বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
শিক্ষার্থীদের জন্য বিদ্যালয়ে পৃথক ও স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নিশ্চিত করা হবে -স্থানীয় সরকার মন্ত্রী   Foreign Minister inaugurates Smart NID Card in Abu Dhabi কালীগঞ্জে লবণ নিয়ে তুলকালাম ৫০ হাজার টাকা জরিমানা ॥ গুজবের বিরুদ্ধে প্রচার মাইক কালীগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের নবনির্বাচিত সভাপতি সম্পাদকের সাথে নেতাকর্মীদের মতবিনিময় পল্লী চেতনা আপেল প্রকল্পের জেন্ডার সমতা ও সহিংসতা প্রতিরোধ বিষয়ক প্রশিক্ষণ লম্বা লাইনে উচ্চ মূল্যে লবণ ক্রয় করায় বাজারের লবণ ফুরাতে বসেছে ময়না দেবনাথের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন ও জড়িতদের শাস্তির দাবিতে মানব বন্ধন জবে লবনের দাম বৃদ্ধি উলিপুরে দলবেঁধে লবন কিনতে বাজারে ক্রেতার ভীড় ফুলবাড়ীতে ইউ পি চেয়ারম্যান কর্তৃক প্রতিবন্ধী নারী নির্যাতিত বাশাইলে হেমন্তকালীন কবিতা সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত

স্বামী স্ত্রীর সুখের সাগরে চোরাবালি

কুমিল্লা থেকে এসে ঢাকা ইউনিভার্সিটিতে অনার্স করছি আমি দিয়া। ছোট বেলা থেকে রেজাল্ট ভালো এস.এস.সি, এইস.এস.সি তে জিপিএ ৫ পেয়েছি। অনার্স তৃতীয় বর্ষে একটা বেক্তিগত ফার্মে চাকরী পেয়েছি। বুদ্ধিমত্তা আর কম্পিউটারের উপর আমার ভালো দক্ষতা থাকার কারনে হয়তো সুবিধা হয়েছে চাকরীটা পেতে।

অফিসে ভালো পারফর্মেন্সের জন্য ২-৩ মাসের মদ্ধ্যে বসের সাথে ভালো সম্পর্ক তৈরি হয় পাশাপাশি আমার কলিকরাও আমাকে ভালবাসে। আমার বয়স ২৫ আমার বসের বয়স আনুমানিক ৪৫। তার কোন স্টাফ যতই সুন্দরী আর স্মার্ট হোক না কেন কাজের বাইরে কারো দিকে তিনি ফিরেও তাকান না। সব জায়গায় যেমন শোনা যায় স্টাফ আর বসের নানান সম্পর্কের কথা আমাদের বসের তেমন রেকর্ড নেই। তারনামে কোন খারাপ কথা পুরো অফিসের কেউ বলতে পারে না।

কিছুদিন ধরে হোস্টেলে থাকার খুব সমস্যা হচ্ছিল । সেকথা আমি কাছের দু একজন মেয়ে কলিক কে বলেছি। কিভাবে যেন সেই কথাটা বসের কানেও গেছে। তিনি একদিন আমায় তার চেম্বারে ডেকে বললেন ”দিয়া তোমার যদি সমস্যা না হয় আমার ফ্লাটে থাকতে পারো যতদিন তোমার সমস্যা না মিটছে। আমার ফ্লাটে আমি আর আমার বাবা থাকি তার বয়স ৭৫ এর উপরে। এক আন্টি এসে রান্না করে দিয়ে যায়। আর বাবাকে দেখার জন্য একজন ভদ্রমহিলা সবসময় থাকেন তার বয়স প্রায় ৫০। তুমি ভেবে দেখতে পারো। তোমার হাত ধরে এই কয়মাসে এই কম্পানির অনেক উন্নতি হয়েছে তাই তোমার বিপদে তোমার পাশে দাঁড়ানো প্রয়োজন বলে মনে হয়েছে তাই বললাম তোমায়। তবে সিদ্ধান্ত তোমার”।

সব ভেবে চিন্তে স্যারের ফ্লাটে শিফট হয়ে গেলাম। আমার কলিকরাও আশ্বস্ত হল , বলল যাক তোর একটা নিরাপদ ও নিশ্চিন্ত আশ্রয় হল। স্যারের বাসায় থাকতে থাকতে তার সাথে আমার একটা সুন্দর সম্পর্ক তৈরি হল। মাঝে মাঝে তাকে কফি করে দেই। একসাথে খাবার খাই। আস্তে আস্তে তার বাবা আর আমার ও খুব সুন্দর একটা সম্পর্ক হল। তার ছেলেতো তাকে সময় দিত না, আমি দেই। আঙ্কেলের সাথে, গল্প করি, ঘুরতে যাই তাকে নিয়ে, কটনবার দিয়ে তার কান চুলকে দেই। আঙ্কেল আনন্দে কেঁদে ফেলেন বলেন কে জানে আগের জন্মে তুমি ই আমার মা ছিলে। এখন থেকে তুমি আমার মা । তোমাকে আমি মা বলেই ডাকবো। স্যারের কানে কথাটা গেলে তিনি ও খুশি হন বলেন ভালোই তো।

প্রায় ১ মাসের বেশি এই ফ্লাটে থাকি। স্যার ঘরে বসে কাজ করার সময় মাঝে মাঝে টুকটাক গল্প ও হয়। আস্তে আস্তে জানতে পারি এত বয়সেও তিনি কেন এখনো বিয়ে করেননি। কলেজে পড়ার সময় তিনি একটা মেয়েকে ভালবাসতেন। একবার তিনি খুব অসুস্থ হলে সেই ভদ্রমহিলা অনেক সেবা করে সুস্থ  করেন। সেই থেকে দুজনার প্রেম হয়। স্যার পাগলের মত ভালবাসতেন তাকে। একসময় সে স্যার কে ধোঁকা দেয়। সেই কষ্টে তিনি আর বিয়ে করেননি। শুনে আমার ও খুব কষ্ট লাগে। আস্তে আস্তে তারপ্রতি দুর্বলতা তৈরি হতে থাকে।এ দুর্বলতা প্রেম নয় । মনে হয় তার কষ্টের কথা শুনে সেই জায়গা থেকে একটা সেম্প্যাথি। এত বড় ব্যবসায়ী অথচ মনে কত কষ্ট। এদিকে তার বাবা আকার ইঙ্গিতে আমাকে বলেন তোমায় মা ডেকেছি তুমি ই আমার মা। তোমার মত করে কেউ কোনোদিন আমায় যত্ন করেনি।

এক পর্যায়ে স্যার ও আমার মদ্ধ্যে একটা স্নিগ্ধ, শুভ্র সম্পর্ক তৈরি হয়। ওই বাসার সবাই আমার উপর খুশি সবাই বলে এবার যদি দাদাবাবুকে সংসারী করতে পারো দেখো। কেমন ছন্নছাড়া জীবন যাপন করত। তার প্রতি কেয়ারিং আর তার প্রতি যত্ন দেখে শেষ পর্যন্ত আঙ্কেল আর স্যার দুজনই রাজি হল। এতদিন তার বাসায় আছি আমার প্রতি তার কোন খারাপ দৃষ্টি বা খারাপ আচরণ আমার চোখে পড়েনি তাই আরো ভালো লাগে তাকে। আমি আমার বাবা মাকে জানালাম তারা বলল যদি তুমি সুখি হও তাহলে আমাদের কোন আপত্তি নেই।

বিয়ে হয়ে গেল আমাদের। বিয়ের পর থেকে ও আমাকে এত ভালোবাসতো কল্পনাই করা যায় না। মনে হত আমি যেন সুখের সাগরে ভাসি। সকালে ঘুম থেকে ওঠার আগে প্রায় এক ঘণ্টা আমাকে জড়িয়ে থাকতো। কত আদর করত ভাবাই যায় না। আমাকে কখননবিছানায় দেখলেই হল কোথা থেকে যেন চলে আসতো আর দুষ্টুমি করত। উঠে ফ্রেশ হয়ে ও যখন মেডিটেশন করত কখনো কখনো আমি ওর কলে শুয়ে পড়তাম । ও আমায় নিয়েই করতো। রোজ রুটিন ছিল মেডিটেশন করার পর সে ৫ মিনিট শুয়ে রেস্ট নেবে আমি গিয়ে অকে জড়িয়ে থাকবো সেই ৫ মিনিট। তারপর একসাথে দুজন উঠে আসবো। বিয়ের পর ১ মাস তো অফিসেই যায়নি। বাইরে বের ই হতে চাইতো না আমায় রেখে। আমার শ্বশুর আমায় খুবই ভালোবাসতো। তার ছেলের সাথে হাসি-আল্লাদ করতে দেখলে আনন্দে সেও নাচত। বলত এতদিনে আমার সংসারটা সুখে ভরে উঠলো। আমি ওকে আমার হাতের উপর নিয়ে ঘুমাতাম রাতে। শুরুতেই বলেছিলাম যদি কখনো রাগ বা ঝগড়া ও হয় তাহলে আলাদা ঘুমানো যাবে না কিন্তু। যত রাগ ই থাকুক না কেন আমার হাতের উপর ই ঘুমাতে হবে। ও তখন বলতো এত সুন্দর একটা বউ আমার তার উপর কি কখনো রাগ করা যায়। আমার ভাগ্য আমি তোমার মত একটা মেয়েকে আমার জীবনসঙ্গিনী হিসেবে পেয়েছি।

যখন থেকে অফিসে যাওয়া শুরু করলো খাওয়ার পর বেসিন থেকে সোজা রুমে চলে আসতো। কম করে ১০ মিনিট আমায় জড়িয়ে শুয়ে থাকবে তারপর রেডি হয়ে বের হবে। অফিসে গিয়েও এত মেসেজ করতো যে আমি এক প্রকার অতিষ্ঠ হয়ে যেতাম। বকতাম , বলতাম আমায় মেসেজ করা আর কোন কাজ নেই। বলত না। আমি বলতাম একটা কম্পানির বস তার কোন কাজ নেই? ও বলতো সেই বসের বস তো তুমি তাই তোমার কাজ করি সারাদিন। এটাই তো আমার একমাত্র কাজ। আমি মনে মনে ভাবতাম এমন একজন মানুষকে কিভাবে কেউ ধোঁকা দিতে পারে। তবে ভালোই হল নাহলে আমি তো আর ওকে পেতাম না।

বিয়ে হয়েছে মাত্র ৩ মাস। জানিনা ধীরে ধীরে তার কি হল। আমি তার মদ্ধে আস্তে আস্তে কিছু বদল লক্ষ করতে থাকলাম। সে আমায় আগের মত আদর করে না । সকালে ঘুম ভাঙ্গার পর সেই মুহূর্ত গুলো কোথায় যে হারিয়ে গেছে আর খুঁজে পাই না। এখন আর মেডিটেশন করার পর আমার জন্য অপেক্ষা ও করে না, খাওয়ার পর আর আমায় জড়ানোর কথা মনেও পড়ে না তার। এখন যদি খাওয়ার পর তার বের হওয়ার আগে আমি নিজে থেকে গিয়ে বিছানায় শুয়ে থাকি সে রেডি হয়ে বলে এখন বের হব এখনো শুয়ে থাকবে নাকি। আমি নিরবে অশ্রুসিক্ত চোখে তাকে বলি চলো গেট লাগিয়ে দিচ্ছি। তারপর বিছানায় এসে হাউহাউ করে কাঁদি। রাতে বিছানায় ঘুমাতে গিয়ে দেখি সে তার মত বালিশ নিয়ে আমার বালিশ থেকে প্রায় ১ হাত দূরে শুয়ে ঘুমিয়ে পড়েছে। তখন মনে পড়ে আগে একটা বালিশে ঘুমাতাম দুজন। ভাবি আর কাঁদি আর বিছানায় বসে ছট ফট করি।

দিনের বেলা ভাবি কখন যে রাত হবে , রাত হলে ওকে জড়িয়ে একটু ঘুমাতে পারবো, অর গায়ের গন্ধ নিতে পারবো। আর রাত হলে ভাবি কখন সকাল হবে , রাত আর কত বাকি আছে? সে আমার পাশে অথচ আমার থেকে লক্ষ যোজন দূরে এই কষ্ট যে মেনে নিতে পারি না। এভাবে ছট ফট করতে করতে একটু ঘুমাই। ৫-১০ মিনিট পর ঘুম ভেঙ্গে দেখি ও আমার হাতের উপর নেই বিছানার ওই প্রান্তে শুয়ে আছে । আবার কান্নার সাগরে ডুবে যাই। এখন শুধু সেইসব স্মৃতি মনে করে আর ওর সাথে কাটানো ছবি দেখে কেঁদে কেঁদে কি যেন খুঁজে বেড়াই।

শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2019 News Time Media Ltd.
IT & Technical Support: BiswaJit