ঢাকা

লুটপাটকে সাগর চুরি বলায় অর্থমন্ত্রীকে ধন্যবাদ

admin
June 25, 2016 8:39 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদকঃ ব্যাংকিং খাতের লুটপাটকে সাগর চুরি বলে অভিহিত করে লুটপাটের সঠিক তথ্য দেয়ার জন্য অর্থমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে জাতীয় পার্টির মহাসচিব এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেছেন, ব্যাংকিং খাতে লুটপাট হয়েছে। এটাকে অনেকে বলে পুকুর চুরি। অর্থমন্ত্রী অবশ্য বলেছেন, ‘সাগর চুরি’ হয়েছে। যে বাজেট উপস্থাপন করা হয়েছে। তা রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা ও প্রশাসনিক শৃঙ্খলা আনতে পারলেই বাস্তবায়ন ও ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব হবে। প্রস্তাবিত বাজেটকে উচ্চ বিলাসী বলা হচ্ছে। আমি বলবো যার উচ্চ বিলাস-কল্পনা নেই, সে কিছুই দিতে পারে না। এসময় তিনি নিজ দলের সদস্য ও পানি সম্পদ মন্ত্রী ব্যারিষ্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদের সমালোচনা করেন। এদিকে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের একাংশের সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার বলেছেন, জেনে-বুঝেই আওয়ামী লীগের সঙ্গে তার দল-জাসদ ঐক্যজোট গঠন করেছে।

শনিবার সকালে জাতীয় সংসদে ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে জাপা ও জাসদ নেতারা এসব কথা বলেন। বাজেট আলোচনায় অংশ নেন- শামসুল হক টুকু, আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন, আবুল কালাম মো. আহসানুল হক চৌধুরী, মাহমুদুস সামাদ চৌধুরী, জাতীয় পার্টিও শওকত চৌধুরী, অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম, হাজেরা খাতুন, লুৎফা তাহের প্রমুখ।

রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, বাজেটে অবশ্যই রাজনৈতিক দর্শনের প্রতিফলন থাকতে হবে। তবে এই বাজেট অনেক বেশি উচ্চ বিলাসী। এক দিকে ঘাটতি, আরেক দিকে উচ্চ বিলাস। এই দু’টাকে কিভাবে সমন্বয় করে সমতা আনবেন- সে বিষয়ে কোনো দিক নির্দেশনা বাজেটে নেই। যদিও ব্যবসায়ী সমাজ, যুব সমাজ এই বাজেটকে স্বাগত জানিয়েছে।

জাপা মহাসচিব জাতীয় পার্টির সময়কার উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরে বলেন, জাতীয় পার্টি যখন সরকারে ছিলো, তখন প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণ করে গ্রাম পর্যায়ে উন্নয়ন করা হয়েছিলো। হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ উন্নয়নের যাত্রা শুরৃ করেন। তিনি এ দেশের মানুষের কাছে ইতিহাস হয়ে থাকবেন। তিনি মন্ত্রীর উদ্দেশ্যে বলেন, আমার এলাকা পটুয়াখালী সদরে নদী ভাঙন রোধে কাজ করা হয়নি। পানি সম্পদ মন্ত্রীকে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় ঘুরিয়ে আনার পরেও উনি কোনো পদক্ষেপ নেননি। মন্ত্রী বসে আছেন কোনো! আমি ব্যক্তি আনিসুল ইসলাম মাহমুদের সমালোচনা করছি না, সরকারকে বলছি।

জেনে-বুঝেই আ. লীগের সঙ্গে ঐক্য করেছি : শিরিন
জেনে-বুঝেই আওয়ামী লীগের সঙ্গে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ ঐক্যজোট গঠন করেছে বলে মন্তব্য করেন দলটির একাংশের সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার বলেছেন, আমাদের কিছু কিছু বন্ধু বলার চেষ্টা করছেন- জাসদ বিভিন্ন জায়গায় চাটুকারিতা করছে। আমি স্পষ্ট ভাষায় তাদের বলতে চাই- জেনে-শুনে এবং বুঝেই আওয়ামী লীগের সঙ্গে ঐক্যজোট করেছি, খালেদা জিয়ার আগুন সন্ত্রাস-গুপ্তহত্যার মোকাবেলা করছি। তিনি বলেন, আজ প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়ন আমাদের চ্যালেঞ্জ। এ চ্যালেঞ্জকে মোকাবেলা করার জন্য প্রয়োজন রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা। যা কঠোরভাবে মোকাবেলা করবে খালেদা জিয়ার আগুন সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষার কর্মসূচিকে। তিনি বলেন, ১৪ দলের ঐক্য বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে এক অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। জঙ্গিবাদ ও গুপ্তহত্যা ঘটিয়ে যারা দেশকে অচল করতে চায়, তাদের নির্মূল করার চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।

দেশকে পিছিয়ে দিতে খালেদা ষড়যন্ত্র করেছেন
দেশকে পিছিয়ে দিতে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অনেক ষড়যন্ত্র করে সরকার দলীয় সংসদ সদস্য ক্যাপটেন (অব.) এ বি তাজুল ইসলাম বলেছেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে তখন তিনি (খালেদা জিয়া) আবার গপ্তহত্যার ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছেন। তিনি অনেক ষড়যন্ত্র করেছেন, ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে বাংলাদেশকে পিছিয়ে দিতে চাইছিলেন। তিনি বলেন, ষড়যন্ত্র ছিল, আছে এবং থাকবে- এর মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী দেশকে উন্নয়নের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন। তার নেতৃত্বেই বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। কোনো অপশক্তি প্রধানমন্ত্রীর অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করতে পারবে না।

কোরাম সংকট ঠেকাতে হুইপদের কষ্ট হয়
এদিকে সংসদ অধিবেশনে কোরাম সংকট ঠেকাতে হুইপদের অনেক কষ্ট করতে হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট মো. ফজলে রাব্বী মিয়া। শনিবার সকালে জাতীয় সংসদে প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনার সময় বিরোধীদল জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদারের বক্তৃতা চলাকালে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বাজেট আলোচনায় জাপা মহাসচিবের নির্ধারিত ২০ মিনিট বক্তব্যের শেষে এসে ডেপুটি স্পিকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, মাননীয় স্পিকার আপনি আমাদের সঙ্গে ছিলেন। একথা বলার পরেই ডেপুটি স্পিকার একটু ক্ষোভের সঙ্গেই বলেন, মাননীয় সদস্য আমি বিনয়ের সঙ্গে বলছি, আপনাদের যেদিন নাম দেওয়া থাকে সেদিন থাকেন না। তাই শেষ দিকে এসে আমাদের বেশি সময় দেওয়া সম্ভব হয় না। তাছাড়া আপনাদের সময় নির্ধারণ করে দেন চিফ হুইপরা। সংসদে কোরাম সংকট ঠেকাতে হুইপদের অনেক কষ্ট করতে হয়।একথা বলার পর রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, আপনার দয়ার দিকে তাকিয়ে রইলাম মাননীয় স্পিকার। পরে তার বক্তব্য নির্ধারিত সময় থেকে দুই মিনিট বাড়ানো হয়।

http://www.anandalokfoundation.com/