ঢাকা

সুবিধাবঞ্চিতদের ফ্রি কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র উদ্বোধন করলেন ভারতীয় হাই কমিশন

admin
November 2, 2018 7:55 pm
Link Copied!

বিশেষ প্রতিবেদক মনোরঞ্জন মজুমদারঃ  দরিদ্র জনগোষ্টী এবং সংখ্যালঘু ছাত্র-ছাত্রীদের অফিস ম্যানেজমেন্ট কোর্স সহ প্রফেশনাল গ্রাফিক্স ডিজাইন ও ওয়েব ডিজাইন ফ্রি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উদ্বোধন করলেন ভারতীয় হাই কমিশনের পক্ষে প্রথম সচিব জনাব রাজেশ উইকে।

আজ ২রা নভেম্বর শুক্রবার সকালে রাজধানীর স্বামীবাগস্থ নিউজ টাইম মিডিয়া লিমিটেডের এর অফিসে এই প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন তিনি। সপ্তাহে প্রতি শুক্রবার এই ফ্রি ক্লাস অনুষ্ঠিত হবে।

সুবিধাবঞ্চিত ছাত্রছাত্রীদেরকে বিনামূল্যে অফিস ম্যানেজমেন্ট, গ্রাফিক্স ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং, এসইও, আউটসোসিং এর প্রশিক্ষণ প্রদান করা হবে।

নিউজ টাইম মিডিয়া লিমিটেড এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রমিথিয়াস চৌধুরী বলেন, ‘সুবিধাবঞ্চিত ছেলেমেয়েরা সমাজে যাতে অবহেলিত না হয়, মাথা উঁচু করে বাঁচতে পারে, সে জন্য তাদের কারিগরি শিক্ষায় শিক্ষিত করে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে এই উদ্যোগ।

উক্ত অনুষ্ঠানে উদ্বোধনী বক্তব্য প্রদান করেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও গবেষক ধীরেন্দ্র নাথ বারুরী এবং পরিচালনা করেন দিনাজপুরস্থ মজিদনগর কারিগরি কলেজের অধ্যক্ষ বিপ্লব কুমার সাহা।

প্রশিক্ষণ কোর্সের প্রধান জানান, প্রশিক্ষণ কোর্সকে দুই ভাগে ভাগ করা হয়েছে। শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ১১টা ও বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে ৫টা পর্যন্ত প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এসএসসি পাস করা যে কেউ এই কোর্সে অংশ নিতে পারবেন। এ ছাড়া যেকোনো বয়সের ব্যক্তিরাও এ কোর্স করতে পারবেন।

আবেদন বাছাই প্রক্রিয়াঃ  নিউজ টাইম মিডিয়া লিমিটেড কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সংখ্যালঘু ছাত্র-ছাত্রীদের স্ব স্ব এলাকার প্রতিনিধি, ইউপি চেয়ারম্যান কিংবা সংখ্যালঘু নেতাদের প্রত্যায়ন পত্র বাধ্যতামূলক।  প্রার্থীকে বাংলাদেশের নাগরিক হতে হবে।

ভর্তির ফরম দ্যা নিউজ এর ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে অথবা স্বহস্তে ব্যবস্থাপনা পরিচালক, নিউজ টাইম মিডিয়া লিমিটেড বরাবর আবেদন করে পাসপোর্ট আকারের দুই কপি ছবি, জাতীয় পরিচয়পত্র বা জন্মনিবন্ধনের ফটোকপিসহ mail এ পাঠাতে হবে।

প্রতিষ্ঠান প্রধান বলেন, কোনো কোর্সে আবেদনকারীর সংখ্যা বেশি হলে মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে বাছাই করা হবে। খুব বেশি আবেদন পড়লে লিখিত পরীক্ষা নেওয়া হতে পারে। মৌখিক পরীক্ষায় প্রার্থীর আচার-ব্যবহার দেখা হবে। এ ছাড়া কেন প্রশিক্ষণ নিতে চায় বা প্রশিক্ষণ নিলে সে কতটুকু উপকৃত হবে। বাছাইয়ে অগ্রাধিকার পাবে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠি।

প্রতিষ্ঠান প্রধান জানান, আধুনিক উপকরণ ও অভিজ্ঞ প্রশিক্ষকদের মাধ্যমে এ প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রশিক্ষণার্থীদের শতভাগ হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রশিক্ষণার্থীদের প্রতিটি কাজ প্রশিক্ষকরা পর্যবেক্ষণ করবেন এবং তাঁদের মতামত দেবেন। প্রশিক্ষণার্থীদের দক্ষ করে তোলাই প্রশিক্ষণের মূল লক্ষ্য। প্রত্যেক প্রশিক্ষণার্থীকে আলাদা আলাদা কম্পিউটারের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

প্রশিক্ষিতদের এনটিআইআইটির বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানেও চাকরির ব্যবস্থা করার চেষ্টা করা হবে। চাকরি ক্ষেত্রে কোর্স শেষে ক্লাসের উপস্থিতি বিবেচনায় আনা হবে, যাচাই করা হবে প্রার্থীর দক্ষতাও। কোর্স শেষে প্রশিক্ষণার্থীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হবে এনটিআইআইটি র ডাটাবেজে।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সোনালী ব্যাংকের ডেপুটি ম্যানেজিং ডাইরেক্টর জনাব পরিতোষ কুমার তরুয়া, দি ফিনান্সিয়াল এক্সপ্রেস এর সহযোগি সম্পাদক নীলরতন হালদার, ভারতীয় পত্রিকা ডেইলি স্টেটসম্যানের বাংলাদেশ প্রতিনিধি বাসুদেব ধর, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও গবেষক ধীরেন্দ্র নাথ বারুরী, বাংলাদেশ সফররত ভারতীয় কবি ও নদী গবেষক এবং দুই বাংলার নদী কেন্দ্রীক ভাষা-সংস্কৃতি রক্ষা আন্দোলনের কর্মী কৃষ্ণেন্দু বেরা, চিকিৎসক ও সমাজকর্মী ডাঃ সুব্রত ঘোষ, সমাজকর্মী দেবব্রত সরকার দেবু প্রমুখ।

মেইলঃ thenewse@gmail.com

উল্লেখ্য, শুধুমাত্র অনলাইনে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ।

http://www.anandalokfoundation.com/