13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সিলেটে বন্যা প‌রি‌স্থি‌তি কোথাও অবনতি কোথাও উন্নতি

Link Copied!

টানা বৃষ্টি ও উজান নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে সিলেটে তৃতীয় দফা বন্যা পরিস্থিতির কোথাও উন্নতি, আবার কোথাও অবনতি হয়েছে। জেলার কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জৈন্তাপুরে কিছুটা উন্নতি হলেও জকিগঞ্জ, কানাইঘাট, বিয়ানীবাজার, গোলাপগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ, বালাগঞ্জ উপজেলায় পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। তাছাড়া নগরীতে দেখা দিয়েছেন তীব্র জলাবদ্ধতা। এখনো অনেকের ঘর-বাড়ি, রাস্তা-ঘাট, দোকানপাটসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা পানিতে নিমজ্জিত অবস্থায় রয়েছে। তাছাড়া জেলার প্রায় ২৫ কিলোমিটার বাঁধ ভেঙ্গে প্রবল বেগে লোকালয়ে প্রবেশ করছে পানি। এতে দ্রুত মানুষের বাড়িঘরে পানি প্রবেশ করছে। অনেকে ঘর থেকে মালামাল সরানোরও সময় পাচ্ছেন না। এ অবস্থায় চরম বিপাকে পড়েছেন এসব এলাকার বাসিন্দারা।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, জকিগঞ্জ, কানাইঘাট, বিয়ানীবাজারসহ বেশ কিছু এলাকায় বাঁধ ভেঙে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করছে, যত সময় যাচ্ছে ভাঙ্গনের আয়তন বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাছাড়া উজানের উপজেলাগুলো থেকে পানি নামতে থাকায় ভাটির এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। নদ-নদী পানিতে পরিপূর্ণ থাকায় এসব উপজেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। এখনও বেশিরভাগ উপজেলায় ঘর-বাড়ি, গ্রামীণ জনপথ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, দোকানপাট পানির নিচে রয়েছে। এতে স্বাভাবিক জীবনযাপন ব্যাহত হচ্ছে, মানবেতর জীবনযাপন করছেন এসব এলাকার বাসিন্দারা।
জকিগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা নূর উদ্দিন জানান, যত সময় যাচ্ছে তত পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাঁধ ভেঙ্গে  ইতোমধ্যে উপজেলার বেশিরভাগ এলাকা পানিতে নিমজ্জিত হয়ে পড়েছে। প্রধান সড়কের ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন তারা।চ
বিয়ানীবাজার উপজেলার বাসিন্দা নুরুল আমিন জানান, তৃতীয় দফার বন্যায় উপজেলার অধিকাংশ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। উপজেলার প্রধান সড়কের ওপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। দীর্ঘস্থায়ী বন্যার কারণে তারা চরম বিপাকে পড়েছেন।
বালাগঞ্জ উপজেলার বাসিন্দা বদরুল ইসলাম জানান, বাজার, রাস্তা-ঘাট, ঘর-বাড়িতের ভেতরে হাঁটু সমান পানি। দফায় দফায় বন্যায় এসব এলাকার বাসিন্দারা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছেন। বেশি বিপাকে পড়েছেন শ্রমজীবী ও ব্যবসায়ী যারা রয়েছেন তারা। অনেকের ঘরের ভেতরে পানি প্রবেশ করায় রান্না করাসহ দৈনন্দিন কাজে ব্যাঘাত ঘটছে।
এদিকে নগরীর সোবহানীঘাট, মাছিমপুর, যতরপুর, তেরোরত, উপশহর, তালতলাসহ বেশ কিছু এলাকায় তীব্র জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। জমে থাকা পানিতে ছড়াচ্ছে দুর্গন্ধ, এতে দুর্ভোগে পড়েছেন এসব এলাকার বাসিন্দারা।
নগরীর মাছিমপুর এলাকার বাসিন্দা মুরাদ হোসেন জানান, দফায় দফায় জলাবদ্ধতার কবলে পড়তে হচ্ছে। সুরমা নদীতে পানি বাড়লেই পুরো এলাকা প্লাবিত হয়ে যায়। দীর্ঘ সময় থেকে পানিবন্দি অবস্থা থাকায় নানা দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তাদের।
সিলেট জেলা প্রশাসনের শুক্রবার (০৫ জুলাই) সকালের তথ্য অনুযায়ী, জেলার ১ হাজার ১৮০টি গ্রাম বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে। এতে বন্যায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ লাখ ২৬ হাজার ১৩৮ জন মানুষ। জেলায় ৬৫০টি আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এর মধ্যে ২০৪টি আশ্রয়কেন্দ্রে ৯ হাজার ৩২৯ জন আশ্রয় নিয়েছেন।
সিলেট আবহাওয়া অধিদপ্তরের সহকারী আবহাওয়াবিদ শাহ মো. সজীব হোসাইন জানান, সিলেটে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৫ দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃ‌ষ্টি হয়েছে। পরবর্তী ৭২ ঘণ্টায় সিলেটে ভারী থেকে অতিভারী বর্ষণ হতে পারে।
ভারতের আবহাওয়া সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, ভারতের মেঘালয় রাজ্যের চেরাপুঞ্জিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ১০৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।
সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী দীপক রঞ্জন দাশ জানান, সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর পানি সবকটি পয়েন্টে বিপদসীমার ওপরে অবস্থান করছেন। ভারতের মেঘালয় রাজ্যের চেরাপুঞ্জিতে বৃষ্টি না হলে পানি দ্রুত কমবে। ভাটির দিকে পানির পরিমাণ বেশি থাকায় নদ-নদীর পানি ধীর গতিতে কমছে।
তিনি জানান, শুক্রবার (০৪ জুলাই) বিকাল ৩টার তথ্য অনুযায়ী সুরমা নদীর কানাইঘাট পয়েন্টে পানি বিপদসীমার ৬৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ওই পয়েন্টে পানির বিপদসীমা ১২ দশমিক ৭৫ সেন্টিমিটার। নদীর সিলেট পয়েন্টে পানি বিপদসীমার ২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ওই পয়েন্টে পানির বিপদসীমা ১০ দশমিক ৮০ সেন্টিমিটার। নদীর আমলশীদ পয়েন্টে পানি বিপদসীমার ১৩৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ওই পয়েন্টে পানির বিপদসীমা ১৫ দশমিক ৪০ সেন্টিমিটার। নদীর শেওলা পয়েন্টে পানি বিপদসীমার ৩৯ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ওই পয়েন্টে পানির বিপদসীমা ১৩ দশমিক ০৫ সেন্টিমিটার। নদীর ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে পানি বিপদসীমার ১০৩ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ওই পয়েন্টে পানির বিপদসীমা ৯ দশমিক ৪৫ সেন্টিমিটার। তাছাড়া লুবা, সারি, সারিগোয়াইন, ডাউকি, ধলাই নদীর পানি বিপদসীমার নিচে অবস্থান করছে।
সিলেটের জেলা প্রশাসক শেখ রাসেল হাসান বলেন, বৃষ্টিপাত কম থাকলেও সুরমা ও কুশিয়ারা নদীর সবকটি পয়েন্টে পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।  এতে অনেকে পানিবন্দি হয়ে পড়েছেন, তাদেরকে উদ্ধারে প্রশাসন কাজ করছে। আশ্রয়কেন্দ্র ও পানিবন্দিদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ চলমান রয়েছে। তাছাড়া বন্যা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য উপজেলা পর্যায়ে ডেডিকেটেড কর্মকর্তা ও ইউনিয়ন ভিত্তিক ট্যাগ কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়েছে।
http://www.anandalokfoundation.com/