ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শেষটায় আরও বিবর্ণ বাংলাদেশ

admin
December 31, 2016 2:14 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিনিধি, দি নিউজঃ জিমি নিশামের বাউন্ডারিতে ম্যাচের ইতি, গ্যালারিতে হুল্লোড়। আর বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা যেন বাঁচল হাঁফ ছেড়ে। অবশেষে মাঠ ছেড়ে যাওয়ার সুযোগ হলো! ম্যাচ তো শেষ বেশ আগেই, সবুজ জার্সিতে ১১টি শরীর মাঠে কোনো রকমে ইতি-উতি টেনে নিচ্ছিল নিজেদের। নিউ জিল্যান্ডের জয়ের আনুষ্ঠানিকতায় সেই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি!

কিছু একটা পাওয়ার আশায় শেষ ম্যাচে মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু হারাতে হলো সবই। দুদলের সবশেষ দুই সিরিজে দেশের মাটিতে নিউ জিল্যান্ডকে হোয়াইটওয়াশ করেছিল বাংলাদেশ। এবার তাদের দেশে এসে মেনে নিল একই ভাগ্য। আগে তবু একটু লড়াই হয়েছিল, শেষ ম্যাচে একেবারে অসহায় আত্মসমর্পণ!

নেলসনে শেষ ওয়ানডেতে বাংলাদেশকে ৮ উইকেটে হারিয়েছে স্বাগতিকরা। দারুণ শুরুর পরও সেই চিরচেনা ধস। শতরানের উদ্বোধনী জুটি পর ইনিংস থমকে গেছে ২৩৬ রানে। সেই রান তাড়ায় ৫৫ বল খরচই করতে হয়নি কিউইদের।

ব্যাটিংয়ে ৭৭ রানের মধ্যে ৭ উইকেট হারানোই অনেকটা গড়ে দিয়েছিল ম্যাচের ভাগ্য। পরে বোলিংটাও হলো ভীষণ বিবর্ণ, ফিল্ডিং বাজে, শরীরী ভাষা জঘন্য।

অথচ বোলিংয়ে শুরুটায় বাংলাদেশের জন্য ছিল আশার হাতছানি। নিজের ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই দারুণ ডেলিভারিতে টম ল্যাথামকে ফেরান মুস্তাফিজ। হ্যামস্ট্রিংয়ে টান লাগায় পরের ওভারে মাঠ ছাড়লেন মার্টিন গাপটিল। যেন মেঘ না চাইতেই বৃষ্টি!

কিন্তু চাপটা বজায় রাখতে পারল না বাংলাদেশ। ইমরুল কায়েস স্লিপে ছাড়লেন সহজ ক্যাচ; নিল ব্রুম তখন রানের দেখাও পাননি।

আগের ম্যাচের সেঞ্চুরিয়ান কী আর এমন সুযোগ হাতছাড়া করেন! বড় রানের চাপ না থাকায় উইলিয়ামসনও সময় নিয়ে খেলার ফুরসত পেলেন। একটু একটু করে নিউ জিল্যান্ড ইনিংসের মেঘ সরিয়ে আলোর ঝলকানি দুজনের ব্যাট।

দুজনের শুরুটা ছিল ভীষণ সাবধানী। জুটির প্রথম ৬ ওভারে কোনো চার মারেননি দুজন। হাঁটেননি ঝুঁকির পথে। থিতু হওয়ার পর আর তাদের থামানোর পথই যেন জানা ছিল না বাংলাদেশের বোলারদের।

শেষ পর্যন্ত সেই মুস্তাফিজই ভাঙতে পেরেছেন জুটি। ততক্ষণে জুটিতে হয়ে গেছে রেকর্ড, দল জয়ের নাগালে। আগের ম্যাচের অপরাজিত সেঞ্চুরির পর এবার ৯৭ রানে ফিরেছেন ব্রুম। গালিতে দুর্দান্ত ক্যাচ নিয়েছেন মাশরাফি।

দুজনের ১৭৯ রানের জুটি দ্বিতীয় উইকেটে যে কোনো দেশের বিপক্ষেই নিউ জিল্যান্ডের সর্বোচ্চ। আগের জুটিতেও ছিলেন উইলিয়ামসন, গত জানুয়ারিতেই পাকিস্তানের বিপক্ষে গাপটিলের সঙ্গে তুলেছিলেন ১৫৯।

উইলিয়ামসন এগিয়ে যাচ্ছিলেন শতকের দিকে। তবে নিশামের তাড়া ছিল দ্রুত শেষ করার। উইলিয়ামসন তাই ৯৫ রানে অপরাজিত। বড় জয়ের পর অধিনায়ক তাতে নিশ্চয়ই মন খারাপ করবেন না!

ম্যাচের ভবিষ্যত অবশ্য অনেকটা পরিষ্কার হয়েছিল প্রথম ইনিংস শেষেই। এই উইকেটে আড়াইশর কম পুঁজি নিয়ে খুব ভালো বোলিং করলে লড়াই করা যায়, জেতা কঠিন।

টস জিতে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা বলেছিলেন, ব্যাটসম্যানদের কাছে চাই বড় রান। তার সতীর্থরা দেখালেন কিভাবে বড় কিছুর সম্ভাবনাকে কবর দিতে হয়। শতরানের উদ্বোধনী জুটির পরও শেষ পর্যন্ত টেনেটুনে বাংলাদেশ তুলেছে ২৩৬!

ব্যাটসম্যানদের কাছে প্রত্যাশা ছিল ধারাবাহিকতার, সেটি তারা দেখিয়েছেনও। তবে রানের নয়, ধসের! আগের ম্যাচে ৭৯ রানে শেষ ৯ উইকেট হারিয়েছিল দল, এবার ১০২ রানের উদ্বোধনী জুটি পর আরেকটি ধসে হয়ে যায় ৭ উইকেট ১৭৯।

সেখান থেকে দলকে খানিকটা উদ্ধার করেছেন নুরুল হাসান সোহান। আগের ম্যাচে অভিষেকে খানিকটা ঝলক দেখানো এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান এদিন আরেকবার দেখিয়েছেন নিজের সামর্থ্য। সাহসী ও বুদ্ধিদীপ্ত ব্যাটিংয়ে দলকে এনে দিয়েছেন লড়ার মত রান।

তামিম আর ইমরুলের শুরুটা ছিল সাবধানী। রানের গতি দারুণ কিছু ছিল না, তবে শক্ত ভিত তারা গড়ে দিতে পেরেছিলেন। ব্যাটিং উইকেটে ৩০০ রানের আশেপাশে কিছুর আশা তখন বাংলাদেশ দলে।

জুটি ভাঙতে প্রয়োজন ছিল হয়ত দারুণ কিছু। নিল ব্রুম উপহার দিয়েছেন অসাধারণ ক্যাচ। মিচেল স্যান্টনারের বলে ইমরুলের শটও অবশ্য ছিল বাজে। শট থার্ড ম্যান থেকে পেছন থেকে অনেকটা দৌড়ে সামনে ফুল লেংথ ডাইভ দিয়ে এক হাতে ক্যাচ নিয়েছেন ব্রুম। ইমরুলের ৬২ বলে ৪৪ রানের ইনিংসে বাউন্ডারি থেকে ৬ বলে এসেছে ২৬, ডট বল ৩৮টি!

১০২ রানের জুটি নিউ জিল্যান্ডের মাটিতে ওয়ানডেতে বাংলাদেশের প্রথম শতরানের জুটি। আগের সর্বোচ্চ ছিল তামিম ও ইমরুলের ৭১, নেপিয়ারে ২০১০ সালে।

সাব্বির রহমানের শুরুটা ছিল আশা জাগানিয়া। গিয়েই দারুণ দুটি চার মারেন ম্যাট হেনরিকে। ওই ওভারেই বুকে বল লাগার পর দমে না গিয়ে হেনরির পরের ওভারে শর্ট বলে আরও দুটি চার। কিন্তু পতন সেই ওভারেই। লেগ স্টাম্পে থাকা শর্ট বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ (১৪ বলে ১৯)।

শর্ট বলে ফিরেছেন মাহমুদউল্লাহও, তবে সেটি ছিল নির্বিষ এক ডেলিভারি। আগের দুই ম্যাচের চেয়ে অবশ্য উন্নতি করেছেন অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান! শূন্য ও ১ রানের পর এবার ৩।

নড়বড়ে শুরুর পরও লড়াই করে টিকে ছিলেন সাকিব। ফিরেছেন রান আউটে, প্রশ্ন থাকবে শেষ মুহূর্তেও ডাইভ না দেওয়ায়। সাদামাটা অফ স্পিনে হতাশাজনক শটে বিদায় মোসাদ্দেক হোসেন ও তানবীর হায়দারের।

সাবধানী অর্ধশতকের পর যখন দল চাইছিল বড় কিছু, কিন্তু তামিম আউট হয়েছেন যাচ্ছেতাই এক শটে। ৮৮ বলে ৫৯ রানের ইনিংসে কাজ অর্ধসমাপ্ত রেখে আসার তিরস্কার পাবেন তিনি, প্রশংসা নয়।

১৭৯ রানে নেই ৭ উইকেট। তিনশর আশা উধাও হয়ে তখন দুইশ নিয়েই শঙ্কা। নুরুল ও মাশরাফির জুটিতে সেটুকু অন্তত হয়েছে। অষ্টম উইকেটে দুজনের ৩৩ রানই দলের দ্বিতীয় সেরা জুটি!

১৪ রানে মাশরাফির বিদায়ে হারিয়ে দমে যাননি নুরুল। বরং এই নবীনের ব্যাটে ছিল দায়িত্বের প্রতিচ্ছবি। স্ট্রাইক বদলে এগিয়ে নিয়েছেন দলকে। শেষ ওভারে ম্যাট হেনরিকে চার ও ছক্কায় বাড়িয়েছেন দলের রান। উড়িয়ে মারতে গিয়ে শেষ পর্যন্ত ফিরেছেন ৩৯ বলে ৪৪ রানে।

পেস মোটামুটি ভালো সামলালেও বাংলাদেশ ভুগেছে কিউইদের স্পিনে। স্যান্টনার তো বটেই ৭ বছর পর ওয়ানডে খেলতে নামা জিতান প্যাটেল ও কেন উইলিয়ামসনের নিরীহ দর্শন অফ স্পিনেও ব্যাটসম্যানরা ছিলেন না সাবলীল।

ব্যাটিংয়ের পর ব্যর্থ বাংলাদেশের বোলাররাও। অভিজ্ঞ সাকিব ছিলেন নিজের ছায়া। তাসকিন বিবর্ণ। কেবল মুস্তাফিজের দারুণ বোলিংই কিছু প্রাপ্তি। ফিল্ডিংয়ে অধিনায়ক মাশরাফি ছাড়া বাকিরা ছিলেন হারিয়ে।

গোটা সিরিজেই যেমন হারিয়ে ছিল ‘টিম বাংলাদেশ!’

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ৫০ ওভারে ২৩৬/৯ (তামিম ৫৯, ইমরুল ৪৪, সাব্বির ১৯, মাহমুদউল্লাহ ৩, সাকিব ১৮, মোসাদ্দেক ১১, নুরুল ৪৪, তানবীর ৩, মাশরাফি ১৪, তাসকিন ৪*, মুস্তাফিজ ০*; সাউদি ১/৪৫, প্যাটেল ১/৪০, হেনরি ২/৫৩, নিশাম ১/২৮, স্যান্টনার ২/৩৮, উইলিয়ামসন ১/২৪)।
নিউ জিল্যান্ড: ৪১.২ ওভারে ২৩৯/২ (গাপটিল আহত অবসর ৬*, ল্যাথাম ৪, উইলিয়ামসন ৯৫*, ব্রুম ৯৭, নিশাম ২৮*; মাশরাফি ০/৩৬, মুস্তাফিজ ২/৩২, তাসকিন ০/৪১, সাকিব ০/৫৫, তানবীর ০/২০, সাব্বির ০/২০, মোসাদ্দেক ০/২৬, মাহমুদউল্লাহ ০/৬)।

ফল: নিউ জিল্যান্ড ৮ উইকেটে জয়ী

সিরিজ: নিউ জিল্যান্ড ৩-০তে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: কেন উইলিয়ামসন

 

http://www.anandalokfoundation.com/