13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

বই মেলায় সাড়া জুগিয়েছে ‘চারনকবি মুকুন্দ দাস এর জীবনী গ্রন্থ

Link Copied!

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় ব্যাপক সাড়া জুগিয়েছে বরিশালের সন্তান লেখক ও গবেষক মিহির দত্তের লেখা বৃট্রিশ বিরোধী আন্দোলনের পুরোধা ‘চারনকবি মুকুন্দ দাস’র জীবনী নিয়ে তথ্য বহুল গ্রন্থ। আখঁরী প্রকাশনীর এ বইটি পাওয়া যাচ্ছে মেলার ৩১ নম্বর স্টলে বিশ্বসাহিত্য ভবন প্রকাশনীতে।

ষাট’র দশকের সাড়া জাগানো লেখক, গবেষক ও সাংবাদিক মিহির দত্ত’র লেখা বৃট্রিশ বিরোধী আন্দোলনের পুরোধা চারণ কবি মুকুন্দ দাস বইটি সম্পাদক করেছেন ভাষা সৈনিক ও মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সাংবাদিক শুভব্রত দত্ত। মুকুন্দ দাস বাঙালি কবি যাকে চারণ কবি বলে অভিহিত করা হয়। তিনি (মুকুন্দ দাস) স্বদেশী ও অসহযোগ আন্দোলনের সময় বহু স্বদেশী বিপ্লবাত্মক গান ও নাটক রচনা করে খ্যাতি অর্জন করেন। তিনি ছিলেন স্বদেশী যাত্রার প্রবর্তক। “হাসি হাসি পরবো ফাঁসি/দেখবে জগৎবাসী/বিদায় দে মা ঘুরে আসি।”

এধরনের অসংখ্য অমর গানের ¯্রস্টা কবি মুকুন্দ দাস। ১৯০৩ সালে ‘সাধন সঙ্গীত’ নামে মুকুন্দ দাসের একটি গানের বই বরিশাল থেকে প্রকাশিত হয়। তাতে শতাধিক গান স্থান পায়। দেশের মানুষকে পরাধীনতার বিরুদ্ধে ও নানাপ্রকার সামাজিক দুর্দশার বিরুদ্ধে সচেতন করার উদ্দেশ্যে তিনি গান ও যাত্রা রচনায় মনোনিবেশ করেন। ১৯০৫ সালে বঙ্গভঙ্গ আন্দোলনকে কেন্দ্র করে বরিশালে তুমুল ইংরেজ বিরোধী বিক্ষোভ দেখা দেয়। ওইসময় মুকুন্দ দাস নিজে ওই বিক্ষোভে অংশগ্রহণ করে একের পর এক গান, কবিতা ও নাটক রচনা করে বাঙ্গালীর জাতীয় জীবনে নূতন উদ্দীপনার সঞ্চার করেন। ইংরেজদের বিরুদ্ধে জনগণকে ক্ষেপিয়ে তোলার অভিযোগে ইংরেজ সরকার মুকুন্দ দাসকে গ্রেপ্তার করেন। বিচারে মুকুন্দ দাসের তিন বছরের সশ্রম কারাদন্ড হয়। কিছুদিন বরিশাল জেলে রাখার পর মুকুন্দ দাসকে দিল্লি জেলে স্থানান্তরিত করা হয়। মুকুন্দ দাস কারাবাসে থাকাকালীন তার স্ত্রী সুভাষিণী দেবীর মৃত্যু হয়।

মহাত্মা গান্ধীর আহুত অসহযোগ আন্দোলনের সময় মুকুন্দ দাস মাতৃপূজা কর্মক্ষেত্র, পল্লীসেবা প্রভৃতি যাত্রাপালা রচনা করেন। মুকুন্দ দাসের এসব যাত্রাপালাকে বাংলা নাট্যসাহিত্যে সংগ্রামী সংযোজনরূপে গণ্য করা হয়। দেশ বিখ্যাত চারণ কবি ও স্বদেশী পল্লী অঞ্চলের তৃণমূল মানুষের সুখ দুঃখের কাহিনীর গান ও ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনের কবি মুকুন্দ দাশের অবদান অপরিসীম। মুকুন্দ দাস কলকাতা থাকাকালে একবার বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম তার সাথে দেখা করেন। ১৯৩৪ সালের ১৮ মে কলকাতায় যাত্রা পরিবেশন করতে গিয়ে মুকুন্দ দাস হঠাৎ অসুস্থ হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

http://www.anandalokfoundation.com/