শুক্রবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২০, ০৪:৩৭ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
রাষ্ট্রপতির নিকট বাংলাদেশে নবনিযুক্ত  মালয়েশিয়া ও শ্রীলংকার হাইকমিশনার এবং মিশরের রাষ্ট্রদূতের পরিচয়পত্র পেশ সরকারের বাস্তবসম্মত কৌশলে করোনার দ্বিতীয় ঢেউও মোকাবিলা করা সম্ভব বাঘারপাড়া উপ-নির্বাচন নিয়ে পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন বস্ত্রশিল্প প্রতিষ্ঠানকে ২৪-৭২ ঘন্টায় ‘পোষক কর্তৃপক্ষ’ সেবা প্রদান করবে বস্ত্র অধিদপ্তর পঞ্চগড় চিনিকল রক্ষার দাবিতে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ বিজয় দিবস উপলক্ষে গাবতলী থেকে জাতীয় স্মৃতিসৌধ পর্যন্ত সড়কে পোস্টার-ব্যানার-ফেস্টুন ব্যবহার বিষয়ক নির্দেশনা ১৩ থেকে ১৫ ডিসেম্বর জাতীয় স্মৃতিসৌধ এলাকায় সর্বসাধারণের প্রবেশ নিষেধ বাণিজ্যিক সম্পর্ক উন্নয়নে ভারতীয় হাইকমিশনারের বেনাপোল-পেট্রাপোল বন্দর পরিদর্শন  হাইজেনিয়ার হালাল মাস্ক বাণিজ্যমন্ত্রীর নিকট হস্তান্তর প্রতিবন্ধীদের সকল আর্থসামাজিক কার্যক্রমে সম্পৃক্ত করতে হবে -আফিল উদ্দিন এমপি

কালীগঞ্জ বারোবাজারের গোড়ার মসজিদ আজও খান-ই-জাহানের স্মৃতি বহন করে চলছে

বারোবাজারের গোড়ার মসজিদ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি ॥ দীর্ঘ ইতিহাসের ধারক ঐতিহ্যবাহী ঝিনাইদহ জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার বারোবাজারে অবস্থিত সুদৃশ্য গোড়ার মসজিদটি আজো খান-ই-জাহানের স্মৃতি বহন করে চলছে। এককালের জনবহুল ও প্রসিদ্ধ বারোবাজরের অসংখ্য প্রাচীন ধ্বংসাবশের মধ্যে যে কয়েকটি মসজিদ এখনো দৃশ্যমান রয়েছে তার মধ্যে গোড়ার মসজিদ অন্যতম। অনেকে মনে করেন গোড়ায় নামক দরবেশের মাজার।

বারোবাজার বাসষ্ট্যান্ড হতে পশ্চিম দিকে বাজার পেরিয়ে কয়েকটি দোকান ও বসতবাড়ীর পরই রাস্তার দক্ষিণে এই গোড়ার মসজিদটি জীর্ন অবস্থায় এখনো টিকে আছে। প্রাচীন আমলের দিঘি ও ইটের ধংসস্তুপ দেধে সহজেই অনুমান করা যায় বারোবাজার নগরটি এককালে হিন্দু ও বৌদ্ধ নরপতিদের রাজধানী ছিল। যে নগরীর দক্ষিণে অবস্থিত ভৈরব নদ এককালে ভয়ংকর ছিল। এই নদীকে কেন্দ্র করেই তৎকালে বারোবাজার হয়ে উঠেছিল পাক-ভারতের অন্যতম বানিজ্য কেন্দ্র। এই নদী পথে দেশ-বিদেশের সওদাগাররা পন্য সামগ্রী আনতো। এভাবেই যুগে যুগে রুপসী নগরী হিসাবে গড়ে ওঠে বারোবাজার। মুসলমান আমলে বারোবাজর আরো শ্রীবৃদ্ধি ঘটে।

কথিত আছে মোহাম্মদ শাহ’র আমলে খান-ই-জাহান প্রথম বারোবাজর মুসলিম অধিকার প্রতিষ্ঠা করেন। এসময় যুদ্ধে অসংক্য সৈন্য হতাহত হন। ১৮৮৩ সালে প্রতœতত্ব বিভাগ কর্র্তৃক খননের পরে দেখা গেছে বারোবাজার এলাকার ঘন জঙ্গলে পূর্ন টিবি গুলো খুড়ে উদ্ধার করা হয়েছে প্রাচীন কালের ইটের ভগ্নস্তুপ, নরকংকাল ও মসজিদ সহ অসংখ্য কীর্তি। সংরক্ষনের অভাবে এসবের অনেকটাই ধংস হয়ে গেছে। এলাকার অনেক দালান ঘরে পুরোনো আমলের সে সব ইটের অস্বিত্ব রয়েছে। প্রতœতত্ব বিভাগ কিছু মসজিদ সংস্কারের উদ্দ্যোগ নিয়েছে। পরিত্যাক্ত টিবি ও জঙ্গলকীর্ন জমির বেশির ভাগই এখন চাষাবাদেও জমিতে বা বসত বাড়ীতে পরিনত হয়েছে।

বর্গাকারে নির্মিত গোড়ার মসজিদের প্রত্যক বাহু বাইরের দিকে প্রায় ৩০ ফুট এবং ভিতরের দিকে ২০ ফুট লম্বা। দেওয়াগুলি ৫ ফুট প্রশস্ত। ৪ কোনে ৪ টি সুন্দও ৮ কোনা বিশিষ্ট মিনার আছে। পূর্ব দেয়ালে ৩ টি এবং উল্টর দেয়ালে ১ টি প্রবেশ পথ আছে। পশ্চিম দেয়ালে আছে দরজা বরাবর ৩ টি মেহরাব। কেন্দ্রীয় মেহরাবটি অন্যগুলোর চেয়ে অপেক্ষাকৃত বড়। মেহরাবগুলিতে পোড়া মাটির ফলকে নানা ফুল ও লতাপাতার অলংকার ছিল। যার সৌন্দর্য্য আজো নষ্ট হয়নি।

মসজিদেও ভিতরের ৪ দেয়ালের কেন্দ্র স্থলেও দেয়াল ঘেষে ৪ টি পাথরের স্তম্ভ ও ৪ পাশের্^র দেয়ালের উপর স্থাপিত মসজিদের একমাত্র গম্বুজ। যা দেখতে খুবই সুন্দর। মসজিদেও বাইরের দেয়াল সহ ৪ কোনের পোড়ামাটির সুন্দও চিত্র ফলক ছিল। যা জরাজীর্ন অবস্থায় থাকায় কিছুটা মেরামত করা হয়েছে।

মসজিদেও ৪ পাশের্^র বেষ্টনী প্রাচীর ভেঙ্গে পড়েছে। অতিজীর্ন হলেও মনোরম এই মসজিদে এখোনো অসংখ্য মুসল্লি নামাজ আদায় করেন। প্রতি শুক্রবার শিন্নি ও মানতের জন্য দুর দুরান্তের মানুষের ঢল নামে মসজিদের পশ্চিম পাশের্^র পুকুরটি। এটি গোড়ার পুকুর নামেই এর পরিচিতি।

SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031 
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit