শনিবার, ২৫ জানুয়ারী ২০২০, ০৫:১২ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
নড়াইলে সড়কে নিষিদ্ধ ঘোষিত আতঙ্কের আরেক নাম নছিমন-করিমন অসমকে ভারত থেকে বিচ্ছিন্ন করা আমাদের দায়িত্ব -ভাইরাল টুকরে গ্যাং পাইকগাছার কপিলমুনি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে পাঠদান আজ অশ্বিনী কুমার দত্তের ১৬৫ তম জন্মদিন দুরত্বের পরিমান যতদূরই হোক ছাত্রছাত্রীদের ভাড়া ৫ টাকা আ.লীগের বিরুদ্ধে সমালোচনাকারীদের দমন করা হবে -রমেশ চন্দ্র সেন কুড়িগ্রামে টানা শৈত্যপ্রবাহে জনজীবন বিপর্যস্ত মাগুরায় দুইদিন ব্যাপী শিশু আনন্দ মেলা শুরু পাথওয়ে’র উদ্যোগে দরিদ্রদের জন্য চালু হল “ফ্রি ফ্রাইডে ক্লিনিক” বগুড়ায় লাউ-পানিফলের সমন্বিত চাষ ॥ অনুপ্রেরণ জাগাচ্ছে কৃষকদের মাঝে

মেয়েদের মার্শালআর্ট (তায়কোয়নদো) যে কারনে শেখা প্রয়োজন

রতন চৌহানঃ তায়কোয়নদো হলো জীবন চলার পথের কৌশল। প্রকৃত পক্ষে তায়কোয়নদো অর্থ কি? বলা যায় তায়কোয়নদো হলো অস্ত্রবিহীন লড়াই, যা তৈরী করা হয় আত্মরক্ষার জন্য। আসলে তায়কোয়নদো আরো অনেক বড় কিছু। তায়কোয়নদেতে শরীরকে বৈজ্ঞানিক ভাবে অত্মরক্ষার জন্য ব্যবহার করা যায়। যার ফলে মানুষ অর্জন করে তায়কোয়নদোর নিবিড় শারীরিক ও মানুসিক প্রশিক্ষণ।

মেয়েরা কেন তায়কোয়নদো শিখবে?
শারীরিক ও মানসিক উন্নয়নের জন্য তায়কোয়নদো শেখা প্রয়োজন। শক্র বা খারাপ মানুষের অতর্কিত অনৈতিক আক্রমন হতে রক্ষার জন্য আমি তায়কোয়নদো শিখবো। তায়কোয়নদোর নৈতিক আদর্শে উদ্ভুদ্ধ হয়ে জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক পর্যায়ে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণের মাধ্যমে দেশ ও জাতিকে গর্বিত করবো। তায়কোয়নদো হলো অস্ত্র বিহীন লড়াই তেমনি আবার কারাতে জাপানের রিউকো দ্বিপে বিকাশ লাভ করা একটি মার্শালআর্ট। জাপনি শদ্ব কারাতের অর্থ ‘‘ খালি হাত’’। বিংশ শতাদ্বির মাঝামাঝিতে মল্ল যুদ্ধে কৌশল হিসাবে বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। তেমনি যত মার্শালআর্ট আছে সবচেয়ে ভালো সাইন্টিফিক মার্শালআর্ট হলো তায়কোয়নদো।

আক্ষরিক অর্থে ‘‘তায়’’  অর্থ পা দ্বারা লাথি বা চুর্ণবিচুর্ণ করার লাফিয়ে উঠা বা উড়ে যাওয়া। ‘‘কোয়ন’’  অর্থ নির্দেশ করে মুষ্ঠিকে মূলত হাতকে মুষ্ঠি দ্বারা ঘুষি) মারা বা ধ্বংশ করা। ‘‘দো’ মানে হলো একটি কৌশল বা পথ। এভাবে সব মিলিয়ে তায়কোয়নদো বলতে বুঝায় মানসিক প্রশিক্ষণ, আত্মরক্ষার জন্য অস্ত্রবিহীন লড়াই। তায়কোয়নদেতে যে কোন ব্যায়াম করার আগে অন্তত ১৫ থেকে ২০ মিনিট ওয়ার্ম আপ করে নেওয়া জরুরী। তারপর শুরু হয় স্ট্রেচিং এর পরেই পাঞ্চ, কিক, ব্লক ও ডজ এর পর পেটার্ন এগুলোর সবকিছুর প্রশিক্ষণ নিতে হয়।

তায়কোয়নদোর পুরো প্রক্রিয়াটির সূচনা ও উন্নয়ন করেন তায়কোয়নদোর জনক, সাবেক সেনা কর্মকর্তা জেনারেল চয় হং হি। ১১ এপ্রিল ১৯৫৫ সালে তিনি তার তৈরি করা আত্মরাক্ষামূলক কৌশলের নাম করন করেন তায়কোয়নদো। তিনি তায়কোয়নদোকে তখন পুরো সামরিক বাহিনীর মাঝে ছড়িয়ে দেন। ১৯৫৭ সালে তায়কোয়নদোর প্রথম রাষ্ট্র ভিত্তিক সংস্থা গঠিত হয় যার নাম কোরিয়া তায়কোয়নদো এসোসিয়েশন (কঞঅ)। ২২ শে মার্চ ইর্ন্টারন্যাশনাল তায়কোয়নদো ফেডারেশন (ওঞঋ) গঠিত হয়। এটিই তায়কোয়নদোর প্রথম আর্ন্তজাতিক সংস্থা। খুব অল্প সময়ের মাঝে তায়কোয়নদো পুরো বিশ্বে জনপ্রিয় মার্শালআর্ট হিসেবে জায়গা করে নেয়।

জেনারেল চয় হং হি‘র তত্ব, আর্দশ ও দর্শন অনুস্বারণ না করা পর্যন্ত অন্য কোন মার্শাল আর্ট এর শিক্ষার্থীকে তায়কোয়নদোর ছাত্র বলে বিবেচনা করা হয় না। আধুনিক বিজ্ঞানের নীতির ওপর, বিশেষ করে নিউটনের পর্দাথবিদ্যা-যা শিক্ষা দেয় ‘সর্বোচ্চ শক্তির কৌশল’ এর ওপর ভিত্তি করেই তায়কোয়নদোর শারীরিক কৌশল প্রতিষ্ঠিত। পরবর্তীতে ‘সামরিক কৌশলের আক্রমণ ও আত্মরক্ষা নীতি’ তায়কোয়নদোতে যোগ করা হয়। জেনারেল চয় হং হি হলেন তায়কোয়নদোর জনক।

কোমর বন্ধনী

ছয় ধরণের বা ছয় রঙের কোমর বন্ধনী/বেল্ট রয়েছে: সাদা, হলুদ, সবুজ, নীল, লাল ও কালো।

অনুশীলনের পোশাক

কৌশল, দার্শনিক তত্ত্ব, আত্মিক ভিত্তি, ও প্রতিযোগিতার নিয়মে অন্যান্য র্পূবদেশীয় মার্শাল আর্টের চেয়ে ভিন্ন হওয়ায় একে তায়কোয়নদো নামকরণ করা হয়েছে। একই কারণে, তায়কোয়নদোর অনন্য এক পোশাক রয়েছে। প্রশিক্ষণ ও প্রতিযোগিতার জন্য প্রাথমিক প্রয়োজনীয়তা মেটানোর কারনেই পোষাক ‘ডো বক’ যথেষ্ট বলে মনে করা হয়:

১.পোশাক বা ‘ডো বক’ পরার পরই একজন শিক্ষার্থীর মনে নিজেকে তায়কোয়নদোর অংশ বলে ধীরে ধীরে বিশ্বাস বাড়াতে থাকে।
২. তায়কোয়নদোয় পোশাক প্রত্যেকের দক্ষতা ও ডিগ্রিধারি শিক্ষার স্তর ধারন করে।
৩.সনাতন তায়কোয়নদো অনুসরণকারীদের সঙ্গে প্রতিষ্ঠানিকদের পার্থাক্য গড়ে দেয় পোশাক ( ডো বক) কোরিয়ার ঐতিহ্যগত পোশাকের রঙের সঙ্গে সঙ্গতি রাখায় শার্ট ও প্যান্টের রং অবশ্যই সাদা হতে হয়।

ক্ষাতায়কোয়নদোর নৈতিক শিক্ষা

তায়কোয়নদো বলতে সুন্দর শারীরিক গঠন আর তীক্ষè বুদ্ধিমত্তাকেই বোঝায়, কিন্ত এর অনেকাংশই জোড় দেওয়া হয়েছে নৈতিক শিক্ষার ওপর যেন একজন ক্রীড়াবিদ ও সুনিপুণ চরিত্র সম্পন্ন হয়ে গড়ে ওঠে। তায়কোয়নদোর প্রত্যেক ‘তুল’ বা নমুনা  কোরিয়ার সকল অবিস্মরণীয় ব্যক্তিদের চিন্তা ও কর্মকান্ড প্রকাশ করে। কাজেই তায়কোয়নদোর শিক্ষার্থীদের মাঝে সেই সকল লক্ষের প্রতিফলন ঘটে যার ভিত্তিতে ‘তুল’ এর নাম করণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
25262728293031
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯ এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit