কবরে পুতে রাখার ৬ দিন পর নিখোঁজ ইস্রাফিলের মরদেহ উদ্ধার, নারীসহ গ্রেফতার ৩

    Rai Kishori
    September 1, 2021 8:36 am
    Link Copied!

    স্টাফ রিপোর্টার বেনাপোলঃ যশোরের শার্শায় নিখোঁজ হওয়ার ৬ দিন পর ইস্রাফিল(৩৭) নামে এক শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। হত্যার সাথে জড়িত এক নারীসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
    ১সেপ্টেম্বর বিকাল ৫ টায় শার্শার কাশিয়া ডাঙ্গা গ্রামের  একটি কবর স্থান থেকে ইস্রাফিলের লাশ উদ্ধার করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশের সদস্যরা। তাকে হত্যার পর গোঁপনে মরাদেহ  কবর স্থানে পুতে রাখা হয়েছিল।
    ইস্রাফিল শার্শার কাশিয়াডাঙ্গা গ্রামের বজলু মিয়ার ছেলে। সে শার্শার কাশিয়াডাঙ্গা আকিজ বিড়ি ফ্যাক্টোরিতে দিন মজুরের কাজ করতো।
    এর আগে গত ২৭  আগস্ট রাতে ইস্রাফিল নিখোঁজ হলে তার স্ত্রী রোজিনা শার্শা থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। পরে মামলাটি হাতে নেয় জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।
    গ্রেফতারকৃতরা হলেন, শার্শার কাশিয়াডাঙ্গা গ্রামের আহম্মেদ তরফদারের ছেলেও কাশিয়া ডাঙ্গা ওয়ার্ড আ,লীগের সভাপতি মোশারেফ হেসেন, নুরমোহাম্মদের ছেলে আলম ও ইসমাইলের স্ত্রী মর্জিনা বেগম।
    নিহতের স্ত্রী রোজিনা জানান,  ২৭ আগস্ট রাত ৮ টার দিকে মোবাইলে ফোন দিয়ে তার স্বামীকে  ডেকে নিয়ে যায় হত্যাকারীরা। এর পর তাকে আর খুজে পাওয়া যায়নি। পরে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়।  পূর্ব পরিকল্পনা করে তাকে নৃশংস ভাবে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। তিনি হত্যাকারীদের দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি চেয়েছেন।
    নিহতের ভাইপো স্বপন  জানান,  পরিবারের একমাত্র উপার্জন করতেন ইস্রাফিল। তার ৪ ছেলে মেয়ে। এখন পরিবারটি কিভাবে  বেঁচে থাকবে চিন্তায় ভেঙে পড়েছেন। অভিযুক্তদের এমন শাস্তি হওয়ার দরকার যাতে আর কেউ এমন কাজ না করতে পারে।
    জেলা গোয়েন্দা পুলিশ সুত্রে জানা যায়, ইস্রাফিলের সাথে পারিবারিক দ্বন্ধ ছিল প্রতিবেশি মর্জিনার। এর সুত্র ধরে ঐ নারী  দেড় লাখ টাকা দিয়ে লোক ভাড়া করে  হত্যা করে ইস্রফিলকে। অভিযুক্ত নারীর স্বামী ও ভাই দুজনে থাকে বিদেশ। নানান কাজে  ইস্রাফিলদের বাড়ি যাতায়াত ছিল এ পরিবারের। ধারনা করা হচ্ছে  এ নিয়ে দ্বন্ধ দুই পরিবারের। তবে অভিযুক্ত সবাই গ্রেফতার হলে মুল কারণ সামনে আসবে।
    শার্শা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) বদরুল আলম জানান, হত্যায় অংশ নেয়  বেশ কয়েকজন। এর মধ্যে ৩ জনকে গ্রেফতার করা  হয়েছে।  অন্যদেরকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। বৃহস্পতিবার যশোর জেলা গোয়েন্দা পুলিশ আনুষ্ঠানিক ভাবে হত্যার রহস্য প্রকাশ করবেন জানান ওসি।