শারদীয় দুর্গোৎসবে অসংখ্য পূজা মন্ডপে সাম্প্রদায়িক হামলায় প্রতিবাদে মানববন্ধন

    অনলাইন ডেস্ক
    October 16, 2021 2:16 pm
    Link Copied!

    অদ্য ১৬/১০/২০২১ইং তারিখ শনিবার সকাল ১০.৩০ ঘটিকায়  জাতীয় প্রেসক্লাব সম্মুখে অসংখ্য পূজা মন্ডবে প্রতিমা ভাংচুর ও ভক্তদের উপর আঘাত ও পূজা বন্ধের প্রতিবাদে এবং বিচারের দাবিতে বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের উদ্যোগে এক মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন, রূপানুগ গৌর দাস, প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, ফুড ফর লাইফ (ইসকন), বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের সিনিয়র সহ-সভাপতি প্রীতি ভূষণ ভট্টাচার্য্য, সাধারণ সম্পাদক সাজন কুমার, বীর মুক্তিযোদ্ধা দুলাল কুমার সাহা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক অষ্টম রায়, সহ-সম্পাদক সঞ্জয় দেব, তাপস অধিকারী, সুমন দে, বিকাশ রঞ্জন সরকার, অসিত সাহা ডলার প্রমুখ। বাংলাদেশ হিন্দু যুব পরিষদের সভাপতি গোপাল কর্মকার,  সাধারণ সম্পাদক অমিত ভৌমিক, নির্বাহী সভাপতি অমিত বর্মণ, হৃদয় বিলাশ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, জনি দাস, কোষাধ্যক্ষ, বাংলাদেশ হিন্দু যুব পরিষদ, অনিন্দ্য সাহা, নোভেলটি রায় উদয়, অমর চক্রবর্তী, সুত্রাপুর থানা কমিটির সঞ্চয় ঘোষ, অমিত সাহা, সুদিপ্ত  দে, নিলয় সাহা, বৃষ্টি সাহা, নিহার হালদার, শুভ্রদেব বড়াল খোকন প্রমুখ। বাংলাদেশ হিন্দু ছাত্র পরিষদ নেতৃবৃন্দ এবং বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু ছাত্র মহাসংঘের সভাপতি শিশির মজুমদার বকুল, মূখপাত্র রনি রাজবংশী, সাংগঠনিক সম্পাদক আকাশ চন্দ্র শীল, সৃষ্টি রায় রতœা প্রমুখ। বিশ্ব হিন্দু পরিষদ বাংলাদেশ শাখার সাধারণ সম্পাদক কপিল কৃষ্ণ মন্ডল এবং রুদ্র প্রতাপ সরকার, সদস্য, এছাড়া উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাজোটের একাংশ প্রদীপ কান্তি দে, দিপঙ্কর বেপারী, বিপ্লব চন্দ্র ভৌমিক, ফুলন সেন, অখিল মন্ডল, সুখেন নাহা প্রমুখ।

    মানববন্ধনে বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সাজন কুমার বলেন, দেশের বর্তমান হিন্দু নির্যাতন পরিস্থিতি পূর্বের সকল নির্যাতন ইতিহাসকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে বলে মনে করি। যা অসাম্প্রদায়িক সরকারের নিকট দেশের মানুষ আশা করে না।  অনতিবিলম্বে সম্প্রতি নির্যাতনের অংশ গ্রহণকারীদের গ্রেফতার ও শাস্তি নিশ্চিতের দাবি জানাই। এই দেশের হিন্দু, মুসলিম, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টানসহ সকলেই আমরা বাংলা মায়ের সন্তান। এই দেশে সকলে মিলে আমরা শান্তিতে বসবাস করতে চাই। এই জন্য সচেতন সকলকেই এগিয়ে আসতে হবে। আমরা সকল ধর্মীয় সংগঠন ও সামাজিক সংগঠনসহ সকলের প্রতি অনুরোধ জানাই যাতে আমরা নিজ ধর্ম পালন এবং অন্য ধর্মের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে এই দেশে শান্তিতে বসবাস করতে পারি, তার জন্য সকলকে ঐক্যবদ্ধ এবং অপরাধীকে চিহ্নিত করে প্রশাসনের হাতে হস্তক্ষেপ করতে হবে। যাতে আমাদের সোনার বাংলাদেশে কেউ কোন ধরনের সম্প্রীতি নষ্ট করতে না পারে।

    অন্যান্য বক্তারাও সরকার ও প্রশাসনকে দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের প্রতি সজাগ দৃষ্টি রেখে চলমান সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর বিভিন্ন নির্যাতন বন্ধ ও বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার মোতাবেক সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বাস্তবায়নের নিশ্চিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।