বেনাপোল বন্দরে মিথ্যা ঘোষণার ৪ টি পণ্য চালান আটক

    Rai Kishori
    September 21, 2021 8:14 am
    Link Copied!

    মোঃ মাসুদুর রহমান শেখ বেনাপোলঃ বেনাপোল বন্দরে শুল্ক ফাঁকির উদ্দেশ্যে মিথ্যা ঘোষণায় আমদানিকৃত চার আমদানিকারকের  ১ কোটি ১৮ লাখ টাকার পণ্য আটক করেছে কাস্টমস সদস্যরা।
    সরকারের নিরাপত্তা সংস্থ্যা এনএসআইয়ের তথ্যের ভিত্তিতে বেনাপোল কাস্টমস হাউসের সদস্যরা পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে রোববার রাত ১১ টায় এ পণ্য চালান আটক দেখায়।
    এনএসআইয়ের বেনাপোল অফিস সুত্রে জানায়, তাদের কাছে গোঁপন খবর আসে ৪ আমদানি কারক সরকারের শুল্ক ফাঁকির উদ্দেশ্যে মিথ্যা ঘোষণায় পণ্য আমদানি করে বন্দরে রেখেছে। পরে এনএসআইয়ের সদস্যরা বিষয়টি নিশ্চিত হতে বিভিন্ন ভাবে তথ্য সংগ্রহ করে। একপর্যায়ে অনিয়মের বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে কাস্টমস কর্তৃপক্ষকে অবগত করে এনএসআই। এবং এনএসআইয়ের উপস্থিতিতে  আমদানিকৃত পণ্য কাস্টমস হেফাজতে নিয়ে কাগজ পত্রের সাথে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। এসময় দেখা যায় কাগজ পত্রের ঘোষনার সাথে আমদানি পণ্যের মিল নাই। ডেনিম ফেব্রিকস আমদানি করার ঘোষণা পত্র ছিল। ঘোষণার বিপরীতে আমদানি করা হয় কেমিক্যাল, রং ও  ডেনিম ফেব্রিকস।
    পরে আইনী ব্যবস্থা নিতে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ পন্য চালান ৪ টি আটক করেন। এর আগেও এনএসআই সদস্যদের তথ্যে শুল্কফাঁকি দেওয়া পণ্য চালান আটক করেছে কাস্টমস সদস্যরা।
    এনএসআইয়ের তথ্যে আরো জানা যায়, অভিযুক্ত আমদানি কারক ও সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ীরা হলেন, আমদানিকারক রেকিট বেনকিসার বাংলাদেশ লিমিটেড। পণ্য চালানটি বন্দর থেকে ছাড় করাতে কাগজ পত্র জমা দেন সিএন্ডএফ এজেন্ট  খলিল এন্ড সন্স। আটককৃত পণ্যের মধ্যে  ১৫ মেট্রিক টন সোডা ও ১২ ড্রামস কেমিকেল রয়েছে।
    অভিযুক্ত দ্বিতীয় জন  আমদানিকারক এআর জিন্স প্রোডাক্স লিমিটেড। পণ্য ছাড় করাচ্ছিলেন সিঅ্যান্ডএফ  এজেন্ট আর কে রওশন শিপিং লাইনস লিমিটেড। আটক পণ্য ১৩৬ রোলস ডেনিম ফেব্রিক্স।
    অভিযুক্ত তৃতীয় আমদানিকারক ডেনিম ওয়ার  লিমিটেড। বন্দর থেকে পণ্যছাড়কারী  সিঅ্যান্ডএফ  এজেন্ট আর কে রওশন শিপিং লাইনস লিমিটেড। আটক আমদানি পণ্য ৬৭ রোলস ডেনিম ফেব্রিক্স।
    অনিয়মের তালিকায় চতুর্থ আমদানিকারক ছিলেন  বিদেশ ট্রেডার্স।  সিএন্ডএফ এজেন্ট বিশাল ট্রেডার্স নিজেই। চালানটিতে মিথ্যা ঘোষণার ১৩ রোলস ডেনিম ফেব্রিক্স ছিল।
    বেনাপোল কাস্টমস হাউসের রাজস্ব কর্মকর্তা(আইআরএম) শহিদুল ইসলাম মিথ্যা ঘোষণার ৪টি পণ্য চালান আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান,  সংশিষ্ট আমদানি কারকদের বিরুদ্ধে জরিমানাসহ প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহনের কার্যক্রম প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।
    এদিকে নির্ভর যোগ্য সুত্রগুলো জানায়, বিভিন্ন কৌশলে বেনাপোল বন্দরে শুল্কফাঁকি দিয়ে আমদানি বেড়ে যাওয়ায় গত ৯ বছর ধরে বেনাপোল কাস্টমসে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা পৃুরন হচ্ছেনা। নাধধারী এসব ব্যবসায়ীরা শুল্কফাঁকি দিয়ে টাকার পাহাড় গড়ছে আর অর্থ হারাচ্ছে সরকার। আমদানি কারকদের এসব অনিয়মের সহযোগীতা করে আসছে সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ী, বন্দর ও কাস্টমসের এক শ্রেনীর দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তারা।