13yercelebration
ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ডিসিফুড ও আরসি ফুডকে ম্যানেজ করে বহাল তবিয়তে যশোর সদর উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা

admin
October 8, 2015 1:12 pm
Link Copied!

যশোর প্রতিনিধিঃ একাধিক অভিযোগের পরও যশোর সদর উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা মনোতোষ কুমার মজুমদারের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। উল্টো তাকে একাধিক উপজেলায় দায়িত্ব দিয়ে লাগামহীন দুর্নীতি ও অনিয়মের সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়া হচ্ছে।

অভিযোগ রয়েছে, জেলা ও আঞ্চলিক খাদ্য কর্মকর্তাকে ম্যানেজ মনোতোষ মজুমদার সব অনিয়ম জায়েজ করে যাচ্ছেন। এতে সমগ্র জেলার খাদ্য বিভাগের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। নির্ভরযোগ্য সুত্রে জনা যায়, যশোর সদর উপজেলার খাদ্য কর্মকর্তা মনোতোষ কুমার মজুমদারের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। তিনি কখনো যুব ও ত্রুীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদারের নাতী জামাই, কখনো একজন সচিবের নিকট আত্বীয় পরিচয় দিয়ে ব্যাপক অধিপত্য বিস্তার করে যাচ্ছেন। নিম্নপদস্থ কর্মকর্তা কর্মচারীদের ভয়ভীতি দেখিয়ে বিভিন্ন অনৈতিক সুবিধা হাতিয়ে নিচ্ছেন। চলতি বোরো ধান-চাল সংগ্রহ মৌসুমে এ কর্মকর্তা ৩টি উপজেলা থেকে প্রায় অর্ধ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। চাল সংগ্রহে যশোর সদরের মিলারদের কাছ থেকে টন প্রতি ৩ হাজার টাকা ও  অভয়নগর, কেশবপুর উপজেলা থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা উৎকোচ নিয়েছেন। এতে বাধ্য হয়ে মিলাররা নিম্নমানের চাল গুদামে সবরাহ করেছে। আবার অনেকে ভারত থেকে আসা নিম্নমানের পুরনো চাল মিশ্রণ করে তা গুদামে সবরাহ করেছে।

কেশবপুরে নতুন উপজেলা কর্মকর্তা যোগদানের পূর্ব পর্যন্ত টন প্রতি ঘুষ গ্রহণ ছাড়াও কেশবপুর উপজেলার মিলারদের কাছ থেকে এ আলোচিত কর্মকর্তা বস্তা প্রতি ১ কেজি চাল বেশি সংগ্রহ করেছেন। পরে বিশেষ ব্যবস্থায় গুদামের নিম্নপদস্থ কর্মচারীদের দিয়ে ওই চাল বের করে নেয়া হয়। গুদামে সবরাহকৃত চালের মান যাচাই করলে নিম্নমানের চাল সংগ্রহের বিষয়টি ধরা পড়বে বলে সুত্রটি জানিয়েছে। সুত্র বলছে, কৃষকের পরিবর্তে সদর উপজেলার ৩/৪ জন ব্যাপারীর কাছ থেকে বোরো ধান ক্রয় করা হয়েছে। রাতের অন্ধকারে গুদামে ঢুকানো হয়েছে এ ধান। অতিরিক্ত উৎকোচ দাবি করায় কেশবপুর উপজেলার ব্যাপারীরা গুদামে ধান দিতে রাজি হয়নি। কিন্তু অসৎ উদ্দেশ্য আড়াল করতে মনোতোষ মজুমদার সাংবাদিকদের বলছেন গুদামে জায়গার সল্পতার জন্য ধান ক্রয় করা সম্ভব হয়নি।

সুত্র বলছে, বিগত গম সংগ্রহ মৌসুমে কৃষকের পরিবর্তে ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে গম কিনে এ অসাধু কর্মকর্তা ব্যাপক অর্থ বানিজ্য করেছিলেন। তখন একাধিক কৃষক অভিযোগ করলেও কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।  চৌগাছার খাদ্য শস্য ব্যবসায়ী জাহিদুর রহমানের কাছ থেকে এ কর্মকর্তা ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা নিয়ে হজম করে ফেলেন। পড়ে জাহিদুর রহমান যশোরের জেলা প্রশাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ করলে তিনি চাপে পড়ে ওই টাকা ফেরত দেন।

সুত্র বলছে, ধান চাল সংগ্রহে অর্থবানিজ্য ছাড়াও এ কর্মকর্তা মিলাদের লাইসেন্স প্রদান ও নবায়নে ব্যাপক অর্থবানিজ্য করছেন। বিগত আমন সংগ্রহের বাতিলকৃত মিলারদের লাইসেন্স  পুনরায় দপ্তরে পাঠিয়ে তাদের কাছ থেকে মোটা অংকের উৎকোচ হাতিয়ে নিয়েছেন। সুত্র বলছে, কেশবপুর খাদ্যগুদামের ওসিএলএসডি প্রবোধ কুমার পালকে ব্যবহার করে মনোতোষ মজুমদারের বিভিন্ন অনৈকিত কর্মকান্ড করে যাচ্ছেন। বিনিময়ে প্রবোধ কুমার পালকে তিনি কেশবপুর ও যশোর সদর উপজেলায় পৃথকভাবে ৩টি কোয়ার্টার ভোগদখলের সুযোগ করে দিয়েছেন। যশোর সদর গুদামের ঝুমঝুমপুর ক্যাম্পাসের ২ নং ও ৩ নং কোয়াটার (নীচ তলারপূর্ব এবং উপর তলার পশ্চিম পাশ্বের)উপরে সস্ত্রীক এবং নীচে ছেলে এবং মোটর সাইকেল থাকে। এছাড়া কেশবপুওে তার নামে একটি কোয়ার্টার রয়েছে। প্রবোধ পাল একইসাথে ৩টি সরকারি কোয়ার্টার কিভাবে দখল করে রেখেছেন তার কোন সুদুত্তর মিলছেনা।

সুত্র বলছে, মনোতোষ মজুমদার চৌগাছা খাদ্যগুদামের ওসিএলএসডি থাকাকালীন ব্যাপক লুটপাট করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। তখন ওই পদে স্থায়ীভাবে থাকতে কৌশল অবলম্বন করেন। তিনি পদোন্নতি না নিয়ে উল্টো তাকে কেন ‘স্থায়ীভাবে উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা হিসাবে কেন নিয়োগ করা হবে না’ মর্মে হাইকোর্টে রুল জারি করে মামলা করেন। ফলে তার পদোন্নতির বিষয়টি ঝুলে যায়। পরে ৩ বছর পূর্ন হলে তাকে গুদামের ওসিএলএসডি থেদে পুনরায় উপ পরিদর্শ হিসাবে বদলী করা হয়। তখন বেকায়দায় পড়ে তিনি ওই মামলা প্রত্যাহার করে পদোন্নতি নেন। সুত্র বলছে, ৫ জুন শুক্রবার নওয়াপাড়া খাদ্য গুদামের অভ্যন্তরে ত্রানখাতের চাল বিতরনে অনিয়ম করে ১৫ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নেন যশোর সদর উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা মনোতোষ মজুমদার। তিনি তখন কেশবপুর উপজেলার অতিরিক্ত খাদ্য কর্মকর্তার দায়িক্তে ছিলেন । পুরাতন চালের পরিবর্তে খামাল পাল্টিয়ে সদ্য সংগ্রহকৃত নতুন চাল বিতরন করে এ ছলচুরির আশ্রয় নেয়া নেন।

গুদামের ১টি খামাল থেকে সদ্য ক্রয়কৃত এক শত টন আমন চাল বের করে আনেন। ওই চাল আলমগীর হোসেন, ওসমান মোল্যা ও জীবন সাহার নিকট সবরাহ করা হয়েছে। এছাড়া সদর উপজেলার ডিও অনিয়মতান্ত্রিকভাবে বাঘারপাড়ায় প্রদান করে তিনি ১৫ লাখ টাকা হাতিয়ে নেন। সুত্র বলছে, মনোতোষ মজুমদারের অনৈতিক সুবিধ দিতে গিয়ে সরকারিভাবে ওএমএস বিক্রি কার্যত বন্ধের উপক্রম হয়েছে। প্রতি মাসে তিনি সদরের ১১ জন ডিলারের কাছ থেকে ৩৩ হাজার টাকা উৎকোচ গ্রহণ করেন। এছাড়া ৬টি ময়দার কল মালিকের কাছ থেকে মাসে ১ লাখ ৮০ হাজার টাকা নেয়া হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ডিলার জানান যে, ‘বাজারে আটার দাম কম হলেও আমরা চালাচ্ছিলাম। কিন্তু মনোতোষ বাবুর খায়েশ মিটাতে আমরা হিমশিম খাচ্ছি। ইচ্ছা থাকা সত্বেও এগুতে পারছিনা।’ একই কথা বলেন, রাজার হাটের ওহিদ ফ্লাওয়ার মিলের ম্যানেজার। তিনি বলেন, ‘মনোতোষ মজুমদারের সীমাহীন চাহিদার কারনে সরকারী বরাদ্দ গলার ফাঁস হয়েছে। তিনি তার অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে তার নামের বরাদ্দ প্রত্যাহারের জন্য খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের কাছে লিখিত আবেদন করেছেন।’ সুত্র বলছে, এই দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তার কারনে যশোরবাসী খোলা বাজারের পরিপূর্ন সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।’

সুত্র বলছে, মনোতোষ কুমার মজুমদার একাধিক অনিয়ম করেও রক্ষা পেয়ে যাচ্ছেন। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে অনীহা দেখাচ্ছে উদ্ধর্তন কর্তৃপক্ষ। অভিযোগ রয়েছে, জেলা খাদ্য কর্মকর্তা ও আঞ্চলিক খাদ্য কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে মনোতোষ মজুমদার তার দুর্নীতি অনিয়ম ধামা চাপা দিয়ে ফেলেছেন। সম্প্রতি খাদ্য অধিদপ্তর থেকে মনোতোষ মজুমদারে বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ তদন্তের জন্য আঞ্চলিক খাদ্য কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়। কিন্তু আরসিফুড ও জেলা খাদ্য কর্মকর্তা তদন্ত না করে ঘরে বসেই মনোতোষকে নির্দেশ প্রমাণ করে একটি রিপোর্ট দাখিল করে। এতে জেলা খাদ্য বিভাগের অন্যান্য কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের মধ্যে ক্ষোভ বাড়ছে। এ ব্যাপারে কথা বলার জন্য মনোতোষ মজুমদারের (০১৭১৮-৫৭০২৫৬ )মোবাইল নাম্বারে একাধিকবার কল করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

জেলা খাদ্য কর্মকর্তা কামাল হোসেন অভিযোগের বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘আঞ্চলিক খাদ্য কর্মকর্তা বিষয়টি দেখার জন্য তাকে একবার ফোনে জানিয়েছিলেন।’ আঞ্চলিক খাদ্য কর্মকর্তা কাজী নুরুল ইসলামের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তাকে ম্যানেজ করার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘সবার বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকে, আমার বিরুদ্ধে কত অভিযোগ আছে।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘মনোতোষ মজুমদারের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগগুলো দেখতে জেলা খাদ্য কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বিষয়টি কী অবস্থায় আছে তা একদিন পর ফোন করলে জানাতে পাববো।’ পরে একাধিবার ফোন করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেনি। এ ব্যাপরে কথা বলার জন্য খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচাল ফয়েজ আহমদের সাথে কয়েক দফা যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

http://www.anandalokfoundation.com/