ঢাকা
আজকের সর্বশেষ সবখবর

আজ বিশ্ব বাঁ-হাতি দিবস

নিউজ ডেস্ক
August 13, 2022 10:27 am
Link Copied!

আজ বিশ্ব বাঁ-হাতি দিবস। কর্মক্ষেত্রে বাঁ হাতিদের অসুবিধা দূরীকরণে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে ১৯৭৬ সাল থেকে ১৩ আগস্টকে ‘লেফট হ্যান্ডারস ইন্টারন্যাশনাল ডে বা আন্তর্জাতিক বাঁ-হাতি দিবস’ হিসেবে উদযাপন করা হয়।

১৯৭৬ সালে প্রথম পালিত হয় আন্তর্জাতিক বাঁ-হাতি দিবস। শুরুটা করেন, ডিন আর ক্যাম্পবেল নামে এক ব্যক্তি, যিনি ‘লেফ্টহ্যান্ডার্স ইন্টারন্যাশনাল’ নামে এক সমিতি প্রতিষ্ঠা করেন। সেই থেকে প্রতি বছর ১৩ আগস্ট পালিত হয় এই দিনটি। মানুষকে বোঝানোর চেষ্টা হয়, বাঁ-হাতি হলে যেমন কিছু অসুবিধা আছে, তেমন কিছু সুবিধাও আছে। বিশ্বে নারী-পুরুষ মিলিয়ে প্রায় দশ শতাংশ মানুষ বাঁ-হাতি। আর বিশ্বের বিখ্যাত মানুষের তালিকায় বাঁ-হাতিদের সংখ্যাটা নেহাত কম নয়।

পৃথিবীতে ৮০ থেকে ৯০ ভাগ মানুষই ডানহাতি। আর মাত্র ১০ ভাগ লোক বাঁ-হাতি। ডানহাতি মানুষের সংখ্যা বেশি হওয়ায় বাঁ-হাতি এই ১০ ভাগের মূল্যায়ন দেখা যায় না, এমনকি কোনো পণ্য প্রস্তুতের ক্ষেত্রে তাদের কথা ভাবাও হয় না। যার বড় প্রমাণ কম্পিউটারের মাউস থেকে শুরু করে আলমারির হাতল পর্যন্ত। এসব জিনিস ডান হাতি ব্যবহারকারীদের উপযোগী করে তৈরি। এ কারণে প্রতিটি ক্ষেত্রেই বাঁ-হাতি মানুষদের নানা ধরনের সমস্যায় পড়তে হয়।

আসলে বিশ্ব জুড়ে আন্তর্জাতিক বাঁ-হাতি দিবস পালন করা হয় সম্ভবত এই সব মানুষকে বোঝানোর জন্য যে, এটা কোনো অস্বাভাবিকতা নয়। ডান-হাতিরা যেমন মস্তিষ্কের বাঁ দিকের অংশটি বেশি ব্যবহার করেন, তেমনই বাঁ-হাতিরা মস্তিষ্কের ডান দিকের অংশ বেশি ব্যবহার করেন।

একবার বাঁ-হাতি বিখ্যাত মানুষদের তালিকায় চোখ বোলালেই বুঝতে পারবেন, তারা ডান-হাতিদের থেকে কোনো অংশে কম নয়, শুধু ডান হাতের বদলে বাঁ হাত ব্যবহারে সচ্ছন্দ। অ্যালবার্ট আইনস্টাইন, অ্যারিস্টটল, লিওনার্দো দা ভিঞ্চি, মেরি কুরি, বারাক ওবামা, বিল গেটস, মার্ক জাকারবার্গ, অমিতাভ বচ্চন, সচিন তেন্ডুলকর, ব্রায়ান লারা, ওয়াসিম আক্রাম, রাফায়েল নাদাল, ডেভিড গাওয়ার, অ্যাঞ্জেলিনা জোলি, টম ক্রুজ, হেলেন কেলার, লেডি গাগা, লুইস ক্যারল, প্রিন্স উইলিয়ামস, ওপরাহ উইনফ্রে, তাদের পরিচয় নতুন করে দেওয়ার কিছু নেই, তারা সবাই বাঁ-হাতি। এই তালিকা নেহাতই ছোট নয়, আরো প্রচুর বাঁ-হাতি বিখ্যাত মানুষের নাম তালিকায় রয়েছে। ফলে বাঁ-হাতিরা ডান-হাতিদের থেকে কম তো নয়, বরং এগিয়েই বলা যায়।

এটা বলা হয়, বাঁ-হাতিরা ডানহাতিদের থেকে বেশি সৃষ্টিশীল এবং বুদ্ধিমান হন। উপরের তালিকা দেখলে অবশ্য এই দাবি সম্পর্কে সন্দেহ হওয়ার কথা নয়। গবেষণায় দেখা গিয়েছে, মস্তিষ্কের ডান এবং বাঁ অংশের মধ্যে যোগাযোগ ব্যবস্থা ডান-হাতিদের থেকে বাঁ-হাতিদের বেশি, এর ফলেই তারা বেশি বুদ্ধিমান হন। এমনকি বাঁ-হাতিদের জলের তলায় দৃষ্টিশক্তি ডান-হাতিদের থেকে বেশি। খুঁজলে এমন অনেক খুঁটিনাটি বিষয় সামনে আসবে। তবে সে সব সরিয়ে রাখলেও বাঁ-হাতি দিবস পালনের মূল উদ্দেশ্য এই বার্তা দেওয়া। তারা কোনো ভাবেই অস্বাভাবিক নন, ডানহাতিদের মতোই স্বাভাবিক।

বাঁ-হাতি হওয়ার কারণ

পৃথিবীতে বেশির ভাগ মানুষ ডানহাতি। কিন্তু অল্প কিছু মানুষ কেন বাঁ-হাতি হন? মনে প্রশ্ন জাগতে পারে বৈকি। গবেষকরা বাঁ-হাতি হওয়ার কারণ হিসেবে ৪০টির মতো জীন শনাক্ত করেছেন। প্রচলিত আরেকটি গবেষণার ফল জানলে আপনি চমকে উঠতে পারেন, জন্মগ্রহণের সময় শতকরা ৭৫ ভাগ শিশুই বামহাতি হওয়ার বৈশিষ্ট্য নিয়ে জন্মায়। কিন্তু পরবর্তী সময়ে পরিবেশ ও জীবনযাপন পদ্ধতি মিলিয়ে শিশু ডানহাতিতে পরিণত হয়।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শারীরবৃত্তীয় বিভাগের প্রধান ড. টিম ক্রোর মতে, সম্ভবত মানবদেহের পিসিডিএইচ-১১এক্স জিন হাতের ব্যবহারের এ বিষয়টি নির্ধারণ করে দেয়। অক্সফোর্ডের আরেক বিশেষজ্ঞ ড. ফ্রাংকসের মতে, ক্রোমোজোম ২-এর মধ্যে থাকা এলআরআরটিএম-১ জিনের জন্য মানুষ হাত ব্যবহারে আলাদা বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন হয়। এ ছাড়া মাতৃগর্ভে থাকা ডাই ইথাইল স্টিলবোস্টেরলের সংস্পর্শ বাঁ-হাতি হতে সহায়ক।

কেবল মানুষই নয়, অনেক পশু-পাখিও বাঁ-হাতি বৈশিষ্ট্য হয়। এক গবেষণায় বলা হয়, অস্ট্রেলিয়ান ক্যাঙ্গারুরা সব বাঁ-হাতি। সেখানে বলা হয়, দ্বিপদী প্রাণীর ক্ষেত্রে হয়তো এমনটা হওয়াই স্বাভাবিক। কিন্তু চতুষ্পদী প্রাণীরা এ ধরনের বৈশিষ্ট্য প্রকাশ করে না।

প্রাণীর এই বিশেষ বিষয়টি নিয়ে টিয়া পাখি ও মুরগির ওপর গবেষণা করেছেন নরওয়ের ব্রুনে ক্যাসেল বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ড. লেসলি রজারস। তিনি জানান, চোখ ও হাতের সংযোগের কারণে প্রাণীরা শরীরের বিভিন্ন অংশকে প্রাধান্য দিয়ে কাজ করে। যেমন, যদি কোনো টিয়া পাখি ডান চোখে কোনো খাবার খেয়াল করে, তবে স্বভাবতই সে তা ধরতে ডান পা এগিয়ে দেবে। এই বৈশিষ্ট্যের জন্য রজারস মস্তিষ্কের ‘হেমিস্ফিয়ার’ অংশের কার্যপ্রণালির কথা তুলে ধরেন। মস্তিষ্কের এই অংশ ডান ও বামের বিষয়টি নির্ধারণ করে। কাজেই এই অংশটি স্বাভাবিকভাবেই বাঁ-হাতি বা ডানহাতি হিসেবে মানুষকে তৈরি করে।

বাঁ-হাতিদের নিয়ে চমকপ্রদ তথ্য

  • গবেষণায় দেখা গেছে, বাঁ-হাতিদের ডান পাশের মস্তিষ্ক বেশি ব্যবহৃত হয়। এ জন্যই সাধারণত বাঁ-হাতিরা বেশি উদ্ভাবনী ক্ষমতাসম্পন্ন হয়ে থাকে। ক্রিস এমসি ম্যামস ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন থেকে প্রকাশিত ডানহাতি ও বাঁ-হাতিদের ওপর লেখা একটি বইতে উল্লেখ করা আছে, বাঁ-হাতিদের জীবনের সাফল্য, প্রাপ্তি বা কৃতিত্বপূর্ণ কাজ ডানহাতিদের তুলনায় ঈর্ষণীয়। বলা হয়ে থাকে, তাঁদের আইকিউ বেশি এবং সংগীত ও গণিতে তাঁদের পারদর্শিতা ডানহাতিদের চেয়ে ভালো।
  • ক্রীড়াজগতে ক্রিকেট, টেবিল টেনিস, ব্যাডমিন্টন, টেনিস, বেসবল খেলায় বাঁ-হাতিরা বেশ সুবিধা আদায় করে নিতে পারে।
  • ইউরোপ ও আমেরিকা মহাদেশের সফল রাজনীতিবিদদের অনেকেই বাঁ-হাতি। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টদের মধ্যে চারজন বাঁহাতি ছিলেন।
  • নির্দিষ্ট সময়ের আগে জন্মগ্রহণকারী বেশির ভাগ শিশুই বাঁ-হাতি হয়। গর্ভাবস্থায় এবং প্রসবের সময় সন্তানের অবস্থান এবং প্রিম্যাচিউর (অর্থাৎ ২৪ সপ্তাহের আগে এবং জন্মগত ওজন ১.৫ কেজির কম হলে) হলে বাঁ-হাতি হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।
  • ১৯৮৯ এবং ১৯৯১ সালে প্রকাশিত দুটি বৈজ্ঞানিক প্রবন্ধে বলা হয়েছিল, বাঁ-হাতিদের জীবনকাল ডানহাতিদের চেয়ে কম হয়। কিন্তু সম্প্রতি এক গবেষণায় ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষকরা এই কথাটি নাকচ করে দিয়েছেন।
  • বিশ্বে বেশির ভাগ যন্ত্র এবং সরঞ্জাম ডানহাতিদের উপযোগী করে বানানো। এ জন্য প্রতিবছর বিশ্বে দুই হাজারের বেশি বাঁ-হাতি বিভিন্ন দুর্ঘটনার শিকার হন।
  • মা-বাবা দুজন বাঁ-হাতি হলে সন্তানদের শুধু শতকরা ২৬ জন বাঁ-হাতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  • ডানহাতিদের তুলনায় বাঁ-হাতিদের অ্যালার্জি এবং মাথাব্যথার (মাইগ্রেন) সমস্যা বেশি হয়। এ ছাড়া বাঁ-হাতিরা অনিদ্রা ও তোতলামির সমস্যায়ও ভোগেন।
  • ২০০৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের লাফায়েত কলেজ এবং জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা দেখিয়েছেন, বাঁ-হাতি মানুষরা ডানহাতিদের চেয়ে ১০-১৫% বেশি উপার্জন করেন।
http://www.anandalokfoundation.com/