রবিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২০, ০৮:২৪ অপরাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
জমকালো আয়োজনে এনইউআরএস মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে স্টুডেন্ট ক্যাবিনেট নির্বাচন ”ঢালারচর এক্সপ্রেস ট্রেন উদ্বোধন” কর্ম পরিকল্পনা গ্রহণ ও বাস্তবায়নে উন্নয়ন অব্যাহত রাখতে হবে -স্থানীয় সরকার মন্ত্রী ধর্ম ব্যবহার করে কেউ যেন সাম্প্রদায়িকতা ছড়াতে না পারে -গণপূর্ত মন্ত্রী বাণিজ্য প্রসারের ক্ষেত্রে কাস্টমসের ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ -নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী ভিডিও কনফারেন্সির মাধ্যমে কালীগঞ্জে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী প্রতিবন্ধী ব্যক্তির তথ্য-উপাত্ত ব্যবহার নীতিমালা-২০২০ এর খসড়া চূড়ান্ত ফুলবাড়ী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ে মিলাদ মাহফিল ও বিদায় অনুষ্ঠিত গণতান্ত্রিক অগ্রযাত্রা রক্ষায় আইনজীবীদের ঐক্যের বিকল্প নেই -স্পিকার চিলমারীতে ওরিয়েন্টেশন কর্মশালা অনুষ্ঠিত

বড় ক্যাসিনো শেয়ারবাজারের ভয়াবহ বিপর্যয়ে বহাল তবিয়তে ডাকাতরা

লাখ লাখ পরিবার ক্যাসিনোর চেয়েও বড় আতঙ্ক শেয়ারবাজারে নিঃস্ব। । প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কোটি মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত। প্রতিদিনই হাওয়ায় মিশে যাচ্ছে হাজার হাজার কোটি টাকার বাজারমূলধন। শুধু গত ৭ মাসেই ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) বাজারমূলধন  ৬৫ হাজার কোটি টাকা কমে যাওয়ায় বেশির ভাগ বিনিয়োগকারী পুঁজি হারিয়ে পথে বসেছে।

শুধু বিনিয়োগকারী নয়, শেয়ারবাজারে ভয়াবহ বিপর্যয়ে সর্বস্তরের মানুষকে সর্বস্বান্ত করে  বহাল তবিয়তে আছে ডাকসাইটে ডাকাতরা। হাজার হাজার নারীও তার সঞ্চয়ের শেষ সম্বলটুকু হারিয়ে ফেলেছে। চাকরি হারিয়ে ব্রোকারেজ হাউসের কয়েক হাজার চাকরিজীবীও দিশেহারা।  মিশন থেকে ফিরে আসা বহু কর্মকর্তার বিপুল অংকের টাকাও খোয়া গেছে এই রাক্ষুসী শেয়ারবাজারে। এছাড়া শুধু দেশের মানুষের নয়, শেয়ারবাজার চাঙ্গা করতে এসে চীনা কোম্পানিরও তিক্ত অভিজ্ঞতা হয়েছে।

চক্রটির লুটপাট এমন স্তরে গিয়ে ঠেকেছে যে, তারা ৫০ টাকার শেয়ার ২ টাকায় নিয়ে এসেছে। এর কারণটাও হতবাক করার মতো। সর্বস্ব খুইয়ে তারা জানতে পেরেছে ৫০ টাকা দিয়ে যে শেয়ার কেনা হয়েছে সেই কোম্পনির কোনো অস্তিত্বই নেই। এর জন্য নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) তার দায় কোনোভাবে এড়াতে পারে না। কেননা, বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ সুরক্ষা করতে তাদেরকে বসানো হয়েছে।

প্রথম লুটপাট হয়েছে দুর্বল কোম্পানির অনুমোদন ও বেপরোয়া প্লেসমেন্ট বাণিজ্যের মাধ্যমে। বাজারে এমন প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন দেয়া হয়েছে, যার অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায় না। অথচ যারা লুট করেছেন, তাদের অনেকেই সভা, সমাবেশ ও সেমিনারে বক্তব্য দিয়ে মানুষকে জ্ঞান দিচ্ছেন। ব্যবসা বাণিজ্যসহ সামগ্রিকভাবে অর্থনীতির উন্নয়নেও তারা উপদেশ দিয়ে যাচ্ছেন। এমন দৃশ্য দেখে সরকারের ওপর ভুক্তভোগীদের ক্ষোভের ঝাঁজ আরও বাড়ছে। তাদের কয়েকজন যুগান্তরকে জানিয়েছেন, অনতিবিলম্বে তাদেরকে চলমান দুর্নীতিবিরোধী অভিযানে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে হবে। তা না হলে একদিন গণআদালতে এদের বিচার হবেই হবে। ইতিমধ্যে এছাড়া বিনিয়োগকারীরা সংবাদ সম্মেলন করে এদের শাস্তির দাবি জানিয়েছে।

জানতে চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, শেয়ারবাজারের সংকট একদিনের নয়। অনেক দিন থেকে চলে আসছে। তিনি বলেন, যে যেভাবেই বিশ্লেষণ করুক, মূল সমস্যা হল এই বাজারের প্রতি বিনিয়োগকারীদের কোনো আস্থা নেই। কারণ বিভিন্ন সময়ে যারা বিনিয়োগকারীদের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে, তাদের বিচার হয়নি। ফলে আস্থা ফিরে আনতে কাজ করতে হবে। এক্ষেত্রে সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে। অর্থাৎ অনিয়মের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি যত শক্তিশালী হোক এবং যে পদেই থাকুক তাদের আইনের আওতায় এনে বিচার করতে হবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ বলেন, শেয়ারবাজারসহ সামগ্রিকভাবে আর্থিক খাত দুর্বৃত্তদের দখলে। ফলে ক্যাসিনোর মতো এখানে বড় অভিযান চালাতে হবে। এক্ষেত্রে অন্য কেউ নয়, প্রধানমন্ত্রীকে শক্ত অবস্থান নিতে হবে। তিনি বলেন, বিনিয়োগকারীদের এমন একটি বার্তা দিতে হবে, যে কারসাজির মাধ্যমে কেউ তার টাকা হাতিয়ে নিলে বিচার হয়। এতে বিনিয়োগকারীদের আস্থা বাড়বে। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর শক্ত অবস্থান নেয়া ছাড়া আমি এর সমাধান দেখি না।

ডিএসই সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছরের ১৪ মার্চ ডিএসইর বাজারমূলধন ছিল ৪ লাখ ২০ হাজার কোটি টাকা। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তা কমে ৩ লাখ ৫৫ হাজার টাকায় নেমে এসেছে। এ হিসাবে আলোচ্য সময়ে ডিএসইর বাজারমূলধন কমেছে ৬৫ হাজার কোটি টাকা। ৫০ টাকার শেয়ারের দাম নেমে এসেছে ২ টাকায়। এর মধ্যে যারা মার্জিন ঋণ নিয়ে বিনিয়োগ করেছে, তারা পুঁজি হারানোর পরও বিভিন্ন ব্রোকারেজ হাউস ও মার্চেন্ট ঋণগ্রস্ত। শুধু ব্যক্তি বিনিয়োগকারী নয়, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরও রয়েছে এ সমস্যায়। অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের ইক্যুইটি নেতিবাচক। আর এ সমস্যা থেকে উত্তরণে আপাতত কোনো সুখবর নেই। ফলে আর্থিক সংকটে স্টক এক্সচেঞ্জ ও ব্রোকারেজ হাউসে প্রতিনিয়ত জনবল ছাঁটাই হচ্ছে। বেশ কয়েকটি ব্রোকারেজ হাউস বন্ধ হওয়ার পথে। সব মিলিয়ে অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে সংকটে শেয়ারবাজার।

গত কয়েক বছরে বাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে, এমন ৫০টি কোম্পানিটির শেয়ার নিয়ে বিশ্লেষণ করা হয়েছে। এর মধ্যে কোম্পানিগুলো তালিকাভুক্তির পর প্রথম দিনে যে শেয়ার মূল্য ছিল, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৪০ ভাগের এক ভাগে নেমে এসেছে। তিনটি কোম্পানি অস্তিত্ব সংকটে। ২০১৩ সালে বাজারে তালিকাভুক্ত হয় ফ্যামিলি টেক্সটাইল। লেনদেন শুরুর দিন প্রতিষ্ঠানটির সর্বোচ্চ দাম ছিল ৪৮ দশমিক ৫০ টাকা। বৃহস্পতিবার তা ২ টাকায় নেমে এসেছে। ২০১৫ সালে তালিকাভুক্ত হয় সিএনএ টেক্সটাইল। এসব শুরুর দিন প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারের দাম ছিল ২২ টাকা। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত তা ১ টাকায় নেমে এসেছে। পদ্মা লাইফ ১৬৩ টাকা থেকে ১৫ টাকায়, দেশবন্ধু পলিমার ৭৪ টাকা থেকে ১২ টাকায়, সলভো কেমিক্যাল ৬৯ থেকে ৮ টাকায়, ফার কেমিক্যাল ৫৩ থেকে ৮ টাকায়, মোজাফফর স্পিনিং ৪৬ থেকে ৭ টাকা, সাইফ পাওয়ার ৭২-১৪ টাকা, ন্যাশনাল ফিড ৪৩-৬ টাকা, ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড ৬৩-১২, এমারেল্ড অয়েল ৫০-১৪, ওয়াইমেক্স ১১২-১২, সেন্ট্রাল ফার্মা ৩৮-৭, আর্গন ডেনিম ৮২-১৭, জিএসপি ফাইন্যান্স ৫৩ থেকে ১৪, ফারইস্ট নিটিং ৪৬-১১, সান লাইফ ইন্স্যুরেন্স ৮৩-১৪, খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিং ৩৮-১৪, হামিদ ফেব্রিকস ৫৭-১৬, আরডি ফুড ৩৮-১১, আমরা নেটওয়ার্ক ১৩৯-৪২, ইয়াকিন পলিমার ৩২-৭, গ্লোবাল হেভিকেমিক্যাল ১০০-২৯, বারাকা পাওয়ার ৭৩-২৫, গোল্ডেন হারভেস্ট ৭৭-২৩, আমান ফিড ৯৯-২৯, ওরিয়ন ফার্মা ৭৫-২৮, এএফসি এগ্রোকেমিক্যাল ৬৫-২১, ইন্ট্রাকো রিফিউলিং স্টেশন ৪৬-১৫, বেঙ্গল উইনসোর ৫৫-১৯, জিপিএইচ ইস্পাত ৭৩-৩১, আমান কটন ৭৫-২৯, এমআই সিমেন্ট ১৩৩-৪১, এসএস স্টিল ৫১-৩৩, ইন্দোবাংলা ফার্মা ৪৫-১৬, তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিজ ৩৬-১১, এনভয় টেক্সটাইল ৬২-২৭, বাংলাদেশ বিল্ডিং সিস্টেম ৪৮-১৮, আরএসআরএম স্টিল ৭৮-৩০, প্যাসিফিক ডেনিম ২৭-১১, ইভিন্স টেক্সটাইল ২২-৯ এবং নাহি অ্যালুমিনিয়ামের শেয়ারের দাম ৮২ থেকে ৪০ টাকায় নেমে এসেছে।

অন্যদিকে বাজারমূলধনের বিবেচনায় শেয়ারবাজারে সবচেয়ে বড় কোম্পানি গ্রামীণফোন। সাম্প্রতিক সময়ে প্রতিষ্ঠানটির আয় কমছে। এছাড়াও ১২ হাজার কোটি টাকা পাওয়া নিয়ে সরকারের সঙ্গে কোম্পানিটির জটিলতা তৈরি হয়েছে। এছাড়াও তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর আয় কমছে। আর্থিক অবস্থা খারাপের কারণে চলতি বছর ২১ কোম্পানি বিনিয়োগকারীদের কোনো লভ্যাংশ দিতে পারেনি। সামগ্রিকভাবে বাজারে এর বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে।

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

দি নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
    123
25262728293031
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit