শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ০৬:৫২ পূর্বাহ্ন

সর্বশেষ খবর :
৪০টি ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটের স্বীকৃতি পেয়ে সুপার ৪০ ক্লাবে প্রবেশ করছে ভারত আবার ৩১ আগস্ট পর্যন্ত বাড়লো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটি প্রকল্প বাস্তবায়নে কোনো ধরনের অজুহাত না দিয়ে কাজ চালিয়ে যাওয়ার আহ্বান শিল্পমন্ত্রীর কনসেন্ট্রেটর ও অক্সিজেন সিলিন্ডার প্রদান সমাজকল্যাণমন্ত্রীর বেনাপোলে কোটি টাকা  রাজস্ব ফাঁকির অভিযোগে সিঅ্যান্ডএফ লাইসেন্স বাতিল যশোরে ক্ষুদ্র ঋণ আওতায় ২শ’ ৮৬ জনকে তিন কোটি ৬লাখ ৪৩ হাজার টাকা প্রদান ভারতে পাচার ১০ নারী,পুরুষ ফিরলো ট্রাভেল পারমিটে  সুন্দরবনে বাঘের জন্য নিরাপদ আবাসস্থল নিশ্চিত করা হবে -পরিবেশ উপমন্ত্রী বেনাপোলে ইয়াবা সহ দুই মাদক ব্যবসায়ি আটক পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কা লাগার ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন

কালকিনিতে প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরে শান্তি খুঁজে পেয়েছে অসহায়রা

মাদারীপুর প্রতিনিধি ঃজমি নেইও ঘর নেই এরকম ৩৬টি ঘরের মানুষ শান্তি খুঁজে পেয়েছে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহারে। ৪০টি ঘর নির্মান হলেও ৪টির এখনো পুরো কাজ শেষ না হওয়ায় ৩৬টি পরিবার তাদের শান্তির নীড় হিসাবে বেছে নিয়েছে মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলার এলাকায়। এই ৩৬টি ঘরে অবস্থান করছে একই উপজেলার লামচরী, সাহেবরামপুর, কাজিবাকাই, গোপালপুর, এনায়েতনগরসহ ও পৌরসভার ১৮জন।

জাতিরজনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বছর উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদের একটি মানুষও গৃহহারা হয়ে থাকবেনা বলে ঘোষনা করেন। ঘোষনায় বলা হয় যাদের জমি ও ঘর নেই তারা থাকবে “ক” তালিকায় আর যাদের জমি আছে ঘর নাই তারা থাকবে “খ” তালিকায়। কালকিনি উপজেলায় “ক” তালিকায় প্রথম ৪৫৯টি পরিবারের মধ্যে ঘর ও জমি বরাদ্দ পায় উপজেলা প্রশাসন। দ্রুত সময়ের মধ্যে খাস জমি নির্ধারন করে তার উপর নির্মান করা হয় ৪০টি ঘর। দেশে ভূমিহীন ও গৃহহীন অসহায় মানুষদের মধ্যে যাদের ভূমি নেই, তাদের সরকারের খাস জমি থেকে দুই শতাংশ ভিটে এবং ঘর দিচ্ছে সরকার। যাদের ভিটে আছে ঘর নেই, তাদের ঘর দিচ্ছে সরকার। প্রতিটি ঘর দুই কক্ষ বিশিষ্ট। এতে দু’টি করে কক্ষ ছাড়াও সামনে একটি বারান্দা, একটি টয়লেট, একটি রান্নাঘর এবং কিছুটা খোলা জায়গা থাকবে।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের উদ্দেশ্য হলো- ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল অসহায় দরিদ্র জনগোষ্ঠীর পুনর্বাসন, ঋণ প্রদান ও প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহে সক্ষম করে তোলা এবং আয় বাড়ে এমন কার্যক্রম সৃষ্টির মাধ্যমে দারিদ্র্য দূরীকরণ। প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরের সঙ্গে মর্যাদাও ফিরে পাবে। সেই উদ্দেশ্যে মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলায় প্রধানমন্ত্রীর উপহার দেয়ার জন্য গত বছরের ১২ অক্টোবর এক একটি ঘর এক লাখ ৭১ হাজার টাকায় পাকা ঘর নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়। ১৯ ফুট ৬ ইঞ্চি দৈর্ঘ্য ও ২২ ফুট ৬ ইঞ্চি প্রস্থের ঘর হবে। ভেতরে থাকবে দুটি কক্ষ, থাকবে রান্নাঘর ও শৌচাগার। এই ঘর নির্মাণে ছয় হাজার ইট, ৫০ বস্তা সিমেন্ট, ২০০ ঘনফুট বালু এবং ভিটা নির্মাণে ৫০ ফুট বালু ব্যবহার করতে হবে।

কালকিনি উপজেলায় এই ঘর বানানোর জন্য উপজেলায় পাঁচ সদস্যের একটা কমিটি ছিল। ইউএনও ছিলেন তার আহ্বায়ক। কমিটির বাকি সদস্যরা হলেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি), উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী ও সংশ্লিষ্ট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান। এই কমিটির সদস্য সচিব ছিলেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বা পিআইও। এ বছরের ২৩ জানুয়ারী প্রধানমন্ত্রীর উপহার ঘর ও জমির দলিল হস্তান্তর করা হয়।

সালেহা বেগম বলেন, ‘আগে বসতভিটাও ছিল না। ঘর করব কেমনে। পরের জয়াগায় পলিথিন দিয়ে থাকতাম। রৌদ বৃষ্টি ঝড়ে কষ্ট করতাম। এহন প্রধানমন্ত্রী ঘর দিছে সেই ঘরে থাহি। দোয়া করি প্রধান মন্ত্রী যেন ভাল থাহে।

জোছনা খাতুন বলেন, ‘সরকারি জায়গায় আগে যে ঘরে থাকতাম, বৃষ্টি হলে ঘরে পানি পড়তো। বর্ষায়-বৃষ্টিতে রাতে ঘুমাতে পারতাম না, উঠে বসে থাকতাম। প্রধানমন্ত্রী আমাদের একটা জমি, একটা ঘর (সেমি পাকা) দিয়েছেন। এখন নিশ্চিন্তে ঘরে ঘুমাতে পারি। ’

মোঃ দেলোযার সরদার বলেন, ‘এই ঘর পাওয়ার আগে গোলপাতার ঘরে থাকতাম তখন আমাদের কোন মর্যাদা ছিল না, নিরাপত্তা ছিল না। সবাই আমাদের অবহেলা করতো, করুণা চোখে দেখতো, অসম্মানের চোখে দেখতো। প্রধানমন্ত্রীর উপহারের ঘরের সঙ্গে আমরা মানুষ হিসেবে মর্যাদাও ফিরে পেয়েছি। এখন সবাই আমাদের মূল্যায়ন করে। ’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দীর্ঘায়ু কামনা করে তিনি আরও বলেন, ‘নিজেদের এমন একটা ঘর হবে স্বপ্নেও ভাবিনি। প্রধানমন্ত্রী আমাদের ঘর দিয়েছেন, এ ভীষণ আনন্দের। নামাজ পড়ে প্রধানমন্ত্রীর জন্য দোয়া করি, তিনি যেন আমাদের মত অসহায় মানুষের জন্য আরও কাজ করতে পারেন। আল্লাহ ওনাকে সুস্থ রাখুন, হায়াত বাড়িয়ে দিন। ’

মোঃ ছোরহাব বেপারী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আমাদের ঘর দিয়েছে। আগের আমাদের কোনো ঠিকানা ছিল না। কষ্ট করে ঝুঁপড়ি ঘরে থাকতাম। এখন সুন্দর পাকা ঘরে থাকি। সুখে আছি। ’

আশ্রয়ণ প্রকল্পের উপজেলা কমিটির সদস্য সচিব উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা(পিআইও) মোস্তফা কামাল বলেন, যে বরাদ্দ তা দিয়ে আমরা যথাসাধ্য চেস্টা করেছি ভাল কাজ করার। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নকে বাস্তবায়নে চেস্টা করেছি। তবে যদি কোন উপকারভোগী কোন সমস্যার কথা বলে তাৎক্ষনিক সমাধান করার চেস্টা করি।

আশ্রয়ণ প্রকল্পের আহ্বায়ক কালকিনি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মেহেদী হাসান বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বছর উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বাংলাদের একটি মানুষও গৃহহারা হয়ে থাকবেনা বলে ঘোষনা করেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় জেলা ও উপজেলা প্রশাসন স্থানিয় প্রশাসন ও প্রতিনিধিদের নিয়ে আমরা এক যোগে কাজ করে যাচ্ছি। ডিজাইন ও কাঠামগত অনুযায়ী আমরা ভাল কাজ করেছি এবং এখানে যারা আছে তারা ভাল আছে। আমরা আগামীতে এই অসহায় পরিবারদের যার যার কর্মস্থান অনুযায়ী কর্মের ব্যবস্থা করবো।

 

শেয়ার করুন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

দ্যা নিউজ এর বিশেষ প্রকাশনা

পুরাতন সংবাদ পডুন

SatSunMonTueWedThuFri
  12345
2728     
       
   1234
       
282930    
       
      1
       
     12
       
2930     
       
    123
25262728   
       
      1
9101112131415
30      
  12345
6789101112
272829    
       
   1234
2627282930  
       
1234567
891011121314
22232425262728
293031    
       
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৪-২০২১ | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি
IT & Technical Support: BiswaJit