13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

রাউজানে পুলিশ ও আসামি মিলে সাংবাদিক পরিবারকে নির্যাতন

admin
September 22, 2015 7:41 am
Link Copied!

ইব্রাহিম খলিল, বিশেষ প্রতিনিধি, চট্টগ্রাম : টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ওয়ারেন্টভুক্ত আসামিকে গ্রেপ্তার না করে পুলিশ ওই আসামিকে নিয়ে উল্টো সাংবাদিক পরিবারকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে গ্রেপ্তার ও নির্যাতন করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এই নির্যাতনের প্রতিবাদে চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার নোয়াপাড়া সামহালদার পাড়ার মৃত জালাল খায়ের এর ছেলে লোকমান আলী উপজেলা প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি সাহেদুর রহমান মোরশেদ ও তার ভাই-বোনদের উপর হামলা চালিয়ে মিথ্যা মামলা দায়ের করে।

অথচ এর আগে অর্থ আত্মসাতের দায়ে লোকমান আলীর বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের কওে সাংবাদিক সাহেদুর রহমান মোরশেদ এর বড় ভাই ব্যবসায় সাদেকুর রহমান। এই মামলায় আদালত লোকমান আলীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা জারী করে।

সাংবাদিক সাহেদুর রহমান মোরশেদ জানান, ব্যবসায়ীক সম্পর্কের সূত্র ধরে লোকমান আলী তার বড় ভাই  সাদেকুর রহমান এর কাছ থেকে ২৮ লাখ টাকা আত্মসাত করে। এ অভিযোগ এনে গত ৩১ আগষ্ট লোকমান আলীর বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন (সি আর মামলা নং-১১৯/২০১৫)। মামলায় আদালত লোকমান আলীর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারী করেন।

এরপর থেকে মামলা প্রত্যাহার করার জন্য সাংবাদিক সাহেদুর রহমান মোরশেদ ও তার ভাইদের মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী ও মেরে ফেলার হুমকি দেন লোকমান আলী ও তার সহযোগীরা। যার জের ধরে গত শনিবার একদল অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী তার পরিবারের মহিলা সদস্যদের শারীরিক নির্যাতন ও নগদ টাকা, স্বর্নলংকার লুট করে নিয়ে যায়।

শুধু তাই নয়, ঘটনার দিন গভীর রাতে রাউজান থানার একদল পুলিশ কোন কারন বা ওয়ারেন্ট না দেখিয়ে তার তিন ভাই ব্যাবসায়ী সাদেকুর রহমান, আনিছুর রহমান রুবেল ও মুশফিকুর রহমানকে আটক করে নিয়ে যায়।

মোরশেদ আরো জানান, লোকমান আলী তাকে ও তার ভাইদের হয়রানী করতে দূর্বৃত্তদের দিয়ে হামলা ও মিথ্যা মামলা সৃজন করে পুলিশ দিয়ে আটক করিয়েছে।

স্থানীয় সাংবাদিকদের ভাষ্য, লোকমান আলীর দায়ের কৃত মামলায় যে স্থানে মারপিটের ঘটনা উল্লেখ আছে সে স্থানের আশ পাশের স্থানীয় লোকজনের এই ধরনের কোন ঘটনা ঘটেনি বা শুনেনি বলে জানান। তাছাড়া ঘটনার উল্লেখিত সময়ে সাংবাদিক সাহেদুর রহমান মোরশেদ রাউজান প্রেস ক্লাব সভাপতি ও সাধারন স¤পাদক এর সাথে বসে গল্প করছিল।

সাংবাদিকরা আরো জানান, লোকমান আলীর সাজানো ঘটনা পরিকল্পিত। এর আগে একাধিকবার হুমকির প্রেক্ষিতে গত ৯ সেপ্টেম্বর আধুনিক রাউজানের রুপকার এবিএম ফজলে করিম চৌধুরী এমপিকে বিষয়টি অবগত করেন তারা। তখন এমপি সাহেব সাংবাদিকদের উপর কেউ অন্যায় জুলুম বা কোন ধরনের মিথ্যা হয়রানি করা ব্যাক্তিকে ছাড় দেয়া হবে না বলে জানান।

এরপরও সাংবাদিক সাহেদুর রহমান মোরশেদ ও তার পরিবারের উপর হামলা ও মিথ্যা মামলা দায়েরের প্রতিবাদে উর্দ্ধতন পৃুলিশ প্রশাশনের হস্তক্ষেপ কামনা করে রাউজান থানা চত্বরে রাউজান প্রেসক্লাব কর্মকর্তারা অবস্থান কর্মসূচী পালন করেছে বলে জানান তারা।

এ সময় রাউজান প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মীর আসলাম, শফিউল আলম, জাহেদুল আলম, এম বেলাল উদ্দিন, প্রদীপ শীল, বর্তমান সভাপতি তৈয়ব চৌধুরী সাধারন স¤পাদক এস.এম ইউসুফ উদ্দিন, সাংবাদিক এম.রমজান আলী, সাংবাদিক এম জাহাঙ্গীর নেওয়াজ, সাংবাদিক এম. কামাল উদ্দিন, সাংবাদিক জয়নাল জুবাইর উপস্থিত ছিলেন।

নোয়াপাড়া ভারতশ্বরী মার্কেটের ব্যাবসায়ী কল্যান সমিতির সভাপতি হাজী মোহাম্মদ শফি ও সাধারন স¤পাদক জিয়াউর রহমান জানান, সাদেকুর রহমান ও তার ভাইয়েরা দীর্ঘদিন যাবৎ সুনামের সহিত ব্যবসা করে আসছেন। তারা সাদেকুর রহমান ও তার ভাইদের নামে ষড়যন্ত্রমুলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানান।

এ ব্যাপারে জানার জন্য অনেক চেষ্টা করেও লোকমান আলীর সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। তবে রাউজান থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ এ প্রসঙ্গে বলেন, মারামারির অভিযোগে সাংবাদিক মোরশেদের দুই ভাইকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তবে লোকমান আলীর বিরুদ্ধে ওয়ারেন্টের বিষয়ে তিনি কিছুই জানেন না বলে জানান।

http://www.anandalokfoundation.com/