৮ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড রায় ঘোষণা

    Brinda Chowdhury
    February 11, 2021 1:37 pm
    Link Copied!

    জাগৃতি প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী ফয়সল আরেফিন দীপন হত্যার দায়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলামের আট সদস্যকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। তাদের মৃত্যু নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত গলায় ফাঁসি দিয়ে ঝুলিয়ে রেখে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার আদেশ দিয়েছেন বিচারক।

    ১০ ফেব্রুয়ারি বুধবার ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মজিবুর রহমান জনাকীর্ণ আদালতে এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ে প্রত্যেক আসামিকে ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ডও দেওয়া হয়। হত্যার পাঁচ বছরের বেশি সময় পর এই রায় ঘোষণা করা হলো।

    মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আট জঙ্গি হলো- সৈয়দ জিয়াউল হক ওরফে চাকরিচ্যুত মেজর জিয়া, আকরাম হোসেন ওরফে হাসিব ওরফে আবির ওরফে আদনান, মইনুল হাসান শামীম ওরফে সিফাত সামির, আবদুস সবুর ওরফে আবদুস সামাদ, খাইরুল ইসলাম ওরফে জামিল ওরফে রিফাত, আবু সিদ্দিক সোহেল ওরফে সাকিব ওরফে সাজিদ, মোজাম্মেল হুসাইন ওরফে সায়মন ওরফে শাহরিয়ার ও শেখ আবদুল্লাহ ওরফে জুবায়ের।

    রায় ঘোষণার সময় কারাগারে থাকা ছয় আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে সাজা পরোয়ানার আদেশ দেন বিচারক। চাকরিচ্যুত মেজর জিয়া ও আকরাম হোসেন পলাতক থাকায় দণ্ডপ্রাপ্ত ওই দু’জনের বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট জারির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

    ২০১৫ সালের ৩১ অক্টোবর বিকেলে রাজধানীর শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের তৃতীয় তলায় জাগৃতি প্রকাশনীর অফিসে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়। এরপর আনসার আল ইসলামের পক্ষ থেকে এর দায় স্বীকার করা হয়। নিহত দীপন ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক আবুল কাসেম ফজলুল হকের ছেলে। এই সংগঠনটির সদস্যরা আগে আনসারুল্লাহ বাংলা টিম বা এবিটি নামে জঙ্গি তৎপরতা চালাত। সেটি নিষিদ্ধ করা হলে ‘আনসার আল ইসলাম’ নাম ধারণ করে অপতৎপরতা চালাচ্ছিল। দীপনকে হত্যার দিনই রাজধানীর লালমাটিয়ায় শুদ্ধস্বর প্রকাশনীর মালিক আহমেদুর রশীদ টুটুলকেও হত্যাচেষ্টা চালায় জঙ্গিরা।

    রায় ঘোষণা উপলক্ষে গতকাল সকাল থেকেই আদালত এলাকার নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। সকাল সাড়ে ১১টার দিকে কারাগারে থাকা ছয় আসামিকে কঠোর নিরাপত্তায় এজলাসে তোলা হয়। ওই সময় আসামিদের প্রত্যকের গায়ে বুলেট প্রুফ জ্যাকেট ও মাথায় হেলমেট ছিল। দুপুর ১২টায় বিচারক এজলাসে ওঠার আগ পর্যন্ত ওই ছয় জঙ্গিকে কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে নিজেদের মধ্যে শলাপরামর্শ করতে দেখা যায়। রায় পড়ার সময় তারা বিড়বিড় করে কিছু বলছিল। রায়ের সময় মামলার বাদী দীপনের স্ত্রী রাজিয়া রহমান আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

    আদালত পর্যবেক্ষণে বলেছেন, লেখক, ব্লগার ও প্রকাশকদের হত্যার অংশ হিসেবে অভিজিৎ রায়ের বই প্রকাশের জন্য দীপনকে হত্যা করা হয়। যারা বই প্রকাশের দায়ে মানুষ হত্যা করতে পারে, তারা সমাজ ও রাষ্ট্রের শত্রু।

    পর্যবেক্ষণে আরও বলা হয়, দীপন হত্যাপ্রচেষ্টায় অংশগ্রহণকারী অপরাধীরা বেঁচে থাকলে আনসার আল ইসলামের বাকি সদস্যরাও একই অপরাধ করতে উৎসাহিত হবে। আসামিরা আনসার আল ইসলামের সদস্য হিসেবে সাংগঠনিকভাবে দীপনকে হত্যাপ্রচেষ্টায় অংশগ্রহণ করেছে।

    কার কী অপরাধ :দীপন হত্যা মামলায় মোট ৫৩ পৃষ্ঠার রায় দেন আদালত। তবে আদালতে শুধু আসামিদের সংশ্নিষ্টতা ও সাজার আদেশ পড়ে শোনান বিচারক। রায়ে বলা হয়, আসামিদের দোষ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি ও অন্যান্য সাক্ষ্য পর্যালোচনা করা হয়েছে। এতে বলা হয়, আনসার আল ইসলাম অর্থাৎ, আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্যরা দেশের জননিরাপত্তা বিপন্ন করার জন্য জনসাধারণের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টির মাধ্যমে সরকারকে দেশের গণতান্ত্রিক ও উন্নয়নমূলক কাজ থেকে বিরত থাকতে বাধ্য করার উদ্দেশ্যে দীপনকে হত্যা করে। আসামি চাকরিচ্যুত মেজর জিয়া দীপনকে হত্যার নির্দেশ, পরিকল্পনা ও অর্থায়ন করে এবং আকরাম হোসেন পরিকল্পনা করে। মইনুল হাসান শামীম অস্ত্র সংগ্রহ, খুনের পরামর্শ ও দিকনির্দেশনা দেয়। আবদুস সবুর হত্যাকারীদের প্রশিক্ষণ দেয় এবং মোজাম্মেল হুসাইন সায়মন পরিকল্পনা ও ঘটনাস্থল রেকি করে। শেখ আবদুল্লাহ হত্যায় ব্যবহূত অর্থ এক স্থান থেকে অন্য স্থানে আনা-নেওয়া করে। আবু সিদ্দিক সোহেল ও খায়রুল ইসলাম ঘটনাস্থল রেকি করে।

    রায়ে বলা হয়, ‘আসামিরা একই ও অভিন্ন অভিপ্রায়ে দীপন হত্যায় গুরুত্বপূর্ণ প্রচেষ্টা গ্রহণ করে সন্ত্রাসবিরোধী আইন ২০০৯-এর ৬(২) (অ) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছে বলে সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হয়েছে। আসামিদের অভিন্ন অভিপ্রায় ছিল দীপনকে হত্যা করা। কাজেই আসামিদের কারও ভূমিকা ছোট-বড় করে দেখার সুযোগ নেই।’

    আদালত রায়ে বলেন, ‘মামলার সকল আসামির সাজা মৃত্যুদ দেওয়া হলে ন্যায়বিচার নিশ্চিত হবে এবং এটা হবে একটা দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি। এতে একদিকে নিহতের আত্মীয়রা মানসিক শান্তি পাবেন এবং অন্যদিকে ভবিষ্যতে এই ধরনের জঘন্য অপরাধ করতে অন্যরা ভয় পাবে এবং নিরুৎসাহিত হবে।’

    জানতে চাইলে ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) লালবাগ বিভাগের সহকারী কমিশনার ফজলুল হক সমকালকে বলেন, তদন্তে আরও ১১ আসামির বিরুদ্ধে দীপন হত্যায় জড়িত থাকার তথ্যপ্রমাণ মিলেছিল। তাদের মধ্যে সরাসরি হত্যায় অংশ নেওয়া শরীফুল পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়েছে। আরাফাত রহমান, সেলিম ওরফে হাদী, আলম, আকাশ, তৈয়ব, জনি, আসাদ, হাসান, তালহা ও তারেকের নাম বেরিয়ে এলেও তাদের পূর্ণাঙ্গ নাম বা ঠিকানা বের করা যায়নি। এগুলো ওই জঙ্গিদের সাংকেতিক নাম। এ জন্য তাদের চার্জশিটভুক্ত করা হয়নি।

    পর্যবেক্ষণ :রায়ের পর্যবেক্ষণে বিচারক বলেছেন, নিষিদ্ধ ঘোষিত আনসার আল ইসলাম বা আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্যদের লক্ষ্য ছিল জিহাদের নামে ব্লগার, লেখক ও প্রকাশকদের হত্যা করে মানুষের কণ্ঠ স্তব্ধ করে দেওয়া এবং মানুষের মনে আতঙ্ক তৈরি করে জননিরাপত্তা বিঘ্নিত করা। আর এসবের উদ্দেশ্য হলো মানুষের মত প্রকাশের স্বাধীনতা, রাষ্ট্রের গণতান্ত্রিক ও অসাম্প্রদায়িক চরিত্র ধ্বংস করে দেওয়া।

    পর্যবেক্ষণে আদালত আরও বলেন, আনসার আল ইসলাম বা আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্যরা রাষ্ট্রের অখ তা ও সংহতি বিনষ্ট এবং দেশের গণতন্ত্র ও উন্নয়নকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে এই হত্যাকা চালায়। আসামিদের বিরুদ্ধে আনীত সাক্ষ্যে প্রমাণিত হয়, তারা আতঙ্ক সৃষ্টির উদ্দেশ্যে দেশের গণতন্ত্র ও সংহতিকে বিপন্ন করতে এই হত্যাকা সংঘটিত করে।

    মামলায় রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী গোলাম ছারোয়ার খান জাকির বলেন, তারা সব আসামির অপরাধ প্রমাণ করতে পারায় আদালত প্রত্যেককেই সর্বোচ্চ শাস্তি দিয়েছেন। মামলার রায়ে রাষ্ট্রপক্ষ সন্তুষ্ট।

    সোয়া পাঁচ বছর পর রায় :২০১৫ সালের ৩১ অক্টোবর খুন হন দীপন। ওই ঘটনায় তার স্ত্রী রাজিয়া রহমান বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করে ২০১৮ সালের ১৬ অক্টোবর আদালতে আট আসামির বিরুদ্ধে চার্জশিট জমা দেয় ডিবি পুলিশ। আদালত ওই চার্জশিট আমলে নিয়ে ২০১৯ সালের ২২ অক্টোবর অভিযোগ গঠন করেন। বিচার চলাকালে রাষ্ট্রপক্ষ ২৩ সাক্ষীকে আদালতে হাজির করে। গত ২৪ জানুয়ারি উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানি শেষে গতকাল ধার্য দিনে মামলার রায় দেওয়া হলো।

    চাকরিচ্যুত মেজর জিয়ার নেতৃত্বে আনসার আল ইসলাম বা আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের নামে দেশে মুক্তচিন্তার মানুষ, লেখক, ব্লগারদের হত্যা ও হত্যাচেষ্টা শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় ব্লগার রাজীব হায়দার, লেখক অভিজিৎ রায়, প্রকাশক দীপন, ব্লগার রিয়াদ মুর্শেদ বাবু, ওয়াশিকুর রহমান বাবু, নীলাদ্রি নিলয়সহ বেশ কয়েকজনকে হত্যা করা হয়। এখন পর্যন্ত রাজীব হায়দার ও দীপন হত্যা মামলার রায় হয়েছে। ১৬ ফেব্রুয়ারি অভিজিৎ হত্যা মামলার রায়ের দিন ধার্য রয়েছে।

    আপিল করবে আসামিপক্ষ :রায়ে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে আসামিপক্ষের আইনজীবী এমএবিএম খায়রুল ইসলাম দাবি করেছেন, মামলায় একজনও প্রত্যক্ষদর্শী নেই। নেই কোনো সাক্ষী। ঘটনাস্থলেও কেউ ছিল না। শুধু ১৬৪ ধারার ওপর ভিত্তি করে এই রায় দিয়েছেন আদালত। তারা এই রায়ে সন্তুষ্ট নন। উচ্চ আদালতে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন।

    আসামিপক্ষে আরেক আইনজীবী এম নজরুল ইসলাম বলেন, এসব হত্যাকাে র বিচার তারাও চান। তবে আসামিরা দাবি করেছে তারা ন্যায়বিচার পায়নি।