি করে টাকা। রাজনৈতিক দলটির বিশ্লেষণ ছিল, অযোগ্য এবং অপ্রাপ্তির শিকার… দুয়ের এই ভয়ানক মিশেলধারী সমাজের অংশটিকে ধরতে পারলে এরাই ভোটের সময় কাজে আসবে। এদের ভোট নিশ্চিত তো হবেই, পাশাপাশি বাড়তি ইনকামের রাস্তা খুলে যাওয়ার লোভে দাদাগিরিটাও এরা করবে পুরোদস্তুর। রাজ্যের আনাচে কানাচে এই প্রবণতা গত কয়েক মাসে ছাইচাপা আগুনের মতো ছড়িয়ে গিয়েছে। এরা বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে, আর দাবি করছে, ‘সামলে চলো… আমরা বিজেপি।’
নির্বাচনের ফল প্রকাশের দিন দুয়েক আগের ঘটনা। জমির মাপজোক চলছিল। ঘটনাস্থল, উত্তর ২৪ পরগনার একটি এলাকা। পাঁচ-ছ’জন ছেলে এল এবং সরাসরি দাবি করল, ‘কাজ বন্ধ কর। ২ তারিখ রেজাল্টের পর আমরা ক্ষমতায় আসব। তারপর বলে দেব, কীভাবে কী করতে হবে। আর কোথায় কত দিতে হবে।…’ নিচুতলার দাদাগিরি বাম জমানায় ছিল, তৃণমূল জমানাতেও আছে। কিন্তু সেটা এমন ত্রাসের পর্যায়ে পৌঁছয়নি। যা বিজেপি এই কয়েকদিনে সমাজের নিচুতলায় ছড়িয়ে দিয়েছে। কারণ? বাংলা দখলের দিবাস্বপ্ন।
‘দিবাস্বপ্ন’ শব্দটা এখানে বুঝেশুনেই ব্যবহৃত। বাংলায় প্রতিষ্ঠানবিরোধী হাওয়া এমনও ছিল না যে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে উপড়ে ফেলতে হবে। সাধারণ মানুষ সেটা বোঝে, আর এত বড় জাতীয় পার্টি হয়েও বিজেপি বোঝে না? হতে পারে না। তাই তাদের লক্ষ্য ছিল একটাই—হাওয়া আরও জোরদার করতে হবে। কারা সেই কাজ করবে? সেই ‘না পাওয়া’রা। সম্পূর্ণ একটা অপপ্রচারকে বাস্তবের রূপ দিতে এই অংশটিকে ব্যবহার করেছে গেরুয়াতন্ত্র। ভেসে যাওয়া সেই মানুষগুলো দাদাগিরি করেছে, গলা ফাটিয়েছে দলের নামে… মনে হয়েছে, সত্যিই তাহলে আছে ‘বিজেপি হাওয়া’। আসলে, রাজনীতির মহাযুদ্ধে প্রত্যেকটা দলেরই কোনও না কোনও স্ট্র্যাটেজি থাকে।
প্রতিশ্রুতি বা নির্বাচনী ইস্তাহার তার প্রাথমিক পদক্ষেপ মাত্র। তারপর এলাকার চরিত্র, সেখানকার মানুষ, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি, সম্প্রদায়… এই সবই গোটা স্ট্র্যাটেজির অন্তর্ভুক্ত। ভোটের আগে টাকা দেওয়া বা মাংস খাওয়ানোটাও এই ‘কর্মসূচি’র মধ্যে পড়ে। কংগ্রেস, বাম বা তৃণমূল… কৌশল ঘোরাফেরা করে এই এক আবর্তে। তার কারণ, রাজনৈতিক দল কখনও সমাজকে, বা তার কাঠামোকে অস্বীকার করতে পারে না… যা বিজেপি বাংলায় করেছে। শুধুমাত্র ক্ষমতা দখলের লোভে ঘুণ ধরিয়েছে সমাজে। ধর্মীয় মেরুকরণ তো তাদের এজেন্ডা! উত্তরপ্রদেশ, বিহার, বা রাজস্থান… সর্বত্র এই একই অঙ্কে তারা দিনের পর দিন ভোটের ময়দানে ঘুঁটি সাজিয়েছে। সফল বলতেই হবে… না হলে এতগুলো রাজ্যে তারা ক্ষমতায় থাকতে পারত না। কিন্তু গেরুয়া শিবির হয়তো বুঝেছিল, বাংলায় শুধু এই মেরুকরণের রাজনীতি চলবে না। তাই টাকার খেলা… লোভ। যার পাঁচ হাজার উপার্জন করতে মাথার ঘাম পায়ে ফেলতে হয়, তাকেই মাসে মাসে ৫০ হাজার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি। আরও লাগলে? ব্যবস্থা হয়ে যাবে। ফলটা খুব সুখকর হয়নি। হচ্ছেও না।
আঙুল ফুলে আচমকা যারা কলাগাছ হয়েছিল, তাদের অন্তরে বাসা বেঁধেছিল এক অদ্ভুত মোহ… সরকারে এলে আরও কত কী না আসবে! কিন্তু না এলে? এরা বানিয়া পার্টি। পাই পাইয়ের হিসেব বুঝে নেবে। কাজ না হলে টাকার আমদানিও বন্ধ। এবার কিন্তু সেটাই হতে চলেছে। যারা এই কয়েক মাস বিজেপির কথায় নেচেছিল, তারা আজ পুনর্মুষিকোভব। অথচ লাইফ স্টাইলটা পৌঁছে গিয়েছে অন্য উচ্চতায়। এখন কিন্তু ফিরে যাওয়া অসম্ভবের শামিল। যারা ওই লোভের কলে পা বাড়ায়নি, বরং তারা আজ অনেকটা স্বস্তিতে। আর যারা টোপটা গিলেছিল, তাদের ব্যবহার করে ছুড়ে ফেলে দিচ্ছে বিজেপি। বাংলায় আজ প্রমাণিত—বিজেপি হাওয়া বলে কিছু নেই। ছিল না। তাহলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ২১৩টি আসন নিয়ে ক্ষমতায় ফিরতে পারতেন না। আপনারা এই বাস্তবটা জানতেন। তা সত্ত্বেও একটা শেষ চেষ্টা চালিয়েছিলেন। একের পর এক রাজ্যে পুর ও পঞ্চায়েত নির্বাচনে হার, গো-বলয়ের বাইরের রাজ্য থেকে নিশ্চিহ্ন হয়ে যাওয়া, কেন্দ্রীয় সরকারি নীতির ভরাডুবি… উপায় ছিল না নরেন্দ্র মোদির কাছে। অটলবিহারী বাজপেয়ির জমানায় যে বিজেপিকে ভারত দেখেছিল, তার ছিঁটেফোঁটাও এখন আর অবশিষ্ট নেই। সবটাই এখন প্যাকেজ। কীভাবে মার্কেটিং করতে হয়, মোদিজি সেটা খুব ভালো জানেন। তাই বারংবার ভ্রান্ত নীতি ও অপরিণামদর্শী পদক্ষেপ সত্ত্বেও দেশবাসী আপনার কাছে প্রত্যাশী।
একবার, দু’বার, তিনবার… আমরা আশাহত হয়েছি। কিন্তু তারপরও ভেবেছিল, মোদিজি এবার আচ্ছে দিন আনবেন। কিন্তু ভোট রাজনীতির নামে মেরুকরণ, ঘৃণা ছড়ানো এবং সমাজের একটা অংশকে ইচ্ছেমতো ব্যবহার ছাড়া কী পেয়েছি আমরা? আপনি ভেবেছিলেন, বাংলা জয় করতে পারলে আরও একবার আপনার হাতে এসে যাবে সেই জাদুদণ্ড… আরও একবার মোহাবিষ্ট হবে মানুষ। ফের স্বপ্ন দেখবে ‘আচ্ছে দিনে’র। নাঃ, তা হয়নি। বাংলা বুঝেছে, এর সবটাই ভাঁওতা। ভোটযন্ত্র তারই প্রমাণবাহী। আর দুঃখজনক বিষয় হল, আপনি তো এবার দাবিও করতে পারবেন না যে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভোটে রিগিং করেছেন! এক লক্ষাধিক কেন্দ্রীয় বাহিনী, কোভিডের মধ্যেও আট দফার ভোট, এবং ‘জো হুজুর’ কমিশন… আহা, তারপরও মানুষের মন পেলেন না! একটু আগে যদি বুঝতেন, এখানে গেরুয়া হাওয়া বলতে কিছুই নেই, তাহলে বাংলা একটু স্বস্তি পেত।
লোকে বলবে, হাওয়া যদি নাই থাকে, তাহলে বিজেপি মাত্র তিনটি আসন থেকে ৭৭টিতে পৌঁছল কীভাবে? তাঁরা ভুলে যাচ্ছেন, ক্ষমতার অলিন্দে শাসক থাকলে বিরোধীও থাকবে। ১০ বছর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ক্ষমতায় আছেন। এই পর্বে বিরোধী বলতে কারা ছিল?—মূলত বাম এবং কংগ্রেস। একুশের ফলের পর পরিষদীয় রাজনীতি থেকে তারা নিশ্চিহ্ন। বিরোধী বলে এখন রাজ্যে একটিই দল—বিজেপি। অর্থাৎ, বিরোধী হিসেবে বাংলার মানুষ বাম এবং কংগ্রেসের অপদার্থতা আর মেনে নিতে পারেনি। তাই তাদের ভোটব্যাঙ্কের সিংহভাগই সরে গিয়েছে গেরুয়া শিবিরে। অর্থাৎ, এতদিন যাহা ছিল সিপিএম-কংগ্রেস, এখন তাহাই বিজেপি হয়েছে। এই ফল সিপিএম এবং কংগ্রেসের কাছে লজ্জার। কিন্তু বিজেপির কাছেও গর্বের নয়! বাংলার মানুষ বিজেপিকে শাসক হিসেবে দেখতে চায়নি। এটাই সারসত্য। বিরোধী আসনে বসে আগে নিজেদের কর্মদক্ষতার প্রমাণ দিতে হবে। তারপর বাংলা ভেবে দেখবে, আপনাদের শাসকের আসনে বসানো যায় কি না। আর হ্যাঁ, এখন শোনা যাচ্ছে, বিজেপির প্রায় ২৫-৩০ জন বিধায়ক এবং জনাচারেক এমপি নাকি তৃণমূলে আসতে আগ্রহী? সেইমতো তাঁরা তৃণমূলের শীর্ষস্তরে তদ্বির পর্যন্ত শুরু করে দিয়েছেন? তাহলে তো এবার দলবদলের উল্টো হাওয়া বইবে! মোদি ঝড় যে শেষ!
নিউইয়র্ক থেকে শিতাংশু গুহ।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
891011121314
15161718192021
22232425262728
293031    
       
  12345
2728     
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২১ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit