13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বাংলাদেশ ত্যাগের ইচ্ছে ক্রুইফের

admin
September 1, 2015 6:08 am
Link Copied!

স্পোর্টস ডেস্ক: এক দিকে অস্ট্রেলিয়া বধের জন্য বাংলাদেশকে তৈরি করছেন অন্যদিকে, সেই অস্ট্রেলিয়াতেই কোচ হিসেবে চাকরির অভিপ্রায় বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের কোচ লোডভিক ডি ক্রুইফের। সম্প্রতি এশিয়ান ফুটবল বিশেষজ্ঞ জন দিয়েরডেনকে দেওয়া ক্রুইফের এক সাক্ষাতকারে তেমন ইঙ্গিতই মিলেছে।

অস্ট্রেলিয়ায় কোনো একটি দল বা ক্লাবের কোচ হতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশের এই ডাচ কোচ। বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ সামনে রেখে এশিয়া অঞ্চলের বাছাইপর্বের খেলায় আগামী ৩ সেপ্টেম্বর মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ ও স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়া। ম্যাচটি সামনে রেখে এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়াকে এক প্রকার হুমকিই দিয়েছেন বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের কোচ। ক্রুইফ বলেছেন, ‘এশিয়ার নাম্বার ওয়ান দলকে মোকাবেলা করা সহজ কথা নয়। আমাদের এই ম্যাচে সতর্ক থাকতে হবে। অস্ট্রেলিয়া দারুণ খেলে।

বিশ্বের বড় বড় লিগে খেলার অভিজ্ঞতাসম্পন্ন দারুণ কিছু ফুটবলার রয়েছে তাদের। অবশ্যই তাদের (অস্ট্রেলিয়া দল) সম্মান করি আমরা। তবে আমরা কিন্তু এই ম্যাচে নিজেদের লুকিয়ে রাখব না। কেননা, এটা কোনো প্রমোদ ভ্রমণ নয়, আমাদের দলের খেলোয়াড়রাও পুরোদস্তুর পেশাদার এবং গত ৩ বছরে এদের অনেকেই তারকায় পরিণত হয়েছে। আমাদের দলেও অভিজ্ঞতা সম্পূর্ণ খেলোয়াড় রয়েছে। তবে ক্রুইফ বাস্তবভিত্তির দাঁড়িয়েই কথা বলেছেন দিয়েরডেনের সঙ্গে। তিনি স্বীকার করেছেন যে বিশ্বকাপের এই বাছাইপর্বে খুব বেশি প্রত্যাশা করার নেই বাংলাদেশের। তবে গ্রুপ-বি’তে যতটা সম্ভব উপরের দিকে থেকেই এই মিশন শেষ করা উচিত। তাতে করে অন্তত ২০১৯ সালের এশিয়ান কাপ ফাইনালসে খেলার সুযোগ মিললেও মিলতে পারে বাংলাদেশের।

ক্রুইফের ভাষায়, ‘বাছাইপর্বের এই পথ চলা শুরুর আগে আমি গ্রুপের তৃতীয় স্থানকে টার্গেট করেছিলাম। এটা অবশ্যই অনেক উঁচু টার্গেট। কিন্তু লক্ষ্য ছাড়া পেশাদার ফুটবল খেলার কোনো মানে নেই। সাক্ষাতকারে বাংলাদেশের ফুটবলের ভূয়সী প্রশংসাই করেছেন ক্রুইফ। সেই সঙ্গে বাংলাদেশের ফুটবল উন্নয়নের বিষয়েও রেখেছেন নিজস্ব বক্তব্য। ক্রুইফ বলেছেন, ‘বাংলাদেশে ফুটবল খুবই প্রাণবন্ত। আমাদের এখানে ১৮০ মিলিয়ন মানুষ রয়েছে এবং রয়েছে অসংখ্য ফুটবল ট্যালেন্টস। আমাদের শুধু এই প্রতিভাগুলো খুঁজে বের করতে হবে এবং তাদের প্রশিক্ষিত কোচের মাধ্যমে ভাল ফুটবল শিখাতে হবে।

সম্প্রতি বাংলাদেশের খেলায় ম্যাচের শেষ দিকে গোল খাওয়া যেন একটি অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। এই বিষয়ে বাংলাদেশের এই ডাচ কোচ বলেছেন, ‘এটা মনোযোগ ধরে রাখতে না পারার সমস্যা। এ জন্য বেশি করে আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে হবে। যদি আন্তর্জাতিক ফুটবলের উচ্চ পর্যায়ে তারা বেশি করে খেলার সুযোগ পায় তাহলে দলের ফুটবলারদের পুরো ৯০ মিনিটই মনোযোগ ধরে রেখে খেলায় অভ্যস্ত হবে। এরপরই বাংলাদেশের কোচ হিসেবে নিজের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা জানাতে গিয়ে ক্রুইফ বলেছেন, ‘প্রায় তিন বছর আগে আমি যখন দায়িত্ব নেই তখন বাংলাদেশ ইংলিশ ফুটবলের পুরনো একটি স্টাইল অনুসরণ করে খেলত, রং পাসে। যে কারণে তারা বল পেলে কিংবা প্রতিপক্ষ বল পেলে লাইনগুলোর মধ্যে অনেক বেশি ফাঁকা স্থান থেকে যেত। দলের টেকটিক্যাল শৃঙ্খলা বলেও তেমন কিছু ছিল না। দায়িত্ব নেওয়ার পর আমি দলকে ডাচ ফুটবলের স্টাইলে খেলানোর চেষ্টা করি এবং নিজেদের মতো করে একটি স্টাইল তৈরি করি। আসলে এই একটি স্টাইল (ডাচ ফুটবলীয় স্টাইল) সম্পর্কেই আমি অভিজ্ঞ। কারণ এর মধ্য দিয়েই বেড়ে উঠেছি আমি। বাংলাদেশ দলের ফুটবলাররাও এই স্টাইল খুব সহজেই আয়ত্ত করে নিয়েছে। আসলে কোনো কাজেই শেখার শেষ নেই। তবে এখন অব্দি দলের পারফরম্যান্সে আমি সন্তুষ্ট। তবে দলের পারফরম্যান্সে সন্তুষ্ট হলেও বাংলাদেশের কোচ হিসেবে তার চাকরি যেভাবে ভাসমান প্রক্রিয়ায় রয়েছে তাতে হয়তো বা খুশি নন এই ডাচ কোচ।

তাই তো ক্রুইফ বলেছেন, ‘টিকে থাকার ক্ষেত্রে বাংলাদেশে এটা (কোচের চাকরি) কঠিন সংগ্রামের বিষয়। তবে আমি বিষয়টি উপভোগ করি। আমি অস্ট্রেলিয়ায় কাজ করতে আগ্রহী। আমার অভিজ্ঞতা, শিক্ষা এবং অতীত ইতিহাসের কারণে আমার মনে হয়, অস্ট্রেলিয়ান সিস্টেমের সঙ্গে সফলভাবে মিশে যেতে পারব।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশের ফুটবলে লোডভিক ডি ক্রুইফ অধ্যায়ের শুরু ২০১৩ সালে। ২ বছরের চুক্তিতে ওই বছর জানুয়ারিতে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলের প্রধান কোচ হিসেবে দায়িত্ব নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু বাংলাদেশের কোচ হিসেবে ক্রুইফের চাকরি অভিজ্ঞতা সুখকর নয় মোটেও। দেড় বছরের মাথায় তাকে বরখাস্ত করেছিল বাফুফে। এ নিয়ে জল ঘোলা হয়েছে বিস্তর। শেষ অব্দি চলতি বছর বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল পর্যন্ত ক্রুইফকে রেখে দিতে বাধ্য হয়েছিল বাফুফে। বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে বাংলাদেশ সাফল্য পেলে ফের ক্রুইফকেই কোচ হিসেবে রেখে দেওয়া হয়। তবে কোনো স্থায়ী চুক্তিতে নয়। অস্থায়ী ভেলায় ভেসে বাংলাদেশের ফুটবলের সঙ্গে এগিয়ে চলেছেন এই ডাচ কোচ।

বাফুফের দেওয়া তথ্যানুসারে, আগামী ৮ সেপ্টম্বর শেষ হবে ক্রুইফের অস্থায়ী চুক্তির মেয়াদ। এরপর কি হবে? এর উত্তরে বাফুফের সহ-সভাপতি সালাম মুর্শেদী সম্প্রতি বলেছেন, ‘এই বিষয়ে আমরা পরে সিদ্ধান্ত নেব।’ তবে বাফুফে এ নিয়ে পরে সিদ্ধান্ত নিতে চাইলেও ক্রুইফ সম্ভবত এমন ভাসমান চাকরি আর করতে চাইছেন না। সেই কারণেই হয়তো জন দুয়েরডেনকে দেওয়া সাক্ষাতকারে অস্ট্রেলিয়ায় কোচ হওয়ার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন বাংলাদেশের ডাচ কোচ।

http://www.anandalokfoundation.com/