সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০৬:১১ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
জাতীয় বীমা দিবসে প্রধানমন্ত্রীর বাণী জাতীয় বীমা দিবসে রাষ্ট্রপতির বাণী ডিজিটাল বাংলাদেশ মানে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের -ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী     ধামইরহাটে পৌরসভার ১ম অধিবেশন,প্যানেল মেয়র হলেন মুক্তাদিরুল হক ও মেহেদী হাসান প্রকাশ্যে টিকা নিন, জনগণকে বিভ্রান্ত করবেন না -তথ্যমন্ত্রী ইন্ডাস্ট্রি ও একাডেমিয়ার মধ্যে সেতুবন্ধন রচনার মাধ্যমে নতুন নতুন উদ্ভাবন সম্ভব -আইসিটি প্রতিমন্ত্রী পলক সিংচাপইড় ইউনিয়নকে আধুনিক ও মডেল ইউনিয়ন গড়তে চান রাসেল মিয়া প্রকল্পের অর্থ দেশের উন্নয়নে ব্যয় করতে হবে -পরিবেশ মন্ত্রী করোনা মোকাবিলায় বাংলাদেশ বিশ্বে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে -সমাজকল্যাণমন্ত্রী ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কুইজ’ প্রতিযোগিতা গতকালের বিজয়ীদের তালিকা

বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার প্রথম প্রস্তাবকারী ভাষাসৈনিক ধীরেন্দ্রনাথ দত্তসহ সকল শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা দ্যা নিউজের

https://thenewse.com/wp-content/uploads/Dhirendra-Nath-Dutta.jpg
রাষ্ট্রভাষা করার প্রথম প্রস্তাবকারী ভাষাসৈনিক ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত

আমাদের জাতীয় ঐতিহ্যের মহান মননের প্রতীক হচ্ছে একুশের চেতনা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনা যেখানে মিশে আছে ১৯৫২ এবং ১৯৭১ এর ইতিহাস আর ঐতিহ্য। আমাদের জাতি সত্ত্বার শ্রেষ্ঠতম পরিচয় বহন করে একুশের ভাষা আন্দোলন – যেখানে  মাতৃভাষা ‘বাংলা’ রক্ষার্থে নিজেদের বুকের তাজা রক্ত বিসর্জন দিতে কুন্ঠাবোধ করেনি বাংলার দামাল সন্তানেরা। এই প্রকার ইতিহাস সারা পৃথিবীতে বিরল এক দৃষ্টান্ত।

পাকিস্তান গণপরিষদে বাংলাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার প্রথম প্রস্তাবকারী ভাষাসৈনিক শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত। তিনিই একমাত্র ব্যক্তি যিনি প্রথম মায়ের ভাষাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে তুলে ধরেছিলেন।

এই রক্ত ঝরা ভাষা আন্দোলনের যিনি প্রথম বীজ বপন করেছেন তিনি হচ্ছেন ভাষা সৈনিক এবং শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা ‘ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত’। ভাষা সৈনিক ও শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধা ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ১৮৮৬ সালের ২ নভেম্বর বৃহত্তর কুমিল্লা জেলার (তদানীন্তন ত্রিপুরা) ব্রাহ্মণবাড়িয়া মহকুমার রামরাইল গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন, তাঁর বাবার নাম জগৎবন্ধু দত্ত। তাঁর বাবা ছিলেন সরকারি কর্মচারী, তিনি কসবা ও নবীনগর মুন্সেফ আদালতের সেরেস্তাদার হিসাবে তাঁর দীর্ঘ চাকুরী জীবনে অনেক সুনাম অর্জন করেছেন। ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত পড়াশোনা করেছেন নবীনগর হাই স্কুল, কুমিল্লা কলেজ এবং কলকাতার  কলেজে। তিনি ১৯০৪ সালে নবীনগর হাই স্কুল থেকে  প্রবেশিকা পাশ করে  কুমিল্লা কলেজ এ  ভর্তি হন এবং ১৯০৬ সালে সেখান থেকে  এফ.এ. ও ১৯০৮ সালে কলকাতা রিপন কলেজ  থেকে বি.এ পাশ করেছেন। একই কলেজ থেকে ১৯১০ সালে বি.এল পরীক্ষায় উর্ত্তীণ হন।
 
১৯০৬ সালে ছাত্রজীবনে ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের বয়স যখন মাত্র ২১ বছর তখন কুমিল্লা মহকুমার মুরাদনগর থানার পূর্বধইর গ্রামের আইনজীবী কৃষ্ণকমল দাসমুন্সীর ১৪ বছরের কিশোরী কন্যা সুরবালা দাসকে বিয়ে করেন। ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ১৯১০ সালে আইন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে কর্মজীবনে প্রবেশ করেন, প্রথমে কিছুদিন শিক্ষকতা করেন তৎপর শুরু হয় তাঁর রাজনৈতিক জীবন।
 
দেশ ভাগের ইতিহাসে ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট নবগঠিত পাকিস্তান রাষ্ট্রের সংবিধান প্রণয়নে গঠিত হয় ‘পাকিস্তান গণপরিষদ’। ভাষা ব্যবহারের প্রশ্নে  সংবিধানে কোন ভাষা ব্যবহার হবে- গণপরিষদের অধিবেশনে এ প্রশ্ন তোলা হলে প্রথম বাংলাভাষার দাবি উত্থাপন করেছিলেন ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত। সেদিনই তিনি তৎকালিন পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসাবে বাংলা ভাষার দাবী আনুষ্ঠানিক ভাবে উত্থাপন করেন। ১৯৪৮ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের ২৩ তারিখে পাকিস্তান এর করাচীতে অনুষ্ঠিত  গণপরিষদের প্রথম সভায় ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত মূল প্রস্তাবের ২৯ নং বিধির ১ নং উপ-বিধিতে উর্দু ও ইংরেজির পাশাপাশি ‘বাংলা’ শব্দটি যুক্ত করার দাবি জানিয়ে সংশোধনী প্রস্তাবটি দাখিল করেন যেখানে মূল প্রস্তাবে উত্থাপিত হয়েছিল – উর্দুর সঙ্গে ইংরেজিও পাকিস্তান গণপরিষদের সরকারি ভাষা হিসেবে বিবেচিত হবে।
 
তাঁর যুক্তি  উত্থাপনের এর সুনির্দিষ্ট কারণ তিনি উপস্থাপন করেন এই ভাবে – পাকিস্তানের ৫টি প্রদেশের ৬ কোটি ৯০ লাখ মানুষের মধ্যে প্রায় সাড়ে ৪ কোটি মানুষই বাংলা ভাষাভাষী। সুতরাং বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর ভাষা বাংলাকেই প্রাধান্য দিতে হবে সবার আগে। তাই তিনি গণপরিষদে উর্দু ও ইংরেজীর পাশাপাশি বাংলা ভাষাকেও রাষ্ট্রভাষা হিসেবে অন্তর্ভূক্তির সাহসী দাবি তোলেন। তৎকালীন পূর্ববাংলা থেকে নির্বাচিত অনেক সদস্যই বাংলা ভাষার বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছিলেন, ফলে ১১মার্চ পাকিস্তান গণপরিষদে রাষ্ট্রভাষা উর্দু বিল পাশ হয়ে যায়। ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত করাচীর অধিবেশন থেকে ঢাকায় ফিরে এলে বিমান বন্দরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ ছাত্ররা তাকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানিয়ে বিপুল সংবর্ধনা দেন এবং মূলতঃ সেই মুহূর্ত থেকেই ভাষা আন্দোলনের সূত্রপাত।
 
অনেক ঘটনা অঘটনের পর অবশেষে ১৯৫০ সালে গণপরিষদে আরবি হরফে বাংলা লেখার প্রস্তাব উত্থাপিত হলে ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত তীব্র  প্রতিবাদে ফেটে পড়েন। তখন থেকে বাংলার দামাল ছেলেরা বিশেষ করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা মাতৃ ভাষার রক্ষার জন্য মানসিক ভাবে তৈরী হতে থাকে। ১৯৫২ সালের ফেব্রুয়ারি মাস -ভাষার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং তার আশেপাশে ছাত্ররা  জমায়েত হতে থাকে, তখন তৎকালীন নরপশু পাকিস্তানি সরকার গণহারে আন্দোনকারী ছাত্রদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং  চূড়ান্ত পর্যায়ে  ২১ ফেব্রুয়ারিতে ভাষা সৈনিক রফিক, জব্বার, সালাম সহ অগণিত আন্দোলনকারীর তাজা রক্তে ঢাকার রাজপথ রঞ্জিত হয়ে যায়।  মাতৃভাষা বাংলার দাবিতে আন্দোলনকারীদের গণহারে হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে ২২ ফেব্রুয়ারী ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত গণপরিষদের অধিবেশন বয়কট করেন।
 
কুমিল্লা কেন্দ্রিক আন্দোলন সংগ্রামের যেকোনো আলোচনায় সবার প্রথমে কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসে ভাষা আন্দোলনের এই প্রাণ পুরুষ ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের নাম। আমৃত্যু তিনি দেশ মাতৃকার জন্য কাজ করে গেছেন, মাতৃভাষা আর দেশাত্মবোধই ছিল তাঁর একমাত্র ধ্যানজ্ঞান। মুক্তি যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে অর্থাৎ ১৯৭১ সালের ২৯ মার্চ রাতে  আমাদের মহান ভাষা আন্দোলনের মহানায়ক ধীরেন্দ্র নাথ দত্তকে তাঁর একছেলে সহ কুমিল্লার নিজ বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে গিয়ে পাকহানাদার বাহিনী তাদের ক্যাম্প এ আটক করে এবং পাকহানাদারদের হাতে শহীদ হন বাংলা ভাষার এই প্রাণপুরুষ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত।
 
বলতে গেলে পাকিস্তান গণপরিষদে বাংলা ভাষার দাবী উত্থাপনের সময় থেকে ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের সকল কর্মসূচীতে সক্রিয় পরিকল্পনা এবং রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবীতে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন সমাবেশ, মিছিল, গণসংযোগ রূপরেখা প্রণয়ন ইত্যাদিতে সকলের সাথে ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত বিশেষ ভূমিকা পালন করেন। তিনি শুধু একলা নন তাঁর পারিবারিক পরম্পরায় সকলে বাংলা ভাষার মর্যাদা রক্ষক ও দেশ প্রেমিক – মনে প্রাণে বাঙালিত্ব তাঁদের পরিবারের রক্তে মিশে আছে। নারী জাগরণ, নারী শিক্ষা, নারী অধিকার ও আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে সমাজকর্মী এবং পাকিস্তান গণপরিষদে প্রথম বাংলা ভাষার রাষ্ট্রীয় মর্যাদার দাবি তুলে ধরা ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের নাতনি অ্যারোমা দত্ত ২০১৬ বেগম রোকেয়া পদকে ভূষিত হয়েছেন।
 
ভাষা আন্দোলনে আমরা পাঁচজন শহীদের নাম বেশি বেশি শুনতে পাই: সালাম, বরকত, রফিক, জব্বার ও শফিউর। এঁদের মধ্যে বরকত ও জব্বার ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র। রফিক ছিলেন বাদামতলী কমার্শিয়াল প্রেসের মালিকের ছেলে। এঁরা তিনজন নিহত হন ২১ তারিখে। পরদিন ২২ ফেব্রুয়ারি পুলিশের গুলিতে মারা যান রিকশাচালক সালাম এবং হাইকোর্টের কর্মচারী শফিউর।
জানা যায়, ১৯৫২ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি ভিক্টোরিয়া পার্কের (বর্তমান বাহাদুর শাহ পার্ক) আশপাশে, নবাবপুর রোড ও বংশাল রোডে গুলিতে কতজন মারা গেছেন, তার সঠিক সংখ্যা কারও জানা নেই।
মহান ‘শহিদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২১’ উপলক্ষ্যে পরম শ্রদ্ধেয় ভাষা সৈনিক ও আমাদের আত্ম অহংকারী মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ‘ধীরেন্দ্রনাথ দত্তসহ সকল বীর শহিদদের’ জ্ঞাপন করি আমাদের বিনম্র শ্রদ্ধা ও অপরিসীম কৃতজ্ঞতা।
সন্তোষ চন্দ্র নাথ
SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
  12345
2728     
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit