তারাগঞ্জে পাঁচ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন নিলামে অনিয়মের অভিযোগ

    Rai Kishori
    September 18, 2021 12:27 pm
    Link Copied!

    দিপক রায়, রংপুর প্রতিনিধি : কয়েক লক্ষ টাকা ব্যয় করে নির্মাণ করা হয়েছিল ৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন। কয়েক বছর আগে নির্মিত ভবনগুলো ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা দিয়ে পরিত্যক্ত দেখান উপজেলা শিক্ষা অফিসার।

    উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে গোপন সমঝোতা করে কোটি টাকায় নির্মিত ভবনগুলোর স্টিমিট তৈরি করিয়ে নেন মাত্র ২ লক্ষ ৯৫ হাজার ৭১৬ টাকা মূল্যের। সিন্ডিকেট তৈরি করে লোক দেখানো নিলামের আয়োজন করে সেসব ভবন বিক্রি করেন মাত্র ৩ লক্ষ ২৬ হাজার ১০০ টাকায়। সম্প্রতি রংপুরের তারাগঞ্জ উপজেলার ৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঝুঁকিপূর্ণ ভবন নিলামে বিক্রি করে উপজেলা শিক্ষা দপ্তর। উক্ত বিদ্যালয়গুলো নিলামে বিক্রির নামে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোছাঃ আঞ্জুমান আরা বেগম ও বিদ্যালয়ের ভবনগুলোর স্টিমিট প্রস্তুতকারী উপজেলা প্রকৌশলী আহম্মেদ হায়দার জামানের বিরুদ্ধে।

    এসব বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা প্রকৌশলীর সাথে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তারা সুস্পষ্ট কোন তথ্য প্রদান করেন নি। উপজেলা প্রকৌশলীর কাছে ভবনগুলোর তথ্য চাইলে তিনি দেখিয়ে দেন শিক্ষা দপ্তরকে। শিক্ষা অফিসারের কাছে ভবনগুলোর তথ্য চাইলে তিনি শুধু স্টিমিটে কোন বিদ্যালয়ের ভবন কত টাকার স্টিমিট করা হয়েছে এবং নিলামে কত টাকায় বিক্রি করা হয়েছে তা মৌখিকভাবে বলেন। তারই তথ্য অনুযায়ী জানা যায়, উপজেলার হাড়িয়ারকুঠি ইউনিয়নে অবস্থিত ইকরচালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটির স্টিমিট তৈরি করা হয় মাত্র ৬১ হাজার ১৫৯ টাকার ও এম ডাঙ্গীরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের স্টিমিট তৈরি করা হয় মাত্র ৫৫ হাজার ৮৮ টাকার। ইকরচালী ইউনিয়নে অবস্থিত কাচনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের স্টিমিট তৈরি করা হয় মাত্র ৬১ হাজার ১৫৯ টাকার ও বাছুরবান্ধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের স্টিমিট তৈরি করা হয় মাত্র ৭১ হাজার ৭৮৫ টাকার । সয়ার ইউনিয়নে অবস্থিত সয়ার ধোলাইঘাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের স্টিমিট তৈরি হয় ৪৭ হাজার ৬৪৫ টাকার। প্রস্তুতকৃত স্টিমিটের মূল্য অনুযায়ী নিলাম ডাকে সর্বনি¤œ দর ধার্য করা হয়।

    ইকরচালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনটি বিক্রি হয় মাত্র ৭১ হাজার ৫০০ টাকায় ও এম ডাঙ্গীরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন বিক্রি হয় মাত্র ৫৭ হাজার ৫০০ টাকায়, কাচনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন বিক্রি হয় মাত্র ৭১ হাজার ৫০০ টাকায় ও বাছুরবান্ধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন বিক্রি হয় মাত্র ৭৫ হাজার ১০০ টাকায় এবং সয়ার ধোলাইঘাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবন বিক্রি হয় মাত্র ৫০ হাজার ৫০০ টাকায়।

    স্টিমিট তৈরির বিষয়ে প্রতিবেদন লেখার সময় উপজেলা প্রকৌশলীর কাছে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি ব্যস্ততা দেখিয়ে ফোন কেটে দেন। নিলামকৃত বিদ্যালয় ভবনগুলোর বিষয়ে বিস্তারিত জানতে একাধিকবার উপজেলা প্রকৌশলী ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে সাক্ষাতে যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু তারা উভয়ই তথ্য দিতে টালবাহানা করায় তথ্য অধিকার আইনে বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) তথ্য চেয়ে আবেদন করেন দ্যা নিউজ এর রংপুর জেলা প্রতিনিধি ও তারাগঞ্জ থেকে প্রকাশিত একমাত্র প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকা তারার আলো’র স্টাফ রিপোর্টার সাংবাদিক দিপক রায়। তবে গত ২৬ আগস্ট উপজেলা হলরুমে আয়োজিত উক্ত নিলাম ডাক অনুষ্ঠানে উপস্থিত কয়েকজন সাংবাদিক ও দিপক রায়ের মুঠোফোনে ধারন করা ভিডিও ফুটেজ থেকে জানা যায়, উপজেলার ৫টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন পরিত্যক্ত দেখিয়ে তা নিলামে বিক্রি করা হয়। তবে সঠিকভাবে বিদ্যালয় ভবন নিলামের বিষয়টি প্রচারের ব্যবস্থা না করায় উক্ত বিদ্যালয়গুলোর ক্যাচমেন্ট এলাকার আগ্রহী অনেকেই জানেন না ভবন নিলামের কথা। ফলে ইচ্ছে ও আগ্রহ থাকা সত্ত্বেও তারা অংশগ্রহণ করতে পারেনি নিলাম ডাক অনুষ্ঠানে। নিলাম ডাক অনুষ্ঠানে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা প্রকৌশলী ও উপজেলা শিক্ষা অফিসারের আস্থাভাজন কয়েকজন ঠিকাদার অংশগ্রহণ করেন এবং ওই সকল ঠিকাদার তাদের কয়েকজন নিজস্ব ব্যক্তির নামে দরপত্র জমা দিয়ে নামের তালিকা দীর্ঘায়িত করেন। এধরনের সিন্ডিকেটের কারণে দরপত্র ও নির্ধারিত ফি জমা দিয়েও দর ডাকার সুযোগ পায়নি আগ্রহী অনেকেই। ফলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে ওই পাঁচ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সংলগ্ন এলাকাগুলোতে। ফলে অতি স্বল্প মূল্যে এসব ভবন বিক্রি হওয়ায় সরকার রাজস্ব হাড়িয়েছে কয়েক লক্ষ টাকার।

    ভবনগুলো নিলামে কিনে নেওয়া কয়েকজন জানান, কোন পত্রিকায় বিদ্যালয় ভবন নিলামের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে তা তারা জানেন না। তারা প্রকৌশলী অফিস সূত্রে খবর পেয়ে দরপত্র জমা দিয়েছেন। তবে পত্রিকায় দরপত্র প্রকাশের খরচ বাবদ তাদের প্রত্যেকের কাছ থেকে উপজেলা শিক্ষা অফিসে ভবন ভাঙ্গার অনুমতিপত্র দেওয়ার সময় ৫ হাজার করে মোট ২৫ হাজার টাকা নেওয়া হয়েছে।

    সরেজমিনে ওই পাঁচটি বিদ্যালয় ঘুরে ও বিদ্যালয়ের এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, ইকরচালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় স্থাপিত হয় ১৯৩৬ সালে এবং বিদ্যালয় ভবনটি নির্মিত হয় ১৯৯২ সালে। ওই এলাকার কয়েকজন প্রবীণ ব্যক্তি বলেন, বিদ্যালয় ভবনটি যখন নির্মাণ হয় তখন আমরা যুবক বয়সের। ভবন নির্মাণের বিষয়ে সব কিছু মনে নেই। তবে আমরা শুনেছিলাম ভবনটি ৪ লক্ষাধিক টাকায় ভবনটি নির্মিত হয়েছিল। বিদ্যালয় ভবনটি নিলামে কিনে নিয়েছেন উপজেলার থানাপাড়ায় বসবাসরত আওয়ামীলীগ নেতা আনোয়ারুল হক। ১৯২৫ সালে স্থাপিত এম ডাঙ্গীরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় ৫ কক্ষ বিশিষ্ট ভবনটি ভাঙ্গার কাজ চলমান রয়েছে। সেখানে কথা হয় দুজন বয়োবৃদ্ধের সাথে। তারা বলেন, এই স্কুলের ভবনটা কত সালে নির্মাণ করা হয়েছে তা ঠিক মনে নেই। তবে আমরা তখন বয়সে খানিকটা ছোটই ছিলাম। আশেপাশের এলাকাগুলো থেকে আমাদের বাবা চাচারা চান্দা তুলে এনে এই ভবনটি নির্মাণ করেছিল। আমরাও গিয়েছিলাম তাদের সাথে চান্দা কালেকশন করিবার। পাকিস্থান আমলে প্রায় ৩ লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছিল এই ভবনটা। ভবনটা যে এভাবে নিলামে তোলা হবে আমরা কল্পনাও করি নাই। নিলামে তোলা হবে জানলে এদিকের অনেকেই অংশ নিতো। কিন্তু আমাদের এেিকর মানুষ জানেই না এই নিলামের কথা। এখন শুনা যায়ছে রংপুরের মাসুদ রানা নামের কোন ঠিকাদার নাকি নিলামে এই ভবনটা কিনে নিয়েছে।

    একই কথা শোনা যায় ১৯৮৯ সালে স্থাপিত বাছুরবান্ধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকায়। বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকার কেউই জানে না বিদ্যালয় ভবন নিলামে তোলা হয়েছে। তাই নিলাম ডাকে অংশগ্রহণ করতে পারেনি উক্ত এলাকার নিলাম ডাকে অংশগ্রহণে আগ্রহী কোন ব্যক্তি। প্রায় ৪ লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে নির্মিত ভবনটি মাত্র ৭৫ হাজার ৫০০ টাকায় নিলামে পেয়েছে তারাগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলীর ঘনিষ্ঠ ঠিকাদার মেহেদী হাসান শিপু। অপরদিকে কাচনা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এলাকায় ঘুরেও জানা যায় একই কথা। বিদ্যালয়টি কাচনা ওয়ার্ডে হলেও ওই ওয়ার্ডের কেউই জানে না বিদ্যালয় ভবন নিলামের বিষয়ে। ফলে নিলাম ডাক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার আগ্রহ থাকলেও অংশগ্রহণ করতে পারেনি ওই ওয়ার্ডের কোন আগ্রহী ব্যক্তি। বিদ্যালয় ভবনটি নিলামে কিনে নিয়েছেন পাশর্^বর্তী ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মিলন মিয়া।

    এদিকে সয়ার ধোলাইঘাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, নিলাম হওয়া পাঁচ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভবনের মধ্যে এই বিদ্যালয় ভবনটি অনেক ব্যতিক্রম। অন্য চারটি বিদ্যালয়ের ভবন টিনশেড হলেও এই ভবনটি ছাদ পেটানো। ছাদ পেটানো এই বিল্ডিংয়ের স্টিমিট করা হয় সব থেকে কম মূল্যের। প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে নির্মিত এই ভবনটির স্টিমিটে মূল্য নির্ধারণ করা হয় মাত্র ৪৭ হাজার ৬৪৫ টাকার এবং নিলামে এই ভবন শামীম হোসেন সাবু নামের এক ব্যক্তি কিনে নেন মাত্র ৫০ হাজার ৫০০ টাকায়। বিদ্যালয়টি ১৯৯০ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও বিদ্যালয় ভবনটি সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নে নির্মিত হয় ১৯৯৪-৯৫ অর্থ বছরে। বিদ্যালয় এলাকার অনেকেই জানান, বিদ্যালয়ের ভবনটি নিলাম হওয়ার খবর বিদ্যালয় এলাকার কেউই জানেন না। তারা অনেকেই আগ্রহী ছিলেন বিদ্যালয় ভবনটি কেনার জন্য। বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে নিলাম ডাক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হলে বা নিলামের খবর এলাকার মানুষ জানলে বিদ্যালয় এলাকার অন্তত ৫০ জনেরও বেশি মানুষ অংশগ্রহণ করতো এই নিলাম ডাক অনুষ্ঠানে।

    এসব বিষয়ে কথা হয় উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোছাঃ আঞ্জুমান আরা’র সাথে। তিনি বলেন, দুইটি পত্রিকায় এই নিলামের দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। এছাড়াও বিদ্যালয়গুলোতে নোটিশ দেওয়া হয়েছে। ব্যাপকভাবে প্রচার করা হয়েছে পাঁচটি বিদ্যালয়ের ভবন নিলামের বিষয়ে। নিলামে ভবনগুলো কিনে নেওয়া ব্যক্তিদের কাছ থেকে ভবন ভাঙ্গার অনুমতিপত্র দেওয়ার সময় ৫ হাজার করে প্রত্যেকের কাছে টাকা নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা শিক্ষা অফিসার বলেন, এ বিষয়ে আমার জানা নেই। অফিসের পিওনের মাধ্যমে তাদের অনুমতিপত্র দেওয়া হয়েছে। সে যদি এই টাকা নিয়ে থাকে সে ব্যাপারে আমার জানা নেই। তবে ভবনগুলো নিলাম সংক্রান্ত বিষয়ে যা কিছু করা হয়েছে সবকিছু উপজেলা চেয়ারম্যান ও ইউএনও মহোদয়ের পরামর্শে করা হয়েছে।