বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৪৬ পূর্বাহ্ন


কুড়িগ্রামে মজুরির টাকা চাইতে গিয়ে দফায় দফায় নির্যাতিত শিশু শ্রমিক

শিশু শ্রমিককে নির্যাতন
শিশু শ্রমিককে নির্যাতন

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামে মজুরির টাকা চাইতে গিয়ে দফায় দফায় নির্যাতিত হল সাগর মিয়া (১২) নামের শিশু শ্রমিক।

ঘটনাটি ঘটে ১৮ সেপ্টেম্বর শুক্রবার কুড়িগ্রামের রাজীবপুরে। সাগর দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ডাংধরা ইউনিয়নের কারখানাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা শাহ আলমের ছেলে।

রাজীবপুরে নামাবাজারের সায়েম হোটেল অ্যান্ড রেস্টুরেন্টে কাজ করে সাগর। জ্বর হওয়ায় কাজে যায় না সে। ওষুধ কিনবে বলে মজুরির পাওনা ৭৫০ টাকা চাইতে গেলে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে দফায় দফায় নির্যাতন চালায় হোটেল মালিক। বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সাড়ে চার ঘণ্টা সাগরকে হোটেল ঘরের খুঁটির সঙ্গে বেঁধে রাখে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, এক সপ্তাহ আগে বাড়িতে চলে যাওয়ার পর আর হোটেলের কাজে যোগ না দেওয়ায় হোটেল মালিক ক্ষিপ্ত হন।এরপর টাকা চাইলে বেঁধে রেখে বেধড়ক মারধর শুরু করে।

নির্যাতিত শিশুটির মা মমতা বেগম বলেন, ‘শরীরে জ্বর থাকার কারণে হোটেলের কাজে আসতে পারেনি সাগর। এখনো সে পুরোপুরি সুস্থ হয়ে ওঠেনি। ওষুধ কিনতে টাকা লাগবে এ কারণে ছেলে আমার মজুরির পাওনা সাড়ে ৭০০ টাকা চাইতে হোটেলে আসে। আমার সামনে ছেলেকে মারপিট করেন হোটেল মালিক সহোদর সায়েম মিয়া ও শফি আলম ওরফে দুখু মিয়া। ছেলেকে যারা মারপিট ও নির্যাতন করেছে তাদের বিচার চাই।

শিশুটির ওপর নির্যাতনকারী অভিযুক্ত হোটেল মালিক সহোদর দুই ভাইকে পুলিশ থানায় ধরে নিয়ে গেলেও মূল অভিযুক্ত সায়েম মিয়াকে ছেড়ে দেওয়ায় এলাকায় নানা প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। অভিযোগ উঠেছে মোটা অঙ্কের অর্থের বিনিময়ে পুলিশ অভিযুক্ত দুই ভাইয়ের মধ্যে শুধু শফি আলমকে আসামি করে শিশু আইনে মামলা গ্রহণ করে। শফি আলমকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে কুড়িগ্রাম আদালতে সোপর্দ করে পুলিশ।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, ওই হোটেল মালিক দুই ভাই সমান অপরাধী। কেননা হোটেলে শিশুদের ব্যবহার বা ঝুঁকিপূর্ণ কাজে লাগানো দণ্ডনীয় অপরাধ। শিশুটির ওপর নির্যাতন করে তাঁরা আরেকটি অপরাধ করেছেন। শিশুটির মা মমতা বেগম বলেন, ‘আমি পুলিশের কাছে দুই ভাইকে অভিযুক্ত করে মামলা নিতে বলেছি। পুলিশ কিভাবে এজাহার লিখেছে তা আমি বলতে পারছি না।’

রাজীবপুর থানার ওসি নবীউল ইসলাম বলেন, ‘হোটেল মালিক দুই ভাইয়ের মধ্যে ছোট ভাই শফি আলম শিশুটিকে বেঁধে নির্যাতন করেছে। এ কারণে মামলায় তাঁকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। মামলা হয়েছে শিশু আইন ২০১৩ এর ৭০ ধারায় শিশুর সঙ্গে নির্দয়-নিষ্ঠুর আচরণ করার অপরাধে।’

মূল অভিযুক্ত সায়েম মিয়াকে কেন ছেড়ে দেওয়া হলো—এমন প্রশ্নে ওসি বলেন, ‘সে দোষী নয়।’ হোটেলে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে শিশুদের ব্যবহার বেআইনি। এ ক্ষেত্রে হোটেল মালিক সায়েম মিয়াও আসামি হয়—এ বিষয়ে ওসি বলেন, ‘তদন্ত করা হবে। তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে তাকেও গ্রেপ্তার করা হবে।’

SHARE THIS:

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
     12
31      
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২০ || এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit