13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সিলেট-২ আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস

Link Copied!

সিলেট ২ (বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর) আসনে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখছেন ভোটাররা। এতদিন আওয়ামী লীগের প্রার্থী শফিকুর রহমান চৌধুরীর সাথে জাতীয় পার্টি ও গণফোরামের প্রার্থীর প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে মনে করা হলেও এবার স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহিবুর রহমান প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ায় চতুর্মুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা দেখছেন ভোটারেরা।

দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পাননি শফিকুর রহমান চৌধুরী। তবে এবার তার আক্ষেপ ঘুচেছে, পেয়েছেন নৌকা প্রতীক। তিনি ছাড়াও এ আসনে রয়েছেন গণফোরামের প্রার্থী ও বর্তমান এমপি মোকাব্বির খান পেয়েছেন উদীয়মান সূর্য, জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইয়াহইয়া চৌধুরী পেয়েছেন লাঙ্গল, তৃণমূল বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ আব্দুর রব পেয়েছেন সোনালী আঁশ, বাংলাদেশ কংগ্রেস মনোনীত প্রার্থী মো. জহির পেয়েছেন ডাব, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) প্রার্থী মো. মনোয়ার হোসাইন পেয়েছেন আম। আর হাইকোর্ট থেকে প্রার্থিতা ফিরে মুহিবুর রহমান পেয়েছেন ট্রাক প্রতীক।

স্থানীয় ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সিলেট-২ (বিশ্বনাথ ও ওসমানীনগর) সিলেট-২ আসনে নৌকার শফিকুর রহমান চৌধুরীকে বর্তমান সংসদ সদস্য গণফোরামের প্রার্থী মোকাব্বির খান (উদীয়মান সূর্য), জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইয়াহিয়া চৌধুরী (লাঙ্গল) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মুহিবুর রহমানের (ট্রাক) সঙ্গে তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতায় পড়তে হবে।

জানা গেছে, সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত কুশলবিনিময়, পথসভা, গণসংযোগ ও উঠান বৈঠকে ব্যস্ত সময় পার করছেন এ আসনের প্রার্থীরা। দিচ্ছেন নানারকম প্রতিশ্রুতি। রাস্তা-ঘাট, হাট-বাজার, পাড়া-মহল্লা ও চায়ের দোকানে সাধারণ ভোটারদের মাঝে একটাই আলোচনা, কে হচ্ছেন সংসদ সদস্য। এ নিয়ে চুল চেরা বিশ্লেষণ করছেন তারা।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, জমিদার হাসন রাজা চৌধুরীর পরিবারকে পরাজিত করে ১৯৯৫ সালে প্রথম উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন মুহিবুর রহমান। ২০০৯ সালেও উপজেলায় চেয়ারম্যান ও ২০২২ সালের ২ নভেম্বর বিশ্বনাথ পৌরসভার প্রথম মেয়র নির্বাচিত হন তিনি। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সংসদ নির্বাচনে ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে জাতীয় পার্টি থেকে অংশ নিয়ে ইলিয়াস আলীর কাছে পরাজিত হন। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের শফিকুর রহমান চৌধুরী নৌকার মনোনয়ন পাওয়ায় মুহিবুর রহমান নির্বাচন করেননি। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ২০১৪ সালে জাতীয় পার্টির প্রার্থী ইয়াহইয়া চৌধুরীর কাছে এবং ২০১৮ সালে গণফোরামের নেতা বর্তমান এমপি মোকাব্বির খানের পরাজিত হন মুহিব। শফিকুর রহমান চৌধুরী ২০০৮ সালে সংসদ নির্বাচনে প্রথমবারের মতো অংশ নিয়ে বিএনপির প্রভাবশালী নেতা সাবেক এমপি নিখোঁজ ইলিয়াস আলীকে পরাজিত করেন। পরবর্তীতে জোটগত সিদ্ধান্তের কারণে সিলেট-২ আসনে নির্বাচন করেননি শফিকুর।

রিটার্নিং কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ আসনের দুই উপজেলায় রয়েছে ১৬টি ইউনিয়ন। এর মধ্যে বিশ্বনাথের আট ওয়ার্ড ও ওসমানীনগরে রয়েছে আরও আটটি ইউনিয়ন। এই আসনে ভোটকেন্দ্র রয়েছে ১২৮টি। এর মধ্যে বিশ্বনাথ উপজেলায় স্থায়ী ভোটকেন্দ্র রয়েছে ৭৪টি ও ওসমানীনগরে রয়েছে ৫৩টি। এছাড়া ওসমানীনগরে রয়েছে অস্থায়ী ভোটকেন্দ্র আরও একটি। সেইসঙ্গে ভোট কক্ষ রয়েছে ৭৭৩টি। বিশ্বনাথে ৩৯২টি ও ওসমানীনগরে ৩৫২টি স্থায়ী ভোটকেন্দ্র রয়েছে।

এছাড়া বিশ্বনাথে আরও ২৯টি অস্থায়ী ভোটকেন্দ্র রয়েছে। আসনে ভোটার রয়েছেন তিন লাখ ৪৪ হাজার ৭২৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ এক লাখ ৭৬ হাজার ১৪৭ এবং নারী এক লাখ ৬৮ হাজার ৫৮২ জন। বিশ্বনাথে নারী-পুরুষ মিলিয়ে ভোটার রয়েছেন এক লাখ ৮৪ হাজার ১৪৯ জন এবং ওসমানীনগরে নারী-পুরুষ মিলিয়ে ভোটার রয়েছেন এক লাখ ৬০ হাজার ৫৮০ জন।

http://www.anandalokfoundation.com/